শীর্ষ শিরোনাম
Home » বিজ্ঞান-প্রযুক্তি » ফখরে মিল্লাত মুহিউদ্দিন খানের ইন্তেকালে ফেসবুকে অনুভূতি..

ফখরে মিল্লাত মুহিউদ্দিন খানের ইন্তেকালে ফেসবুকে অনুভূতি..

k1সিলেট রিপোর্ট: বরেন্য আলেমেদ্বীন মাওলানা মুহিউদ্দীন খানের মৃত্যতে তাৎক্ষণিক ভাবে বিভিন্ন জন ফেসবুকে অনুভূতি প্রকাশ করেছেন। তন্মধে কয়েকজনের অনুভূতি সিলেট রিপোর্ট এর পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হরো:

শামীম সাঈদী : ইসলামী জ্ঞান-গবেষণা, সাহিত্য, সাংবাদিকতা জগতের বর্তমানের সেরা নক্ষত্র মাওলানা মুহিউদ্দিন খানের জানাজার লাইভ টেলিকাষ্ট ত দূরের কথা জানাজা খবরটা তন্নতন্ন করে খুজেও কোথাও পেলাম না । উপমহাদেশের বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন, রাবেতা আলম আল ইসলামীর সদস্য, তাফসীরে মাআরেফুল কোরআনের অনুবাদক ও মাসিক মদীনা সম্পাদক ফখরে মিল্লাত মাওলানা মুহিউদ্দীন খান (র) এর জানাযায় আজ বাদ যোহর জাতীয় মসজিদ বাইতুল মোকাররমে তৌহিদী জনতার ঢল। মহান রব্বুল আলামীন তার এ প্রিয় বান্দাকে জান্নাতের মেহমান হিসেবে কবুল করে নিন । আমীন।।
( Shameem Sayedee , শামীম সাঈদী’র ফেসবুক থেকে সংগৃহিত)

সৈয়দ মবনু :
বাংলার এক কিংবদন্তী মাসিক মদীনা ম্যাগাজিনের সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন খান চলে গেলেন আমাদেরকে ছেড়ে। আমরা খুবই শোকাহত। আমরা তাঁর রূহের মাগফিরাত কামনা করছি। আগামীকাল বাদ যুহর তাঁর যানাযা। খুব ইচ্ছে ছিলো যানাযায় উপস্থিত হওয়ার। এক বন্ধুর সাথে কথা হয়েছিলো তারা গাড়ীর ব্যবস্থা করছেন। আমিও শত ব্যস্ততার মধ্যে তৈরি হয়েছিলাম। একটু আগে তারা জানালেন, গাড়িতে জায়গা নেই। আমার ভাগ্য খারাপ। যদিও খারাপ লাগছে, তবু তৃপ্ত চেষ্টাতো করেছি।
এনিয়ে একটা ঘটনা বলি, জুম্মার আযান হয়েছে। একজন লোক জুম্মার জন্য তৈরি হলো। অতপর সে যেতে পারলো না, কারণ সে জেলে। সে তৃপ্ত তাঁর চেষ্টার জন্য। দয়াল প্রভুও হয়তো খুশি তাঁর বান্দার চেস্টার জন্য। প্রত্যেক আমল তো নিয়তের উপর নির্ভরশীল। হে দয়াল প্রভু, তুমি মাওলানা মুহিউদ্দিন খানের জন্য আমার না-পড়া যানাযাকে কবুল করো এবং তাঁকে জান্নাতুল ফেরদাউস দান করো।
মাওলানা মুহিউদ্দিন খানের সাক্ষাৎকারের লিংক :
https://web.facebook.com/syed.mobnu.7/posts/1817150268517964

