শীর্ষ শিরোনাম
Home » শীর্ষ সংবাদ » মুসা আল হাফিজ এর কবিতা বিষয়ক একটি গ্রন্থ প্রসঙ্গে

মুসা আল হাফিজ এর কবিতা বিষয়ক একটি গ্রন্থ প্রসঙ্গে

13230318_1730406320550325_183991003284848322_nশেখ জুনাইদ আলহাবিব:  কোনো বই যদি লেখা হয় বিদগ্ধ কোনো কবির কবিতা নিয়ে আর লেখক যদি হন বরেণ্য কোনো সাহিত্যিক, তাহলে সে বই আলাদা গুরুত্বের দাবি রাখে। বিখ্যাত কবি, সাহিত্য সমালোচক মুকুল চৌধুরী লিখিত ‘ মুসা আল হাফিজ কবিতার নতুন কণ্ঠস্বর’ তেমনই এক গুরুত্বপূর্ণ বই। এক প্রদীপের আলোয় আরেক প্রদীপ উজ্জ্বল হয়েছে এ বইয়ে। বইয়ের শুরুতে এক আগুন্তুকের চমৎকার বর্ণনা রয়েছে। এরপর শুরু হয়েছে গভীর আলোচনা। আলোচনার ধরণ লক্ষ্য করুন,
“মুসার কবিতাকে বিষয়-বিন্যাস বেশ
কঠিন। মুসা এক কবিতায় বহু রঙের
পালকের ডানা মেলে উড়াল দিয়েছেন।
কোনটির কোন রং- সবুজ না হলুদ; কোনটি অমাবস্যার-আঁধারের, কোনটি পূর্ণিমা-উজ্জ্বলতা; কোনটি আশাবাদের, কোনটি হতাশার; কোনটি প্রেমের, কোনটি দ্রোহের; কোনটি দর্শনের, কোনটি অধ্যাত্ববাদের-এ বিন্যাসে নাই বা গেলাম।”

মুকুল চৌধুরী প্রথমে ‘ আজ রাতে তারাগুলো’ কবিতার ব্যাখ্যা করেন। কবিতার বিভিন্ন অংশ উল্লেখ করে তার ‘কাব্যভাষা নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেন এবং প্রশ্ন তুলেন, “এ কোন সময়ের কাব্যভাষা? এ কবিতা কোন সময়কে প্রতিনিধিত্ব করছে? এ কী বাংলা কবিতার পাশ ফেরানোর কোনো ইঙ্গিত? না কী আকাশের বিদ্যুৎ-চমকের মতো ক্ষণস্থায়ী কোনো বিস্ময়?”

মুকুল চৌধুরী লেখেন,
” আমাদের আধুনিক কবিরা গ্রীক কিংবা হিন্দু মিথ ব্যবহারে যেভাবে কুণ্ঠাহীন, নিজস্ব ঐতিহ্য থেকে সত্যাশ্রয়ী মিথের ব্যবহারে ততোখানি কুণ্ঠাবোধ করে থাকেন। মুসাকে ধন্যবাদ তার মিথের এ সফল প্রয়োগ এবং ফেরাউনের পটভূমিকায় দাজ্জালকে সংস্থাপনের জন্য।”

