শীর্ষ শিরোনাম
Home » স্মরণীয়-বরণীয় » জাতীয় ঐক্যের আহবানে খতীব উবায়দুল হক (র)

জাতীয় ঐক্যের আহবানে খতীব উবায়দুল হক (র)

13501555_259477877755013_8583337415539571451_nমুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী:: বাংলাদেশে ইসলামী শাসন ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার জন্য মরহুম খতীব সাহেবের প্রচেষ্টার মোটেও কমতি ছিল না। তিনি সকল ইসলামী দলের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনে বিশ্বাসী ছিলেন। বিভিন্ন দলে গ্র“পে বিভক্ত আলেম সমাজকে একই প্লাটফরমে নিয়ে আসতে তিনি অনেক চেষ্টা করেছেন। দেওবন্দী-কওমী সিলসিলার সকলকে রাজনৈতিক ভাবে একত্রিত করতে ইসলামী ঐক্যজোট নেতাদের সাথে অনেকবার বসেছেন। ইসলামী ঐক্যজোটকে ভাঙ্গনের কবল থেকে মুক্ত করতে তিনি যে অবদান রেখেছিলেন তা ইতিহাসে চিরদিন স্মরণীয় হয়ে থাকবে। তিনি জাতীয় মসজিদের খতীব হওয়া সত্ত্বেও বিভিন্ন সময়ে হকের দাওয়াত দিতে ছুটে গেছেন রাজনৈতিক নেতাদের দুয়ারে। তিনি আদর্শের দিক দিয়ে মনে প্রাণে দেওবন্দী সিলসিলার হলেও সকল শ্রেণীর আস্তাভাজন ছিলেন। জীবনের শেষ পর্যায়ে সক্রিয় রাজনীতি থেকে দূরে থাকলেও জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সাথে ছিল তার হৃদয়ের সম্পর্ক। আর এই সম্পর্কের খাতিরেই জমিয়তের একটি জাতীয় সম্মেলনেই তিনি ঐক্যের ডাক দিয়ে ছিলেন। বিগত ২০০৫ সালের ২রা এপ্রিল রাজধানীর ঐতিহাসিক পল্টন ময়দানে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ভারত, ইংল্যান্ড এর শীর্ষস্থানীয় ইসলামী নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এখানে খতীব সাহেব বাংলাদেশের সকল আলেম উলামা ও ইসলামী দলগুলোর নেতৃবৃন্দকে জমিয়তের পতাকাতলে সমবেত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে ছিলেন। জমিয়তের তৎকালীন সভাপতি মরহুম মাওলানা আশরাফ আলী বিশ্বনাথীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের সভাপতি, মুসলিম বিশ্বের খ্যাতনামা ব্যক্তিত্ব, আওলাদে রাসুল আল্লামা সায়্যিদ আসআদ মাদানী (রহ.)। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের বিরোধী দলীয় নেতা ও পাক জমিয়তের সভাপতি মাওলানা ফজলুর রহমান (এম,এন,এ), বেলুচিস্তান প্রাদেশিক জমিয়তের সভাপতি মাওলানা মালিক মুহাম্মদ খান শেরানী (এম,এন,এ), ইউরোপ জমিয়তের সভাপতি মুফতী শাহ সদর উদ্দীন, জাতীয় মসজিদের খতীব মাওলানা উবায়দুল হকও উক্ত সম্মেলনে বিশেষ অতিথির বয়ান দেন। আল্লামা শায়খ আশরাফ আলী বিশ্বনাথীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে খতীব বলেন, ‘অনৈক্য একটি প্রধান সমস্যা। অনৈক্যের কারণে ইসলামী আদর্শের প্রতিষ্ঠা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে।’ তিনি সকল ইসলামী দলকে ঐক্যবদ্ধ করে রাষ্ট্রীয় ভাবে ইসলামী আদর্শ প্রতিষ্ঠায় অবদান রাখার আহবান জানান।
