শীর্ষ শিরোনাম
Home » মাওলানা মুহিউদ্দীন খান প্রসঙ্গ » একেক জন মুহিউদ্দীন খানের জন্ম হয় কয়েক শতাব্দি পর : আল মাহমুদ

একেক জন মুহিউদ্দীন খানের জন্ম হয় কয়েক শতাব্দি পর : আল মাহমুদ

Photo-6 images আল মাহমুদ: মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ছিলেন আমাদের সোনালী অতীতের শেষ আস্তিন। যে আস্তিন মডেল হয়ে উঠেছিল একটি প্রজন্মের। একটি সভ্যতার পরিচয় বহন করেছিল। একটি আর্দশ মাথা উঁচু করে দাড়িয়েছিল সভ্যতার বাহক হিসাবে, কিন্তু বৈর পরিবেশের কারনে তার মৃল্যটুকো বুঝতে পারেন নি অনেকেই। সেটা ছিল এমন এক অমূল্য রতন যা কখনো রাজা বাদশাহের ধন ভান্ডার দিয়ে ক্রয় করার সাধ্য কারো নেই। তার মৃত্যুতে শুধু বাংলাদেশ কিংবা বাংলা ভাষায় শূন্যতা সৃষ্টি হয় নি, শূন্যতা সৃষ্টি হয়েছে বিশ্ব ভাষায়। বিশ্ব সভ্যতায়।

আমরা আর জীবন্ত কোন গুনীর পরিচয়ে দুনিয়ার কোন প্রান্তে পরিচিতি হবো এমন কোন পরিচয় রইল না। দুনিয়ার অনেক দেশে গিয়ে আমি পরিচয় দিয়েছি, আমি সে দেশের কবি যে দেশে মুহিউদ্দীন খান জন্মেছেন। এক নামে মুসলিম বিশ্বের বড় বড় জ্ঞান তাপসরা তাকে চিনতেন। তাকে তাদের অনেকে যতোটা চিনতেন হয়তো ততোটা চিনতেন না বাংলাদেশকে। পৃথিবীর অন্য দেশে গিয়ে, মুহিউদ্দীন খান নামটা বললে গর্বে বুক ফুলে উঠতো।

খান সাহেবের সাথে এই ঢাকা শহরে এসেই সম্পর্ক তৈরি হয়। তার সম্পাদিত সাপ্তাহিক আজ পত্রিকায় তখন কবি ফররুখ আহমদ, কবি তালিম হুসেন সহ ষাটের দশকের অনেক কবিরাই লিখতেন। দৈনিক প্রসবন ও আজে মাওলানার অফিস ঢাকার কবি সাহিত্যিকদের প্রধান আড্ডাস্থলে পরিণত হয়েছিল। আজকে যারা এশহরের বড় লেখক তাদের অনেকেই একদিন মুহিউদ্দীন খানের দ্বারা নানান ভাবে উপকৃত হয়েছেন। প্রতিষ্টিত হতে পেরেছেন।

এরপর আমি একদিকে তিনি অন্যদিকে কাজ করতে থাকেন। নানান বিষয়ে আমাদের মধ্যে অনেক সময় বিরোধ দেখা দিয়েছে কিন্তু সম্পর্কের গভীরতায় কখনো ভাটা পড়েনি। মাওলানা, যত ভিন্ন মতের মানুষ হোক তাকে কাছে টানতে পারতেন। এটা তার একটি বিশেষ খোদা প্রদত্ত যোগ্যতা ছিল।

সর্বশেষে মরহুম কবি সৈয়দ আলী আহসান ও সৈয়দ আলী আশরাফ ভ্রাতৃদ্ধয়ের কল্যানে আমরা একত্রে নানান বিষয় আশয় নিয়ে কাজ করেছি দীর্ঘ সময়। আমার বন্ধু কবি আফজাল চৌধুরী ছিলেন মুহিউদ্দীন খান সাহেবের একনিষ্ট ভক্ত। সেই সুবাধে পরবর্তিতে মুহিউদ্দীন খানের জ্ঞান প্রজ্ঞা ও ব্যক্তিত্ব সম্পর্কে আমি কিছুটা ধারনা পেয়েছিলাম।

বিশ্বব্যাপি তার এই জ্ঞান গরিমার খ্যাতি ছিল। কিছু কিছু মানুষের আভির্ভাব হয়, যাদের পরিচয়ে পরিচিত হয়ে উঠে একটি দেশ। একটি জাতি।পরিচিত হয়ে উঠে একটি সভ্যতার। এরকম মানুষের সংখ্যা হয় হাতেগুনা। কয়েক শতাব্দি পর একেক জন মানুষের জন্ম হয়। মাসিক মদীনার সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন সে মাপের একজন বিশ্ব মনীষা ছিলেন। পৃথিবীর বড় বড় সংস্থা আর প্রতিষ্টানে তিনি কাজ করার সৌভাগ্য অর্জন করেছিলেন। আমার এক নিকট আত্মীয় মদীনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হবে। সে সেখানে যোগাযোগ করলে, তারা বললো বাংলাদেশের মুহিউদ্দীন খানের সুপারিশ লাগবে। আমি খান সাহেবকে ফোন দিলাম। তিনি সুপারিশ লিখে দিলেন। ভর্তির সময় কর্তৃপক্ষ তার নাম দেখেই সব কিছু সহজ করে দিল।

কিন্তু দুর্ভাগ্য আমরা তাকে চিনতে পারিনি বা বুঝার মতো যোগ্যতা অর্জন করতে পারিনি। বাঙ্গালি জাতি হিসাবে এটা আমাদের চরম ব্যর্থতা । থাকে সামান্য একাডেমীক কোন মৃল্যায়ন করতে না পারা জাতী হিসাবে আমাদের জন্য এটা অনেক বড় দুঃখ জনক ও লজ্জাকর বিষয়। মুহিউদ্দীন খানকে অনেকে চেনেন না বা তার কর্ম পরিধি সম্পর্কে জানেন না। তিনি প্রচার বিমূখ নিভৃতচারী সাধক বিপ্লবী ছিলেন। তার শিল্প কর্মকে আমরা সঠিক ভাবে উপস্থাপন করতে পারিনি বলে আমার ধারনা। তবে তার জ্ঞান প্রজ্ঞার গভীরতা পরিমাপ করতে না পেরে আমার মতো কবিরও ঈর্ষা হত।
মহান প্রভূ যেন তাকে আপন করে নেন পরকালীন জীবনে সেই প্রার্থনাই করছি। যার সন্তুষ্টি লাভের জন্য তিনি বিলিয়ে দিয়েছিলেন জীবনের প্রতিটি শৈল্পিক মুহুর্ত।

লেখক, বাংলা সাহিত্যের প্রধান কবি

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now