শীর্ষ শিরোনাম
Home » মাওলানা মুহিউদ্দীন খান প্রসঙ্গ » মাওলানা মুহিউদ্দীন খান : আমার রুহানী পিতা

মাওলানা মুহিউদ্দীন খান : আমার রুহানী পিতা

DSC05499মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী : মাওলানা মুহিউদ্দীন খান (রহ) ছিলেন সমকালীন একজন শ্রেষ্ঠ ইসলামী ব্যক্তিত্ব । ইসলামী শিক্ষা-সংস্কৃতি, সাহিত্য-সাংবাদিকতা বিকাশে তাঁর অবদান ছিল প্রবাদতুল্য। মাসিক মদীনা ও বিখ্যাত তাফসীর গ্রন্থ তফসীরে মাআরেফুল কোরআন তাঁর জীবনের অন্যতম কীর্তি। তৎকালীন সৌদি বাদশাহর অনুদানে এবং তত্ত্বাবধানে বিশ্ববরেণ্য আলেমে মুফতী মুহাম্মদ শফী (রহ.) কৃত তফসীরে মাআরেফুল কোরআন অনুবাদকর্মের জন্য মনোনীত হন এবং বাদশাহর রাজকীয় আমন্ত্রণে সৌদি আরব গমন করেছেন। “মাওলানা মুহিউদ্দীন খান’’ শুধূ একটি নামই নয়, একটি প্রতিষ্ঠান,একটি চেতনা, প্রেরণার মিনার।  ইসলাম প্রচার, সমাজসেবা, পৃষ্ঠপোষকতা, অভিভাবকত্ব গ্রহণ, প্রকাশনা শিল্প, শিক্ষা,সাহিত্য প্রতিষ্ঠান, রাজনীতি ইত্যাদি ক্ষেত্রে রয়েছে তাঁর অসামান্য অবদান। বিশেষ করে লেখালেখিতে ইসলামী অঙ্গনে তাঁর খ্যাতি,তাঁর তুলনা তিনি নিজেই।  ইতিহাসের এই বটবৃক্ষের নীচে আশ্রয়নিয়েছি
র্দীঘ একযুগের ও বেশী সময় । তাঁকে দেখেছি,জেনেছি,উপলদ্ধি করেছি ,নিজের শূন্যজ্ঞানভান্ডারকে কিছুটা হলেও সমৃদ্ধ করার চেষ্টা করেছি।  প্রকৃত সত্য হলো আমার জন্মদাতা-শাসন কর্তা পিতা প্রয়াত আব্দুর রাজ্জাক (রহ) অপর দিকে যিনি আদর স্নেহ করে আমাকে আজকের অবস্থানে নিয়ে এসেছেন তিনিই আমার রুহানী পিতা মরহুম মাওলানা মুহিউদ্দীন খান (রহ)।
সংক্ষিপ্ত জীবন বৃত্তন্ত: জন্ম ৭ বৈশাখ ১৩৪২ বাংলা,মোতাবেক ১৯ এপ্রিল ১৯৩৫ সাল। পিতা: হাকীম মওলানা আনছার উদ্দিন খান,  মাতা:  রাবেয়া খাতুন, দাদা : মুন্সী তৈয়বুদ্দিন খান।  নানা : মুন্সী আব্দুল হামিদ। জন্মস্থান: কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলার ছয়চির গ্রামে নানার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। মরহুমের পৈতৃক নিবাস ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার আনসার নগরে। ১৯৪৪ সালে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি। ১৯৪৫ সালে গ্রামের অদূরে পাঁচবাগ মাদরাসায় ভর্তি । ১৯৫০ সালে আলিম, ১৯৫১ সালে ফাজিল পাস। ১৯৫২ সালে ঢাকা মাদরাসা-ই আলিয়ায় হাদিস নিয়ে কামিলে ভর্তি । ১৯৫২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ভাষা আন্দোলনে যোগদান করেন। মাসাধিককাল আত্মগোপনে থাকার পরে ৩ দিন কারাগারে ছিলেন। ১৯৫৫ সালে কামিলে হাদিস পাশ করে কামিল ফিকাহ ভর্তি । পড়া-লেখার পাশাপাশি ১৯৬০ সাল পর্যন্ত উর্দু দৈনিক ‘পাসবান’ এ চাকরি। ১৯৫০ সালে আলিমে পড়ার সময় পূর্ব পাকিস্তান জমিয়তে তালাবায়ে আরাবিয়ায়
যোগদান । ১৯৫১ সালে তালাবা থেকে নেজামে ইসলাম পার্টির
কর্মী হিসেবে যোগদান এবং মাওলানা আতহার আলী ও মাওলানা সৈয়দ
