শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » ৬৭ বছরের আওয়ামী লীগ…

৬৭ বছরের আওয়ামী লীগ…

15125কেয়া চৌধুরী:  বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী প্রাচীনতম রাজনৈতিক সংগঠন আওয়ামী লীগের ৬৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী (আজ) ২৩ জুন। গত ৬ দশকেরও বেশি সময় ধরে নিজেদের যোগ্যতা প্রমাণ করে গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান হিসাবে, প্রতিষ্ঠিত করেছে। দেশের প্রতিটি আন্দোলন-সংগ্রামে আওয়ামী লীগের রয়েছে উজ্জ্বল ভূমিকা।
আওয়ামী লীগ মানেই, সাধারণ মানুষের আকাক্সক্ষা বাস্তবায়নের বিশাল এক ক্যানভাস। প্রতিচ্ছবি একঝাঁক সংগ্রামী মানুষের।

৫২’র ভাষা আন্দোলন, ৬২’র ছাত্র আন্দোলন, ৬৬’র ছয় দফা, ৬৯’র গণঅভ্যুত্থান, ৭০’র যুগান্তকারী নির্বাচন আর ১৯৭১ সালের মহান স্বাধীনতা আন্দোলন সবখানেই সরব উপস্থিত ছিল আওয়ামীলীগের। অধিকাংশ আন্দোলনের কৃতিত্ব এককভাবে আওয়ামী লীগের।

এই ভূখণ্ডের কোটি কোটি মানুষের জন্য আওয়ামী লীগের যে কালজয়ী কৃতিত্ব শত শত বছরে ধরে উজ্জ্বল হয়ে থাকবে; তা হলো আমাদের মহান স্বাধীনতা। এ স্বাধীনতা আন্দোলনের অগ্রসেনানী ছিলেন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আওয়ামী লীগ ও বঙ্গবন্ধু এক অবিভাজ্য সত্তা।

১৯৪৯ সালে আওয়ামী লীগের যাত্রা শুরু হয়। এই বছরের ২৩ জুন পরনো ঢাকার কে এম দাম লেনের ঐতিহাসিক রোজ গার্ডেনে তৎকালীন পাকিস্তানের প্রথম প্রধান বিরোধী দল হিসাবে পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ প্রতিষ্ঠা লাভ করে। প্রথম কাউন্সিলে মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী এবং শামসুল হককে দলের যথাক্রমে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। তখন তরুন নেতা শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন কারাগারে বন্দি। বন্দি অবস্থায় তাকে সর্বসম্মতিক্রমে প্রথম কমিটির যুগ্ম সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়।

১৯৫৩ সালে ময়মনসিংহে দলের দ্বিতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। এতে মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী সভাপতি এবং শেখ মুজিবুর রহমান সাধারণ সম্পাদক হন।

১৯৫৫ সালের ২১-২৩ অক্টোবর পুরনো ঢাকার রূপমহল সিনেমা হলে দলের তৃতীয় কাউন্সিল অধিবেশনে আওয়ামী লীগ অসা¤প্রদায়িক সংগঠনে পরিণত হয়। ‘মুসলিম’ শব্দটি বাদ দিয়ে দলের নতুন নামকরণ হয় পূব পাকিস্তান আওয়ামী লীগ। নিখিল পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগের সভাপতি হোসন শহীদ মোহরাওয়ার্দী প্রস্তাবটি উত্থাপন করেন।

পরে কাউন্সিল অধিবেশনে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী  ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বহাল থাকেন।’ ৫৭ সালে কাগমারী সম্মেলনে দলের আন্তর্জাতিক নীতির প্রশ্নে সোহরাওয়ার্দী-ভাসানীর মতপাথক্যের কারণে প্রথমবারের মতো আওয়ামী লীগ ভেঙ্গে যায়। ভাসানীর নেতৃত্বে গঠিত হয় ন্যাশনাল আওয়ামী লীগ পার্টি (ন্যাপ)। আর মূল দল আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন মাওলানা আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ ও সাধারণ সম্পাদক শেখ মুজিবুর রহমান বহান থাকেন। ১৯৫৮ সালে পাকিস্তানে সামরিক শাসন জারি হলে আওয়ামী লীগের কর্মকাণ্ড স্থগিত করা হয়। ১৯৬৪ সালে দলটির কর্মকাণ্ড পুনরুজ্জীবিত করা হয়। এত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে তর্কবাগীশ ও শেখ মুজিবুর রহমান অপরিবর্তিত থাকেন।
১৯৬৬ সালের কাউন্সিলে দলের সভাপতি পদে নির্বাচিত হন শেখ মুজিবুর রহমান, তার সঙ্গে সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হন তাজউদ্দিন আহমদ। এরপর ১৯৬৮ ও ১৯৭০ সালের কাউন্সিলে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক অপরিবর্তিতে থাকেন।
এই কমিটির মাধ্যমেই পরিচালিত হয় মহান মুক্তিযুদ্ধ। দেশে স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭২ সালে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রথম কাউন্সিলে সভাপতি হন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান। ১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধু স্বেচ্ছায় সভাপতির পদ ছেড়ে দিয়ে সভাপতির দায়িত্ব দেয়া হয় পঁচাত্তরে কারাগারে ঘাতকদের হাতে নিহত জাতীয় নেতাদের অন্যতম এএইচএম কামরুজ্জামানকে।