তিনি মুসা আল হাফিজের প্রতিটি কবিতা নিয়ে পর্যালোচনা করেছেন। করেছেন অন্তর্ভেদী আলোচনা। যেমন- ‘ মহাবিশ্বের করতালি’ কবিতা নিয়ে লেখেন,
” ‘মহাবিশ্বের করতালি’ পাঁচ অংশে
লেখা দীর্ঘ কবিতা। কবি এখানে এক বিশ্ব-নাগরিক। ধমনী তার নদী, হৃদয় তার
সমুদ্র, প্রেম তার গহীন আফ্রিকা, আত্মা
তার আকাশ। ‘ স্নেহের সৌরলোকে’ তিনি এক ‘ ক্ষিপ্র মাছরাঙ্গা’, যার ‘ছাদ ছেয়ে আছে হাওয়ায় ছুটন্ত মেঘের হ্রেষা’। ছুটতে ছুটতে তার আশ্রান্ত প্রশ্নের স্পর্ধা : ‘ হাহাশ্বাসে তরপানো মানুষের পাঁজরে পা রেখে ওই হায়ান কারুন কেনো শিখরের লিফটে চড়বে প্রভূ?’
একই সাথে তিনি বাংলাদেশরও। তার
উদর ‘ছাপ্পান্ন হাজার বর্গমাইল’, যার প্রসব গর্বে মৌ মৌ করছে ‘ লালন-তিতু; অটল সহোদর ‘।
তার স্ফুর্তিতে মোচড় মারে ‘ফারাক্কার
ক্রোধ’, সমুদ্রকন্যাদের উষ্ণতায় ‘তৃষ্ণার্ত
কক্সবাজার’, ‘চাষার রোদভাজার সরল
চিত্রকল্প’, ‘তার লুণ্ঠিত শস্যের মাটি’।
মুসা এ কবিতায় আরও স্পষ্ট। আদর্শবাদিতা
তার অনুধ্যান। বিশ্ব-বিশৃংখলায় তার
বিতৃষ্ণা। দ্বন্দ্ব-সংঘাত আর অসুস্থ ও
বিকারগ্রস্ততায় তিনি বিক্ষুব্ধ। এ থেকে
তিনি পরিত্রান চান। তাই তো তার
অনুসিদ্ধান্ত : বিক্ষোভের কাল সমুপস্থিত’,
‘পুনরুত্থান পতাকা হাতে’ কেউ
একজন আসছেন। অতএব: গর্বউদ্ভিদেরা
হাত মুখ ধুয়ে রেখো’, ‘প্রান্তর মাথা তোলা,
মেরুদণ্ড প্রদর্শনের বাজছে নাকাড়া ‘।
প্রথম অংকের মতোই পাঁচ অংকে লিখিত
দীর্ঘ ১৭৭ লাইনের এ কবিতা জুড়ে একই অনুকরণ। এ শতাব্দী তার ভাষায় – তুষার শতাব্দী’।

‘তোমার রহস্য’ এর আলোচনায় লেখেন,
” এই অধ্যাত্মবাদ ‘ তোমারই রহস্যে’ কবিতায় আরও প্রগাঢ়, নিগুঢ় ও প্রসারিত। মুসা সুফিবাদি কবিদের মতো মহাচেতনায় নিজেকে লীন করে দিয়ে পুনরুদ্ধারে ব্রতী:
খুঁজে পাচ্ছি না কোথাও
মৃত্তিকা নক্ষত্র অরণ্যের গর্ত
চন্দ্র কুয়োতলা বাগানের সব ফুল
পাহাড় সমুদ্র তছনছ করে চিত্রপ্রদর্শনী, কবিতার শিবিরে, প্রাচীন সরলভোর
জ্যোৎস্নার দারুণ ঢেউ- নেই কোথাও
কোথাও পাচ্ছি না হৃদয় আমার
আয়াজের মতো আমি মাতাই মাঠের ঘাস
পাখির মতো নীলিমায় ছড়াই বুকের আগুন নিখোঁজ নিখোঁজ বলে হাতরাই মেঘের নাড়ি-ভূরি
পেলাম না কোথাও
হৃদয়!
হৃদয়!
পেলাম না।
হে প্রভু আমার আশিক হৃদয়
তোমারই আলোয় তবে লীন হয়ে গেছে?”
বাহ! সত্যিই এক অনাস্বাদিত পঙক্তিমালা। হৃদয় কারবারীরাই (এখানে ‘হৃদয়’ অর্থ -ক্বলব, রুহ ইত্যাদি ইত্যাদি) শুধু খোঁজ রাখেন, বাংলা কবিতায় পরম সত্তার সাথে নিজ সত্তাকে লীন করে দেওয়ার এমন আস্বাদন খুবই কম। কবি ফররুখ আহমদের ‘ডাহুক’ কবিতায় প্রতীকী হয়ে এমন শব্দমালা ঝরতে দেখেছি। আফজাল চৌধুরীর কিছু কিছু কবিতায়- সেও প্রতীকে এবং শেষমেষ আবদুল মান্নান সৈয়দের ‘ সকল প্রশংসাব তাঁর’ কাব্যগ্রন্থে- কিন্তু তাও এমন সোজাসাপ্টা নয়। তাছাড়া, মুসা তো একবিংশ শতাব্দীর কবি। এ কবির তো উত্তরাধিকার বাংলা কবিতার যুক্তিবাদী নান্দিপাঠ। ফার্সি কবিতার ভাববাদী পদাবলী নয়। অর্থাৎ মুসা এখানে-এই সময়ে একক এবং স্বীকার করতেই হয় আগামী কবিদের পথপ্রদর্শক।