মুসলেহ উদ্দিন রহ, সাহেবদ্বয়ের সান্নিধ্য গ্রহণ । ১৯৫৭ সালে ‘ওয়ার্ল্ড মু’তামার আল ইসলামি’র পূর্ব পাকিস্তানের সদস্য নির্বাচিত । ১৯৬১ সালে আফ্রিকার সোমালিয়ায় মু’তামারের বিশ্ব সম্মেলনে যোগদান । এ বছরই মু’তামারের পরপর ৮টি বিশ্ব সম্মেলনে যোগদানের লক্ষ্যে মিশর, কুয়েত, আবুধাবি, মালয়েশিয়া, পাকিস্তানসহ বিভিন্ন দেশে গমন। ১৯৬১ সালে মাসিক মদীনা প্রকাশ । ১৯৬১ সালেই বিশেষ সম্মানে জমিয়তে তালাবায়ে আরাবিয়ার সভাপতির দায়িত্ব গ্রহণ । ১৯৬৩ সালে প্রথম মর্শাল ল জারির পরে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামে যোগদান । ১৯৬৫-৬৬ সালে পূর্ব পাকিস্তান জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সেক্রেটারি জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব পালন। ১৯৬৭-৬৮
সালে অল পাকিস্তান জমিয়তে উলামার জয়েন্ট সেক্রেটারি হিসেবে দায়িত্ব পালন। ১৯৯৬ সালের ১লা ডিসেম্বর জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের নির্বাহী সভাপতি, পরবর্তীতে ২০০৩ সালের ১০ জুলাই নির্বাহী সভাপতি নির্বাচিত হন। ২০০৫ সালে শায়খে বিশ্বনাথীর ইন্তেকালের পরে ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্বপালন করেন। সর্বশেষ ইন্তেকালের সময় স্বীয় পীর আল্লামা আব্দুল মোমিন সভাপতি,মাওলানা নুর হোসাইন কাসেমী মহাসচিব এবং তিনি জমিয়তের প্রথম সহসভাপতি নির্বাচিত হন।  ১৯৭০ সালের জাতীয় নির্বাচনে খেজুর গাছ পতীক নিয়ে গফরগাও থেকে নির্বাচনে প্রার্থী হন। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধকালে বলিষ্ট ভুমিকা পালন করেন। শেখ মুজিবুর রহমান ও মুফতি মাহমুদের দীপাক্ষিক বৈঠকের মধ্যস্থতা ও কুটনৈতিক কার্যক্রম করেন। ১৯৮১
সালে হাফেজ্জি হুজুরের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সেক্রেটারির দায়িত্ব
পালন। ১৯৮৪ সালে রাবেতায়ে আলম আল ইসলামি সংস্থার মেম্বার নির্বাচিত। রাবেতার মাধ্যমে অন্তত দশটি বিশ্ব সম্মেলনে যোগদান ।
ফেনী থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক’তালিম’ পত্রিকায় (১৯৫৩ ) প্রথম লেখা ছাপা হয়। ১৯৫৫ সালে ‘আদাবুল মসজিদ’ নামে প্রথম অনুবাদ গ্রন্থ প্রকাশ । ১৯৫৭ সালে এমদাদিয়া লাইব্রেরি থেকে ‘আল ফারুক’ প্রকাশ । ১৯৮৪ সালে তফসিরে মারেফুল কোরআনের অনুবাদ শুরু করে ১৯৮৮ সালে অনুবাদ শেষ । সংক্ষিপ্ত তাফসিরে মারেফুল কোরআন ১৯৯৫ সালে সৌদিআরব থেকে প্রকাশ । বিভিন্ন সময়ে বিশ্বের প্রায় ৪০টি দেশ ভ্রমণ । সৌদিআরব, লন্ডন, ভারত, পাকিস্তানসহ দেশ-বিদেশে প্রায় শতাধিক পদক/ সম্মাননা লাভ। ১৯৫৮ সালে পরিনয়সুত্রে আবদ্ধ। ৬১ সালে প্রথম ছেলের জন্ম। ১৯৯৮ সালে জাতীয় সিরাত কমিটি প্রতিষ্ঠা । ১৯৬৩ সালে আল্লামা আব্দুল্লাহ দরখাস্তির নিকট বায়আত গ্রহন করেন। এর পরে আল্লামাাবুল হাসান আলী নদভীর পক্ষ থেকে হাদীসের পাশাপাশী সুলুকের (লিখিত) ইযাযত প্রাপ্ত হন। ২০০৮ সালের ৩০ অক্টোবর খলিফায়ে মাদানী আল্লামা আব্দুল মোমিন কর্তৃক খেলাফত প্রাপ্ত হন।