জহির উদ্দীন বাবর:
আন্তর্জাতিকভাবে পরিচিত এমন আলেমের সংখ্যা বাংলাদেশে হাতেগোনা। তাদের অন্যতম ছিলেন মাওলানা মুহিউদ্দীন খান রহ.। তিনি কী ছিলেন, কত বিস্তৃত ছিল তাঁর খেদমতের গণ্ডি তা আগে আমরা না জানলেও এখন কিছুটা জানতে পারবো। কারণ জীবিত থাকতে যারা আমাদের কারো কারো কাছে ‘অচ্ছুৎ’ তারাই পরবর্তী সময়ে ‘মহীয়ান’ হয়ে যান। জীবিতদের মূল্যায়ন করতে না পারলেও মৃতদের ব্যাপারে আমাদের ভক্তির ‘গদগদ’ ভাবটা মোটামুটি একই রকম। মাওলানা খান আমাদেরকে দিয়েছেন অগণন। পাননি ছিটেফোঁটাও। ‘অকৃতজ্ঞ’ এই জাতির কাছে কী-ই বা আর পাওয়ার আছে! তবে তিনি পাবেন প্রভুর কাছে। সেই পাওয়াই কাঙ্ক্ষিত। যুগে যুগে মুহিউদ্দীন খানেরা সেই পাওয়ার জন্যই জীবনকে তিলে তিলে ক্ষয় করে গেছেন পরের জন্য।
Zahir Uddin Babor

13438902_858568140940262_2417271790383435962_n eb7c15c466cf6085e08040b1e1edff79-Pic-1

শাহীনূর পাশা চৌধুরী

মাসিক মদীনা সম্পাদক প্রভুর ডাক পেলেন রমজানে।
ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

কলমের ভাষা আজ হারিয়ে গেছে।
বাংলাদেশের সর্বজন শ্রদ্ধেয় আলেমে দ্বীন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সিনিয়র সহ সভাপতি, আলেম সমাজের ঐক্যের প্রতীক, মাসিক মদীনা সম্পাদক, আল্লামা মুহি উদ্দীন খান সাহেব আজ ঢাকায় সন্ধা ৬ টা ২০ মিনিটে ইন্তেকাল করেছেন।
যার হাতে ধরে আমার মহান জাতীয় সংসদ পর্যন্ত পৌঁছা, আল্লাহ তায়ালার কাছে আমার রাজনৈতিক সেই অভিভাবকের জন্য জান্নাতুল ফিরদাউস কামনা করছি।
আমি বর্তমানে Uk.

Shahinoor Pasha Chowdhury

ফরিদ আহমদ রেজা:

আলিম সমাজকে বাংলা ভাষায় সাহিত্য চর্চায় উদ্বুদ্ধ করনে তিনি সফল এক ব্যক্তিত্ব। তার প্রেরণা ও পৃষ্ঠপোষকতায় কওমী মাদ্রাসায় শিক্ষিত বিপুল সংখ্যক আলিম আজ বাংলায় সাহিত্য চর্চা করছেন। কওমী মাদ্রাসার ছাত্র শিক্ষকদের উর্দু, আরবি, ফার্সির বৃত্ত থেকে বের করে বাংলা ভাষায় বহাল করার কৃতিত্ব তার প্রাপ্য। ঐ সব ভাষাকেও তিনি নিরুৎসাহিত করেন নি। ফলে ইসলামী শিক্ষায় শিক্ষিত একাধিক ভাষায় দক্ষ এই লেখকদের কাছে মাওলানা মুহিউদ্দীন খান প্রেরণার জীবন্ত আদর্শ।

Farid A Reza

নোমান বিন আরমান:
এটাই ছিলো তাঁর প্রথম সান্নিধ্য। এটাই শেষ। সিরাত সাহিত্যের প্রবর্তকের হাতে নবীকোষ দেওয়া সম্ভব হলো না। আকাঙক্ষা ছিলো তাঁর। আমাদের রইল দুর্বিসহ অাক্ষেপ।
Numan Bin Arman
শাহাদাত হোসাইন:

এমন জীবন করিবে গঠন , মরনে হাসিবে তুমি কাদিবেঁ ভূবন। জীবনের খেলা ঘরের লেখক , জীবনের বেলা শেষ করে সবাইকে কাদিয়েঁ চলে গেলেন তার মহান মালিকের দরবারে। আল্লামা মুহিউদ্দীন খান (রহঃ) এমন জীবনই গঠন করেছিলেন যার জন্য আজ সবাই কাঁদছে। আল্লাহ পাক জান্নাতে তার মর্যাদা আরো বাড়িয়ে দিন। আমিন

Shahadat Hossain

শরীফ খালেদ সাইফুল্লাহ:

