শীর্ষ শিরোনাম
Home » মাওলানা মুহিউদ্দীন খান প্রসঙ্গ » মাওলানা মুহিউদ্দীন খান আপসহীন সংগ্রামী ব্যক্তিত্ব

মাওলানা মুহিউদ্দীন খান আপসহীন সংগ্রামী ব্যক্তিত্ব

01 Photoমাওলানা জুনাইদ বাবুনগরী : প্রখ্যাত ইসলামি চিন্তাবিদ ও লেখক, সীরাত গবেষক, মাসিক মদীনা সম্পাদক, শ্রদ্ধেয় মাওলানা মুহিউদ্দীন খান গত ১৯ রমজান মোতাবেক ২৫ জুন উলামা তোলাবা ও ইসলামপ্রিয় জনগণকে শোকের সাগরে ভাসিয়ে আল্লাহ তায়ালার মেহমান হয়ে চিরদিনের জন্য বিদায় নিয়ে গেছেন।
বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের খতিব মাওলানা উবায়দুল হক রহ: ইন্তেকাল করেছেন ২৪ রমজান, ২০০৭ ইং, শায়খুল হাদিস মাওলানা আজিজুল হক রহ: ইন্তেকাল করেছেন ১৯ রমজান, ২০১২ ইং আর মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ইন্তেকাল করলেন ১৯ রমজান, ২০১৬ ইং তারিখে। তিন বন্ধুর চিরবিদায়ে কী অপূর্ব মিল।
‘মাওতুল আলিমে মাওতুল আলম’, একজন আলেমের মৃত্যু একটি জাহানের মৃত্যুর সমতুল্য। মুহিউদ্দীন খান চলে গেলেন, কিন্তু আমরা তার মতো সাহসী, সংগ্রামী বীর ও কলমযোদ্ধাকে হারিয়ে মুরব্বিহারা হয়ে গেলাম। হজরত খান সাহেবের সাথে আমার পরিচয় ছাত্রজীবন থেকেই। মুরব্বি হয়েও তিনি আমাকে বন্ধুর মতো ভালোবাসতেন। হেফাজতে ইসলামের আন্দোলনের সময় খোঁজখবর নিতেন, পরামর্শ দিতেন এবং সাহস জুগিয়েছেন।
বর্ণাঢ্য কর্মময় জীবনের অধিকারী এই মনীষী আমৃত্যু দেশ, জাতি ও ইসলামের বহুমুখী খেদমত করে গেছেন। তিনি সর্বশ্রেণীর আলেমদের নিকট ছিলেন সমাদৃত। আলিয়া মাদরাসায় পড়েও দেওবন্দী আদর্শের অধিকারী এই মহৎ ব্যক্তিটি সর্বমহলের শ্রদ্ধা অর্জনে সক্ষম হয়েছেন।
তার পিতা মাওলানা হাকীম আনসারুদ্দিন খান উপমহাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের একজন নেতা ছিলেন। ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে কারা ভোগ করেছেন দু’বার। পারিবারিক সূত্রে পাওয়া ঈমানি চেতনা, দ্বীনি জজবা ও জিহাদি প্রেরণা বৃদ্ধ বয়সেও একজন তরুণের মতো লালন করতেন। দ্বীনের যেকোনো কাজে দেশের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ছুটে গেছেন। ঈমান ও ইসলাম রক্ষায় সবাইকে পরামর্শ দিয়েছেন, সহযোগিতা করেছেন।
মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ছিলেন দেশপ্রেমিক, অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী, মজলুম ও নির্যাতিতের পক্ষে জালেমের বিরুদ্ধে আপসহীন। নাস্তিক, মুরতাদ এবং ইসলাম ও মুসলিমবিদ্বেষী আগ্রাসী শক্তির বিরুদ্ধে সাহসী সিপাহসালার। তার বলিষ্ঠ লেখনী ও কণ্ঠের সাহসী হুঙ্কারে জনসাধারণের মাঝে সংগ্রামী প্রেরণার সৃষ্টি হতো। তিনি মুসলিম উম্মাহর যেকোনো সঙ্কটে কাণ্ডারির ভূমিকা পালন করেছেন। বাংলাদেশের মুসলমানদের স্বার্থ রক্ষার জন্য এবং ভারতের হিন্দুত্ববাদী গোষ্ঠীর সাম্প্রদায়িক উসকানির বিরুদ্ধে সোচ্চার ছিলেন। এরই নজির হলো, টিপাইমুখে ভারত কর্তৃক বাঁধ নির্মাণের বিরুদ্ধে লংমার্চে নেতৃত্ব দিয়েছেন।