মূলত মুকুল চৌধুরী বলেন, মুসা শুধু আশাবাদী কবি নন, নৈরাশ্যবাদী তো ননই। তিনি আশা-নিরাশার দ্বন্ধে বিক্ষত-প্রাণ। নৈরাশ্যের চিত্র এঁকেই ক্ষান্ত নন, আশাবাদে সুষুপ্ত স্বপ্নও জাগিয়েছেন। তা প্রকাশ পেয়েছে ‘ নতুন দিনের কাব্য’ কবিতায়।

তিনি ‘অমোঘ সাইরেন’ কবিতায় মুসাকে ভালোবাসা দিয়ে সতর্ক করেন। যাতে তিনি পরাবাস্তব কবিতার দুর্বল দিকগুলো পাঠ করেন। তবে তিনি ‘লাশের অট্রহাসি’ কবিতায় বলেন, এটা স্বীকার করতে হবে যে, মুসা এ পরাবাস্তবতা প্রকৃত পক্ষে তাঁর দার্শনিকতাকে আড়াল করার, তাঁর দার্শনিকতা, তাঁর অধ্যাত্মিকতাকে আড়াল করার জন্য লাসাম বা রুমাল বিষেশ।

এভাবে মুকুল চৌধুরী ৪৮টি কবিতার বিশ্লেষণ শেষ করেন। পরে ‘আদমের আত্মজীবনী থেকে’ এবং ‘ঈভের হ্রদের মাছ’ কবিতার দিকে মনযোগ দেন। মানবসভ্যতার সূচনাদায়ী দুই নাম- ‘ আদম’ আর ‘ হাওয়া’। তিনি এ দুইটি কবিতার গভীর বিশ্লেষণ করেন। নিঃসঙ্গতা, আশা,নিরাশা, পাওয়া- না পাওয়া সবকিছু সংক্ষেপে ব্যাখ্যা করেন।

তিনি বলেন, মুসা সে চিত্রও কল্পনা তুলিতে আকাঁর দু:সাহস দেখিয়েছেন। মুসা আদমের জবানীতে সেই চিত্রটি একেঁছেন :
“সুর্য্যের মস্তক ছুঁয়ে স্বর্গভ্রষ্ট লাবন্যের স্পর্শ খুঁজছিলাম
মেঘের উপহাসে হৈ হৈ করে ওঠলো…।”

এরপর তিনি বলেন, মুসা আদমকে হাওয়ার খুঁজে এক অনুসন্ধানী অসহায় মানুষ হিশেবে কবিতায় সুন্দর করে তুলে ধরেন। হাওয়াকে এতো বড়ো গৃহে কী পাওয়া সহজ! সেই অনুভূতিটা মুসা কল্পনার রঙে রাঙিয়েছেন:

” সে কোথায়, আমার বক্ষছেদা অনন্তের নিপুণ হাসি
ও সিংহল মেসোপটিয়া…।”

অবশেষে, আদম আ. তাঁর অনুশোচনা ও অনুতাপের সাগর পাড়ি দিতে সক্ষম হলেন।

এরপর তিনি ‘ঈভের হ্রদের মাছ’ কবিতার বিশ্লেষণ করে রচনাটির সমাপ্তি টানেন।

আমাদের সাহিত্য অঙ্গণে বইটি এক চমৎকার সংযোজন। বইটি পড়া উচিৎ কবি মুসা আল হাফিজকে বিশেষভাবে জানার জন্য। যারা আধুনিক কবিতার স্বাদ আস্বাদন করতে চান, তাদের জন্য এই বইটি দারুণ এক সুসংবাদ।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now