শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » একজন মাওলানা মুহিউদ্দীন খান

একজন মাওলানা মুহিউদ্দীন খান

223671_1 13508863_1738771789699209_6056247231543006671_nআবদুল হামিদ মানিকঃ এ দেশের প্রায় প্রতিটি ঘরে পরিচিত একটি নাম মাওলানা মুহিউদ্দীন খান। সামাজিক, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক তৎপরতায় প্রানবন্ত খ্যাতিমান একজন সফল মানুষ আন্তর্জাতিক পরিসরেও পরিচিত। প্রজ্ঞাবান প্রবীন আলিম, শক্তিমান লেখক, দক্ষ অনুবাদক, ধীমান সম্পাদক, সফল সংগঠক এবং সমাজসেবী মাওলানা মুহিউদ্দীন খান এ দেশের মাটি ও মানুষের প্রতি বিশ্বস্ত কর্মকান্ডে লাভ করেছেন শ্রদ্ধার আসন। সমাজের কল্যাণেই তার অবদানের মূল্যায়ন ও স্বীকৃতি প্রয়োজন। এ যুগে তথাকথিক বিশ্বায়নের বিকৃতি ও আকাশ সংস্কৃতির দাপটে অনেক জাতি জনগোষ্ঠির সাংস্কৃতিক অস্তিত্ব হুমকির সম্মুখীন। এ বাস্তবতায় মাটি ও মানুষের প্রতি বিশ্বস্ত মাওলানা মুহিউদ্দীন খানের ভূমিকা অকুণ্ঠ প্রশংসার দাবি রাখে। বাঙালি মুসলমান জনগোষ্ঠির সাংস্কৃতিক চেতনা ও ধর্মীয় কল্যাণকর মূল্যবোধ গঠন ও লালনে তিনি এখনো নিবেদিত প্রান। মেধাবী এ ব্যক্তিত্বের কর্মময় জীবন এ দেশের অসংখ্য মানুষের হৃদয়ে প্রেরণা যোগায়। স্বকীয় সত্তা বহাল রাখার সংগ্রামে সাহস সঞ্চার করে। মুহিউদ্দীন খান একজন ব্যক্তিই নন, বহুমুখী তৎপরতায় এক উজ্জ্বল প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছেন। তার জন্ম ১৯৩৫ সালে ময়মনসিংহে, ছাত্র জীবন শেষে কর্মজীবন শুরু করেন ঢাকায়। উর্দূ দৈনিক পাসবান এর সহকারী সম্পাদক ছিলেন ১৯৫৫ থেকে ১৯৬০ পর্যন্ত। ঢাকা সরকারী আলীয়া মাদ্রাসার ছাত্র হিসেবে এবং সাংবাদিকতার সুবাদে দেশ দুনিয়া, রাজনীতি, সাহিত্য সংস্কৃতি সম্পর্কে ছিলেন সচেতন। রেডিও পাকিস্তানেও কাজ করেছেন। শৈশব কৈশোর থেকে ছিলেন কৌতূহলী স্বভাবের। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের খবর জানার প্রবল কৌতূহলে দৈনিক আজাদ পত্রিকা সংগ্রহ করতে সাইকেলে ষাট মাইল পর্যন্ত যাতায়াত করেছেন। তার আত্মজীবনী ‘জীবনের খেলা ঘরে’তে তিনি লিখেছেন- ‘আমার মনে স্বজাতি প্রেম এবং একটা লড়াকু ধরনের জেহাদী মনোভাবের অংকুরোদগম হয়েছিল নিতান্ত শিশুকাল থেকেই।’