উক্ত সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ এর নির্বাহী সভাপতি মাওলানা মুহিউদ্দিন খান, জমিয়তের মহাসচিব মুফতী মোহাম্মদ ওয়াক্কাস এম,পি, ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মুফতী ফজলুল হক আমিনী এম,পি, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের প্রধান মাওলানা শাহ্ আহমদুল্লাহ আশরাফ, নেজামে ইসলাম পার্টির সভাপতি এডভোকেট মাওলানা আব্দুর রকীব, মাওলানা আব্দুল লতীফ নেজামী, মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমী, মাওলানা মোস্তফা আজাদ, ইউরোপ জমিয়তের সহ-সভাপতি মাওলানা শোয়েব আহমদ, মাওলানা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী, মাওলানা রফিক আহমদ মহল্লী, মাওলানা হাফিজ মাহমুদুর রহমান খুলনা, মাওলানা আব্দুর রহিম ইসলামাবাদী, মাওলানা জিয়া উদ্দীন, মাওলানা ইসহাক ফরিদী, ক্বারী আব্দুল খালেক, ফলায়েজী জামাতের নেতা মাওলানা শরফুদ্দীন আহমদ জুনায়েদ মিয়া, মাওলানা জুনায়েদ আল হাবীব, মুফতী ফারুক আহমদ, মুফতী মিজানুর রহমান, মাওলানা ইমরান মাজহারী, মধুপুরের পীর মাওলানা আব্দুল হামিদ, মাওলানা মনসুরুল হাসান রায়পুরী, মাওলানা মতিউর রহমান, মাওলানা হাফিজ মঞ্জুরুল ইসলাম, মাওলানা জিয়াউল হক কাসেমী, মাওলানা খলিলুর রহমান গোলাপগঞ্জ, মাওলানা আশরাফ আলী কুমিল্লা, মাওলানা হাবীবুল্লাহ সিলেট, মাওলানা নুরুল ইসলাম ওলীপুরী, মাওলানা শামসুল হুদা হবিগঞ্জ, মাওলানা আব্দুল কাইউম জালালাবাদী, মাওলানা আব্দুল বারী আনসারী, মাওলানা সৈয়দ মাসউদ মৌলভীবাজার, মাওলানা ক্বারী শামসুল হক মৌলভীবাজার, মাওলানা বদরুল ইসলাম মৌলভীবাজার, মাওলানা শাহ মাশুকুর রশীদ, মাওলানা আব্দুল বাছির সুনামগঞ্জ, মাওলানা আনওয়ারুল ইসলাম সুনামগঞ্জ, মাওলানা শাহজাহান বি-বাড়িয়া, মাওলানা মুফতী আব্দুল গণী ফেনী, মুফতী জাকির হোসাইন, মুফতী আরিফ বিল্লাহ ঝিনাইদহ, মাওলানা মনীর আহমদ নদীম চট্টগ্রাম, মাওলানা মাসুদ কুমিল্লা, মাওলানা মাসউদুল করীম প্রমুখ।
জমিয়তের কেন্দ্রীয় সহকারী সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী এডভোকেট, সহকারী মহাসচিব মাওলানা শেখ মুজিবুর রহমান, মাওলানা গোলাম মুহিউদ্দীন ইকরাম ও মাওলানা আব্দুল মালিক কাসেমীর যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন মাওলানা আমীনুর রহমান মাগুরা, মাওলানা আনোয়ারুল করীম যশোর, মাওলানা উবায়দুর রহমান বরিশাল, মাওলানা মুজ্জাম্মেল হোসাইন বরিশাল, মাওলানা ফেরদাউস আহমদ পিরোজপুর, মাওলানা আব্দুল হক কাওসারী পটুয়াখালী, মাওলানা আবুল হাসান বরগুনা, মাওলানা আব্দুল হামিদ কুষ্টিয়া, মাওলানা তৈয়্যিবুর রহমান রাজশাহী, মাওলানা খালিদ সাইফুল্লাহ সাদী মোমেনশাহী, মাওলানা আহমদ আলী মোমেনশাহী, মাওলানা নুুরুল হক চট্টগ্রামী, মাওলানা আমীরুজ্জামান পঞ্চগড়, মাওলানা মুফতী নোমান সিদ্দীক সুনামগঞ্জ, মাওলানা তৈয়্যিবুর রহমান চৌধুরী, মাওলানা মুতিউর রহমান গাজীপুরী, মাওলানা যিয়াউল হক কাসেমী, মাওলানা মনজুর আহমদ, মাওলানা মুশতাক আহমদ গাজীনগরী, মাওলানা আব্দুল মুকিত চৌধুরী, মাওলানা আব্দুল হাফিজ প্রমুখ।
