শীর্ষ শিরোনাম
Home » মাওলানা মুহিউদ্দীন খান প্রসঙ্গ » যিনি হৃদয়ে থাকবেন বহুকাল

যিনি হৃদয়ে থাকবেন বহুকাল

k2রা13494933_806902436078003_6381505363359222192_nব্বুল ইসলাম খান: আমার আব্বা ইন্তেকাল করেছেন ২০১৪ সালের জানুয়ারির ২৬ তারিখ। বয়স হয়েছিল প্রায় একশত বছর। ঐ বয়সেও তিনি চেষ্টা করতেন কোরান শরীফ পড়তে, চেষ্টা করতেন দৈনিক পত্রিকা পড়তে, আর খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে পড়তেন মাসিক মদীনা! এমন সাধারণ, এমন সাদামাটা জীবন যাপন করেও সব বিষয়ে এতো সন্তুষ্টি প্রকাশ করার ব্যাপারে, আমার পরিচিত মানুষদের মধ্যে আব্বার সমকক্ষ আমি কাউকে করবো না। আমি দেখিনি। আমাদের কাছে তাঁর জাগতিক কোনো কিছুই চাওয়ার ছিল না। তবে একটা জিনিস চাইতেন; সেটা মাসিক মদীনা! মাস শুরু হওয়ার পরপরই বলা শুরু করতেন, “বাজারের দিকে গেলে একটু খোঁজ নিও তো বাবা, মদীনা পত্রিকাটা এসেছে কি না।” এটা হাতে পাওয়ার পর অনেক খুশি হয়ে বলতেন, “খুব ভালো একটা পত্রিকা। এই মওলানা মুহিউদ্দীন খান খুব সুন্দর লেখেন।” তিনি মদীনাটা শুধু পড়তেনই না, লাল কলমের কালি দিয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলো আন্ডারলাইন করতেন। আব্বা অনেকের ওপর অনেক বিষয়েই বিক্ষুদ্ধ হতেন কিন্তু মওলানা মুহিউদ্দীন খান এর ব্যাপারে সব সময় তাঁর অগাধ শ্রদ্ধা প্রকাশ করতে দেখেছি।

আব্বার দেখাদেখি মাসিক মদীনা একসময় আমিও নিয়মিত পড়া শুরু করেছিলাম। কম মূল্যের নিউজপ্রিন্ট কাগজে যে কোন অমূল্য জিনিস থাকতো সেটা মাসিক মদীনার সাথে পরিচয় না থাকলে জানা সম্ভব না। ঐ পত্রিকার দুইটি বিভাগ আমিও মিস করতাম না। এক. সম্পাদকীয় এবং দুই. প্রশ্নোত্তর পর্ব। প্রশ্নোত্তর পর্বটি এতোই ভালো লাগতো যে পুরাতন কোনো সংখ্যা হাতে পেলেও ঐ ৫/৬ পৃষ্ঠা সবার আগে পড়ে ফেলতাম। একসময় আমিও প্রশ্ন পাঠানো শুরু করেছিলাম। পরের মাসের সংখ্যাটির জন্য এই আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করতাম যে, অনেক গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের মধ্যে অমারটিও যদি থাকে! অধিকাংশ সময়েই থাকতো!! মাসিক মদীনার প্রশ্নত্তোর এতটাই আকাশ সমান জনপ্রিয়তা পেয়েছিল যে, পরবর্তীতে বিষয়ভিত্তিক করে আলাদা আলাদাভাবে এগুলো ২০ অথবা ২৮টি গ্রন্থে প্রকাশ হয়েছে।

