শীর্ষ শিরোনাম
Home » বিনোদন » যাঁর কাছে আমরা চিরঋণী তিনি হচ্ছেন চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি’র দাদা শ্বশুর

যাঁর কাছে আমরা চিরঋণী তিনি হচ্ছেন চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি’র দাদা শ্বশুর

আজিজুর রহমান খোকন : গত সোমবার সিলেট নগরীর তালতলাস্থ পার্টির কার্যালয়ে মাসিক সভায় আমি উপস্থিত হই। সভা শেষে মরহুম জননেতা আব্দুল হামিদ এর বাড়ীর অতি পরিচিত এক ব্যক্তি আমার হাতে একটি ওলিমার দাওয়াত কার্ড তুলে দিলেন। তখন আমি জানতে চাইলাম এটা কার ওলিয়ামা? তিনি বললেন কার্ড খুললেই বুঝতে পাবে। বাসায় নিয়ে কার্ড খুলে দেখলাম ২৪ জুলাই রোববার ২০১৬ইং সন্ধ্যায় নগরীর একটি অভিজাত কমিউনিটি সেন্টারে ওয়ালিমা অনুষ্ঠিত হবে। পরিচিতিতে দেখলাম কনে- শারমিন আক্তার নিপা মাহিয়া (মাহি), পিতা- মোঃ আবু বক্কর খোকন। আমার নাম আজিজুর রহমান খোকন। কনের পিতার নামে সাথে আমার নামের একটি মিল রয়েছে বলেই আমার আমাকে দাওয়াত দেয়া হয়েছে। বর হচ্ছেন- পারভেজ মাহমুদ (অপু), পিতা- মোঃ আব্দুল মান্নান। পড়ে বুঝতে পারলাম পারভেজ মাহমুদ (অপু)’র দাদা হচ্ছেন সিলেট নগরীর কদমতলী নিবাসী জননেতা মরহুম আব্দুল হামিদ। যাঁর কাছে আমি চিরঋণী। তাঁর আদর্শে আমি ৯০-র দশকে আমি রাজনীতিতে এসেছে। সেই মহান নেতা আব্দুল হামিদ যাঁর স্নেহে ও আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে আমি গণতন্ত্রী পার্টিতে নিজেকে আজো সম্পৃক্ত রেখেছি। যার আদর্শে সন্ত্রাস, চাঁদাবাজী রাজনীতি থেকে আমাকে মুক্ত রেখে বাম প্রগতিশীল রাজনীতিতে প্রতিষ্ঠিত করেছে।
জননেতা আব্দুল হামিদের সংক্ষিপ্ত জীবনী
নাম : আব্দুল হামিদ, জন্ম- ১৯১৫, পিতা- মরহুম আব্দুল ওয়াহিদ, মাতা- মরহুমা খোদেজা বিবি, স্ত্রী- মরহুমা তাহেরুন নেছা, সন্তানাদি- ৫ ছেলে, ৯ মেয়ে, জন্মস্থান- কদমতলী, থানা- দক্ষিণ সুরমা, জেলা- সিলেট। শিক্ষা- নিম্ন মাধ্যমিক পর্যন্ত। রাজনৈতিক মতবাদ- সমাজতন্ত্র।
রাজনৈতিক দল- মুসলিম লীগ (১৯৪৬), আওয়ামী মুসলিম লীগ (১৯৫১), আওয়ামীলীগ (১৯৫৫), ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ) ১৯৫৭-১৯৬৭, ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ মোজাফফর) ১৯৬৭ – ১৯৮৫, এন.এ.পি সৈয়দ আলতাফ হোসেন, পীর হবিবুর রহমান ও চৌধুরী হারুনুর রশিদ এর নেতৃত্বাধীন) ১৯৮৬-১৯৯০, গণতন্ত্রী পার্টি ঃ সিলেট জেলা সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ১৯৯১ – ২০০১।
১৯৯৭ সালে ঢাকার মাহবুব আলী ইনস্টিটিউটে কেন্দ্রীয় সম্মেলনের উদ্বোধক ও কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মন্ডলীর সদস্য নির্বাচিত (১৯৯৭ – ২০০১)।
কমিউনিস্ট পার্টির সদস্য- ১৯৫২ – ১৯৭৬
আন্দোলন-সংগ্রাম : নানকার আন্দোলন ১৯৪৮ – ১৯৪৯, ভাষা আন্দোলন ১৯৪৮-১৯৫২, যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন ১৯৫৪, মরহুম সখাওয়াতুল আম্বিয় ও পীর হবিবুর রহমানের পক্ষে নির্বাচনে সক্রিয় অংশ গ্রহণ।
রবীন্দ্র জন্ম শতবার্ষিকী উদযাপন আন্দোলন : ১৯৬১