সাধারণ সাম্পাদক পদে বহাল থাকেন মো. জিল্লুর রহমান। ১৮৯৫ সালের ১৫ আগস্ট আসে আওয়ামী লীগের ওপর মরণঘাত। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর রাজনৈতিক পটপরিবর্তন হলে আওয়ামী লীগের রাজনীতি আবারও স্থগিত করা হয়। ১৯৭৬ সালে ঘরোয়া রাজনীতি চালু হলে আওয়ামী লীগকেও পুনরুজ্জীবিত  করা হয়।

এতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক  করা হয় যথাক্রমে মহিউদ্দিন আহমেদ ও বর্তমান সংসদের উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী। ১৯৭৭ সালে এই কমিটি ভেঙ্গে করা হয় আহবায়ক কমিটি। এতে দলের আহবায়ক করা হয় সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দিনকে। ১৯৭৮ সালের কাউন্সিলে দলের সভাপতি করা হয় আবদুল মালেক উকিলকে এবং সাধারণ সম্পাদক হন আব্দুর রাজ্জাক।

এরপরই শুরু হয় আওয়ামী লীগের  উত্থানপূর্ব, উপমহাদেশের বৃহত্তম রানৈতিক দল হিসেবে গড়ে তোলার মূল প্রক্রিয়া। সঠিক নেতৃত্বের অভাবে দিলের মধ্যে সমস্যা দেখা দিলে নির্বাসনে থাকা বঙ্গবন্ধুকন্যা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়। দেশে ফেরার আগেই  ১৯৮১ সালের  কাউন্সিলে শেখ হাসিনাকে আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত করা হয় এবং সাধারণ সম্পাদক পধে বহাল থাকেন আব্দুর রাজ্জাক। আবারও ঘাতক আসে দলটির ওপর।

১৯৮৯ সালে আব্দুল রাজ্জাকের নেতৃত্বে দলের একটি অংশ পদত্যাগ করে আওয়ামী লীগ থেকে বেড়িয়ে বাকশাল গঠন করে। এসময় সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেয়া হয়। ১৯৮৭ সালের কাউন্সিলে শেখ হাসিনা সভাপতি ও সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী সাধারণ সম্পাদক হন।

১৯৯২ ও ১৯৯৭ সালের সম্মেলনে শেক হাসিনা এবং মো. জিল্লুর রহমান যাত্থাক্রমে দলের  সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০০০ সালের বিশেষ কাউন্সিলে একই কমিটি বহাল থাকে। ২০০২ সালে ২৬ ডিসেম্বর জাতীয় কাউন্সিলে শেখ হাসিনা সভাপতি এবং আব্দুল জলিল সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০০৮ সালের নির্বাচনে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ দেশের একক বৃহত্তম রাজনৈতিক দলের পরিণত হয়।
তিনি-চতুর্থাশেরও বেশি আসনে বিজয়ী হওয়ার পর ২০০৯ সালের ২৪ জুলাই ও ২০১২ সালের ২৯ ডিসেম্বর জননেত্রী শেখ হাসিনা সভাপতি হিসাবে নির্বাচিত হন। বাঙালির শেষ ভরসার ‘বাতিঘর’ শেখ হাসিনা বিজয়ী নিশান নিয়ে শুরু দল পরিচালনাই করছেন না; সরকার প্রধান হয়ে উন্নয়নের মহাসড়কে দেশ পরিচালনা করছেন সফল রাষ্ট্রনায়ক হয়ে। বাংলাদেশ আজ বিশ্বের উন্নয়নের রোল মডেল।

গত জুন মাসে জি-৭ সম্মেলনে ‘উন্নয়নের ভাবনায় শেখ হাসিনা বিষয়ে ভূয়সী প্রসংশা করেছেন। আওয়ামী লীগ সরকার শুধু দেশে নয়; আন্তজার্তিক পরিমণ্ডলেও দারিদ্র্যতা ও জঙ্গীবাদকে নির্মূল করার জন্য প্রংসশনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করে চলেছেন। দেশ এবং বিদেশে জনপ্রিয়তা নিরিক্ষে আওয়ামী লীগের সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা অপ্রতিরুদ্ধ সংগ্রামী উন্নয়নের রূপকার। সে কারণেই, ১৬ কোটি মানুষের বাংলাদেশ আজ বিশ্বাস করে,
শেখ হাসিানার হাতে রইলে দেশ,
পথ হারাবেনা বাংলাদেশ…
জয়বাংলা, জয়বঙ্গবন্ধু।

লেখক: সংসদ সদস্য, সমাজকর্মী।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now