বিশিষ্ট জনের দৃষ্টিতে মাওলানা খান: শিক্ষাবিদ সৈয়দ আলী আহসান বলেন, বাংলাদেশে সীরাত চর্চায় মাওলানা মুহিউদ্দীন খানের অবদান অসামান্য। এক্ষেত্রে তিনি একা যে কাজ করে যাচ্ছেন, তা অনন্য সাধারণ।’ অধ্যাপক চেমন আরা বলেন, সর্বজন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিত্ব মওলানা মুহিউদ্দীন খান, যিনি সাধারণ মানুষের মাঝে ইসলামী চিন্তা চেতনার বিস্তার ঘটাতে অবিরাম সংগ্রাম করে যাচ্ছেন’। ২০০৮ সালে জাতীয় প্রেসক্লাবে ইসলামী পত্রিকা পরিষদের এক অনুষ্ঠানে দেশের প্রধান কবি আল মাহমুদ বলেন, মাওলানা মুহিউদ্দীন খান মাসিদ মদীনার মাধ্যমে তৌহিদ বা একত্ববাদের যে প্রচার করে যাচ্ছেন তা অতুলনীয়। বাংলা ভাষায় ইসলামী সাহিত্র ভান্ডারকে সমৃদ্ধ করার ক্ষেত্রে তার অবদান সকলকেই স্বীকার করতে হবে।’ (তথ্য সুত্র: আস-সিরাজ মুহিউদ্দীন খান সংখ্যা,সম্পাদক-রুহুল আমীন নগরী,প্রকাশকাল মাচৃ ২০০৯ ই)

