শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ছিলেন আগ্রাসী শক্তির বিরুদ্ধে আপসহীন সংগ্রামী

মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ছিলেন আগ্রাসী শক্তির বিরুদ্ধে আপসহীন সংগ্রামী

13494796_1048633745173907_6065085288582357547_nআজিজুল হক ইসলামাবাদী:কিংবদন্তি লেখক, প্রখ্যাত ইসলামি চিন্তাবিদ, আমার পরম শ্রদ্ধেয় মাওলানা মুহিউদ্দীন খানের ইন্তেকালের খবরে চোখে অশ্রু, বুকে বিরহের বেদনা, মনের আবেগ আর ধরে রাখা সম্ভব হলো না। হযরত খান সাহেব হুজুরের সাথে আমার অনেক স্মৃতি। দীর্ঘ পঁচিশ বছর খুব কাছে থেকেই দেখেছি তাকে। তার সাথে অনেক জাতীয় কাজে থাকার সুযোগ আল্লাহ পাক দিয়েছেন। চট্টগ্রাম, সিলেট, রাজশাহী, ময়মনসিংহ, বগুরা, রংপুর অনেক জায়গায় সফরও করেছি। তার ¯েœহ মমতা চিরস্মরণীয়। আশির দশকের শেষের দিকে ঢাকা থেকে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় কুষ্টিয়ায় হস্তান্তরের বিরুদ্ধে তাওহিদী জনতার আন্দোলনের নেতা ছিলেন তিনি। চট্টগ্রাম আন্দরকিল্লা চত্বরে সমাবেশ হবে, এতে তিনি প্রধান অতিথি। সেই সমাবেশে জীবনে প্রথম তার যুক্তিনির্বর আবেগজড়িত কণ্ঠে বক্তৃতা শুনলাম। এখনো সেই বক্তৃতার শব্দগুলো আমার মনে রেখাপাত করে। মাদরাসার ছাত্র জীবনের শুরুতে বড় মাপের যে কয়জন আলেমকে দেখে শ্রদ্ধা ও পুলকের স্বাদ পেয়েছি খান সাহেব হুজুর তাদের অন্যতম। তার ইন্তেকালে আমরা গভীরভাবে শোকাহত। তার সম্পর্কে পরবর্তীতে বিস্তারিত লিখব ইনশাআল্লাহ।

মাওলানা মুহিউদ্দীন খান বিশ্ববিখ্যাত আলেম, এদেশের তাওহিদী জনতার অভিভাক ও মুরুব্বী এবং মনীষীদের একজন। খাঁটি দেশেপ্রেমিক, অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী, মজলুম ও নির্যাতিত অত্যাচারিতদের পক্ষে জালেমের বিরুদ্ধে আপসহীন। নাস্তিক মুরতাদ এবং ইসলাম ও মুসলিমবিদ্বেষী আগ্রাসী শক্তির বিরুদ্ধে সাহসী সিপাহসালার। তার বলিষ্ট লেখা ও কণ্ঠের সাহসী হুঙ্কারে জনসাধারণের মাঝে দীনি জযবা ও প্রেরণার সৃষ্টি হতো। তিনি মুসলিম উম্মাহ্র যে কোন সংকটকালীন সময়ে কান্ডারীর ভূমিকা পালন করেছেন। বাংলাদেশের মুসলমানদের স্বার্থ রক্ষা ও ভারতের হিন্দুত্ববাদী জঙ্গিগোষ্ঠীর সাম্প্রদায়িক উস্কানির বিরুদ্ধে সোচ্চার ছিলেন। টিপাই মুখে ভারত কর্তৃক বাঁধ নির্মাণের বিরুদ্ধে লংমার্চে নেতৃত্ব দিয়েছেন।

তিনি আজীবন দেশিয় ও আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে, নাস্তিক-মুরতাদ-খোদাদ্রোহী, ইয়াহুদি-খ্রিস্টান শক্তি, কাদিয়ানী, বাহায়ি, ভ- দেওয়ানবাগীসহ এনজিও মিশনারী আগ্রাসী অপশক্তির মুকাবিলায় আলেমসমাজ ও ইসলামী জনতাকে ঐক্যবদ্ধ করার প্রচেষ্টা চালিয়েছেন। তিনি সর্বদা ওলামায়ে কেরামের বাস্তবসম্মত ঐক্য স্থাপনের চেষ্টা চালিয়েছেন। তিনি মনে করতেন আলেম সমাজের অনৈক্যই মুসলিম উম্মাহর পতনের প্রধান কারণ। ইসলামপ্রিয় সকল মানুষকে ঐক্যবদ্ধ রাখার ক্ষেত্রে তার ভূমিকা ছিল কালোত্তীর্ণ। জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুগুলোতে তার সুদৃঢ় নেতৃত্ব ইতিহাসে স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

