শীর্ষ শিরোনাম
Home » মাওলানা মুহিউদ্দীন খান প্রসঙ্গ » আল্লামা মুহীউদ্দীন খান : আমার প্রেরণার বাতিঘর

আল্লামা মুহীউদ্দীন খান : আমার প্রেরণার বাতিঘর

Longmarch Photoঅধ্যক্ষ সৈয়দ রেজওয়ান আহমদ: বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষের পরিচিত একটি নাম মাওলানা মুহিউদ্দীন খান। যিনি ছিলেন বর্তমান যুগের শ্রেষ্ঠ দার্শনিক। সামাজিক, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক তৎপরতায় খ্যাতিমান একজন সফল মানুষ আন্তর্জাতিক পর্যায়ে যার পরিচিতি ছিল ব্যাপক। এ দেশের মুসলিম জনগোষ্ঠির সাহিত্য. সাংস্কৃতিক চেতনা ও ধর্মীয় কল্যাণে যিনি ছিলেন নিবেদিত প্রাণ।
তিনি হঠাৎ করে চলে গেলেন। সকলকে হতবুদ্ধি, নির্বাক ও শোকবিদ্ধ করে চলে গেলেন। ঝড়ের রাতে নৌকা থেকে মাঝি নেমে গেলে যেমন হয়, গহীন অরণ্যে কাফেলার রাহবার নিখোঁজ হয়ে গেলে যেমন হয়, দেশের ধর্মপ্রাণ মানুষ ও আলেম সমাজের অবস্থা তার চলে যাওয়ায় তেমনই হয়েছে। গত ১৯ রমজান শনিবার সন্ধ্যা ৬.১০ মিনিটে আমাদের ছেড়ে পরপারে চলে গেছেন আল্লামা মুহীউদ্দীন খান।
ছোট ভাই রুহুল আমিন নগরীর মাধ্যমে মৃত্যুর সংবাদের সত্যতা যাচাই করে সিদ্ধান্ত নেই যানাজায় যেতে। ইফতারের পর পরই হাফিজ মাওলানা সৈয়দ মঈনুল ইসলাম মোবাইল ফোনে কয়েকজন মিলে যানাজায় যেতে অনূরোধ জানালেন।
সঙ্গী হলেন মরহুমের একান্ত প্রিয় ব্যক্তিত্ব বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন মাওলানা সৈয়দ আব্দুন নূর, তাঁর সুযোগ্য সাহেবজাদা মাওলানা সৈয়দ মসরুর কাসেমী, লন্ডন প্রবাসী বন্ধুবর হাফেজ মাওলানা সৈয়দ জুবায়ের আহমদ, মাওলানা সৈয়দ সায়ফ উদ্দীন, হাফিজ মাওলানা মিসবাহ, হাফিজ সাইদুর রহমান, হাফিজ সৈয়দ তামিম ও সৈয়দ নাসির। বাদ ফজর আমরা রওয়ানা দিয়ে সকাল ১০.২০ মিনিটে গেন্ডারিয়ায় পৌঁছি। দেখা যায় লাশবাহী এম্বুলেন্স দাঁড়ানো বাসার সামনের মাঠে। চোখ ভরে একবার হুজুরের সুন্দর ঘুমন্ত চেহারা দেখলাম। পরে বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেটে আসলে অনেক পুরাতনদের সাথে স্বাক্ষাৎ মিলে। তন্মধ্যে সাবেক ছাত্র নেতা শেখ মুজিব ভাই, বিশিষ্ট কবি খালেদ সানোয়ার, প্রিন্সিপাল মাওলানা শিব্বির আহমদ, শিক্ষা সচিব মাওলানা মাহুদুল হাসান, সাবেক ছাত্র নেতা মাওলানা নজরুল ইসলাম, হাফিজ মাওলানা ওয়াজিদ আলী, ছাত্র নেতা ওমর ফারুক, সাংবাদিক আব্দুল গাফ্ফার, ছাত্র নেতা মাওলানা আখতার এবং তরুন সাংবাদিক মাওলানা রুহুল আমীন নগরী প্রমূখ। সকলেই ভারাক্রান্ত।
জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে লাখো মানুষের উপস্থিতিতে তার নামাযে জানাযা অনুষ্ঠিত হয় রবিবার বাদ জোহর । হুজুরের বড় সাহেবজাদা মুস্তফা মঈনুদ্দীন খান পরিবারের পক্ষ থেকে কথা রাখেন।বায়তুল মোকাররমের পেশ ইমাম হুজুরের আপন ভাগিনা মাওলানা মিযানুর রহমানের ইমামতিতে যানাজা আদায় হয়। পরে গফরগাঁও উপজেলার নিজ গ্রামের সংরক্ষিত করবস্থানে তাঁর দাফন সম্পন্ন হয়।