আজীবন কুফর, শিরক, বেদায়াতের বিরুদ্ধে এবং দেশীয় ও আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ, খোদাদ্রোহী, ইহুদি-খ্রিষ্টান শক্তি, কাদিয়ানী, বাহায়ি, ভণ্ড ব্যক্তিবর্গসহ এনজিও মিশনারি আগ্রাসী অপশক্তির মোকাবেলায় আলেমসমাজ ও জনতাকে ঐক্যবদ্ধ করার চেষ্টা করেছেন। সব সময় ওলামায়ে কেরামের বাস্তবসম্মত ঐক্য স্থাপনের প্রচেষ্টা চালিয়েছেন। তিনি মনে করতেন, আলেমসমাজের অনৈক্যই উম্মাহর পতনের প্রধান কারণ। তাই শতধাবিভক্ত ইসলামি নেতৃত্ব ও আলেমসমাজের মাঝে সুদৃঢ় ঐক্য প্রতিষ্ঠায় তার ঐকান্তিক প্রচেষ্টা ও ভূমিকা ছিল আন্তরিক ও নিঃস্বার্থ। তিনি আলেমসমাজকে স্বকীয়তা রক্ষা করে মর্যাদাপূর্ণ আসনে অধিষ্ঠিত করার অভিলাষী ছিলেন। ইসলামপ্রিয় সব মানুষকে ঐক্যবদ্ধ রাখার ক্ষেত্রে তার ভূমিকা কালোত্তীর্ণ। জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুগুলোতে রাজনৈতিক, দলীয় ও মতাদর্শের ঊর্ধ্বে উঠে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করে এবং সুদৃঢ় নেতৃত্ব দিয়ে ইতিহাসে স্মরণীয় হয়ে থাকবেন।
মাসিক মদীনা সম্পাদনার পাশাপাশি অনুবাদ করেছেন উপমহাদেশের প্রখ্যাত ফকিহ, পাকিস্তানের মুফতিয়ে আজম মাওলানা মুফতি মোহাম্মদ শফি রহ: লিখিত পবিত্র কুরআনের বিখ্যাত তাফসির মা’রিফুল কুরআন। তার লিখিত, সম্পাদিত, অনূদিত ও সংকলিত বইয়ের সংখ্যা শতাধিক।
তিনি ছিলেন জাতীয় রাজনীতিক ও আন্তর্জাতিক সংগঠক। তার মৃত্যুতে দেশবাসী হারাল এক অনন্য কলমযোদ্ধাকে। তিনি সত্যনিষ্ঠ ওলামায়ে কেরামের বিপ্লবী কাফেলার একটি উজ্জ্বল নক্ষত্র। তার শূন্যতা পূরণ হওয়ার নয়।
মাওলানা মুহিউদ্দীন খান অনুসরণীয় চরিত্র ও বহুমাত্রিক গুণের অধিকারী ছিলেন। দেশ-জাতি, ইসলাম-মুসলমান, শিক্ষা-সাহিত্য, তাহজিব-তামাদ্দুন, আন্দোলন-সংগ্রাম, রাজনীতি-অর্থনীতি, স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষা প্রভৃতি ক্ষেত্রে তার অবদান সম্পর্কে কম-বেশি সবার জানা। তাফসিরে মা’রিফুল কুরআনের অনুবাদ করে মুসলিম জনতার মনের গভীরে স্থান করে নিয়েছেন। ইসলামি আন্দোলন, রাজনীতি ও লেখালেখি একইসাথে চালিয়ে গেছেন।