ছাত্র প্রতিনিধিদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন-মাওলানা নজরুল ইসলাম সিলেট, মাওলানা যুবায়ের আল মাহমুদ মৌলভীবাজার, আখতারুজ্জামান সুনামগঞ্জ, হাফিজ আজীজুল কিবরিয়া ফুরকানী হবিগঞ্জ, গোলাম আম্বিয়া কয়েস, মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী, মাওলানা আব্দুস সালাম, খলীলুর রহমান, তোফায়েল আহমদ, ইমরান হোসাইন জৌহরী, আব্দুল বাছির সর্দার, আব্দুর রব প্রমুখ।
সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন-খলীফায়ে মদনী আল্লামা আব্দুল হক শায়খে গাজীনগরী, খলীফায়ে মদনী মাওলানা আব্দুল মুমিন শায়খে (পুরানগাঁও), কুতবে সুনামগঞ্জ মাওলানা আমীনুদ্দীন শায়খে কাতিয়া, হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক মাওলানা শাহ আহমদ শফীর প্রতিনিধি মাওলানা মমতাজুল করীম (বাবা হুজুর), শায়খুল হাদীস মাওলানা আব্দুল হান্নান শায়খে পাগলা, শায়খুল হাদীস মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক, ইউরোপ জমিয়ত নেতা হাফিজ হোসাইন আহমদ সাহেবজাদায়ে বিশ্বনাথী।

ইরাকে মার্কিন হামলার বিরুদ্ধে খতিব:
বিশ্ব যখন পারমাণবিক শক্তিতে বলীয়ান, মহাশক্তিধর রাষ্ট্রগুলো যখন ইসলামের ওপর নানারকম জুলুমে লিপ্ত, শক্তিশালী রাষ্ট্রগুলো যখন নীরব, ওআইসি’র মতো শক্তিশালী সংগঠন ‘মহাপ্রভুদের অসন্তুষ্টির ভয়ে বুক ফাটলেও মুখ খুলে একটি কথা বলে না। সে সময়ে শক্তিশালী নির্ভীক কন্ঠস্বর শুনতে পেয়েছিলাম মাওলানা উবায়দুল হক্বের মুখ থেকে।
তিনি বলেছিলেন, ‘বিশ্বে মোট জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেক মুসলমান। বর্তমান বিশ্বে মুসলমানদের বিরুদ্ধে যা ঘটেছে, তার বিপক্ষে বলার লোক সারা পৃথিবীর জনসংখ্যার অর্ধেকের কাছাকাছি, ৩৫০ কোটি। এ বিপুলসংখ্যক মুসলমান যদি নিন্দা ও ঘৃণায় থুথু ফেলে তাহলে যে সমুদ্রের সৃষ্টি হবে, তাতে আমেরিকার মতো শক্তিশালী জাতি ডুবে যাবে। কিন্তু লজ্জার কথা, আমাদের শক্তি আছে, সাহস নেই। সময় এসেছে আল্লাহর রজ্জুকে শক্তভাবে ধরার। একযোগে শত্র“দের মোকাবিলা করার। আমাদের ঘুমিয়ে থাকার সময় নেই। আপনারা সবাই জেগে উঠুন। দেশ, জাতি ও ধর্মকে বাঁচান। বিজয় আমাদের হবে। নাসরুম মিনাল্লাহি ওয়া ফাতহুন কারীব-আল্লাহর সাহায্য অতি সন্নিকটে।’

ঢাকায় যুদ্ধ বিরোধী সমাবেশ