মরহুম আল্লামা মুহীউদ্দীন খানের সাথে আমার পরিচয় মাসিক মদীনার মাধ্যমে। আশির দশকের শেষ দিকে আমি তখন সৈয়দপুর দারুল হাদীস মাদরাসায় পড়ি। মাদরাসার সিনিয়র শিক্ষক মাওলানা রমিজ উদ্দীন গাজির গাঁওর হুজুর মাসিক মদীনাসহ কিছু ইসলামি পত্রিকা এনে শিক্ষার্থীদের সাহিত্য চর্চায় উদ্ধুদ্ধ করতেন। আমি যদিও ছোট ছিলাম তবুও বড়ভাই মুফতি সৈয়দ নুমান আহমদ একজন নিয়মিত পাঠক হিসেবে মাসিক মদীনা বাড়ীতে আনার সুবাদে পত্রিকা পড়ার সুযোগ মিলে। যদিও তখন বুঝতাম কম তদুপরি কী যেন আমাকে জাগিয়ে দিয়েছিল একটি নামের প্রতি যিনি হলেন মাসিক মদীনার সম্পাদক আল্লামা মুহীউদ্দীন খান। কেন যেন সম্পাদকের নাম বার বার পড়তাম। তখন থেকেই তাঁকে একটিবার দেখার জন্য নিজের মধ্যে একটা প্রেরণা জাগে।
১৯৮১/৮২ সাল। সৈয়দপুর দারুল হাদীস মাদরাসার বাৎসরিক জলসায় আল্লামা মুহীউদ্দীন খানকে দাওয়াত দেওয়া হয়। আমার আশা পুরণের একটা সুযোগ আসে। তিনি সৈয়দপুরের উদ্দেশ্যে ঢাকা থেকে গোয়ালা বাজার হয়ে সৈয়দপুরের রাস্তায় খাদিমপুর ও নয়াবন্দর বাজারের মধ্যখানে পৌছেন। কিন্তু বৃষ্টির কারণে কাঁচা রাস্তায় গাড়ী সামনে অগ্রসর হতে না পারায় সৈয়দপুর পৌছা সম্ভব হয়নি। তাছাড়া পায়ে হেঁটে প্রায় ১৫ কিলোমিটার রাস্তা অতিক্রম করা কঠিন বিধায় তাঁকে ফিরে যেতে হয় ঢাকায়। আসা হলো না সৈয়দপুরে। আমার আকাংখা পূরণ হয়নি।
১৯৮৪/৮৫ সাল। আমরা কয়েকজন যুবক মিলে তৌহিদী যুব সংঘ সৈয়দপুর নামের একটি সামাজিক সংগঠন গঠন করি। যুব সংগের উদ্যোগে প্রতি বছর দেশের সেরা মুফাচ্ছির ও মুবায়্যিনদের নিয়ে তাফসির মাহফিলের আয়োজন করি। যেখানে বার বার এসেছেন মরহুম আল্লামা নূর উদ্দীন গহরপুরী (সিলেট), মরহুম আল্লামা শামছুদ্দীন কাসেমী (ঢাকা), মরহুম আল্লামা হাবীবুল্লাহ মিসবাহ (নোয়াখালী), মরহুম মাওলানা মুসিউর রহমান সাদী (হবীগঞ্জ)সহ দেশের বর্তমান শীর্ষ উলামায়ে কেরাম। আল্লামা মহীউদ্দীন খান কে তাফসির মাহফিলে পর পর কয়েকবার দাওয়াত দিয়েও উপস্থিত করতে সক্ষম হয়নি।
সৈয়দপুর একটি ঐতিহ্যবাহী গ্রাম। এই গ্রামের প্রতি আল্লামা মুহীউদ্দীন খানের ভিন্ন একটি মূল্যায়ন ছিল। আমার জানা মতে সৈয়দপুর গ্রামের একজন প্রবীন আলেম, বিশিষ্ট লেখক ও সাহিত্যিককে তিনি খুবই শ্রদ্ধা করতেন। যার নাম হলো মাওলানা আশরফুল হক আকীক। যিনি ছিলেন প্রবীন রাজনীতিবীদ ব্রিটিশ খেদাও আন্দোলনে অংশ গ্রহণ করে বার বার কারাবরণ করে জেলি মেলৈভী উপাধি লাভ করেন। তিনি ছিলেন মাওলানা সৈয়দ জমিলুল হকের সুযোগ্য সাহেবজাদা। তাছাড়া সৈয়দপুরের বিশিষ্ট ও প্রবীন আলেমে দ্বীন মাওলানা সৈয়দ আব্দুন নূর সাহেবকেও তিনি খুবই শ্নেহ করতেন।