তিনি জানিয়েছেন, আম্মার কাছ থেকে শুনতেন সিলেটের মজলুম একজন মুসলমানের কথা। পুত্রের আকিকায় গরু জবাইর জন্য গৌড় গোবিন্দ তার হাত কেটে দিয়েছিল, শুনতেন তরফের বারো আউলিয়ার কথা (উল্লেখ্য গ্রন্থের ৩য় সংস্করনে মজলুম এই মুসলমানের নাম ছাপ হয়েছে নাসিরুদ্দিন। আসলে তা হবে শেখ বুরহান উদ্দীন)। এমনি অনুসন্ধিৎসু একজন মানুষ উপমহাদেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য সম্পর্কে ছিলেন ওয়াকেফহাল। সেই সঙ্গে আরবি, উর্দূ, ফার্সি ভাষা সহ কুরআন, হাদীস, ফেকাহ শাস্ত্রে অর্জন করেন পান্ডিত্য। সমকালীন কবি, সাহিত্যিকদের সন্নিধ্যে আসেন। এই পটভূমিতে মাওলানা মুহিউদ্দীন খান তার চলার পথ ও কর্মপরিকল্পনা নির্ধারণ করেন। তিনি তখনকার গতানুগতিকতায় গা ভাসিয়ে দেননি।
পাকিস্তান সৃষ্টির আবেগ উত্তেজনায় কেউ কেউ তখন এ দেশের ভাষা সংস্কৃতির প্রতি প্রত্যাশিত আনুগত্য রক্ষা করতে পারেননি। আলিম সমাজের অনেকে তখনও বাংলা ভাষার প্রতি পুরোপুরি আস্থাশীল নন। অবশ্য মাদ্রাসা শিক্ষিত অনেকের বাংলা ভাষায় অদক্ষতাও ছিল। এমনি অবস্থায় প্রতিভাধর মাওলানা মুহিউদ্দীন খান উর্দূ দৈনিক পত্রিকা ছেড়ে এসে বের করেন বাংলায় মাসিক ও সাপ্তাহিক পত্রিকা। মাসিক দিশারী, সাপ্তাহিক নয়া জামানা এবং ১৯৬১ সালে বের করেন মাসিক মদীনা। ঘরে ঘরে পরিচিত এ পত্রিকাটি আজও বিপুল প্রচার সংখ্যা নিয়ে তাঁর সম্পাদনায় বের হচ্ছে। বাঙালি মুসলমান সবাই উর্দূ, আরবি, ফার্সি শিখে ইসলাম সম্পর্কে জানবে অথবা জানতে হবে। এ ধরণের মানসিকতা অনাধুনিক ও অযৌক্তিক। অযৌক্তিক এই প্রবনতার বিরুদ্ধে অবিভক্ত বাংলায় যে ক’জন মনীষী কথা ও কাজে এগিয়ে এসেছিলেন, মুহিউদ্দীন খান তাঁদের একজন উজ্জ্বল প্রতিনিধি। মুনসী মেহেরুল্লাহ, ইসমাঈল হোসেন সিরাজী, নাসির উদ্দীন, মাওলানা আকরম খাঁ, ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ, কবি নজরুল ইসলাম, ফজলুল হক সেলবর্ষী, মুহাম্মদ নূরুল হক, ইব্রাহিম খাঁ, কবি গোলাম মোস্তফা, শিল্পী আব্বাস উদ্দিন প্রমুখ বাঙালি মুসলমানের জাগরণ ও অগ্রগতিতে যে অবদান রেখেছেন, মুহিউদ্দীন খান তাদের উত্তরসুরী হিসেবে তেমনি অবদান রাখছেন। বর্তমান সময়ের চাহিদা পূরণ করে তিনি ইসলাম এবং বাঙলা ভাষায় ইসলামের পরিচ্ছন্ন উপস্থাপনায় সফল একজন আলিম ও চিন্তাবিদ।