বাংলায় সীরাত সাহিত্যের জনক,মাসিক মদীনা সম্পাদক,কেন্দ্রীয় জমিয়তের সিনিয়র সহ সভাপতি,ফখরে মিল্লাত,আল্লামা মুহিউদ্দিন খান রহঃ প্রভূর ডাকে চলে যাওয়ায় আমরা গভীর শোকাহত।
আল্লাহ জাতীর এ আলোকিত সন্তানকে জান্নাতুল ফিরদাউস দান করুন আমীন। Sharif Khaled Shaifullah

আলী আহমদ মাবরুর :

  ২০০৯ সালে মাওলানা মুহিউদ্দিন খান অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে দেখতে গিয়েছিলেন আল্লামা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী ও আলী আহসান মো: মুজাহিদসহ জামায়াতের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ । গতকাল (২৫ জুন) সন্ধায় রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তকাল করেছেন বিশিষ্ঠ আলেমে দ্বীন, মাসিক মদীনা সম্পাদক, অসংখ্য আলেমের ওস্তাদ, আমার শহীদ পিতার অত্যন্ত প্রিয় মানুষ মাওলানা মুহিউদ্দিন খান। প্রতিটি জীবন্ত প্রানীকে মৃত্যুর স্বাদ নিতে হবে। মাওলানার বয়স হয়েছিল। তিনি আল্লাহর ডাকে সাড়া দিয়ে চলে গেলেন। তিনি অত্যন্ত সৌভাগ্যবান, কেননা পবিত্র রমজান মাসে মাগফেরাতের সময়ে ইন্তেকাল করলেন। কিন্তু তার মৃত্যুতে আমাদের মাঝে যে শুন্যতা হলো তা সহজে পুরন হওয়ার নয়। আলেমদের মধ্যে তিনি ছিলেন ভিন্ন চিন্তাধারার একজন মানুষ। প্রচন্ড দুরদর্শী। জ্ঞান শুধু ধারন করে নয়, বরং জ্ঞানের প্রচার ও প্রকাশনাকে তিনি অনেক বেশী গুরুত্ব দিতেন। তাই একজন আলেম হয়ে তিনি ১৯৬১ সালে মাসিক মদীনা নামে একটি পত্রিকা বের করেন। পত্রিকাটি নানা চড়াই উৎড়াই পার হয়ে এখন এতটাই জনপ্রিয় যে মুহিউদ্দীন খান আর মদীনা নামটি এখন মিলে মিশে একাকার হয়ে গেছে। অসংখ্য বই রচনা করেছিলেন তিনি। অনুবাদও করেছিলেন তাফসীরে মা’আরেফুল কুরআনসহ অসংখ্য বই। তার মত ইসলামী জ্ঞানের ও আধুনিক চিন্তার সংমিশ্রনে আলেম এখন খুঁজে পাওয়া দুস্কর। তার আরেকটি গুন ছিল তিনি ইসলামী দল ও নেতৃত্বের মধ্যে ঐক্যপন্থী মানসিকতার মানুষ ছিলেন। আমার শহীদ পিতা জনাব আলী আহসান মো: মুজাহিদ জেলে যাওয়ার পর আমি তার সাথে দেখা করেছিলাম। আব্বাদের গ্রেফতারে তিনি প্রচন্ড রিএ্যাক্ট করেছিলেন। তিনি দোয়া করেছিলেন আব্বার জন্য। আব্বাকে তিনি একটু বেশী আদর করতেন। কেননা অামার শহীদ পিতাকে তিনি ছাত্রজীবন থেকে চিনেন। মাওলানা মুহিউদ্দিন খান আমার দাদা মরহুম আব্দুল আলীর পরিচিত হওয়ায় আব্বার ব্যাপারে তার দরদ ছিল বেশী। আব্বাও তাকে আমার দাদার সহকর্র্মী হিসেবে ভিন্ন ধরনের সম্মান করতেন।
আব্বাও যতদিন মুক্ত ছিলেন কোন রকমের সুযোগ পেলেই মাওলানাকে দেখতে যেতেন। আমার আর আমার ছোট বোনের বিয়ে হয়েছিল একই দিনে। সেই অনুষ্ঠানে মাওলানা মুহিউদ্দিন খান এসেছিলেন। আব্বা মাওলানা মুহিউদ্দীন খানকে দিয়েই বিয়ের মোনাজাত করিয়েছিলেন। সেই অনুষ্ঠানে মরহুম অধ্যাপক গোলাম আযম, শহীদ মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী ও আল্লামা দেলাওয়ার হোসেইন সাঈদীও ছিলেন। তারাই আব্বাকে বলেছিলেন যাতে মাওলানা মুহিউদ্দীন খানকে দিয়ে দোয়া করানো হয়। আমি ঐ দিন বুঝতে পেরেছিলাম জামায়াতের শীর্ষ নেতারা মাওলানা মুহিউদ্দীন খানকে কতটা শ্রদ্ধা করতেন।
আজ পুরনো সব স্মৃতিগুলো মনে পড়ছে। আল্লাহ তায়ালার কাছে ফরিয়াদ তিনি যেন মাওলানা মুহিউদ্দীন খানের সকল নেক আমল কবুল করে তাকে জান্নাতুল ফেরদৌস দান করেন। আমাদের মধ্যেও তার মত ইসলামকে প্রচার ও প্রসার করার যোগ্যতা সৃষ্ঠি করে দেন। অামীন
লাবীব আব্দুল্লাহ:

