শীর্ষ শিরোনাম
Home » রাজনীতি » হতাশ আওয়ামী লীগ !

হতাশ আওয়ামী লীগ !

index_132911
র্শীষনিউজ: ইউরোপীয় ইউনিয়নে (ইইউ) ব্রিটেনের থাকা না থাকা নিয়ে দেশটির গণভোটের দিকে তাকিয়ে ছিল গোটা দুনিয়া। আজ শুক্রবার সকালে ভোটের ফলাফলে দেশটির ইইউ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পরপরই পদত্যাগের ঘোষণা দেন হতাশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন। ব্রিটিশদের এই সিদ্ধোন্তে ধস নামে লন্ডনসহ বিশ্বের বেশিরভাগ পুঁজিবাজারে। ধস নামে ব্রিটিশ পাউন্ডের দরেও। তবে ইস্যুটি ব্রিটিশ নাগরিকদের পাশাপাশি ইউরোপীয় ইউনিয়নের কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলেও বাংলাদেশের জন্য মোটেও কম গুরুত্বপূর্ণ ছিলনা। সেজন্য ফলাফল বিপক্ষে যাওয়ায় অন্যদের মতো হতাশ আওয়ামী লীগ তথা বাংলাদেশ সরকারও।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, ‘ইইউতে থাকা না থাকা নিয়ে ব্রিটেনে যে সিদ্ধান্ত হয়েছে সেটা একান্তই তাদের রাজনৈতিক বিষয়। যদিও ব্যবসা বাণিজ্যসহ বিভিন্ন কারণে আমরা ইইউতে থাকার পক্ষেই ছিলাম। এখন নতুন সিদ্ধান্তে ব্রিটেনে কী ধরণের প্রভাব পড়ে আগে সেটা দেখা যাক। ইউরোপিয় ইউনিয়ন থেকে তাদের বেরিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত যৌক্তিক ছিল কীনা তা সময়ই বলে দেবে।’

তবে দলটির অন্যতম সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘আসলে শুধু বাংলাদেশ নয়, প্রায় গোটা বিশ্বই চেয়েছিল ব্রিটেন ইইউর সাথেই থাকুক। কিন্তু জনমতে তার প্রতিফলন না ঘটায় অন্যদের মতো আমরাও খানিকটা হতাশ। কারণ, ইইউ ঐক্যবদ্ধ থাকায় ব্যবসা বানিজ্য এবং সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদসহ বিভিন্ন ইস্যুতে একসাথে কাজ করার সুযোগ ছিল। এখন হয়তো তাতে খানিকটা প্রভাব ঘটতে পারে। তবে তারা সময়ের সাথে সাথে এ প্রভাব কাটিয়ে উঠতে পারবে বলে আমাদের বিশ্বাস।’

আওয়ামী লীগ ও সরকারের নির্ভরযোগ্য একাধিক সূত্র জানায়, ইউরোপীয় ইউনিয়নে ব্রিটিশদের থাকার জন্য সব ধরণের ক্যাম্পেইন চালায় বংলাদেশ সরকার। তারই অংশ হিসেবে বংলাদেশী বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিকদের ইইউ’র পক্ষে থাকতে ডেভিড ক্যামেরনের বিশেষ অনুরোধে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফকে বিশেষ দূত হিসেবে লন্ডন পাঠান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সরকারের গুরুত্বপূর্ণ এ নেতা সেখানে বাংলাদেশী কমিউনিটির সাথে একাধিক সভা, সেমিনার ও ইফতার পার্টিতে মিলিত হন। এসব অনুষ্ঠানে তিনি ব্রিটেন ইইউর সাথে থাকলে বাংলাদেশ কিভাবে লাভবান হবে সেই বিষয়টি তুলে ধরার চেষ্টা করেন।

যুক্তরাজ্যের ইউরোপীয় ইউনিয়নে (ইইউ) থাকার পক্ষে ভোট দেয়ার জন্য সে দেশে বসবাসরত বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে সৈয়দ আশরাফ বলেন, ‘আমি নিজেও যুক্তরাজ্যের একজন ভোটার। আমার ভোট আমি পক্ষে দেব, আপনারাও পক্ষে দেবেন সেটাই আমরা চাই।’

