শীর্ষ শিরোনাম
Home » শীর্ষ সংবাদ » র্শীষ ইসলামী ব্যক্তিত্ব মাওলানা মুহিউদ্দীন খান আর নেই

র্শীষ ইসলামী ব্যক্তিত্ব মাওলানা মুহিউদ্দীন খান আর নেই

13528863_812366545565243_3703441178895624022_n
সিলেট রিপোর্ট: উপমহাদশেরে বিশিষ্ট ইসলামী ব্যক্তিত্ব, দেশের র্শীষ আলেম ,
বাংলায় সীরাত সাহিত্যের জনক,ইসলামী রেনেসাঁর অগ্রদূত, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সিনিয়র সহসভাপতি, তাফসীরে মাআরিফুল কোরআনসহ অসংখ্য গ্রন্থরে অনুবাদক ও মাসিক মদীনা সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন খান আমাদের মাঝে আর নেই। তিনি আজ (১৯ রমজান, ২৫ জুন ২০১৬ ইসায়ী) শনিবার সন্ধ্যা ৬-১০ মি: রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন  ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্নাইলাইহি রাজিউন। রোববার বাদ জোহর বায়তুল মোকাররম জামে মসজিদে জানাযা অনুষ্ঠিত হবে। পরে লাশ ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার নিজ বাড়িতে নেয়া হবে। সেখানে জানাজা শেষে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে। তিনি রাজধানীর গেন্ডারিয়ায় স্বপরিবারেবেসবাস করতেন। মাসিক মদীনার সহকারী সম্পাদক মরহুমের ছোট ছেলে আহমাদ বদর উদ্দীন খান সিলেট রিপোর্টকে এতথ্য নিশ্চিত করেছেন। মৃত্যকালে স্ত্রী,৩ ছেলে, ২ মেয়েসহ অসংখ আত্মীয় স্বজন,ভক্ত অনুরক্ত রেখেযান। মৃত্যকালে মাওলানা খানের বয়স হয়েছিলো প্রায় ৮১ বছর।

মরহুমের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, মাওলানা মুহিউদ্দীন দীর্ঘদিন থেকে অসুস্থ ছিলেন। তীব্র শ্বাসকষ্টের কারণে গত বুধবার তাকে রাজধানীর কাকরাইলের ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালের আইসিইউতে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। সেখানে কৃত্রিমভাবে তার শ্বাস-প্রশ্বাস নেয়ার ব্যবস্থা করা হয়। বৃহস্পতিবার বিকালে জ্ঞান ফেরার কিছুক্ষণ পর তিনি আবারও অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে তাকে রাজধানীর ল্যাব এইড হাসপাতালে স্থানাস্তর করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ  সন্ধ্যায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মাওলানা মুহিউদ্দীন খান মাসিক মদীনার সম্পাদক ছাড়াও রাবেতা আলম আল ইসলামীর সদস্য, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সিনিয়র সহ-সভাপতি ছিলেন। উপমহাদেশের বিশিষ্ট এই আলেমে দ্বীনের মৃত্যুতে আলেম সমাজে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।
বিভিন্ন মহলের শোক  :
জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সভাপতি আল্লামা আব্দুল মোমিন,নির্বাহী সভাপতি মুফতি ওয়াক্কাস, মহাসচিব আল্লামা নুর হোসাইন কাসেমী, সিলেট জেলা সভাপতি মাওলানা শাযখ জিয়াউদ্দীন,সিলেট মহানগর সভাপতি মাওলানা মনসুরুল হাসান রায়পুরী,সিনিয়র সহসভাপতি অধ্যক্ষ আব্দুর রহমান সিদ্দিকী,সেক্রেটারী হাফিজ মাওলানা সৈয়দ শামিম আহমদ, যুব জমিয়ত বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওলানা শারফুদ্দীন,সহসভাপতি মাওলানা তৈয়্যিবুর রহমান চৌধুরী, মাওলানা শরীফ খালেদ সাইফুল্লাহ,মাওলানা গোলাম আম্বিয়া কযেস,সেক্রেটারী মাওলানা গোলাম মাওলা,জযেন্ট সেক্রেটারী মুফতি আলামিন কাসেমী,প্রচার সম্পাদক মাওলানা রুহুল আমীন নগরী প্রমুখ মাওলানা খানের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাম করেছেন।

সংক্ষিপ্ত পরিচিতি:  জন্ম ঃ মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ১৯৩৫ ঈসায়ীর ১৯শে এপ্রিল মুতাবিক ১৩৪২ বঙ্গাব্দের ৭ই বৈশাখ শুক্রবার জুমআর আজানের সময় কিশোরগঞ্জ জেলাধীন পাকুন্দিয়া উপজেলার সুখিয়া ইউনিয়নের ছয়চির গ্রামে মাতুলালয়ে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পৈত্রীক নিবাস ময়মনসিংহের গফরগাওঁ উপজেলার আনসার নগরে।

