শীর্ষ শিরোনাম
Home » সিলেট » খতমে তারাবী: যাদের তেলাওয়াতে মুসল্লীগন তৃপ্ত

খতমে তারাবী: যাদের তেলাওয়াতে মুসল্লীগন তৃপ্ত

13567051_1011294612289248_2685863410657572803_nআতিকুর রহমান নগরী : ‎রমজান‬ সেই মাস, যে মাসে নাযিল করা হয়েছে কোরআন- মানুষের পথপ্রদর্শক, সৎপথের সুস্পষ্ট নিদর্শন এবং সত্য-মিথ্যার পার্থক্য নির্ণয়কারী হিসেবে। (সুরা বাকারা : ১৮৫) রমজান আর কোরআন একে অপরের বন্ধু। সম্পর্ক তাদের গভীর। নিবিড়। রমজান ভালবাসে কোরআনকে। কোরআন ভালবাসে রমজানকে। যে ভালবাসা অমর। অবিচ্ছিন্ন। অটুট। প্রিয়নবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এ মাসে খুব বেশি তেলাওয়াত করতেন। জিবরাঈল আলাইহিস সালাম নবীজীকে পুরো কোরআন শোনাতেন। নবীজী সা. শোনাতেন জিবরাঈল আ. কে। মাহে রমজানে যতো বেশি কোরআন তেলাওয়াত করা হয়, অন্য মাসে তা হয় না। সকাল, সন্ধ্যা, দুপুর, বিকেল সারাক্ষণ কেউ না কেউ তেলাওয়াতে লিপ্ত। বছরের এগারো মাসে তেলাওয়াত করে না এমন ব্যক্তিও রমজানে তেলাওয়াতে ব্যস্ত থাকেন। হাফেজদের কথা আলাদা। তাদের ওপর খতমে তারাবির চাপ থাকে। তাই তারা রমজানের আগ থেকেই প্রস্তুতি নিয়ে পুরো রমজানে তারাবির নামাযের মাধ্যমে কুরআন খতম করে থাকেন। মহান আল্লাহ তাআলার ঐশী বাণি পূর্ণ সংরক্ষণ যুগে হাফেযরাই করছেন। তাদের এই খেদমত মুসলিম উম্মাহ শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে থাকেন। আধ্যাত্মিক রাজধানী সিলেট নগরীর বিভিন্ন মসজিদের হাফেযদের অনুভূতি নিয়েই দৈনিক শ্যামল সিলেট’র আজকের আয়োজন।
১.মমশাদ রাব্বানী শহরতলীর খাদিমনগর হিলভিউ টাওয়ারে অবস্থিত মাদরাসাতুল মদীনা থেকে ২০১৫ সালে হিফয সম্পন্ন করেছেন। বয়স-১৩-১৪বছর। তিনি এবার কোনো মসজিদে নয়, নিজ মাদরাসায় হিফজ বিভাগের শিক্ষকদের তত্ত্বাবধানে পবিত্র কোরআনের ইয়াদ মজবুত ও সাহস বৃদ্ধির জন্য মাদরাসার অর্ধশতের মতো অধ্যয়নরত হাফেজিদের ছাত্রদের নিয়ে তারাবির নামাযে ইমামতি করছেন। ক্ষুদে এই হাফেয গোলাপগঞ্জ উপজেলার বসন্তপুর গ্রামের মাওলানা শরিফ উদ্দিনের ছেলে। তারাবির নামাযে ইমামতির অনুভূতি তিনি এভাবেই প্রকাশ করেছন এভাবে-এই প্রথমবার তারাবি পড়াচ্ছি। খুবই ভালো লাগছে। আনন্দঘন এই মুহূর্তে অবনত মস্তকে শুকরিয়া আদায় করছি মহান আল্লাহ তালার যাঁর অপার কৃপায় আমি হাফিযে কোরআনদের কাতারে নাম লেখাতে ও তারাবী পড়াতে পারছি। উত্তমপ্রতিদান দেয়া হোক আমার জন্মদাতা মা-বাবা ও শ্রদ্ধাভাজন আসাতিযায়ে কেরামদের কে।ধন্যবাদ আমার মুসাল্লিয়ান্দের কে। মাদরাসাতুল মদীনা সফল ভাবে মানযিলে মাকসুদে পৌঁছুক।
