শীর্ষ শিরোনাম
Home » রাজনীতি » বিএনপির শীর্ষ নেতাদের নির্বাচন করতে দেবেনা সরকার : মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

বিএনপির শীর্ষ নেতাদের নির্বাচন করতে দেবেনা সরকার : মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

13815152_557263397799827_2108228547_nঅলিদ তালুকদার, ঢাকা প্রতিনিধি-সিলেট রিপোর্ট :  মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে সরকার বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ দলের শীর্ষ নেতাদের নির্বাচন করতে না দেওয়ার কৌশল শুরু করেছে বলে দাবি করেছেন দলের শীষ নেতৃবৃন্দ।
রোববার বিকেলে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে ঢাকা মহানগর বিএনপি আয়োজিত এক প্রতিবাদ সভায় এসব কথা বলেন বিএনপির শীর্ষ নেতারা। ভোটার বিহীন সরকার কতৃক রাজনৈতিক প্রতিহিংসামূলক ভাবে দায়েরকৃত মুদ্রা পাচার মামলায় জজ আদালতের দেয়া বেকসুর খালাসের রায় বাতিল কওে তারেক রহমানের সাজার প্রতিবাদে এ প্রতিবাদ সভার আয়োজন করা হয়।
বিএনপির নেতারা বলেন, তারেক রহমানকে সাজা দেওয়ার মাধ্যমে সরকার এই প্রক্রিয়া শুরু করেছে। ক্ষমতা পাকাপোক্ত করতে সরকার এই পরিকল্পনা বাস্তাবায়ন করছে দাবি করে এর বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধের প্রস্তুতি নিতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহবান জানান তারা।
নিম্ন আদালত থেকে খালাস পাওয়া মামলায় তারেক রহমানকে সাজা দেওয়ার প্রক্রিয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলে ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, আমরা সবাই জানি নিম্ন আদালতে যে রায় হয় তা উচ্চ আদালতে গিয়ে কিছুটা কমে। সর্বশেষ আহসান উল্লাহ মাস্টারের রায়েও আমরা তাই দেখলাম। তারেক রহমানের বিরুদ্ধে সাজার রায় সম্পূর্ন রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় দেয়া হয়েছে। এর মাধ্যমে সরকার বিএনপিকে দুর্বল করতে চায়। জনগণের কাছে তাদের চেহারা স্পষ্ট হয়েছে। সরকারের বিদায় ঘন্টা বেজে গেছে। সংসদেও তারাই তা বলছে। জনগণ অনেক সহ্য করছে আর করবে না।
গণতন্ত্র না থাকার ফলে দেশে জঙ্গিবাদের উত্থান হচ্ছে দাবি করে তিনি বলেন, সরকারের কর্তৃত্ববাদী শাসনের কারনে জঙ্গিবাদের উত্থান হচ্ছে। ক্ষমতা চিরস্থায়ী করতে জঙ্গিবাদ থেকে জনদৃষ্টি ভিন্ন দিকে ফেরাতে তারেক রহমানের সাজার বিষয়টি সামনে আনা হয়েছে।
আলোচনা সভায় অংশ নিয়ে নজরুল ইসলাম খান বলেন, চক্রান্ত শুরু হয়েছে মাত্র। অনির্বাচিত ও দুর্নীতিবাজ সরকার তার ক্ষমতা পাকাপোক্ত করতে বিএনপির জনপ্রিয় নেতাদের নির্বাচন করতে দেবেনা। সেজন্য তাদের মিথ্যা মামলায় অভিযুক্ত করা হবে। তারেক রহমানকে দিয়ে এটি শুরু হয়েছে। সবাইকে এই ষড়যন্ত্রের শিকার হতে হবে।
আন্দোলনের মাধ্যমে একটি নিরপেক্ষ নির্বাচনে সরকারকে বাধ্য করে তাতে বিজয়ী হয়ে এই সংকটের উত্তরণ ঘটাতে হবে বলেও নেতাকর্মীদের পারমর্শ দেন তিনি। সেজন্য বিভেদ ভুলে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ হতে বলেন নজরুল ইসলাম।
মির্জা আব্বাস বলেন, তারেক রহমানকে যে মামলায় সাজা দেওয়া হয়েছে সেখানে বিচারকে প্রভাবিত করা হয়েছে। মামলার তদন্ত কর্তকর্তা বা বাদী কেউই বলেননি, তারেক রহমান টাকা নিয়েছেন। তাহলে কিসের ভিত্তিতে তাকে সাজা দেওয়া হলো?
তিনি বলেন, ‘সরকারের পায়ের নিচে মাটি নেই। সেজন্য বিএনপির নেতাকর্মীদের গুম করে, হত্যা করে, মিথ্যা মামলায় জেলে নিয়ে সরকার আজীবন ক্ষমতায় থাকতে চায়।’
স্থায়ী কমিটির অপর সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, বিএনপিকে যারা ধ্বংসের চিন্তা করছে তারা বোকার স্বর্গে বাস করছে।
তিনি বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ঐক্যের ডাকে যখন সবাই সাড়া দিচ্ছে, তখন তারেক রহমানকে সাজা দেওয়া হলো। জনগণকে ঘুমপাড়িয়ে আপনারা (সরকার) এজেন্ডা বাস্তবায়ন করবেন আর চিনাবাদাম খাবো সেটি ভাববেননা। বিএনপির বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র হচ্ছে জানিয়ে নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান তিনি।
প্রতিবাদ সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও ঢাকা মহানগর বিএনপির আহবায়ক মির্জা আব্বাসের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, নজরুল ইসলাম খান, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, সেলিমা রহমান, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডবোকেট রুহুল কবির রিজভী, সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক আবুল খায়ের ভূইয়া, ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, ঢাকা মহানগরের যুগ্ম আব্ব্য়াক কাজী আবুল বাশার, সদস্য ইউনুছ মৃধা, ছাত্রদলের সভাপতি বাজীব আহসান প্রমুখ।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now