গফরগাঁও আনসার নগরের পথে…

জীবনের খেলাঘরের লেখক জীবনের বেলা শেষে যেখানে সুখনিদ্রায় শায়িত থাকবেন৷ যাচ্ছি সেই আনসর নগরে৷ ময়মনসিংহের গফরগাঁও৷ জান্নাতের ফুলবাগে বিচরণ করুক মদীনাপ্রেমী খান রহ এর রুহ৷
কুরআন তিলাওয়াতের নূরময় পরিবেশে আমরা দুআ করি এই ফখরে মিল্লাতের জন্য৷ ইসলামী চিন্তার বিকাশেে যিনি ছয় দশক বহুমাত্রিক অবদান রেখেছেন মাসিক মদীনার মাধ্যেমে৷ দাওয়াহ, শিক্ষা বিস্তার, শিল্প সাহিত্য এবং রাজনীতির কঠিন ও জটিল অঙ্গনে তিনি বিচরণ করেছেন৷ জাতিকে ভালোবেসেছেন৷ ভালোবেসেছেন দেশ, মাটি ও মানুষ৷ আন্তর্জাতিক ব্যক্তিত্ব ছিলেন তিনি৷ তাঁর পরিচয় সীমানা পেরিয়ে৷

গফরগাঁয়ের পথে সহযাত্রী কবি ওয়ালিউল ইসলাম৷
শিকড় সাহিত্য মাহফিলের সাথীরা থাকবেন আশা করি৷

27/6/2016
সকাল ৮টা

Labib Abdullah

জুবাযের আহমদ পাঠান:

শতাব্দীর ইতিহাসে বিরল ব্যাক্তিত্ব মাওঃ মুহিউদ্দীন খাঁন (রাহঃ)। অসংখ্য পাঠকবৃন্দ, ভক্তকুল,গুণগ্রাহী, শুভাকাঙ্ক্ষী, অাত্মীয়-স্বজনকে ছেড়ে মহান মাওলার সান্নিধ্যে চলে গেলেন।এমহান পুরুষের সাথে দু’বার মুলাক্বাতের সৌভাগ্য হয়েছিল। প্রথম সাক্ষাতঃ সালটা সম্ভবত২০০৪/২০০৫।গোলাপগঞ্জ থানার বাণীগ্রাম সম্মেলনে এসেছিলেন।হযরতের বয়ানের পূর্বে হাঃআঃরহমান(বড় হুজুর নামে পরিচিত) সূরা ফাত্বির’র৩৪নং আয়াত থেকে তিলাওয়াত করেন।হযরত উনার তিলাওয়াতের প্রশংসায় মক্কা শরীফের ইমাম সাহেবের সাথে তুলনা করেন।তখনই অনুমান করেছিলাম কত বড় মনের মানুষ হলে! শ্রেষ্ঠব্যক্তিত্ব হয়েও সাধারণ মানুষের প্রশংসা করা যায়।বয়ানের সারসংক্ষেপঃ কোন এক অমুসলিম দাবী করেছিল যে,পবিত্র কুরঅানে মহান অাল্লাহ ৩টি শব্দ অযথা ব্যবহার করেছেন, যেগুলোর কোন অর্থ নেই।(নাঊযুবিল্লাহ)দু’টি শব্দ আমি ভুলে গেছি,একটি শব্দ হলো’হুযুয়া’।হযরত তারঁ সারগর্ভ আলোচনার মাধ্যমে ঐ কাফিরের দাবী খন্ডন করে,দাবীকৃত ৩টি শব্দ অবশ্যই অর্থপূর্ণ কখনও অনর্থক নয় তা সকলের সামনে সাবলীল ভাষায় উপস্হাপন করেন।দ্বিতীয় সাক্ষাতঃসময়টা মনে নেই,জামেয়া মাদানিয়া কাজির বাজার,সিলেটে এসেছিলেন।তখন হযরতকে একেবারে কাছে থেকে ছুঁয়ে দেখার সুযোগ হয়েছিল।