১৯৯৫ সাল। বিশ্বনাথ মাদরাসায় বাবায়ে জমিয়ত মরহুম আল্লামা আশরফ আলী বিশ্বনাথী রহ. এর মাদরাসায় আগমনের সুবাদে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সৈয়দপুরের নেতৃবৃন্দ হুজুরকে দাওয়াত প্রদান করেন। বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ হওয়ায় আমি বাড়ীতে অবস্থান করছিলাম। সংবাদ জেনে খুবই আনন্দিত হই। কিন্তূ জমিয়ত নেতৃবৃন্দ একটি অপরিহার্য কারণ দেখিয়ে প্রোগ্রাম কেনসেল করেন। প্রোগ্রাম কেনসেলের সংবাদ শুনে আমি খুবই ব্যথিত হই এবং এই প্রোগ্রাম ঠিক রাখতে আমি লন্ডন প্রবাসী হাফিজ সৈয়দ সোলায়মান ও হাফিজ সৈয়দ জুবায়েরসহ কয়েকজনকে নিয়ে সোচ্চার হই। আমাদের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে প্রথমত মরহুমের অত্যন্ত শ্রদ্ধাভাজন ব্যক্তি মা্ওলানা সৈয়দ আশরফুল হকের বাড়ীতে যাই এবং বিষয়টি তাঁকে অবগত করি। তিনি বিষয়টি শুনে দু:খ প্রকাশ করেন এবং আমাদের সম্ভোধন করে বলেন তোমরা তাহলে কী চাও? আমরা প্রোগ্রামের পক্ষে সিদ্ধান্ত জানালাম। তিনি আমাদের উৎসাহ ও প্রেরণা দেখে স্বানন্দে হুজুরের নিকট একটা চিরকোট লিখে দিয়ে তা ছেড়ে দিতে নির্দেশ দিলেন। আমরা তা ফ্যাক্স যোগে মদীনা পাবলিকেশন্সের ঠিকানায় প্রেরণ করি। অন্যদিকে ল্যান্ড ফোন মাধ্যমে তাঁর সুযোগ্য ছাহেবজাদা মুস্তফা মঈনুদ্দীন খান কে বিষয়টি অবগত করি।
আলহামদুলিল্লাহ! প্রোগ্রাম ঠিক হলো। যথাসময়ে হুজুর ঐতিহ্যবাহী সৈয়দপুর বাজারের প্রোগ্রামে আগমন করলেন। সভায় তিনি সৈয়দপুর গ্রামের ইতিহাস-ঐতিহ্য সম্পর্কে অনেক অজানা তথ্য উপস্থাপন করলেন। পরে মাওলানা আশরফুল হক সাহেবের বাড়ীতে রাত্রী যাপন করলেন।
তখন থেকে হুজুরের সাথে আমার সম্পর্ক একটু বেড়ে যায়। বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ হলে আমি ঢাকা হয়ে হুজুরের সাথে সাক্ষাৎ করে বাড়ী আসতাম। তাঁর সাথে আমার ব্যক্তিগত অনুভুতি শেয়ার করতাম। তিনি গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দিতেন। তাঁর পরামর্শ আমার অনেক কাজে এসেছে।
২০০১ সাল। নিজ গ্রাম সৈয়দপুরের ঐতিহ্যবাহী শতবছরের পুরাতন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যক্ষ পদে নিয়োগ প্রাপ্ত হই। ২০০৩ সালে প্রতিষ্ঠানের ১০০ বছর পূরণ হবে। মাদরাসা কর্তৃপক্ষ, প্রাক্তন শিক্ষার্থী ও এলাকার মুরুব্বীয়ান সমন্বয়ে প্রতিষ্ঠানের শত বর্ষপূর্তি উৎসব পালনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। এ বিষয়ে পর পর কয়েকটি মিটিং করে প্রতিষ্ঠানের ভবিষ্যৎ উন্নয়নের লক্ষ্যে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তৎকালীন শিক্ষা মন্ত্রী জনাব ড. ওসমান ফারুককে শত বর্ষপূর্তী উৎসবের প্রধান অতিথি করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। আমি মন্ত্রী মহোদয়ের প্রোগ্রাম নির্বাচন করতে অনেক চেষ্টা প্রচেষ্টার পর বিকল্প কোন রাস্তা না পেয়ে হুজুরের স্মরণাপন্ন হই। হুজুর অসুস্থ শরীর নিয়ে মন্ত্রীকে দাওয়াত দিতে মন্ত্রী পাড়ার বাসায় আমাকে সঙ্গে নিয়ে যান।
