শীর্ষ শিরোনাম
Home » স্বাক্ষাৎকার » রোগাক্রান্ত মাওলানা আনসারীর মুখোমুখি একদিন

রোগাক্রান্ত মাওলানা আনসারীর মুখোমুখি একদিন

ansaryশামসীর হারুনুর রশীদ: ওয়াজ তাফসীর বর্তমানে একটি মহান পেশা। এ পেশার প্রতি জনসাধারণের রয়েছে দূর্বলতা। বাংলাদেশে প্রেক্ষাপটে   এটাকে একটি শিল্প বলাই ভালো। তাতে যেমন আছে ঝুঁকি, তেমন আছে সম্মান ও রোমাঞ্চ। এজগতের খ্যাত বিখ্যাত মিষ্টবাসী বক্তা বললেই বাংলার আপামর তৌহিদী জনতার কাছে একটি নাম ভেসে উঠে মুফাসসিরে কুরআন হাফিজ মাওলানা জুবায়ের আহমদ আনসারী। বাংলার ল ল মানুষ তার মিষ্টি মধুর ভরাট কণ্ঠে তাফসীর শুনে অধীর আগ্রহে। বিশেষ করে তরুণ যুব সমাজে খুব কাছের প্রিয় এই বক্তা দীর্ঘ দিন থেকে অসুস্থ। তাফসীর জগত থেকে হঠাৎ তার জীবীত বিদায় কেউ যেন মেনে নিতে পারছেন না। বক্ত মহলের অনেকেই বিভ্রান্তও হচ্ছেন! এমন পরিস্থিতিতে আমেরিকায় চিকিৎসা শেষে জুনের শুরুতে দেশে আসেন। গত ২৩ শে জুন রাতে আমি শামসীর হারুনুর রশীদ ও তরুণ দুই বন্ধু মারুফ আহমদ মুন্না ও আব্দুর রাজ্জাক মোরশেদ তার মুখোমুখি হই। নানা প্রশ্নোত্তরে তার সাথে জড়িয়ে যাই বা এটাকে

সাক্ষাতকারই বলা যেতে পারে। সালাম  মুসাফাহা শেষে তার কাছে প্রথমে জানতে চাই ইসলামি শিক্ষার ওপর কোথা থেকে সর্বোচ্চ ডিগ্রি নিয়েছেন এবং তাফসীর জগতে কবে থেকে আসেন?