শিক্ষা ঃ মাওলানা মুহিউদ্দীন খানের মাতা একজন জ্ঞানী ও দক্ষ শিক্ষিকা ছিলেন। সন্তানদেরকে খুব ছোটবেলা থেকে ইসলামী আদব-আখলাক শিক্ষা দেয়ার প্রতি তাঁর খেয়াল ছিল অনেক বেশি। শুধু মৌখিক উপদেশ নয়, এসব বিষয়ের সযতœ অনুশীলনও তিনি করাতেন। যেকোন একটা বিষয় সুন্দরভাবে বুঝিয়ে বলার ক্ষমতা ছিল তাঁর। কোন কাজ করার জন্য হুকুম দেয়ার অভ্যাস তাঁর ছিল না। চমৎকারভাবে আগ্রহ সৃষ্টি করে দেয়ার চেষ্টা করতেন তিনি। মাতার কাছেই মাওলানা মুহিউদ্দীন খানের শিক্ষার হাতে খড়ি হয়। হাফিয নঈমুদ্দীনের নিকট তিনি কায়দা, সিপারা ও কুরআন পড়া শিখেন। পিতা তাঁকে ‘পাঁচবাগ ইসলামিয়া সিনিয়র মাদরাসা’র প্রথম শ্রেণিতে ভর্তি করে দেন। কিন্তু মাতার ইন্তিকালের পর তিনি নানীর তত্ত্বাবধানে থাকায় নানাবাড়ির নিকটবর্তী তারাকান্দি মাদরাসায় ১৯৪৭ ঈসায়ীতে ভর্তি হন। কিন্তু সেখানে মন বসাতে না পারায় তিনি দু’বছর পর আবার পাঁচবাগ মাদরাসায় ফিরে আসেন। তিনি পাঁচবাগ মাদরাসা থেকে ১৯৫১ ঈসায়ীতে আলিম ও ১৯৫৩ ঈসায়ীতে স্কলারশিপসহ ফাযিল পাশ করেন। পাঁচবাগের শিক্ষকগণের মধ্যে কলিকাতা ও দেওবন্দের ডিগ্রীধারী অত্যন্ত মেধাবী ও বিচক্ষণ আলিম মুফতী মুহাম্মাদ আলী খুরশীদমহলী রাহ্মাতুল্লাহি আলাইহি ছিলেন তাঁর গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষক। ক্লাসের পড়ার বাইরে অনেক কিছুই তিনি তাঁর কাছে শিখেছিলেন। বহু গুরুত্বপূর্ণ কিতাবের খোঁজ-খবর তিনি তাঁর কাছ থেকে পেয়েছিলেন। তাছাড়া তিনি পিতার নিকট বাংলা ও আরবী সাহিত্য অধ্যয়ন করেন। ১৯৫৩ ঈসায়ীতে উচ্চ শিক্ষার্থে ঢাকা সরকারি আলিয়া মাদরাসায় ভর্তি হন এবং ১৯৫৫ ঈসায়ীতে হাদীস বিষয়ে কামিল ও ১৯৫৬ ঈসায়ীতে ফিক্হ্ বিষয়ে কামিল ডিগ্রী লাভ করেন। ঢাকা আলিয়া মাদরাসায় যেসব শিক্ষকের নিকট অধ্যয়ন করেন তাঁদের মধ্যে আল্লামা যাফর আহমাদ উসমানী, মুফতী সায়্যিদ আমীমুল ইহসান মুজাদ্দেদী, আল্লামা আবদুর রাহমান কাশগড়ী রাহিমাহুমুল্লাহ্ উল্লেখযোগ্য। আল্লামা যাফর আহমাদ উসমানী মাদরাসায় বুখারী শরীফ পড়াতেন। তাঁর কাছে তিনি বুখারীর প্রথমার্ধ দুবার পড়েন। একবার হাদীস পড়ার বছর, আরেকবার ফিক্হ্ পড়ার বছর। তাছাড়া মাঝে মাঝে ইমামগঞ্জ মাসজিদের দারসেও গিয়ে বসতেন। উল্লেখ্য যে, আল্লামা উসমানী উক্ত মাসজিদে বাদ ফজর আশরাফুল উলূম ও জামিয়া কুরআনিয়া লালবাগের ছাত্রদেরকে বুখারী পড়াতেন। বুখারী শরীফের শেষাংশ পড়েছেন মুফতী সায়্যিদ আমীমুল ইহসান মুজাদ্দেদীর নিকট। তিনি ছিলেন প্রকৃত অর্থেই একজন গ্রন্থপ্রিয় মানুষ। কিতাবাদি ছাড়া তিনি কিছুই বুঝতেন না। খুব উঁচুস্তরের আধ্যাত্মিক ব্যক্তিও ছিলেন তিনি। তাঁর লেখা ‘ফিকহুস সুনান ওয়াল আসার’ একটা কালজয়ী কিতাব। ‘কাওয়ায়িদুল ফিক্হ্’ ও ‘আদাবুল মুফতিয়্যীন’ তাঁর কাছেই অধ্যয়ন করেন। এই তিন খানা কিতাব আল-আযহার বিশ্ববিদ্যালয়, মাদীনা বিশ্ববিদ্যালয়, দারুল উলূম দেওবন্দ ও পাকিস্তানের বড় বড় মাদরাসাগুলোতে পাঠ্য তালিকাভুক্ত। তাঁর জ্ঞানের গভীরতা সম্পর্কে এ যুগের একজন শীর্ষস্থানীয় হাদীসতত্ত্ববিদ আল্লামা আবুল ফাত্তাহ্ শামী রাহ্মাতুল্লাহি আলাইহি বলেন, “একবার আমি এই বুযুর্গ আলিমের সাক্ষাত পেয়েছিলাম মাসজিদুন নাবাবীতে। তাঁর কাছে আমি একখানা হাদীস পাঠ করেছিলাম যেন বলতে পারি যে, মুফতী আমীমুল ইহসানের ন্যায় একজন যুগশ্রেষ্ঠ হাদীসতত্ত্ববিদের নিকট থেকে আমি হাদীস শ্রবণ করেছি।” তিনি ঢাকা আলিয়া মাদরাসার হেড মাওলানার পদ থেকে অবসর গ্রহণ করার পর জাতীয় মাসজিদ বায়তুল মুকাররামের খতীবের পদ অলঙ্কৃত করেন। মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ফিক্হ্ পড়েন আল্লামা শাফী হুজ্জাতুল্লাহ্ আনসারী রাহ্মাতুল্লাহি আলাইহির নিকট। তিনি ছিলেন লক্ষেèৗর প্রখ্যাত আলিম ও উপমহাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম বীর সেনানী মাওলানা আবদুল বারী ফিরিঙ্গিমহল্লী রাহ্মাতুল্লাহি আলাইহির জ্ঞাতি ভাই। তাঁর সম্পর্কে মাওলানা মুহিউদ্দীন খান বলেন, “আল্লামা শাফী রাহ্. যখন আমাদেরকে পড়াতেন তখন তাঁর চোখ থেকে যেন প্রতিভার জ্যোতি ঠিকরে পড়তো। এমন শুদ্ধভাষী এবং অল্পকথায় জটিল বিষয় বুঝিয়ে দেয়ার মত কুশলী প-িত ব্যক্তি জীবনে আমি খুব কমই পেয়েছি।” তিনি মুসলিম শরীফ ও তিরমিযী শরীফের একাংশ অধ্যয়ন করেন মাওলানা মুমতাজ উদ্দীন রাহ্মাতুল্লাহি আলাইহির কাছে। তিনি মুসলিম শরীফের ভূমিকা অংশের একখানা বিস্তারিত ব্যাখ্যাগ্রন্থ রচনা করেন উর্দূ ভাষায় যা উপমহাদেশের সর্বত্র সমাদৃত হয়। তাঁর এক পুত্র ব্যারিস্টার মওদুদ আহমাদ বাংলাদেশের উপরাষ্ট্রপতি ও প্রধনমন্ত্রীর পদ অলঙ্কৃত করেন।