কম্বাইন্ড অপজিশন ‘কপ’ এর প্রার্থী মিস. ফাতেমা জিন্নাহ’র পক্ষে নির্বাচন পরিচালনায় সক্রিয় অংশ গ্রহণ ১৯৬৫।
১১ দফা আন্দোলন : ১৯৬৮ – ১৯৬৯
গণঅভু্্যত্থান : ১৯৬৯
নির্বাচন : ১৯৭০, ’৭৩, ’৭৯, ’৮৬, ’৯১, ’৯৬ এর জাতীয় নির্বাচন সহ রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে দলীয় ও প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক জোট প্রার্থীদের পক্ষে সক্রিয় অংশ গ্রহণ।
মহান মুক্তিযুদ্ধে অন্যতম সংগঠকের ভ‚মিকা : ১৯৭১, পাকিস্তানী জল্লাদ বাহিনী কর্তৃক গ্রেফতার ও ১১ দিন বন্দি অবস্থায় অকথ্য নির্যাতনের শিকার।
স্বাধীনতা চেতনা মঞ্চ : ’৮০-এর দশকের মাঝামাজি।
স্বৈরাচারী এরশাদ সরকারী বিরোধী আন্দোলনে সক্রিয় অংশ গ্রহণ : ’৮০-র দশক।
১৫ দল সিলেট জেলা কমিটির আহবায়ক : ১৯৮৪।
মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন ও একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল জাতীয় সমন্বয় কমিটির সিলেট জেলা শাখার আহবায়ক।
সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি পরিষদ সিলেট জেলা শাখার সদস্য
ভারতে বাবরী মসজিদকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা প্রশমনে সক্রিয় অংশ গ্রহণ : ১৯৯২।
স্থানীয় আন্দোলন সংগ্রাম : শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হলের নামকরণ বহাল আন্দোলন, ফেঞ্চুগঞ্জ সারকারখানা রক্ষা আন্দোলন, সরকারী পাইলট স্কুল ছাত্রাবাস রক্ষা আন্দোলন, সাইপ্যাম বিরোধী তেল-গ্যাস রক্ষা আন্দোলন, সাম্প্রদায়িকতা বিরোধী আন্দোলন সহ কৃষক-শ্রমিক-মেহনতি মানুষের প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে সক্রিয় অংশ গ্রহণ।
দেশ ভ্রমণ : ভারত, পাকিস্তান, সোভিয়েত ইউনিয়ন।
ব্যবসা : ইটের ভাটা, খনিক কয়লা আমদানী ও বিক্রি। সিলেট কয়লা আমদানীকারক গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি।
শিক্ষা-সাহিত্য-সংস্কৃতি ও সামাজিক ক্ষেত্রে অবদান : দি এইডেড হাই স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সহ সভাপতি, মদন মোহন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য, ১৯৮৪ সালে সিলেট কিশোরী মোহন বালিকা বিদ্যালয়ের সংকট কালে ক্লাস চালু করণে সাহসী ও দায়িত্বশীল ভ‚মিকা পালন, গোটাটিকর হাই স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, জহির-তাহির স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি, দক্ষিণ সুরমা নছিবা খাতুন বালিকা বিদ্যালয় সহ বিভিন্ন বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও অন্যতম সদস্য, সিলেট ল’ কলেজ ম্যানেজিং কমিটির সদস্য, সিলেট কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সহ-সভাপতি ও আজীবন সদস্য, ডায়াবেটিক সমিতির অন্যতম সদস্য, খেলাঘর, উদীচী সহ সাহিত্য-সংস্কৃতি ও খেলাধুলা সংক্রান্ত বিভিন্ন সংগঠনের পৃষ্ঠপোষক, কদমতলী জামে মসজিদের মুতাওয়াল্লি ইত্যাদি।
মৃত্যু : ১ সেপ্টেম্বর ২০০১ইং

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now