আনসারী: আমি কওমি মাদ্রাসা শিক্ষার ওপর জামেয়া হুসাইনিয়া গহরপুর সিলেট থেকে দাওরায়ে হাদীস তথা মাষ্টার্স পাশ করি। আর আজ থেকে ২৬ বছর আগে অর্থ্যাৎ নব্বই দশক থেকে তাফসীর মাহফিলে যোগ দিতে শুরু করি। আল্লাহর শুকুর প্রতি বছর ৭/৮ হাজার প্রোগ্রামের আবেদন আসে, তা থেকে বেছে বেছে প্রায় সাড়ে ৫শত প্রোগ্রাম করি। কোনো কোনো দিন ৭/৮ টাও করতে হয়।
শামসীর: টাইটেল পাশ করে মাওলানারা সাধারণত শিক্ষকতায় যোগ দেন তো আপনে তাফসীর জগতে কি করে আসলেন, কারো কি উৎসাহ পেয়েছিলেন?
আনসারী: শিক্ষকতাও করেছি, তবে তাফসীর জগতে আমি আমার প্রিয় দুই উস্তাদ মাওলানা তাজুল ইসলাম গৌহরী রহ. ও মাওলানা আব্দুল খালিক বাহুবলীর তত্তাবধান ও উৎসাহে আসি। তাদের দু’জনের সুহবতে চার বছর করে আট বছর ছিলাম। আর এটাই আমার মহান পুজি বলে বিশ্বাস করি।
শামসীর: আপনি যে হঠাৎ জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে গেলেন তা কবে থেকে এবং কোথায়?
আনসারী: হঠাৎ নয়, আজ থেকে ৩৬ বৎসর আগে ছাত্র থাকাবস্থায় এ রোগটা আমার গালে ধরা পড়ে। গলা বা কণ্ঠে কোনো সমস্যা ছিল না নেই। দেশের বিভিন্ন জাগায় বার বার চিকিৎসা করিয়েছি তাতে সাময়িকভাবে সুস্থ হলেও আবার বেড়ে যেত। আর রোগটা মারাত্মক আকার ধারন করে ২০১৪ সালে।
শামসীর: বিদেশে চিকিৎসা নেয়ার আগে সর্বশেষ দেশের কোথায় চিকিৎসা করিয়েছেন এবং ডাক্তারা কি বলেছে?
আনসারী: ইউনাইটেড হাসপাতাল ঢাকা। সেখানের চিকিৎসকরা বলেছে এ ঝুঁকিপূর্ণ চিকিৎসা তারা করতে পারবেনা। পরে বাধ্য হয়ে থাইলেন্ডের ব্যাংককে চিকিৎসা নেই। তারা ৬টা কেমুথেরাপি ও ৩০টা রেডিয়েশন দিলে কিছুটা সুস্থ হই।
শামসীর: আপনার এ ব্যয়বহুল চিকিৎসায় সরকারি বা বেসরকারিভাবে কোন সহযোগিতা পেয়েছেন?
আনসারী: হ্যা, আমার শুভাকাংখী ও ভক্তদের কাছ থেকে যথেষ্ট সহযোগিতা পেয়েছি কিন্তু সরকারি বা সরকারি কোন কর্মকর্তার সহযোগিতা তো দূর কি বাত কেউ কোন খবর পর্যন্ত নেয়নি।
শামসীর: আপনে বলেছেন ২৬ বছরে প্রায় ৩০ হাজারের মত প্রোগ্রাম করেছেন তো সরকারিভাবে কোথায়ও কোনো বাধার মুখে পড়েছেন কি না?
আনসারী: সরাসরি সরকারি কোন বাধার মুখে পড়ি নাই। তবে ভিন্ন মতাবলম্বী বা মতাদর্শের লোকের দ্বারা নানা জাগায় নানা সময়ে সাময়িক বাধাগ্রস্থ হয়েছি যে, এমন ঘটনা অনেক।
শামসীর: আপনে তাফসীরের কোন কিতাবকে বেশি অনুসরণ করেন?
আনসারী: অনেক তাসফির গ্রন্থকে অনুসরণ করলেও বেশি অনুসরণ করি তাফসীরে মাজহারী।
শামসীর: বর্তমানে অনেক বক্তা আপনাকে অনুসরণ বা নকল করতে দেখা যায় এ ব্যাপারে আপনার দৃষ্টিভঙ্গি কি?
আনসারী: নকল জিনিসটাই তো কেমন? শরিয়ত তা অনুমোদন দেয়নি। তবে কেউ প্রতিষ্টিত হতে হলে কাউকে না কাউকে অনুসরণ করতে হয়। সে হিসেবে আমাকে অনুসরণ করে কেউ প্রতিষ্ঠিত হতে পারলে আমি খুশিই হবো। তবে হুবহু যের যবর পেশ বা দাড়ি কমা নকল করাকে নিম্নমানের কাজ বলে আমি মনে করি।
শামসীর: তাফসীর মাহফিলে আগের মত যোগ দিতে পারবেন? এবং সর্বশেষ আপনার ব্যাপারে ডাক্তারের পরামর্শ কি অথবা বর্তমানে শারিরীক অবস্থা কোন পর্যায় আছে যদি বলতেন?
আনসারী: দেখেন আসলে আমার কন্ঠে বা গলায় কোন সমস্যা নেই, সমস্যাটা হল গালে। আর এক বছরের ব্যবধানে আবার কেমুথেরাপি এবং রেডিয়েশন দেয়া খুবই ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় আমেরিকা ছাড়া আর কোনো দেশের ডাক্তার সাহস করতে পারেনি। তাই আমেরিকায় আমি আবার ৩টি কেমুথেরাপি ও ৩০টি রেডিয়েশন দেই এবং ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী মে- জুন- জুলাই এ তিন মাস রেষ্টে আছি। পরে চেকাপ করেই জানতে পারব রোগ মুক্ত কি না। আমি দৃঢ় আশাবাদী সুস্থ হয়ে আবার তাফসীর জগতে ফিরে আসবো ইনশাআল্লাহ।
শামসীর: আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।
আনসারী: আপনাদেরও অসংখ্য ধন্যবাদ।
লেখক: মুহাদ্দিস ও প্রাবন্ধিক

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now