Zubaer Pathan

আলহাজ্ব জুবায়ের আল মাহমুদ:

২০০২ সালের ৩ রা সেপ্টেম্বর মাওলানা মহিউদ্দীন খান সাহেবের সাথে সরাসরি দেখা হয়| পল্টনস্থ নোয়াখালী ভবন/টাওয়ারে তারঁ অফিসে | তৎকালীন সিলেট বিভাগীয় ছাত্র জমিয়তের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি, বন্ধুবর মাওলানা শিব্বির আহমদ বিশ্বনাথী এ সময় সাথে ছিলেন| আমি তখন মৌলভীবাজার জেলা ছাত্র জমিয়তের সাধারণ-সম্পাদক |
মাওলানা খান সাহেব আমাকে আর শিব্বর ভাইকে তার ডান-বাম পাশে বসালেন| নিজ হাত দিয়ে শরিষার তৈল দিয়ে মুড়ি মাখালেন | নিজে খেলেন, আমাদেরও খাওয়ালেন| কিছু-কিছু কথাও বললেন| এরই মধ্যে রং চা পান করে নিলাম| মাগরিবের আযান হল| সবাই মিলে নামাজ জামাতে আদায় করে নিলাম| নামাজ শেষে মরহুম খান সাহেব কিবলামুখী হয়ে চেয়ার বসলেন| অন্তত ৩০ মিনিট নিয়িমিত ইবাদত-বন্দেগী, জিকরুল্লাহ আদায় করেনিলেন| এরপর আমাদের আবারো তলব করে পূর্বেকার মত ডান-বাম পাশে বসালেন| মোগলাই খাওয়ালেন| সিলেটিদের বিভিন্ন প্রশংসামূলক কথা বললেন| মোগলাই, চা পানের পর মাওলানা খান সাহেব বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি,ইসলাম,জমিয়ত ও দেশ নিয়ে অনেক কথা বললেন| এশার আযান হল| জামাতে নামাজ আদায় হল| অফিসে আসলেন একেএকে জমিয়ত মহাসচিব, মুফতি ওয়াক্কাস সাহেব,মাওলানা নুর হোসাইন ক্বাসেমী,ক্বারী আব্দুল খালিক,মাওলানা ইসলামাবাদীসহ প্রমুখ জমিয়ত নেতৃবৃন্দ | নিয়মিত বৈঠক বসলো| আমারা বের হতে চেয়েছিলাম কিন্তু মাওলানা খান সাহেব রহ,আমাদের বসিয়ে দিলেন| আমরা পিছনের চেয়ারে ছোট্র বাচ্চাদের মত নীরব বসে পড়লাম | শায়খুল হাদিস, মুফতি ওয়াক্বাস সাহেব বৈঠকে বক্তব্য তুলে ধরলেন|
মাওলানা মুফতি ওয়াক্বাস সাহেব তার ৫ মিনিটের বক্তব্যে…..