সৈয়দ আশরাফ জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে বিশেষ কারণে তিনিসহ কয়েকজন যুক্তরাজ্যে এসেছেন। আর এই বিশেষ কারণ হলো যুক্তরাজ্যে বসবাসরত বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ভোটারদের ইইউতে থাকার পক্ষে ভোট দেয়ার আহবান জানানো।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় যুক্তরাজ্যের সহযোগিতার কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে সৈয়দ আশরাফ সেখানে বলেন, ‘ইউরোপ যদি ঐক্যবদ্ধ থাকে, তা আমাদের জন্য ভালো। ইইউতে থাকলে যুক্তরাজ্য শক্তিশালী হবে। আর যুক্তরাজ্য যদি শক্তিশালী হয়, আমরাও শক্তিশালী হব।’

এ ছাড়া যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ নেতা কর্মীরাও ইইউ তে থাকার পক্ষে বাঙালী কমিউনিটিতে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালান। সেজন্য ব্রিটিশ নাগরিকদের ভোটের ফলাফলে ইইউ ছাড়ার সিদ্ধান্তে চরম হতাশ হয়েছেন আওয়ামী লীগ ও সরকারের নীতি নির্ধারকেরা।

অর্থনীতি ও রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা বলছেন, ব্রিটিশদের নতুন এ সিদ্ধান্তে যুক্তরাজ্যের বাজারে শুল্কমুক্ত বাণিজ্য সুবিধা অব্যাহত রাখতে নতুন করে আলোচনার টেবিলে বসতে হবে বাংলাদেশকে। কারণ, ইউরোপীয় ইউনিয়নের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে যুক্তরাজ্যের বাজারে শুল্কমুক্ত সুবিধা পেয়ে আসছে বাংলাদেশ। কিন্তু যুক্তরাজ্য ইইউ থেকে বেরিয়ে গেলে ওই সিদ্ধান্ত আর কার্যকর থাকবে না। এ ছাড়া বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে যুক্তরাজ্যের বাণিজ্য, সহযোগিতা, আর্থিক লেনদেন, পরিবহনসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রভাব ফেলবে। এরইমধ্যে বৈশ্বিক অর্থবাজার বড় ধরনের ঝাঁকুনি খেয়েছে।

রয়টার্স জানিয়েছে, ২০০৮ সালের বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সঙ্কটের পর আন্তর্জাতিক অর্থবাজারে সবচেয়ে বড় ঝাঁকুনি দিয়েছে এ গণভোট। এ অবস্থায় নীতিনির্ধারকরা কী করবেন তা নিয়ে ভাবনায় পড়েছেন।

এদিকে বৈশ্বিক অর্থনীতিতে বিরূপ প্রভাব পড়ার আশঙ্কায় খানিকটা চিন্তিত বাংলাদেশ সরকারও। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারণী পর্যায়ের একজন নেতা আলাপকালে বলেন, ‘বাংলাদেশ ২০১৩-১৪ অর্থবছরে যুক্তরাজ্যে ২.২ বিলিয়ন ডলারের পণ্য রফতানি করেছে। রফতানি বাণিজ্যের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের কাছে যুক্তরাজ্যের অবস্থান তৃতীয়। আর স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে যুক্তরাজ্যসহ ইইউয়ের অন্যান্য দেশে শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার পেয়ে থাকে বাংলাদেশ। জনগণের সিদ্ধান্তে যেহেতু যুক্তরাজ্য ইইউ থেকে বের হয়ে যাচ্ছে, তাই শুল্কমুক্ত বাজার সুবিধার জন্য স্বল্পোন্নত দেশগুলোকে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে নতুন করে আলোচনা করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘গণভোটের পর যুক্তরাজ্যের মুদ্রা পাউন্ড দুর্বল হয়ে ১৯৮৫ সালের পর্যায়ে নেমে গেছে এবং এর প্রভাব সঙ্গে সঙ্গে না পড়লেও নিকট ভবিষ্যতে পড়বে। যুক্তরাজ্যের অর্থনীতি ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত থাকার কারণে এর নেতিবাচক প্রভাব ইউরোর ওপর পড়বে। আমাদের মনে রাখতে হবে, লন্ডন হচ্ছে পৃথিবীর অর্থনৈতিক রাজধানী এবং পাউন্ডের মূল্য পরিবর্তন সারা বিশ্বে প্রভাব ফেলে। আর পাউন্ড এবং ইউরো দুর্বল হলে বাংলাদেশের রফতানির ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব পড়ার আশঙ্কা রয়েছে এবং এ বিষয়ে রফতানিকারকরা তাদের উদ্বেগের কথা জানিয়েছে।

তবে অর্থনীতির জন্য অশনিসঙ্কেত হলেও যুক্তরাজ্যের সাথে রাজনৈতিক সম্পর্কের ওপর কোনও প্রভাব পড়বে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now