শীর্ষ শিরোনাম
Home » মাওলানা মুহিউদ্দীন খান প্রসঙ্গ » সাল অনুযায়ী মাওলানা খানের কর্মযজ্ঞ

সাল অনুযায়ী মাওলানা খানের কর্মযজ্ঞ

Copy of Pic-43
সৈয়দ আনোয়ার আবদুল্লাহ:
মাওলানা মুহিউদ্দীন খান
জন্ম : ৭ বৈশাখ ১৩৪২ বাংলা
বাবা : হাকীম মাওলানা আনছার উদ্দিন খান
মা : রাবেয়া খাতুন
দাদা : মুন্সী তৈয়বুদ্দিন খান
নানা : মুন্সী আব্দুল হামিদ
জন্মস্থান : আনসার নগর, গফরগাঁও, ময়মনসিংহ
১৯৪৪ সালে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি ।
১৯৪৫ সালে গ্রামের অদূরে পাঁচবাগ মাদরাসায় ভর্তি ।
১৯৫০ সালে আলিম পাশ।
১৯৫১ সালে ফাজিল পাস।
১৯৫২ সালে ঢাকা আলিয়ায় হাদিস নিয়ে কামিলে ভর্তি ।
১৯৫২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ভাষা আন্দোলনে যোগদান করে দেড় মাস কারাগার বরণ।
১৯৫৫ সালে কামিলে হাদিস পাশ করে কামিল ফিকাহ ভর্তি ।পড়া-লেখার পাশাপাশি ১৯৬০ সাল পর্যন্ত উর্দু দৈনিক ‘পাসবান’ এ চাকরি।
১৯৫০ সালে আলিমে পড়ার সময় পূর্ব পাকিস্তান জমিয়তে তালাবায়ে আরাবিয়ায় যোগদান ।
১৯৫১ সালে তালাবা থেকে নেজামে ইসলাম পার্টির কর্মী হিসেবে যোগদান এবং মাওলানা আতহার আলী ও মাওলানা সৈয়দ মুসলেহ উদ্দিন রহ, সাহেবদ্বয়ের সান্নিধ্য গ্রহণ ।
১৯৫৭ সালে ‘ওয়ার্ল্ড মু’তামার আল ইসলামি’র পূর্ব পাকিস্তানের সদস্য নির্বাচিত ।
১৯৬০ সালে জাতীয় সিরাত কমিটি প্রতিষ্ঠা ।
১৯৬১ সালে আফ্রিকার সোমালিয়ায় মু’তামারের বিশ্ব সম্মেলনে যোগদান ।
এ বছরই মু’তামারের পরপর ৮টি বিশ্ব সম্মেলনে যোগদানের লক্ষ্যে মিশর, কুয়েত, আবুধাবি, মালয়েশিয়া, পাকিস্তানসহ বিভিন্ন দেশে গমন।
১৯৬১ সালে মাসিক মদীনা প্রকাশ ।
১৯৬১ সালেই বিশেষ সম্মানে জমিয়তে তালাবায়ে আরাবিয়ার সভাপতির দায়িত্ব গ্রহণ ।
১৯৬৩ সালে প্রথম মর্শাল ল জারি হয়ে নেজামে ইসলাম বন্ধ হয়ে গেলে জমিয়তে উলামায় ইসলামে যোগদান ।
১৯৬৫-৬৬ সালে পূর্ব পাকিস্তান জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সেক্রেটারি জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব পালন।
১৯৬৭-৬৮ সালে অল পাকিস্তান জমিয়তে উলামার জয়েন্ট সেক্রেটারি হিসেবে দায়িত্ব পালন।
১৯৬৯ সালের জাতীয় নির্বাচনে খেজুর গাছ পতীক নিয়ে গফরগাও থেকে নির্বাচনে প্রার্থী হন।
১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধকালে ভলিষ্ট ভুমিকা পালন করেন। শেখ মুজিবুর রহমান ও মুফতি মাহমুদের দীপাক্ষিক বৈঠকের মধ্যস্থতা ও কুটনৈতিক কার্যক্রম করেন।
১৯৮১ সালে হাফেজ্জি হুজুরের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সেক্রেটারির দায়িত্ব পালন।
১৯৮৪ সালে রাবেতায়ে আলামি আল ইসলামি সংস্থার মেম্বার নির্বাচিত । রাবেতার মাধ্যমে অন্তত দশটি বিশ্ব সম্মেলনে যোগদান ।
১৯৫৪ সালে প্রথম লেখা ‘তালিম’ নামক পত্রিকায় ছাপা হয়।
১৯৫৫ সালে ‘আদাবুল মসজিদ’ নামে প্রথম অনুবাদ গ্রন্থ প্রকাশ ।
১৯৫৭ সালে এমদাদিয়া লাইব্রেরি থেকে ‘আল ফারুক’ প্রকাশ ।
১৯৮৪ সালে তাফসিরে মারেফুল কোরআনের অনুবাদ শুরু করে ১৯৮৮ সালে অনুবাদ শেষ ।
সংক্ষিপ্ত তাফসিরে মারেফুল কোরআন ১৯৯৫ সালে সৌদিআরব থেকে প্রকাশ ।
বিভিন্ন সময়ে বিশ্বের প্রায় ৪০টি দেশ ভ্রমণ ।
সৌদিআরব, লন্ডন, ভারত, পাকিস্তানসহ দেশ-বিদেশে প্রায় শতাধিক পদক/ সম্মাননা লাভ।
বিয়ে : ১৯৫৮ সালে । ৬১ সালে প্রথম ছেলের জন্ম।বর্তমানে ৩ ছেলে ও ২ মেয়ে ।
পছন্দ ছিলো বই পড়া।
শেষ ইচ্ছে ছিলো, মৃত্যুর সময় হাতে যেনো ‘কলম’ ধরা থাকে!
তথ্যগুলো দেড় বছর আগে মাওলানা মুহিউদ্দীন খান সাহেবের বাসায় গিয়ে সরাসরি তার মোবারক যবান থেকে নেয়া।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now