Alhazz Jubaer Al Mahmud

 

মুফতী খন্দকার হারুনুর রশীদ

খসে পড়লো পূর্ণিমার চাঁদ : কাঁদো বিশ্ববাসী কাঁদো!!!
ইসলামী বিদ্যাকাশের পূর্ণিমার এক চাঁদ আজ বাংলার আকাশে সন্ধ্যা নামার সঙ্গে সঙ্গেই খসে পড়েছে। মুসলিম মিল্লাতের দিশারী, মাসিক মদীনার সম্পাদক মাওলানা মহিউদ্দিন খান রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালে সন্ধ্যা ৬: ১০ মিনিটে মহান আল্লাহর ডাকে সাড়া দিয়ে তাঁর দরবারে ফিরে গিয়েছেন।
কাঁদো বিশ্ববাসী কাঁদো!
ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্নাইলাইহি র’জিউন!!
আপনারা সকলে হুজুরের জন্য দোয়া করবেন, পরম দয়ালু আল্লাহ তা’য়ালা যেন তাঁর ভুলত্রুটি ক্ষমা করে তাকে জান্নাতুল ফেরদৌস দান করেন।
পাশাপাশি হুজুরের পরিবারের জন্যও সবাই দোয়া করবেন পরম করুণাময় আল্লাহ যেন সকলকে ধর্য্য ধরার তাওফিক দান করেন।
আগামীকাল রবিবার বাদ জোহর বায়তুল মুকাররম মসজিদে হুজুরের নামাযে জানাযা অনুষ্ঠিত হবে।
জানাযায় অংশগ্রহণের জন্য ইতোমধ্যেই বাংলার নানা প্রান্ত থেকে ঝাঁকে ঝাঁকে ছুটে চলেছেন ভক্তের দল।
সোমবার গফরগাওয়ে হুজুরের নিজ গ্রামে সকাল ১০:০০ ঘটিকায় দ্বিতীয় জনাযা শেষে তাকে দাফন করা হবে ইনশাআল্লাহ। আমরা কায়মনোবাক্যে মহান আল্লাহ পাকের দরবারে তার এ প্রিয় বান্দার মাগফেরাত ও দরজাবুলন্দি কামনা করছি। হুজুরের পরিবার-পরিজনসহ শোকগ্রস্থ সকল ভক্ত ও হিতাকাঙ্খিদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

সাপ্তাহিক ঈশানকন্ঠ

এম আবু বকর সাদী:

মুহিউদ্দীন খান রহ.স্মৃর্তি নিয়ে কিছু কথা
ক্বওমী মাদরাসায় যখন ভর্তি হলাম তখন মক্তব ছুওম এ পড়ি।মাদরাসায় দেখতাম বড় বড় ক্লাসের ভাইয়েরা “”মাসিক মদীনা””নামক একটি ম্যাগাজিন নিয়মিত পড়ে।তাদের থেকে এ উৎসাহ দেখে আমি ও কিশোর মনে তা প্রতি মাসে নিয়মিত স্তানিয় লাইব্রেরী থেকে ক্রয় করে পড়তাম।সেই থেকে মদীনা’র সাথে জড়িত পরে সাপ্তাহিক মুসলিম জাহান বিয়ানী বাজার প্রতিনিধি ও হয়েছিলাম।১৯৯৮ সালের কথা জকিগঞ্জ উপজেলার শাহবাগ মাদরাসায় বাংলা সাহিত্যের জনক ফখরে মিল্লাত মাওলানা মুহি উদ্দীন খান সাহেব আসবেন।তৎকালীন জেলা জমিয়ত সেক্রেটারী মাওলানা আজিজুর রহমান ঘোগারকুলি সাহেব ফোন করে আমাকে বললেন খান সাহেব এসেছেন তুমি এসো তিনির সাথে একান্ত নিরীবিলি আলাপ করার সুযোগ করে দিব, তুমি এসো।তখন আমি গেলাম খান সাহেব রহ.এর সাথে অনেক কথা হল,সাথে ছিলেন “”সিলেট রিপোর্ট ডটকম””সম্পাদক বন্ধুবর রুহুল আমীন নগরী। হুযুর অত্যন্ত ধৈর্য্য সহকারে বিভিন্ন বিষয়ে আমার কথা শুনলেন, আমি আবেগে প্রায় কান্না জড়িত কন্ঠে হুযুরকে জমিয়ত সংক্রান্ত অনেক সমস্যা ব্যক্তি বিশেষের সিন্ডিকেট সহ অনেক কিছু বললে তিনি র খাদেমকে তা নোট করতে বললে।এবং স্নেহ ভরে আমাকে কাছে টেনে নিলেন।এবং মুখ ও মাথায় হাত বুলিয়ে বললে “”বাবা আপনি আমার আহমদ এর মত(ডক্টর আহমদ বদরুদ্দীন খান,মাসিক মদীনা’র সহকারী সম্পাদক,তিনির পুত্র)স্পষ্ঠবাদী। দোয়া করিও সব বাধা বিপত্তি দুর হবে।পরিষেশে হাজার ও ছাত্র জনতার মধ্য থেকে আমাকে তিনির পাঞ্জাবির সাথে লাগানো ঝকঝকে মনমুগদ্ধকর রাবেতা আল ইসলামী’র লগো দিয়েছিলেন।আজ প্রবাসে এসে খান সাহেব হুযুর অসুস্ততার খবর ও ইন্তেক্বালের সংবাদ শুনে চোখের জ্বলে বুক ভাসিয়েছি।পরিষেশে দোয়া করি হে আল্লাহ ! এই ক্বলম যদ্ধো মহামনীষীকে জান্নাতুল ফেরদৌস নসীব করুন।