আমরা সকাল প্রায় ৯টায় মন্ত্রীর বাসায় পৌছি। গেটে শত শত লোক। মন্ত্রীর সাথে স্বাক্ষাৎ করতে অপেক্ষমান। মন্ত্রী স্বাক্ষাৎকার কক্ষে আসবেন, দেখা করবেন। এদিকে বাহক মাধ্যমে হুজুরের পরিচয় দিয়ে মন্ত্রীকে অবগত করতে অনূরোধ করি। হুজুরের আগমনের সংবাদ পেয়ে কয়েক মিনিটের মধ্যে মন্ত্রী নীচে নেমে আসেন। বিষয়টি আমরা বুঝতে পারি নাই। মন্ত্রী নিজেই খুজতেছেন মেহমান কোথায়? অত:পর মন্ত্রী নিজে হাত ধরে হুজুরকে তাঁর একান্ত খাস রুমে নিয়ে গেলেন। আমি সাথে ছিলাম। কুশল বিনিময়ের পর হুজুর বর্ষপূর্তী উৎসবের দাওয়াত দেন। তিনি দাওয়াত গ্রহণ করলেন। আমরা আমাদের প্রোগ্রাম গোছাতে থাকি।
এদিকে রাজনৈতিক কারণ দেখিয়ে শিক্ষা মন্ত্রী প্রোগ্রামে না আসার বিষয়ে হুজুরকে অবগত করেন। বিষয়টি অবগত হয়ে আমাকে না জানিয়েই তিনি প্রোগ্রামের চীফ গেষ্ট সাবেক বিচারপতি জনাব মোঃ আব্দুর রউফ এবং স্পেশাল গেষ্ট দারুল এহসান বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ডীন সায়্যিদ সাফতী কে দাওয়াত দেন। পরবর্তীতে হুজুর আমাকে অবগত করলে আমি মাদরাসা কর্তৃপক্ষ ও এলাকার মুরুব্বীয়ানদের অনুমতিক্রমে হুজুরের প্রোগ্রামকেই সমর্থন করি। ৩ এপ্রিল ২০০৪ সৈয়দপুর মাদরাসার বর্ষপূর্তী উৎসবে হুজুর অতিথিদের নিয়ে অতি উৎসাহিত হয়ে মাদরাসার প্রোগ্রামে আসেন। সৈয়দপুর গ্রামে হুজুরের সেটাই শেষ সফর।
২০০৮ সাল। সেনা বাহিনী কর্তৃক পরিচালিত সরকার। একটি কুচক্রি মহল আমার বিরুদ্ধে দেশের বহুল প্রচারিত একটি দৈনিক পত্রিকায় মিথ্যা-বানোয়াট সংবাদ পরিবেশন করে। একই দিনে বাংলাদেশের সকল স্থরের গোয়েন্দা সংস্থাসহ আইন শৃংখলা বাহিনী আমাকে এরেষ্টের উদ্দেশ্যে পর্যায়ক্রমে সৈয়দপুরে আসে। এলাকার এবং প্রবাসে অবস্থানরত সকল স্তরের মানুষের সার্বিক সহযোগিতা, বান্ধু-বান্ধব, শুভাকাংখী, লকেল আইন-শৃংখলা বাহিনী, এবং বিশেষ করে আমার সম্মানিত আভিভাবক আল্লামা মুহীউদ্দীন খান রহ. তাৎক্ষনিক মরহুম আল্লামা মুফতি ফজলুল হক আমিনী ও আমার অত্যান্ত শ্রদ্ধাভাজন ব্যক্তিত্ব আল্লামা মুফতি মো: ওয়াক্কাস মহোদয়কে তৎকালীন কেয়ার টেকার সরকার প্রধান ড. ফখর উদ্দীন সাহেবের সাথে সাক্ষাতের ব্যবস্থা গ্রহণ করেন এবং তাদের মাধ্যমে দেশের কিছু পত্রিকা ও সাংবাদিকদের মিথ্যা-বানোয়াট তথ্য সন্ত্রাসে আক্রান্ত এ দেশের আলেম-ওলামা বিশেষ করে সিলেট বিভাগের ঐতিহ্যবাহী গ্রাম সৈয়দপুরের আলেমদের উপর সরকার কর্তৃক যে কোন ধরণের ব্যবস্থা গ্রহণ থেকে বিরত থাকেতে অনূরোধ জানান।