আলিম সমাজকে বাংলা ভাষায় সাহিত্য চর্চায় উদ্বুদ্ধ করনে তিনি সফল এক ব্যক্তিত্ব। তার প্রেরণা ও পৃষ্ঠপোষকতায় কওমী মাদ্রাসায় শিক্ষিত বিপুল সংখ্যক আলিম আজ বাংলায় সাহিত্য চর্চা করছেন। কওমী মাদ্রাসার ছাত্র শিক্ষকদের উর্দু, আরবি, ফার্সির বৃত্ত থেকে বের করে বাংলা ভাষায় বহাল করার কৃতিত্ব তার প্রাপ্য। ঐ সব ভাষাকেও তিনি নিরুৎসাহিত করেন নি। ফলে ইসলামী শিক্ষায় শিক্ষিত একাধিক ভাষায় দক্ষ এই লেখকদের কাছে মাওলানা মুহিউদ্দীন খান প্রেরণার জীবন্ত আদর্শ।
লেখক অনুবাদক হিসেবে তো বটেই, মাসিক মদীনার সম্পাদক হিসেবেও তিনি সকলের কাছের মানুষ, আত্মার আত্মীয় হয়ে আছেন। তার এ অবস্থান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ বাংলা ভাষা ও সাহিত্য চর্চায় যুক্ত না হলে আলিম সমাজ জাতীয় মূল স্রোতধারা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়তেন। ১৯৬১ সালে মাসিক মদীনা প্রকাশ করেন তিনি। তখন বাংলা ভাষায় লেখালেখিতে আলিম সমাজের প্রতিনিধি ছিলেন হাতে গোনা। নানা বিরূপতা সত্ত্বেও আজ বাংলা সাহিত্যে আলিমদের উপস্থিতি কোনো ক্রমেই গৌণ নয়। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে তাদের সম্পাদনায় সাহিত্য সংকলন এবং প্রচুর পত্র-পত্রিকা বের হচ্ছে। ইসলামী পত্রিকা পরিষদ বাংলাদেশ ২০০৮ সালের ১৪ ও ১৫ ফেব্রুয়ারী সিলেট নগরীর শহীদ সুলেমান হলে ইসলামী পত্রিকা প্রদর্শনীর আয়োজন করেছি। এই প্রদর্শনীতে বিপুল সংখ্যক ইসলামী পত্রিকা ঠাঁই পেয়েছিল। এগুলো আলিমদের সম্পাদনায় ও লেখায় বের হয়।
সাহিত্য ও প্রকাশনার অঙ্গনে এই কাম্য প্রবাহ সৃষ্টির পেছনে মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ও মাসিক মদীনার প্রভাব ও প্রনোদনাই প্রধান। এভাবে দেখা যাচ্ছে, বাংলা ভাষায় মাওলানা শামসুল হক ফরিদপুরী, মুফতী আজিজুল হক, মুহাম্মদ ইউনুস, মাওলানা ছিদ্দিক, শায়খুল হাদিস আজিজুল হক, নূর মোহাম্মদ আযমী, মাওলানা আব্দুর রহিম, অধ্যাপক মাওলানা আখতার ফারুক, আমিনুল ইসলাম, মাওলানা রেজাউল করিম, সৈয়দ শামসুল ইসলাম, নূরুল হক প্রমুখ যে চিন্তা চেতনায় কাজ শুরু করেছিলেন, মাওলানা মুহিউদ্দীন খান তার পরিচর্যা, লালন ও বহন করে এখন কেন্দ্রীয় ব্যক্তিত্বের মর্যাদায় আসীন হয়েছেন। বাংলা ভাষাভাষীর সংখ্যা এখন প্রায় ত্রিশ কোটি। তাদের সঙ্গে আত্মিক ও বুদ্ধিবৃত্তিক সংযোগ স্থাপনের প্রধান বাহন বাংলা ভাষায় আলিম সমাজ দেশ ও জাতির খেদমতে এগিয়ে আসছেন।