ইরাকে হামলা চালানোর আগে সমগ্র বিশ্বব্যাপী যুদ্ধ বিরোধী অনেক সমাবেশ হয়েছে। বিশ্বের শান্তিকামী মানুষের সাথে বাংলাদেশের জনগণও ইরাকের সম্ভাব্য মার্কিন হামলার প্রতিবাদ জানিয়েছে। বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার ঐতিহাসিক পল্টন ময়দানে অনুষ্ঠিত হয় অভূতপূর্ব এক যুদ্ধ বিরোধী সমাবেশ। ইরাকের বিরুদ্ধে ইঙ্গ-মার্কিন হামলার প্রতিবাদে ‘আগ্রাসন প্রতিরোধ জাতীয় কমিটি’ কর্তৃক ২০০৩ সালের ৬ মার্চ, ২২ ফাল্গুন ১৪০৯ বাংলা, বাংলাদেশের ইতিহাসে স্মরণকালের সর্ববৃহৎ ঐতিহাসিক যুদ্ধ বিরোধী শান্তি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। লাখো মানুষের অভূতপূর্ব এই জনসমূদ্রে বেলা ৩টায় বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ প্রফেসর ড. মাহবুব উল্লাহ মহা সমাবেশের আনুষ্ঠানিক কাজ শুরু করেন। আগ্রাসন বিরোধী জাতীয় কমিটি’র প্রধান পৃষ্ঠপোষক জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুকাররমের খতীব মাওলানা উবায়দুল হক্বের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- আগ্রাসন বিরোধী জাতীয় কমিটি’র কো-কনভেনর সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার বিচারপতি আব্দুর রউফ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর ড. এমাজ উদ্দীন আহমদ, শিক্ষাবিদ আফতাব আহমদ, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সভাপতি মাসিক মদীনা সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন খান, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি গিয়াস কামাল চৌধুরী, সাংবাদিক সাদেক খান, মুফতী ফজলুল হক আমিনী এম,পিসহ দেশের সকল পেশার শান্তিপ্রিয় জনগণ স্মরণকালের নির্দলীয় এই বৃহত্তম সমাবেশে স্বতঃস্ফুর্ত ভাবে অংশ নেন। শান্তির পক্ষে যুদ্ধের বিরুদ্ধে মানুষের এই আন্তরিক সমর্থন ও স্বতঃস্ফুর্ত উপস্থিতি দেখে মনে হয়েছিল ধর্মপ্রাণ মানুষ স্বাধীনতার কোন মহৎ ডাকে সাড়া দিয়েছেন। মানব সভ্যতা উদ্বেগ, উৎকন্ঠা এবং আতংকে অস্থির ছিল, মার্কিন সাম্রাজ্যবাদীদের বুলেট ও সন্ত্রাসী আগ্রাসী আক্রমণের কথা চিন্তা করে স্তম্ভিত বিশ্ব বিবেক। ৬ মার্চ পল্টন ময়দানে জাতি, ধর্ম, বর্ণ, পেশা শ্রেণীর ভেদাভেদ ভুলে যুুদ্ধের বিরুদ্ধে সর্বস্তরের মানুষের যে মহামিলন ঘটেছিল, তা বাংলাদেশের সাম্প্রতিক ইতিহাসে কখনও লক্ষ্য করা যায়নি বলে সচেতন মহলের ধারণা। সমাবেশ শেষে প্রায় ৪ কিলোমিটার দীর্ঘ এক শান্তি মিছিল বের হয়। শান্তিকামী এই মহামিছিলে সকল শ্রেণীর মানুষ একই মঞ্চে সমবেত হয়ে বিশ্ববাসীকে জাগ্রত করতে যিনি ঐক্যের ডাক দিয়েছিলেন তিনি হলেন আমাদের প্রিয় জাতীয় খতিব, জাতীয় ঐক্যের প্রতীক, মরহুম মাওলানা উবায়দুল হক। উল্লেখ্য যে, ৬ মার্চের ঐতিহাসিক এ মহাসমাবেশে শায়খুল হাদীস আজিজুল হক, জমিয়তের তৎকালীন সভাপতি মাওলানা আশরাফ আলী বিশ্বনাথী, মাওলানা আব্দুল লতিফ চৌধুরী ফুলতলী সহ সকল উলামায়ে কেরাম একই মঞ্চে সমবেত হয়েছিলেন। আর এ ক্ষেত্রে খতিব উবায়দুল হকই ঐক্যের মহা নায়ক ছিলেন। তিনি আজ নেই, এসব শুধু স্মৃতিই।
