শীর্ষ শিরোনাম
Home » স্পেশাল » ঐদিন বুঝতে পেরেছিলাম শীর্ষ নেতারা মাওলানা মুহিউদ্দীন খানকে কতটা শ্রদ্ধা করতেন

ঐদিন বুঝতে পেরেছিলাম শীর্ষ নেতারা মাওলানা মুহিউদ্দীন খানকে কতটা শ্রদ্ধা করতেন

khan-jamatআলী আহমদ মাবরুর :  ২০০৯ সালে মাওলানা মুহিউদ্দিন খান অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে দেখতে গিয়েছিলেন আল্লামা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী ও আলী আহসান মো: মুজাহিদসহ জামায়াতের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ । গতকাল (২৫ জুন) সন্ধায় রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তকাল করেছেন বিশিষ্ঠ আলেমে দ্বীন, মাসিক মদীনা সম্পাদক, অসংখ্য আলেমের ওস্তাদ, আমার শহীদ পিতার অত্যন্ত প্রিয় মানুষ মাওলানা মুহিউদ্দিন খান। প্রতিটি জীবন্ত প্রানীকে মৃত্যুর স্বাদ নিতে হবে। মাওলানার বয়স হয়েছিল। তিনি আল্লাহর ডাকে সাড়া দিয়ে চলে গেলেন। তিনি অত্যন্ত সৌভাগ্যবান, কেননা পবিত্র রমজান মাসে মাগফেরাতের সময়ে ইন্তেকাল করলেন। কিন্তু তার মৃত্যুতে আমাদের মাঝে যে শুন্যতা হলো তা সহজে পুরন হওয়ার নয়। আলেমদের মধ্যে তিনি ছিলেন ভিন্ন চিন্তাধারার একজন মানুষ। প্রচন্ড দুরদর্শী। জ্ঞান শুধু ধারন করে নয়, বরং জ্ঞানের প্রচার ও প্রকাশনাকে তিনি অনেক বেশী গুরুত্ব দিতেন। তাই একজন আলেম হয়ে তিনি ১৯৬১ সালে মাসিক মদীনা নামে একটি পত্রিকা বের করেন। পত্রিকাটি নানা চড়াই উৎড়াই পার হয়ে এখন এতটাই জনপ্রিয় যে মুহিউদ্দীন খান আর মদীনা নামটি এখন মিলে মিশে একাকার হয়ে গেছে। অসংখ্য বই রচনা করেছিলেন তিনি। অনুবাদও করেছিলেন তাফসীরে মা’আরেফুল কুরআনসহ অসংখ্য বই। তার মত ইসলামী জ্ঞানের ও আধুনিক চিন্তার সংমিশ্রনে আলেম এখন খুঁজে পাওয়া দুস্কর। তার আরেকটি গুন ছিল তিনি ইসলামী দল ও নেতৃত্বের মধ্যে ঐক্যপন্থী মানসিকতার মানুষ ছিলেন। আমার শহীদ পিতা জনাব আলী আহসান মো: মুজাহিদ জেলে যাওয়ার পর আমি তার সাথে দেখা করেছিলাম। আব্বাদের গ্রেফতারে তিনি প্রচন্ড রিএ্যাক্ট করেছিলেন। তিনি দোয়া করেছিলেন আব্বার জন্য। আব্বাকে তিনি একটু বেশী আদর করতেন। কেননা অামার শহীদ পিতাকে তিনি ছাত্রজীবন থেকে চিনেন। মাওলানা মুহিউদ্দিন খান আমার দাদা মরহুম আব্দুল আলীর পরিচিত হওয়ায় আব্বার ব্যাপারে তার দরদ ছিল বেশী। আব্বাও তাকে আমার দাদার সহকর্র্মী হিসেবে ভিন্ন ধরনের সম্মান করতেন।
আব্বাও যতদিন মুক্ত ছিলেন কোন রকমের সুযোগ পেলেই মাওলানাকে দেখতে যেতেন। আমার আর আমার ছোট বোনের বিয়ে হয়েছিল একই দিনে। সেই অনুষ্ঠানে মাওলানা মুহিউদ্দিন খান এসেছিলেন। আব্বা মাওলানা মুহিউদ্দীন খানকে দিয়েই বিয়ের মোনাজাত করিয়েছিলেন। সেই অনুষ্ঠানে মরহুম অধ্যাপক গোলাম আযম, শহীদ মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী ও আল্লামা দেলাওয়ার হোসেইন সাঈদীও ছিলেন। তারাই আব্বাকে বলেছিলেন যাতে মাওলানা মুহিউদ্দীন খানকে দিয়ে দোয়া করানো হয়। আমি ঐ দিন বুঝতে পেরেছিলাম জামায়াতের শীর্ষ নেতারা মাওলানা মুহিউদ্দীন খানকে কতটা শ্রদ্ধা করতেন।
আজ পুরনো সব স্মৃতিগুলো মনে পড়ছে। আল্লাহ তায়ালার কাছে ফরিয়াদ তিনি যেন মাওলানা মুহিউদ্দীন খানের সকল নেক আমল কবুল করে তাকে জান্নাতুল ফেরদৌস দান করেন। আমাদের মধ্যেও তার মত ইসলামকে প্রচার ও প্রসার করার যোগ্যতা সৃষ্ঠি করে দেন। অামীন

আলী আহমদ মাবরুর
জামায়াতের সাবেক সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহমদ মো:  মুজাহিদের পুত্র

*
ছবি-ক্যাপশন: ২০০৯ সালে মাওলানা মহিউদ্দিন খান অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে দেখতে গিয়েছিলেন আল্লামা দেলাওয়ার হোসেইন সাঈদী ও আলী আহসান মো: মুজাহিদসহ জামায়াতের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now