২.নগরীর সোনারপাড়ার বাসিন্দা সাজ্জাদুর রহমান রহমানের ছোট ছেলে হাফেয সায়হান। তিনি ২০১৪ সালে জামেয়া হাতিমিয়া হাফিযিয়া মাদরাসা থেকে পবিত্র কোরআনের হিফয সম্পন্ন করলেও এবছরই তিনি প্রথম তারাবির নামাযে ইমাম হয়েছেন। নিজ এলাকার নতুন পাঞ্জেগানা মসজিদে তিনি এবার কোরআনের খেদমতে আছেন। অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে হাফেয সায়হান বলেন, বয়সে ছোট কিন্তু কোরআনে কারিম বক্ষে ধারণ করার বদৌলতে বড়রা আমাকে অনেক সেন্হ করেন। মহান আল্লাহর অশেষ মেহেরবাণিতে তারাবির নামাযে ইমামতি করার মাধ্যমে মহাগ্রন্থ আল্-কোরআনের এক অনন্য খেদমত হচ্ছে। সর্ববয়সি মুসল্লিদের ভালোবাসায় সিক্ত হচ্ছি আমি। এতেই বুঝা যায়, কোরআনের দ্বারা সম্মান বৃদ্ধি পায়।
৩.হাফিজ সুলতান হাকিম। বয়স ১৫-১৬। গ্রামের বাড়ি জৈন্তা থানার চিকনাগুল ইউনিয়নের ঘাটেরচটি গ্রামে। রক্ষণশীল পরিবারের তিনি তৃতীয় ছেলে। বড়ভাই মাওলানা লুকমান হাকিম। তরুণ আলেম ও শিক্ষক। তিনি গ্রামের মাদরাসায় হিফজ শুরু করেন। সবক শেষ করেন মাদরাসাতুল মদীনা সিলেটে। মানোন্নয়নের জন্য ২০১৫-তে চলে যান সিলেটের অপ্রতিদ্বন্ধী প্রতিষ্ঠান ‘জামেয়া ইসলামিয়া ফরিদাবাদ সিলেটে’। মাহে রামাযানে শুরু করেন দ্বিতীয়বারের মতো তারাবির নামাজে ইমামতি। ইমামিতও করছেন চিকনাগুল ইউপির পশ্চিমচটি জামে মসজিদে। এবার আমরা এই সুরেলা হাফিজ সুলতান হাকিমের অনুভূতি শোনাচ্ছি-
সুলতান হাকিম, আমি হাফিজে কুরআন হয়েছি এজন্য প্রথমেই আমার রব্বে কারিমের শুকরিয়া, মা বাবা, আসাতিজায়ে কেরাম ও আমার সকল হিতাকাঙ্খি মুরব্বিদের কৃতজ্ঞতা স্বীকার করছি এবং মাওলা পাকের কাছে তাদের সবার নেক হায়াত ও উত্তম বিনিময়ের কামনা করছি। আমি হাফিজে কুরআন হয়েছি এজন্য আমি অনেক আনন্দিত। এ কারণে আমি আমাকে অনেক বড় নেয়ামতের ধারক বিশ্বাস করি। কুরআন পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ সম্পদ। পৃথিবীর সব কিছু কুরআনের একটি হরফেরও সমান হতে পারে না। এজন্য পৃথিবীর কোনো কিছু, কোন জন কুরআনের হাফিজ বা আলিমের মানমর্যাদার কাছে কিছুই নয়। কুরআনের রঙ্গে যারা রঙ্গীণ তারাই মূলত মানুষ। প্রকৃত মানুষ। কুরআনের আলোয় যারা আলোকিত তারাই মূলত মহান। কাজেই হাফিজে কুরআন হিসেবে আমি আমার মান, আমার সম্মানেরর ব্যাপারে আস্থাশীল। আমি আমাকে শ্রদ্ধা করি। আর পরকালের বিষয় সামনে আসলে ভয় ও আশার মধ্যদিয়ে কামনা করি আল্লাহপাক আমি, মা, বাবা, উস্তাদ, আত্মীয়স্বজন, হিতাকাঙ্খিসহ অনেককে তার কুরআনের কারণে মর্যাদাবান করবেন।
তারাবিহ দ্বিতীয় বারের মতো আমি পশ্চিমচটি গ্রামে পড়াচ্ছি। আলহামদুলিল্লাহ! খুব ভালই চলছে। এলাকার মানুষ খবই ধার্মিক। কুরআনপ্রেমিক। হাফেজ আলেমদের জন্য নিবেদিতপ্রাণ। গ্রামের রাস্তাদিয়ে হাঁটলেই অনুভব হয় তাদের কাছে হাফেজ আলেমদের কদর অনেক। আল্লাহপাক তাদেরকে জাযায়ে খায়ের দান করুন।
আমি একজন হাফিজে কুরআন হিসেবে আপনাদের মাধ্যমে দেশবাসীকে জানিয়ে দিতে চাই, বাংলাদেশের মানুষ আলেম হাফেজদেরকে কদর করে। সম্মান করে। ইদানিং কালে বিষয়টি গুরুত্ব আমার মনে হচ্ছে হ্রাস পেতে শুরু করেঁছে। যা দুঃখজনক। শুধু বাংলাদেশ নয়, পুরো বিশ্বের মানুষ শান্তি, সুখে থাকতে হলে আলেম, হাফেজদের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে হবে। না হয় বিপর্যয় অনিবার্য। আল্লাহ সবাইকে তার মাক্ববুল বান্দা হিসেবে কবুল করুন। সবাইকে একেকজন আলেম বা হাফিজে কুরআনে বাবা, চাচা, ভাই হওয়ার তাওয়ফিক দান করুন। আমিন।