মাওলানা উবায়দুল হক জাতির ক্রান্তিকালে দেখিয়েছেন পথের দিশা। তিনি ছিলেন স্পষ্টবাদী। সাচ্ছা দিল মুমিন বান্দা। এজন্য অনেক সময় শাসক গোষ্ঠীর হয়রানিরও শিকার হয়েছিলেন তিনি। নানা সামাজিক, ধর্মীয় ইস্যুতেও তিনি ছিলেন সোচ্চার। তৎকালীন আওয়ামীলীগ সরকারের সময় তাকে জাতীয় মসজিদের খতিব এর পদ থেকে অব্যাহতিও দেয়া হয়েছিল। তবে হাইকোর্টের রায়ে তিনি তার পদ ফিরে পান। ২০০১ সালের শেষ দিকে জাতীয় ঈদগাহে খুৎবাকে কেন্দ্র করে তাকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করা হয়। কিছু পরগাছাবুদ্ধিজীবী (!) মিডিয়ার মাধ্যমে খতিবকে নিয়ে বিভিন্ন সময়ে অপপ্রচার চালিয়েছে।
অকুতোভয় নির্ভীক এই সৈনিক স্পষ্ট ভাষায় ঘোষণা করেছিলেন-খুৎবার ওপর ক্ষমতার ছড়ি ঘুরানো চলবেনা। তিনি সেদিন বলেছিলেন-রাষ্ট্রীয় কুটনৈতিক পলিসি যাইহোক, যতদিন মুসলিম বিশ্বে অত্যাচার, অবিচার চালানো হবে আমি তার বিরুদ্ধে বলবোই। তার সাথে সরকারী নীতির সম্পর্ক নেই। নতুবা ঠিক করে দিক খতীব ইমামগণ কি ৭’শ বছর আগের ইবনে বতুতার আমলের গৎ বাধা খুৎবা পাঠ করবেন না কি বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে দিক নির্দেশনামূলক খুৎবা পাঠ করবেন।
পূর্বে উল্লেখ করা হয়েছে যে, বিগত আওয়ামীলীগ সরকারের আমলে অর্থাৎ ১৯৯৭/৯৮ সালে খতিব পদ থেকে তাকে সরানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল। কিন্তু সাড়া দেশের আলেম-উলামাদের তীব্র প্রতিবাদের মুখে সরকার ঐ সিদ্ধান্ত পরিবর্তনে বাধ্য হয়। বয়সের অজুহাত দেখিয়ে তাঁকে অব্যাহতি দেয়ার জন্য ২০০১ সালে ২২ এপ্রিল তাকে ৭৩ বছর বয়স হওয়ার কারণে খতীব পদ থেকে অব্যাহতি দেয়ার চিঠি দেয়া হয়। পরে হাইকোর্ট এ সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করেন। বিচারপতি এম,এ, আজিজ ও বিচারপতি শামসুল হুদার সমন্বয়ে গঠিত ডিভিশন ব্যাঞ্চ এ রায় দেয়।

জঙ্গী বিরোধী জনমত গঠন:
ইসলামের নামে জেএমবির জঙ্গীবাদী কার্যক্রমের বিরুদ্ধে তিনি জনমত গড়ে তুলেছিলেন, দেশের সকল বিজ্ঞ আলেম, ইমামদের ঐক্যবদ্ধ করে বলেছিলেন, ইসলামের সাথে জঙ্গীবাদের কোন সম্পর্ক নেই। যারা বোমাবাজী বা সন্ত্রাসী করে তাদের সাথে ইসলামের কোন সম্পর্ক নেই। তার আহ্বানেই জাতি ঐক্যবদ্ধ হয়ে জঙ্গীবাদ রুখে দিয়েছিলেন। দেশে জরুরী অবস্থা জারীর মধ্যেই তার আহ্বানে ঢাকা উসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে মজলিসুল উলামার ব্যানারে গত ২১ মার্চ-২০০৭ইং জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। “ইসলামে চরম পন্থা ও সন্ত্রাসের কোন