Saifullha Sadi

 

সাজিদুর রহমান
যার স্মৃতি রবে অম্লানঃ
মাওলানা মুহিউদ্দিন খান সাহেব গতকাল ২৫ শে জুন ০১৬ ঈসায়ি শনিবার সন্ধ্যে ৬:৪৫ ঘটিকায় ইফতারের আগ মুহূর্তে রাজধানী ঢাকার ল্যাবএইড হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করে মাওলার সান্নিধ্য চলে যান। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। আজ ২৬ জুন ০১৬ ঈসায়ি রবিবার বাদ জোহর বায়তুল মোকাররামে তার সালাতে জানাযা অনুষ্ঠিত হবে।

মাওলানা মুহিউদ্দিন খান সাহেব ইহধাম ছেড়ে চলে গেলেন। আমি মনে করি– ইলম ও মাআরেফ বোঝাই করা এক বিশাল জাহাজ মহাসমুদ্রে তলিয়ে গেল। তিনি ছিলেন বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী বিশাল ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন ইনসানে কামেল। তার মধ্যে যতগুলো প্রতিভা ও যোগ্যতার সমাহার ঘটেছে, সচরাচর এমন ব্যক্তিত্বের আবির্ভাব খুবই কম হয় ধরাধামে। বিরল ক্ষণজন্মা ও সাত্বিক প্রাণপুরুষ ছিলেন তিনি। তার তুলনা তিনিই। বাংলাদেশের অন্য কারো সাথে তার তুলনা হয় না।
.
তিনি ছিলেন উম্মাহর এক দরদি কাণ্ডারী ও সুদক্ষ রাহবার। দিকভ্রান্ত জাতিকে পথের দিকে ডাকতে ডাকতে ক্লান্ত শ্রান্ত হয়ে নির্বাক নিস্তব্ধ নিথর দেহে অভিমানে স্তানান্তরে পাড়ি জমিয়েছেন।
দেশের রত্নকে আমরা এদেশের বাঙালিরা চিনি না। তার প্রতিভা ও ব্যক্তিত্বের আন্দাজ করতে পারি না। তার যথাযথ মূল্যায়ন দিতে জানি না। এটা আমাদের দুর্ভাগ্য। আমরা বাংলাদেশিরা মাওলানা আবুল হাসান আলী নদবি রাহ. ও মাওলানা তাকি উসমানি দা. বা. কে যত বড় প্রতিভা ও ব্যক্তিত্বের অধিকারী মনে করি, আমরা তাদেরকে যেরূপ সম্মান সমীহ ও কদর করি– বহির্বিশ্বের মানুষের কাছের মাওলানা মুহিউদ্দিন খান সাহেবের আসনও অনুরূপ। তাদের চেয়ে কোনো অংশেই কম না। কিন্তু বিজ্ঞ প্রাজ্ঞ প্রতিভাবান গুণীজনকে স্বজাতি সময়মত যথার্থভাবে চিনতে পারে না– তিক্ত ও স্বাভাবিক বাস্তবতা এটাই।
.
মাওলানা মুহিউদ্দিন খান– তার মাঝে কত বিরল রকমের যোগ্যতা ও প্রতিভার সমাহার ঘটেছে, সুধীবৃন্দের তা অজানা নয়।