বাল্যকালে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকার সাথে তাঁর পরিচয় ঘটে। পিতা ‘মাসিক মোহাম্মদী’, ‘সাপ্তাহিক মোহাম্মদী’, ‘আল-এছলাম’, ‘শরীয়তে এছলাম’, ‘মাসিক নেয়ামত’, ‘সাপ্তাহিক হানাফী’ প্রভৃতি পত্র-পত্রিকার নিয়মিত গ্রাহক ছিলেন। পাঁচবাগ মাদরাসার প্রথম শ্রেণিতে পড়াকালে তাঁকে পিতা বেঙ্গল গভর্নমেন্টের প্রচার বিভাগ থেকে প্রকাশিত ‘বাংলার কথা’ নামক সাপ্তাহিক পত্রিকার গ্রাহক করে দেন। বিজনৌর থেকে প্রকাশিত উর্দূ অর্ধসাপ্তহিক ‘মদীনা’ এবং দিল্লী থেকে প্রকাশিত উর্দূ মাসিক ‘মওলবী’ তাদের ঘরে নিয়মিত আসত। তাছাড়া তাঁর পিতার নিজস্ব একটা গ্রন্থাগার ছিল। তাতে সে যুগের অনেক মূল্যবান বই ছিল। পিতা তাঁকে বই-পুস্তক সংগ্রহ করার ব্যাপারে খুবই উৎসাহ দিতেন। তাই ছোটবেলা থেকেই বই-পুস্তক, পত্র-পত্রিকার প্রতি তাঁর মনে তীব্র আকর্ষণ গড়ে উঠে।