মাসিক মদীনার প্রশ্নোত্তর বিভাগটি বহুল পঠিত। এর সুপ্রভাব এখন আমাদের গণমাধ্যমে প্রসারিত হয়েছে। ইলেকট্রনিক মিডিয়াতেও এ রকম সওয়াল জওয়াব চালু হয়েছে। এ-সব দিক বিবেচনা করে মাওলানা মুহিউদ্দীন খানকে সুদূর প্রসারী, দূরদৃষ্টি সম্পন্ন একজন চিন্তাবিদ ও যুগস্রষ্টা হিসেবে অভিহিত করা যায়। বর্তমান ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রাথমিক ভিত্তি ইসলামিক একাডেমী সহ অনুরূপ প্রতিষ্ঠান ও নানা সংস্থার পেছনেও তাঁর ভূমিকা রয়েছে। সত্তরোর্ধ এই মানুষটি এখনও যুবকসুলভ উদ্যমে দেশ বিদেশে সফর করেন। আলোর পথের পথিকদের উৎসাহিত অনুপ্রানিত করেন এবং আজীবন সাধনায় অর্জিত আত্মিক আলোক রশ্মি ছড়িয়ে দেন অসংখ্য চিত্তে।
লেখক, অনুবাদক গবেষক মাওলানা মুহিউদ্দীন খান অনেকের কাছে সমকালে সর্বাধিক সমৃদ্ধ অগ্রসর ব্যক্তিত্ব। মেধাবী, পন্ডিত এবং একই সঙ্গে বাংলা, উর্দূ, আরবী, ফার্সি ভাষায় সুবিজ্ঞ তিনি। মুফতি মুহাম্মদ শফী (র.)’র বহুল পঠিত আট খন্ডে সম্পন্ন তাফসীর গ্রন্থ মাআ’রিফুল কুরআন স্বল্পতম সময়ে অনুবাদ করে তিনি এক নজীর সৃষ্টি করেছেন। অত্যন্ত সাবলীল স্বচ্ছ বাংলায় অনূদিত এ তাফসীর সর্বত্র সমাদৃত ও বহুল পঠিত। অবিশ্বাস্য রকম অল্প সময়ে এ বিরাট গ্রন্থ অনুবাদ বাস্তবিত পক্ষেই একটা অনুপম কর্ম সাধনার পরিচায়ক বলতে হবে। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সাবেক মহাপরিচালক এ জেড শামসুল আলম এ মন্তব্য করেছেন মাআ’রিফুল কুরআনের প্রথম খন্ডের প্রকাশকের বক্তব্যে।
বাংলায় সিরাত চর্চার ক্ষেত্রে তিনি অন্যতম পথিকৃৎ। মাওলানার অনুবাদ ও মৌলিক রচনা গ্রন্থের সংখ্যা ১০৫টি। সাংবাদিকতা, সমাজসেবা, রাজনীতি, সফর সহ নানাবিধ কার্যক্রমের মধ্যেও জ্ঞান ও বুদ্ধিবৃত্তিক এই বিশাল অর্জন নিঃসন্দেহে ব্যতিক্রমী প্রতিভার একটি স্বাক্ষর। তাঁর পঠন পরিসরও অত্যন্ত ব্যাপক। প্রশ্নোত্তর এবং চার খন্ডে প্রকাশিত কুড়ানো মানিক পাঠ করলে তা কিছুটা আঁচ করা যায়। স্থিতধি, নিভৃতচারী, প্রজ্ঞাবান এই সৃজনশীল মহান ব্যক্তিত্ব বুদ্ধিবৃত্তিক একটি সাহিত্য ঘরানার জনক। আমরা তাঁর সুস্থ কর্মময় দীর্ঘ জীবন কামনা করি। ’’
(২০০৯ সালের ১৯ মার্চ মাওলানা মুহিউদ্দীন খানকে ‘জালালাবাদ স্বর্ণপদক’ প্রদান উপলক্ষে পঠিত প্রবন্ধ পুনঃপ্রকাশিত)

আব্দুল হামিদ মানিক:-লেখক, গবেষক

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now