স্থান নেই” শীর্ষক ওলামা সম্মেলনে তিনি বলেছিলেন, ইসলাম শান্তির ধর্ম। ইসলামে চরম পন্থা সন্ত্রাস ও দুর্নীতির কোন স্থান নেই। বর্তমানে যারা বোমাবাজী, সন্ত্রাসী কার্যকলাপ চালিয়ে যাচ্ছে তাদের আইনের হাতে সোপর্দ করা অতি জরুরী। কারণ বোমাবাজি করে নিজেদের জীবন বিসর্জন দেয়া ইসলামের দৃষ্টিতে বড় ধরণের অপরাধ। জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের খতীব মাওলানা উবায়দুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়ার চেয়ারম্যান ও হাটহাজারী মাদ্রাসার মহা-পরিচালক মাওলানা আহমদ শফি, মাসিক মদীনা সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ইসলামী, এডুকেশন ইউরোপের চেয়ারম্যান মুফতি শাহ সদর উদ্দিন, পটিয়া মাদ্রাসার সহকারী পরিচালক মাওলানা আব্দুল হালিম বুখারী, বারিধারা মাদ্রাসার মুহতামীম ও বেফাকের সহ-সভাপতি শায়খুল হাদীস নূর হোসাইন কাসেমী, সাবেক ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মুফতি মোঃ ওয়াককাস, শায়খুল হাদীস তফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী, বাবনগর মাদ্রাসার মুহতামীম মাওলানা মুহিবুল্লাহ, কিশোরগঞ্জ জামেয়া ইমদাদিয়ার প্রিন্সিপাল মাওলানা আযাহার আলী আনোয়ার শাহ, শায়খুল হাদীস আশরাফ আলী, যাত্রাবাড়ী আহলে হাদীস মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল অধ্যাপক আব্দুল ওয়াহাব লাবীর দুরুল হাদীস আল-মাদানীয়া সিলেটের মুহাদ্দিস মাওলানা মনসুরুল হাসান রায়পুরী, মাওলানা মামুনল হক প্রমুখ। সকাল ১০ টা থেকে শুরু হয়ে বিরতিহীন ভাবে বেলা সোয়া ১টা পর্যন্ত সম্মেলনে দেশের ভিন্ন জেলা থেকে মাদ্রাসার প্রধান মসজিদের খতীব প্রায় অর্ধশত আলেম বৃক্ততা করেন। ১৬ দফা ঢাকা ঘোষণা পাঠ করেন মাওলানা আবুল কালাম আজাদ। সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন খলিফায়ে মাদানী আল্লামা আব্দুল মোমিন শায়খে ইমমবাড়ী, এডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী, মাওলানা আব্দুল বাসিত বরকত পুরী এডভোকেট মাওলানা আব্দুর রকিব প্রমুখ। উক্ত সম্মেলনে তার জামাতা হাফিজ মাওলানা মনসুরুল হাসান রায়পুরীর নেতৃত্বে আমরা ১৫ জনের একটি টিম সিলেট থেকে অংশগ্রহণ করি। সেদিন তিনি যে ভাষণ দিয়েছিলেন তা আমাদের জাতীয় ইতিহাসে চির স্মরণীয় হয়ে থাকবে।
বি: দ্র:  পবিত্র রমযানের ২৩ তারিখ, মোতাবেক ৬ অক্টোবর ২০০৭ ঈসায়ী রোজ শনিবার খতীব উবায়দুল হক জালালাবাদী্ইন্তেকাল করেন।  ৭৯ বছরের জীবনে তিনি রেখে গেছেন এক বিশাল কর্মময় জীবনের সোনালী ইতিহাস। সত্যের সংগ্রামে তিনি বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেছেন।
তথ্যসুত্র: ঐক্যের প্রতীক খতীব উবায়দুল হক (র)–রুহুল আমীন নগরী

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now