২০০৭ সাল। আমি ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণা বিভাগের অধীনে এমফিল ডিগ্রী অর্জনে ভর্তি হওয়ার সিদ্ধান্ত নেই। গবেষণা কাজের বিষয় নির্বাচনে আবারও অভিভাকের দরবারে পরামর্শ নিতে যাই। হুজুর তাঁর সম্মানিত উস্তাদ মুহাদ্দিস মুফাস্সির ও মুসান্নিফ মরহুম আল্লামা নূর হোসাইন আ’জমী রহ. এর জীবন ও কর্মের উপর সিনাপসি তৈরী করতে বলেন এবং আল্লামা আ’জমী রহ. এর তথ্য সংগ্রহে আমাকে বেশ কিছু পুস্তাকাদি ও ঠিকানা দিলেন। সেই মতে আমি কাজ শুরু করি।
৬ অক্টোবর ২০০৭। জাতীয় মসজিদের খতীব আল্লামা উবায়দুল হক জালালাবাদী রহ. ইন্তেকাল করেন। জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে নামাযে যানাজা অনুষ্ঠিত হয়। আমি যানাজায় শরীক হই। যানাজা শেষে মদীনা অফিসে হুজুরের সাথে স্বাক্ষাৎ করি। আমাকে দেখে হুজুর কাছে ডেকে নেন। আমার পূর্ববর্তী কাজের অবস্থা যানেন এবং সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে আল্লামা খতীব রহ. এর জীবন ও কর্ম নিয়ে গবেষণা করতে উদ্ধুদ্ধ করেন। আমি বললাম খতীব সাব হুজুর আমার উস্তাদ। আমি সিলেটস্থ জামেয়া ক্বাসিমুল উলুম দরগাহে হযরত শাহজালাল রহ. মাদরাসায় তাঁর কাছে বুখারী শরীফ পড়ার সুযোগ হয়েছে। তাই আনন্দ চিত্তে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে ঐ দিনই হুজুরের পরামর্শে গবেষণার বিষয় নির্বাচন করি। গবেষণার বিষয় “খতীব আল্লামা উবায়দুল হক জালালাবাদী : ইসলামী শিক্ষা ও সংস্কৃতি বিকাশে তাঁর অবদান”। সময়মত উল্লেখিত গবেষণার বিষয়ে সিনাপসি তৈরী করে বিশ্ববিদ্যালয়ে জমা দেই। আল্লাহর শুকর বিশ্বদ্যিালয় কর্তৃপক্ষ বিষয়টি হুবহু মঞ্জুর করেন।
আল হামদুলিল্লাহ! গবেষণা কর্মের অভিসন্ধর্ভটি হুজুর অসুস্থ অবস্থায় ঢাকার একটি ক্লিনিকে ভর্তিকালীন তাঁর হাতে তুলে দেই। তিনি কপিটিতে চুমু খেয়ে বার বার অভিসন্ধর্ভটির প্রতি থাকিয়ে দেখেছিলেন। ঐদিন আমার সাথে ছিলেন বন্ধুবর বিশিষ্ট কবি মাওলানা খালেদ সানোয়ার। হুজুরকে দেখতে এসেছিলেন বাংলাদেশের ইসলামি সাহিত্য জগতের আরেক দিকপাল বিশিষ্ট সাহিত্যিক ও কলামিষ্ট মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভী। তিনি তাঁর একটি লেখায় ঐ দিনের হুজুরের অবস্থা এবং আমার অভিসন্ধর্ভটির উপর কিছু মন্তব্য তুলে ধরেছিলেন।
আজ খান সাব হুজুর নেই। অভিভাবক হিসেবে আমি কার কাছ থেকে পরামর্শ নিব? দেশে কী আছেন এমন কোন দরদী অভিভাবক? যে নি:স্বার্থভাবে যে কাউকে নিজের থেকে এমন সব পরামর্শ দিতে এগিয়ে আসবেন? দোয়া চাই সকলের তরে ‘আল্লাহ যেন আমাকে একজন যোগ্য অভিভাবক মিলিয়ে দেন।
পরিশেষে মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামরা করছি। আল্লাহ যেন তাঁকে জান্নাতের উঁচু আসনে স্থান দেন।আমীন।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now