মাওলানা খানের ইন্তেকালের পরে কবি আল মাহমুদ আক্ষেপ করে বলেন, ’দুর্ভাগ্য আমরা তাকে চিনতে পারিনি বা বুঝার মতো যোগ্যতা অর্জন করতে পারিনি। বাঙ্গালি জাতি হিসাবে এটা আমাদের চরম ব্যর্থতা । তাকে সামান্য একাডেমীক কোন মৃল্যায়ন করতে না পারা জাতী হিসাবে আমাদের জন্য এটা অনেক বড় দুঃখ জনক ও লজ্জাকর বিষয়। মুহিউদ্দীন খানকে অনেকে চেনেন না বা তার কর্ম পরিধি সম্পর্কে জানেন না। তিনি প্রচার বিমূখ নিভৃতচারী সাধক বিপ্লবী ছিলেন। তার শিল্প কর্মকে আমরা সঠিক ভাবে উপস্থাপন করতে পারিনি বলে আমার ধারনা। তবে তার জ্ঞান প্রজ্ঞার গভীরতা পরিমাপ করতে না পেরে আমার মতো কবিরও ঈর্ষা হত।’
বিশিষ্ট লেখক মাসুদ মজুমদার বলেন, তিনি আলেম-ওলামাদের প্রতি যেমন শ্রদ্ধাশীল ছিলেন, তেমনি ফেরকাবন্দী জীবন ও ক্ষুদ্র বিষয়ে বড় বিতর্কে বিরক্তও ছিলেন। আধুনিক ও ইংরেজি শিক্ষিতদের তিনি কদর করতেন। তাদের ধর্মানুরাগ তাকে অনেক বেশি উৎসাহ জোগাত। তিনি বিজ্ঞানচর্চায় উৎসাহ দিতেন। বিজ্ঞান বিষয়ক কয়েকটি প্রকাশনা ও গবেষণা গ্রন্থ তারই পৃষ্ঠপোষকতায় প্রকাশিত হয়েছে। তাই বলে অন্য কাউকে তিনি কখনো অবজ্ঞা করেননি। পাশ কাটিয়ে চলেননি। সবাইকে নিয়ে ঐক্যের মঞ্চ তৈরি করতে সদা তৎপর ছিলেন। একবার দুঃখ করে বলেছিলেনÑ ‘আমার জীবনটা আলেম-ওলামা ও দ্বীনদার বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে ঐক্যের ভিত তৈরি করতেই কেটে গেলÑ যেভাবে চাই সেভাবে ঐক্য গড়ে তুলতে পারলাম না।’ তার এই দুঃখবোধ যুগপৎ কষ্টের ও অভিমানের। একটা স্মৃতিচারণ না করলেই নয়। কবি আল মাহমুদ এই সময়ের শীর্ষ কবি। শক্তিমান বিশ্বাসী কবি। ‘হাওয়া বিবির জাগরণ’ নামে একটা কবিতা লিখলেন। যথারীতি কবিতাটি প্রকাশিত হলো। মাওলানা ভোরেই টেলিফোন করলেন। আমাকে নাশতার টেবিলে চান। পুরানা পল্টনে তার দফতরে গিয়ে দেখি শত শত ব্যানার প্রস্তুত। দুপুরে মিছিল বের করবেন। প্রতিবাদ করবেন, আল মাহমুদ বিশ্বাসী মানুষ হয়েও ইহুদি মিথ নিয়ে কবিতা লিখতে গিয়ে পবিত্র কুরআনের উপস্থাপনাকে এড়িয়ে গেছেন। আমরা জানি হজরত আদম-হাওয়া আ: প্রথম মানুষ। হজরত আদম আ: প্রথম নবীও। ইহুদি-খ্রিষ্টানও তা মানে, তবে ওল্ড টেস্টামেন্টের বরাতে ‘আদি পাপের’ একটা গল্প জুড়ে দেয়, যা পবিত্র কুরআনসম্মত নয়। মাওলানাকে কাছে থেকে জানি। প্রতিবাদ তিনি করবেনই। ততক্ষণে প্রীতিভাজন কবি মতিউর রহমান মল্লিক জানালেনÑ আমি যেন মাওলানাকে ঠেকাই। আমার অনুরোধ তিনি শুনবেন। ঠান্ডা মাথায় মাওলানাকে বললাম, মাওলানা ব্যতিক্রম ছাড়া সব কবি ভাবের রাজ্যে সাঁতার কেটে বিভ্রান্তির উপত্যকায় ঘুরে বেড়ান। আল মাহমুদ ব্যতিক্রম নন। উপকার করতে গিয়ে ক্ষতি করে ফেলেছেন। আমি দায়িত্ব নিলাম, আল্লাহ হজরত আদম-হাওয়ার জন্য ক্ষমার শর্ত হিসেবে একটা দোয়া শিখিয়ে দিয়েছেন। আমি সন্ধ্যার আগেই আল মাহমুদ ভাইকে দিয়ে দোয়াটা (রাব্বানা-জোয়ালামনাৃ) পড়িয়ে নেব। মাওলানা বসা থেকে দাঁড়িয়ে গেলেন। বললেন, সত্যিই তাই করবেন। কথা দিলাম। মাওলানা বুকে জড়িয়ে ধরে বললেন, আপনি আমাকে এবং আল মাহমুদ দু’জনকেই দায়মুক্ত করলেন। তাৎক্ষণিক সবাইকে বলে দিলেন আল মাহমুদের বিরুদ্ধে মিছিল হবে না। তার হেদায়েত ও কল্যাণ কামনা করে মুনাজাত হবে। মাওলানার কাছে দেয়া প্রতিশ্রুতি সেদিন সন্ধ্যায় বিসিআইসি মিলনায়তনের সেমিনার শেষে প্রিয় কবিকে অর্থসহ পড়িয়ে দিয়েছিলাম। কবি আত্মস্থ করেছিলেন। তসলিমা ইস্যুতেও তিনি প্রতিবাদী হয়েছেন, হঠকারী হননি। তাই আমার দেখা-জানাশোনা আলেমদের মধ্যে মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ছিলেন একজন ভারসাম্যপূর্ণ আলেম ও জাতীয় ব্যক্তিত্ব, যিনি জাতির যেকোনো সন্ধিক্ষণ ও ক্রান্তিকালে একা হলেও দাঁড়িয়ে যাওয়াকে কর্তব্য ভাবতেন। আল্লাহ নিশ্চয়ই তার এই প্রিয় বান্দাকে সর্বোত্তম প্রতিদান দিয়ে সম্মানিত করবেন।’
ইন্তেকাল : ২৫ জুন ২০১৬ ঈসায়ী মোতাবেক ১৯ রমজানএরাজ শনিবার ইফতারে কিছুক্ষণ আগে রাজধানীর একটি হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে স্ত্র,ি৩ ছেলে, ২ মেয়েসহ অসংখ্য আত্ময়ি স্বজন,ভক্ত অনুরক্ত রেখেযান। আমরা মহান আল্লাহপাকের দরবারে দ্বীন দরদী এই মহান ব্যক্তিত্বের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি।

লেখক: সম্পাদক-সিলেট রিপোর্টডটকম। ০১৭১৬৪৬৮৮০০।

তারিখ ২৩-৭-২০১৬

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now