৪. হাফেয তোফয়েল আহমদ। ২০০৪ সাল থেকে তারাবির নামাযে ইমামতি করছেন। তিনির নিজের অনুভীত এভাবেই লিখেছেন, আলহামদুলিল্লাহ, আল্লাহ পাকের অশেষ মেহেরবানী এই নগণ্যের উপর যিনি তাঁর বানী মানুষের দরবারে পৌঁছানোর জন্য আমাকে নির্দিষ্ট করেছেন। ধারাবাহিক প্রতি রমজান মাসে আমি সেই কর্মটি করে যাচ্ছি। করছি না বরং আল্লাহ পাক আমার মাধ্যমে করাচ্ছেন।
যাহোক, আমি কোরআন মুখস্ত সম্পন্ন করি ২০০৪ সালে মুমিনপুর, চাঁদপুর থেকে। এরপর থেকে আজ অবধি ধারাবাহিক রমজান মাসে তারাবির নামাজের মাধ্যমে মানুষকে আল্লাহ পাকের কালাম শুনাচ্ছি। তিন বছর ধরে সিলেট শহরস্থ কানিশাইল ঈদগাহ মাসজিদে আল্লাহ পাকের কালাম শুনিয়ে আসছি। আল্লাহ পাকের কালাম শুনানোর মাধ্যমে যে তৃপ্তি অনুভুত হয় তার কাছে জগতের সবকিছুই তুচ্ছ, যারা তারাবির মাধ্যমে আল্লাহ পাকের কালাম মানুষকে শুনান তাদেরকে মানুষের ভাষায় ‘হাফিজ সাব’ বলে সম্বোধন করা হয়। হাফিজ সাব’ এই শব্দটি শুনলেই মানুষের মনে এক ধরণের ভালোবাসা সৃষ্টি হয়; যা আমরা প্রতিটি মুহূর্ত অনুভব করে থাকি। তারাবির পর হাফিজ সাবের সাথে সাক্ষাৎ করা, তাকে নাস্তা করানো, ইফতার করানোকে মানুষ সৌভাগ্য হিসেবে মনে করে। আল্লাহ পাকের কালাম যেমন সম্মানিত এর ধারক-বাহকগণও যে সাম্মানিত হবে এটা বলা বাহুল্য।
পরিশেষে, আল্লাহ পাকের কাছে এই প্রার্থনা করি আল্লাহ পাক যতদিন জীবিত রাখবেন তাঁর কালামে পাকের উপর যেন মেহনত করে যেতে পারি; সর্বদা সঠিকভাবে মানুষকে তাঁর কালাম শুনাতে পারি, যেভাবে তাঁর কোরআন অবতীর্ণ হয়েছে সেভাবেই শুনাতে পারি, তাঁর কালামে পাকের পরিপূর্ণ হক আদায় করে মানুষকে তাঁর সুমধুর বানী শুনাতে পারি এই তৌফিক কামনা করছি। আমিন
৫. দীর্ঘ ১০ বছরের ধারাবাহিকতায় এবার সিলেটের ঐতিহ্যবাহী কুশিঘাট বুরহানাবাদ জামে মসজিদে তারাবির নামাযে ইমামতি করছেন হাফেয বিলাল আহমদ চৌধুরী। গোয়াইনঘাট উপজেলার ফতেপুর ১ম খন্ড,বড়নগর এলাকার নূরুর রহমান’র ছেলে তিনি। তিনি তারাবির নামাযে ইমামতির অনুভূতি এভাবেই লিখেছেন, আলহামদুলিল্লাহ,আল্লাহ তায়ালার হাজার শোকর, এই মহাগ্রন্হ আল কোরআন হিফজ করা আমার কাছে জীবনের সবচেয়ে বড় চাওয়া ও পাওযা। আর প্রতি রমজানে তা তারাবির নামাজে তেলাওয়াত করা আমার কাছে আরো আনন্দ ও সুভাগ্যের বিষয়। রমজানের হাফেজদের মানুষ এত সম্মান ও ভালবাসে তা ঐ যায়গায় না গেলে বুঝা সম্ভব না ।
বিশেষ করে আমার এলাকা কুশিঘাটের মুসল্লিয়ানকেরাম দের হৃদয় থেকে ভালবাসা আর অন্তরিকতা আমাকে মুগ্দ করেছে অবিভূত করেছে। মহান রব্বে করিমের দরবারে ফরিয়াদঃ-তিনি যেন আজীবন আমাকে কুরআনের খেদমত ও কোরআন অনুযায়ী জীবন চলার তাওফিক দান করেন । আমিন

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now