প্রশ্নগুলোর উত্তর দিতেন মওলানা মুহিউদ্দীন খান। ছোট ছোট উত্তর। প্রতিটি উত্তরের শেষ লাইনের শেষ শব্দটিতে পর্যন্ত আকর্ষণ থাকতো। তাঁর প্রশ্নের ‍উত্তরে কে সন্তুষ্ট হবেন আর কে অসন্তুষ্ট হবেন, ঐ উত্তর কার পক্ষে যাবে আর কার বিপক্ষে যাবে, এসব বিবেচনায় আনা হতো না। কোরান-হাদিসের বক্তব্যের ওপর ভিত্তি করেই তিনি উত্তর দিতেন। সত্যিকারের নির্ভিক সাহসী কলম সৈনিক ছিলেন তিনি। তাঁর লেখা যে কতটা ধারালো ছিল, কতটা উচ্চ মাত্রার সাহিত্য মানের আর ‍যুক্তিসঙ্গত এবং সুখপাঠ্য ছিল, সেটা বোঝা যেতো সম্পাদকীয় পাতায়। তাঁর লেখনি শক্তির গুণেই মাসিক মদীনা ম্যাগাজিনটিই দীর্ঘদিন যাবত প্রচার সংখ্যার দিক দিয়ে বাংলাদেশের মধ্যে প্রথম অবস্থানে ছিল। পরবর্তীতে ‘মদীনা’ এবং ‘যায়যায়দিন’ এর মধ্যে এই প্রথম-দ্বিতীয় থাকার ব্যাপারটি ঘটতো। তবে সব কিছু বাদ দিলেও শুধুমাত্র মাসিক মদীনার এই প্রশ্নোত্তর পর্বের জন্যই মওলানা মুহীউদ্দিন খান এদেশের মানুষের অন্তরে শ্রদ্ধার সাথে থাকবেন সারাজীবন। আমরা এখান থেকে ইসলামের অনেক মৌলিক বিষয় জানতে পেরেছিলাম। তারপরও আমি তাঁর লেখালেখি জগতের এবং অন্যান্য বিষয়ে খুব সামান্য অংশই জানি। জানি না যেটি সে অংশটিই অনেক বড়! সেই বড় অংশটি অবশ্যই ইতিহাস এবং ইতিহাসই সেটা বলবে।

২০০৭ সালের কথা। আমার অফিস তখন মৌচাক। কোনো একটা কাজে মওলানা মুহীউদ্দিন খান আমাদের অফিসে এসেছিলেন! এই প্রথম তাঁকে সরাসরি দেখলাম। তাঁর হাত ধরেছিলেন একজন সাহায্যকারী। আমি উঠে গিয়ে সালাম দিয়ে কথা বলেছিলাম। তিনি যখন বিদায় নিয়ে নেমে যাচ্ছিলেন, রিসেপশন পার হয়ে যাওয়ার পর আমার মনে হলো, দেশ-বিদেশের লক্ষ লক্ষ মানুষের কাছে যিনি জনপ্রিয়, তিনি চলে যাচ্ছেন। তার চাইতেও বেশি মনে হলো, আমার বৃদ্ধ বাবার প্রিয় ব্যক্তিটি চলে যাচ্ছেন…! কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই আমার মধ্যে অন্যরকম এক অনুভূতি কাজ করতে লাগলো। দ্রুত উঠে এসে উনার সাহায্যকারীকে বললাম, আমি ধরি, আপনি ছাড়েন। শেষ পর্যন্ত আমরা দু’জনই ধরলাম। তিন তলার সিঁড়ি দিয়ে আস্তে আস্তে আমাদের সাথে তিনি নেমে এলেন। বিদায় নেয়ার সময় আমি দোয়া চাইলাম। সিঁড়ির কাছে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে লাঠির ওপর হালকা ভর দিয়ে আমার জন্য দোয়া করলেন, উপমহাদেশের প্রখ্যাত আলেম, দেশ সেরা অন্যতম ইসলামী পণ্ডিত এবং আলেমদের অন্যতম অভিভাবক মওলানা মুহিউদ্দীন খান।