মাসিক মদিনা সম্পাদনার পাশাপাশি অনুবাদ করেছেন উপমহাদেশের প্রখ্যাত ফকিহ, পাকিস্তানের মুফতিয়ে আজম মাওলানা মুফতি মোহাম্মদ শফী রহ. লিখিত পবিত্র কুরআনের বিখ্যাত তাফসির মা’রিফুল কুরআন। তার সম্পাদিত, অনূদিত ও সংকলিত বইয়ের সংখ্যা অগুণিত। তিনি একজন জাতীয় রাজনীতিক এবং আন্তর্জাতিক সংগঠক। তার মৃত্যুতে বিশ্ববাসী হারালো এক অনন্য কলম-যোদ্ধাকে। তিনি হক্কানী ওলামায়ে কেরামের বিপ্লবী কাফেলার একটি উজ্জল নক্ষত্র, তার শূন্যতা পূরণ হবার নয়।

মাওলানা মুহিউদ্দীন খান বৈচিত্রময় চরিত্র ও বহুমাত্রিক গুণের অধিকারী ছিলেন। দেশ-জাতি, ইসলাম মুসলমান, শিক্ষা-সাহিত্য, তাহজীব-তামাদ্দুন, আন্দোলন-সংগ্রাম, রাজনীতি-অর্থনীতি, স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষায় তার অবদান সম্পর্কে কমবেশি সবার জানা। তাফসিরে মা’আরিফুল কুরআনের অনুবাদ করে মুসলিম জনতার মনের গভীরে স্থান করে নিয়েছেন। ইসলামী আন্দোলন, রাজনীতি ও লেখালেখি সমানভাবে চালিয়ে গেছেন। তিনি একাধারে মাসিক মদীনার সম্পাদক, সীরাতে রাসূল সা এর গবেষক, বহুগ্রন্থ প্রণেতা, বিদগ্ধ সাহিত্যিক, বরেণ্য আলেমেদ্বীন, সত্যিকারে নায়েবে রাসুল।

ষাটের দশক থেকে তিনি বাংলার রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনে প্রবেশ করেন। প্রথমে তিনি হাকীমুল উম্মত মাওলানা আশরাফ আলী থানবী রহ. এর বিখ্যাত খলিফা মাওলানা আতহার আলী রহ. প্রতিষ্ঠিত নেজামে ইসলাম পার্টির কেন্দ্রীয় দায়িত্বে সমাসীন ছিলেন। পরবর্তীতে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সাথে যুক্ত হন। এছাড়া তাঁর আরও অনেক পরিচয় আছে। তিনি সাপ্তাহিক মুসলিম জাহানের প্রতিষ্ঠাতা, রাবেতা আল-আলম আল-ইসলামির কেন্দ্রীয় সদস্য, মু’তামারুল আলম আল-ইসলামী বাংলাদেশ শাখার প্রেসিডেন্ট, ইসলামিক ফাউন্ডেশ বাংলাদেশের সাবেক গভর্ণিং বোর্ডের সদস্য, জাতীয় সীরাত কমিটি বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, আন্তর্জাতিক মজলিসে তাহাফ্ফুজে খতমে নবুওয়ত বাংলাদেশের সহসভাপতি, নাস্তিক-মুরতাদ প্রতিরোধ আন্দোলনে প্রতিষ্ঠিত সংগঠন ইসলামী মোর্চার সভাপতি, ইসলামী ঐক্যজোটের ভাইস চেয়ারম্যান, জমিয়তে ওলামায়ে ইসলামের সহসভাপতি ও সম্মিলিত উলামা মাশায়েখ পরিষদের চেয়ারম্যন ছিলেন।

উপমহাদেশে আলেমদের মধ্যে কর্মক্ষেত্রে প্রতিভার সাক্ষর রেখে যারা খ্যাতির মালা পরেছেন তাদের মধ্যে মাওলানা মহিউদ্দীন খান একজন। তিনি দেশের বাইরে, আরব জাহানে, ইউরোপে এবং দূরপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশেও পরিচিত ছিলেন। আন্তর্জাতিকভাবে পরিচিত এমন আলেমের সংখ্যা বাংলাদেশে হাতেগোনা। তাদের অন্যতম ছিলেন মাওলানা মুহিউদ্দীন খান।

মহান আল্লাহর দরবারে মরহুমের রুহের মাগফিরাত কামনা করছি। ফরিয়াদ করছি আল্লাহ তা’আলা যেন তার বহুমূখী দ্বীনি খেদমাতগুলো কবুল করতঃ তাকে জান্নাতুল ফিরদাউসের আ’লা মাকাম নসীব করেন।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now