ষাটের দশক থেকে তিনি বাংলাদেশের রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনে প্রবেশ করেন। প্রথমে তিনি হাকিমুল উম্মত মাওলানা আশরাফ আলী থানভি রহ:-এর বিখ্যাত খলিফা মাওলানা আতহার আলী রহ: প্রতিষ্ঠিত নেজামে ইসলাম পার্টির কেন্দ্রীয় দায়িত্বে সমাসীন ছিলেন। পরবর্তীকালে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সাথে যুক্ত হন। তিনি সাপ্তাহিক মুসলিম জাহানের প্রতিষ্ঠাতা, রাবেতা আল-আলম আল-ইসলামির কেন্দ্রীয় সদস্য, মু’তামারুল আলম আল-ইসলামী বাংলাদেশ শাখার প্রেসিডেন্ট, ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের গভর্নিং বোর্ডের সাবেক সদস্য, জাতীয় সিরাত কমিটি বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, আন্তর্জাতিক মজলিসে তাহাফফুজে খতমে নবুওয়াত বাংলাদেশের সহসভাপতি, নাস্তিক-মুরতাদ প্রতিরোধ আন্দোলনে প্রতিষ্ঠিত সংগঠন ইসলামি মোর্চার সভাপতি, ইসলামী ঐক্যজোটের ভাইস চেয়ারম্যান, জমিয়তে ওলামায়ে ইসলামের সহসভাপতি ও সম্মিলিত উলামা মাশায়েখ পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন।
‘আলেমগণ নবীর ওয়ারিস’। তাঁর উত্তরাধিকারী হিসেবে আলেমরা একইপথ অনুসরণ করেন। দাওয়াত ও জিহাদ রাসূল সা:-এর দু’টি গুরুত্বপূর্ণ মিশন। এ ছাড়া তা’লিম, তাজকিয়াহ, সমাজ সংস্কার, ইনসাফপূর্ণ আদর্শ কল্যাণ রাষ্ট্র ও মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা, আন্তর্জাতিক সম্প্রীতি এসব ক্ষেত্রে বিশ্বনবী হজরত মুহাম্মদ সা: যে আদর্শ রেখে গেছেন, তার স্বার্থে বাস্তবভিত্তিক অবদান রাখা ওয়ারিসে আম্বিয়া তথা ওলামায়ে হক্কানির কাজ। মাওলানা মুহিউদ্দীন খানের কর্মময় জীবনের দিকে লক্ষ করলে দেখা যায়, তিনি এ ক্ষেত্রে যথাযথ ভূমিকা পালন এবং ওলামাদের উদ্বুদ্ধ করেছেন। তিনি বলতেন, একজন আলেমের জীবন হবে সার্বজনীন, কর্ম হবে নিষ্ঠাপূর্ণ, সত্য প্রতিষ্ঠায় হবেন আপসহীন, বাতিলের বিরুদ্ধে হবেন বজ্রকঠোর, পারস্পরিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে হবেন উদার। নায়েবে রাসূলগণ হবেন সাহাবায়ে কেরামের বাস্তব নমুনা। তাই ‘খেলাফত আলা মিনহাজিন্নবুওয়াহ’ প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে তিনি আজীবন মেহনত করেছেন।
উপমহাদেশে আলেমদের মধ্যে কর্মক্ষেত্রে প্রতিভার স্বাক্ষর রেখে যারা খ্যাতির মাল্য পরেছেন, তাদের মধ্যে মাওলানা মুহিউদ্দীন খান একজন। তিনি দেশের বাইরে, আরব জাহানে, ইউরোপে ও দূরপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশেও পরিচিত ছিলেন। আন্তর্জাতিকভাবে পরিচিত এমন আলেমের সংখ্যা বাংলাদেশে হাতেগোনা।
মহান আল্লাহর দরবারে মরহুমের রূহের মাগফিরাত কামনা করছি এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবার-পরিজনের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা ও সহমর্মিতা জানাচ্ছি। ফরিয়াদ করছি, আল্লাহ তায়ালা যেন তার বহুমুখী দ্বীনি খেদমতগুলো কবুল করে তাকে জান্নাতুল ফেরদাউসের আ’লা মাকাম নসিব করেন। আমিন!

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now