মাতার অন্তিম উপদেশ ও ইন্তিকাল ঃ মাওলানা মুহিউদ্দীন খান মাত্র বার বছর বয়সে তাঁর স্নেহময়ী মাকে হারান। মুমূর্ষু অবস্থায় মা তাঁকে ডেকে বলেন, “বাজান, আমি তো চললাম। আমি না থাকাকালে তুমি কি কর তা আমি দেখব। এমন কিছু কর না যা দেখে আমার আত্মা কষ্ট পায়।” তিনি অশ্রুসিক্ত নয়নে জিজ্ঞেস করেন, “মাগো, বড় হয়ে কি করলে তোমার আত্মা খুশি হবে?” মা তখন ধরা গলায় বলেন, “তোমাকে নিয়ে কত স্বপ্নই তো ছিল। সব কথার বড় কথা, তুমি হবে ইসলামের একজন সাহসী সৈনিক। যদি আল্লাহ্ পাক তওফীক দেন তবে বড় হয়ে ‘মাসিক নেয়ামত’-এর মতো একটি পত্রিকা প্রকাশ করতে চেষ্টা করবে। আল্লাহ্র কথা, আল্লাহ্র রাসূলের কথা লিখে প্রচার করবে। আমি দুআ করে যাই, আল্লাহ্ তোমাকে সে শক্তি দিবেন।” ১৯৪৬ ঈসায়ীর ৮ই অক্টোবর মুতাবিক ১৩৫৩ বঙ্গাব্দের ২২শে আশ্বিন মঙ্গরবার মাগরিবের সময় স্নেহময়ী মাতা ইন্তিকাল করেন।
সাংবাদিকতা ঃ মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ছাত্রজীবন থেকেই সহিত্যচর্চা শুরু করেন। ঢাকা সরকারি আলিয়া মাদরাসায় অধ্যয়নকালে ‘সাপ্তাহিক তালীম’, ‘সাপ্তাহিক সৈনিক’ ‘সাপ্তাহিক কাফেলা’, ‘সাপ্তাহিক নেজামে ইসলাম’, ‘দৈনিক ইনসাফ’, ‘দৈনিক আজাদ’, ‘দৈনিক মিল্লাত’ প্রভৃতি তখনকার বহুল প্রচারিত পত্রিকায় লেখালেখি করেন। তিনি নেজামে ইসলাম পার্টির মুখপত্র ‘সাপ্তাহিক নেজামে ইসলাম’ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ১৯৫৫ ঈসায়ীর শেষের দিকে ঢাকা থেকে প্রকাশিত ‘পাসবান’ নামক বিখ্যাত উর্দূ দৈনিক পত্রিকার সহকারী সম্পাদক নিযুক্ত হন এবং ১৯৬০ ঈসায়ীতে তা বন্ধ হয়ে যাওয়া পর্যন্ত এ দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ১৯৫৭ ঈসায়ীতে ‘আজ’ নামে ঢাকা থেকে প্রকাশিত বাংলা সাপ্তাহিক পত্রিকার সম্পাদক নিযুক্ত হন। তাঁর সম্পাদনায় ১৯৫৭ ঈসায়ীর ১৫ই আগস্ট ‘আজ’-এর প্রথম সংখ্যা তখনকার সময়ের সেরা লেখকদের রচনা নিয়ে প্রকাশিত হয়ে আলোড়ন সৃষ্টি করে। পরবর্তীতে ‘আজ’ বাজারের সকল সাময়িকীর সাথে প্রতিযোগিতায় প্রচার সংখ্যার শীর্ষে পৌঁছে। ১৯৬০ ঈসায়ীতে কর্তৃপক্ষ পত্রিকাটি বন্ধ করে দেয়া পর্যন্ত তিনি তা সম্পাদনা করেন। তিনি ১৯৬০ ঈসায়ীতে ‘মাসিক দিশারী’, ১৯৬৩ থেকে ১৯৭০ ঈসায়ী পর্যন্ত ‘সাপ্তাহিক নয়া জামানা’ সম্পাদনা করেন এবং ১৯৬১ ঈসায়ী থেকে অদ্যবধি ‘মাসিক মদীনা’ সম্পাদনা করছেন।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now