আমার কাছে তার মুখ্য যে রূপটি ধরা পড়েছে, সেটি হলো– তিনি অনেকটা সংস্কারকের ভূমিকা পালন করে গেছেন। তিনি চেয়েছিলেন ভেজালমুক্ত সঠিক ইসলামের জাগৃতি ও পুনর্জাগরণ। এর জন্য তিনি সম্ভাব্য সব ময়দানে কাজ করে গেছেন। এ রাহবার তার প্রজ্বলিত বাতি থেকে আরো অনেক বাতি জ্বালিয়েছেন। নিরন্তর নতুন নতুন বাতি জ্বালাবার চেষ্টা করেছেন আমরণ। তিনি এমন এক জামাত সৃষ্টি করার প্রয়াস পেয়েছেন, যারা বেডরুম থেক নিয়ে সংসদভবন পর্যন্ত ইসলামের আদলে পরিচালনা করতে পারে। সত্য ও সুন্দরকে আসতে দিতে পারে। মিথ্যা ও অসুন্দরের পথকে রুদ্ধ করতে পারে। এ পথে তার মিশন অনেকখানি এগিয়েছিল। তার শিষ্যরা যদি তার আরধ্য মিশনের অগ্রযাত্রাকে অব্যাহত রাখতে পারেন, আরো বেগবান করতে পারেন– ইসলামের বিপ্লব ও পুনর্জাগরণ সময়ের ব্যাপার মাত্র।
.
মাওলানা মুহিউদ্দিন খান সাহেব বন্ধু ও শিষ্যবাৎসল প্রাণখোলা মানুষ ছিলেন। সেই সানবি ৩য় বর্ষ থেকেই তার সাথে চিঠিপত্রের মাধ্যমে এ অধমের যোগাযোগ ছিল। যে তাকে চিনত, আর ভুলতে পারত না। যে তার সাথে মিশত, আর আলগা হতে চাইত না। যার নিকট যে প্রতিভা আছ, তিনি এর কদর করতেন। সামনে এগিয়ে যাবার অসম্ভব প্রেরণা দিতেন। তার উৎসাহব্যঞ্জক কথায় খুবই প্রাণবন্ত আর উজ্জীবিত হতাম। আজ ভুলশুদ্ধ দু’চার লাইন যা লিখি, লিখার প্রয়োজন মনে করি, লিখার দুঃসাহস করি– এর মূলে কাজ করে খানসাহেব প্রদত্ত প্রেরণা।
.
খান সাহেবের ইলমি আমলি যোগ্যতা কীর্তি ও অবদান রীতিমত গবেষণার বিষয়। গবেষকগণ গবেষণা করে তার কর্মের গভীরতা প্রসঙ্গিকতা ফলপ্রসূতা এবং তার মাকাম ও মর্যাদার উচ্চতা নিরূপণ করবেন।
খান সাহেবের মত দরদি রাহবারকে হারিয়ে মুসলিম উম্মাহ এক অপূরণীয় ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে। আল্লাহ এ ক্ষতিকে কিভাবে পুষিয়ে নেবেন, এ শূন্যতাকে কিভাবে পূর্ণ করবেন, তিনিই জানেন।
আরহামুর রাহিমীনের দরবারে অধমের বুকভাঙা দুআ—- আল্লাহ খান সাহেবকে জান্নাতুল ফেরদাউসের মেহমান বানাও। তার পরিবার ও আত্মীয়বর্গকে সবরে জামীলের তাওফীক দাও। আমাদেরকে তার নকশে কদমের ওপর চলার হিম্মত দাও। আমাদেরকে তার নি’মাল বদল দাও। রাহমাতুল্লাহি আলাইহি।

সাজিদুর রহমান

আরো সংযুক্ত হচ্ছে…

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now