প্রায় চার বছর অসুস্থ থাকার পর গত ২৫ জুন ২০১৬ তারিখে (১৯ রমজান) উনি ইন্তেকাল করেছেন। বাংলা ভাষায় অবস্মরণীয় অবদান রাখা এই গবেষক এবং মুসলিম মিল্লাতের একজন অভিভাবকের মৃত্যু খবরটি আমাদেরকে খুব একটা নাড়া দেয়নি!
তাঁর একটি রাজনৈতিক পরিচয়ও ছিল। তবে সেটি খুব বেশি গুরুত্বপূর্ণ কথা না। বরং বাংলা ভাষায় ইসলামী সাহিত্য রচনা, সম্পাদনা এবং প্রকাশনার ক্ষেত্রে তিনি যে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে গেলেন, সেটিই সহস্র গুণ বেশি গুরুত্বপূর্ণ। কারো কারো মৃত্যুতে চুপ থাকার সাথে লাভ-ক্ষতির হিসেব থাকতেও পারে, কিন্তু মওলানা মুহিউদ্দীন খান-এর মতো একজন পণ্ডিত মারা যাওয়ার পর সকলেই এতো নিরব থাকলেন কেন জানি না। হয়তো এখানেও লাভ-ক্ষতির ক্যালকুলেশন থাকতে পারে, কিংবা এসব মৃত্যুতে শোক জানালে নামী-দামি সুশীলদের মর্যাদাহানী ঘটতে পারে! কারণ তো আরও আছে! তিনি ‘ইসলামী চিন্তাবিদ’ ছিলেন। বর্তমান অবস্থার প্রেক্ষাপটে এবং ভাড়াটে মৌলভীদের রমরমা যুগে এবং প্রকৃত আলেম-ওলামাদের দুঃসময়ের দিনগুলোতে এমন একজন ‘ইসলামীক-স্কলার’ হওয়ার চাইতে বড় অপরাধ আর কী-ই বা হতে পারে!!
যতদূর জানি, ব্যক্তিগতভাবে তিনি সৎ ছিলেন, দানশীল ছিলেন। তিনি বর্ষিয়ান আলেম ছিলেন এবং আলেমদের মতপার্থক্য দূর করার জন্য কাজ করেছিলেন। কুরআনের অনুবাদক ছিলেন, প্রবীণ রাজনীতিবিদ ছিলেন, ইসলামি সাহিত্য জগতের দিকপাল ছিলেন। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে বহুমুখী ষড়যন্ত্রের ব্যাপারে তিনি সজাগ এবং প্রতিবাদী ছিলেন। পানি আগ্রাসন ভূমি আগ্রাসন এর ব্যাপারে তাঁর অনন্য ভূমিকা ছিল। তিনি একজন দেশপ্রেমিক নেতা ছিলেন। এগুলোর সবই সম্ভবত অপরাধের মধ্যেই পড়ে! ষড়যন্ত্রকারীদের চিন্তাগুলোকে উন্মোচিত করা এবং শক্ত দূরভিসন্ধি রক্তাক্ত করে দেয়ার মতো ধার ছিল তাঁর কলমে। এটাও নিশ্চয়ই ক্ষমার অযোগ্য অপরাধ! তবে সরকার বা বিরোধীদলের ধান্ধাবাজ সুবিধাবাদীরা যতই নিরব থাকুক, কু-কৌশলী মিডিয়া বা ‘কলম-কেরানী’রা তাঁর মতো প্রচার বিমুখ কীর্তিমান মানুষের কাভারেজ না দিয়ে যতই এড়িয়ে যাক, এতে মহিউদ্দীন খান-এর অবস্থানের কোনো হেরফের হবে বলে মনে হয় না। তাঁর উজ্জ্বলতা একটুও ম্লান হবে বলে মনে হয় না। বরং তিনি মানুষের ঘরে ঘরে যে ইসলামী সাহিত্য সম্ভার রেখে গেলেন, জ্ঞানী মানুষের গবেষণার জন্য যে উপাত্ত রেখে গেলেন, সেজন্যই তাঁকে মনে রাখতে বাধ্য হবে দেশ-বিদেশের বহু মানুষ, বহুকাল।

মওলানা মুহিউদ্দীন খান অনুবাদ ও সম্পাদনা করেছেন অনেক গুরুত্বপূর্ণ বই। ‘মদীনা পাবলিকেশন্স’-এর মতো একটি প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন, যেখান থেকে তাফসির, হাদিস, সিরাত, ইসলামী জ্ঞান ভিত্তিক গ্রন্থ প্রকাশ হয়েছে পাঁচশত এর উপরে! আমাদের দেশে তো সাংবাদিক-কবি-সাহিত্যিক-লেখকের অভাব নেই; বুদ্ধিজীবীর অভাব নেই, সুশীলের অভাব নেই। এদের মধ্যে স্ট্যাটিসটিক স্পেশালিস্ট এর অভাব নেই। কারো কাছে কি এই পরিসংখ্যানটি আছে যে, কোরানের তাফসির বা অনুবাদের কাজে হাত দিতে পারেন, এমন মানুষের সংখ্যা এক লাখের মধ্যে কয়জন হয়? এক কোটিতে কয়জন হয়? কথিত বুদ্ধিজীবী আর তেলবাজ সুশীল বলতে পারবেন, মওলানা মুহিউদ্দীন খান-এর মতো এমন মানুষ একটি দেশে কয়জন থাকে?

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now