শীর্ষ শিরোনাম
Home » প্রবাস » বাঙালি কমিউনিটিতে বাড়ছে হাহাকার !

বাঙালি কমিউনিটিতে বাড়ছে হাহাকার !

668b346a-76bb-40a5-a44b-ed83db5deeddডেস্ক রিপোর্ট:  বদলে যাচ্ছে ব্রিটেনের জীবনযাত্রা। সংকুচিত হয়ে আসছে পারিবারিক ব্যয় মেটানোর সক্ষমতা। হাহাকার বাড়ছে বাঙালি কমিউনিটিতে। আগে এক জনের আয় দিয়ে পুরো পরিবার চলতো। এখন সবার সম্মিলিত আয় দিয়েও পরিবারের বোঝা  টানা যেনো অনেক কষ্ট সাধ্য হয়ে পড়ছে। কারণ আয়ের তুলনায় ব্যয় বেড়ে গেছে । তার উপর দেশে পরিবার পরিজনের কাছে নিজের কষ্টার্জিত টাকা পাঠাতে খাচ্ছেন হিমশিম।  ব্রিটেনের ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ফলে সৃষ্ট অর্থনৈতিক মন্দা অবস্থায় কমে গেছে পাউন্ডের দাম।

এমন পরিস্থিতিতে কেউ চাকরি হারিয়েছেন, অনেকের আবার  নতুন করে চাকরি জুটছে না। ফলে দ্রুত পরিবর্তন আসছে জীবনযাত্রায়। ম্লান হয়ে আসছে হাসি, প্রাণউচ্ছল এবং উদ্দমতা। মন্দা অর্থনীতি, বেকারত্ব এবং ইমিগ্রেশন খাতের অস্থিরতা ব্রিটেনের সামাজিক অবস্থার দ্রুত পরিবর্তন ঘটাচ্ছে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন। চলমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতির কারণে মানুষের জীবনযাত্রার ব্যয় অপ্রত্যাশিতভাবে বেড়ে যাচ্ছে। ফলে কমে আসছে ভোগ বিলাস এবং সামাজিক জৌলুস। ব্রিটেনের একটি বড় জনগোষ্ঠির বেকারত্ব এবং হতাশার কারণে মাদক সেবন ও এ্যালকোহল পানের প্রবণতা বেড়ে গেছে। যার প্রতিফলন ঘটেছে ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের সর্বশেষ অর্থনৈতিক সমীক্ষাতেও।

জাতীয় পরিসংখ্যানের বরাত দিয়ে ব্যাংক অব ইংল্যান্ড বলেছে, এপ্রিল মাসে মার্চ মাসের তুলনায় সার্বিক মূল্যস্ফীতির হার বেড়ে গেছে অর্ধ শতাংশ হারে। জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়ে যাওয়ার একটি বড় কারণ হচ্ছে পরিবহন খরচ বেড়ে যাওয়া। বছর খানেক আগে পুরো সপ্তাহের অল লন্ডন বাস পাস কিনতে লাগতো প্রায় ১৮ পাউন্ড।

এখন এই সাপ্তাহিক বাস পাস কিনতে লাগছে ২১.২০ পাউন্ডের বেশি। এভাবে ট্রেন সহ পরিবহনের প্রায় প্রতিটি খাতেই ব্যয় বেড়ে গেছে। বেড়ে গেছে সব ধরনের খাদ্যের দাম। একই সঙ্গে মানুষের কাধে এসে ভর করেছে নানা ধরনের বাড়তি ট্যাক্স এবং ভ্যাটের পরিধি।

জাতীয় পরিসংখ্যান অফিসের সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে দেখা যায়, এই মুহুর্তে ব্রিটেনে সার্বিক মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির আরও একটি বড় কারণ হচ্ছে এ্যালকোহলের চাহিদা বেড়ে যাওয়া। যাকে সামাজিক বিজ্ঞানীরা চলমান নাজুক অর্থনৈতিক পরিস্থিতিকে কারণ হিসেবে চিহ্নিত করছেন।

তারা বলছেন, অর্থনৈতিক দৈন্যতা বেড়ে যাওয়ার কারনে মানুষের আয় রোজগার কমে গেছে। যার ফলে তাদের মাঝে হতাশা এবং অস্থিরতার মাত্রা বাড়ছে। জব সিক এ্যালাউন্স, হাউজিং বেনিফিট, চিকিৎসা চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় সরকারের কোষাগারও চাপের মুখে পড়েছে। সার্বিক দারিদ্রতার কারণে কিছু মানুষের মদ কিংবা এ্যালকোহল ও মাদক সেবদনের মাত্রা বেড়ে গেছে। সার্বিক ভাবে এ্যালকোহলের চাহিদা বেড়ে যাওয়ার কারণে সরবরাহের ওপর চাপ পড়ছে। এতে অনিবার্য্যভাবে সৃস্টি হচ্ছে মূল্যস্ফীতি।

গত ফেব্র“য়ারী মাসের তুলনায় মার্চ মাসে মূল্যস্ফীতির হার সামান্য কমলেও এক মাসের ব্যবধানে মূল্যস্ফীতি অপ্রত্যাশিত মোড় নিয়েছে। আগামী মাস গুলোয় দ্রব্যমূল্যের উর্ধগতি বহাল থাকতে পারে। ফলে আগামী কয়েক মাসে মূল্যস্ফীতির হার ৫ শতাংশে অবস্থান করতে পারে বলে ব্রিটেনের নেতৃত্বস্থানীয় অর্থনীতিবিদ হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ইমিগ্রেশনের দমন নীতির সঙ্গে ধেয়ে আসছে দ্রব্যমূল্যের বেসামাল উর্ধগতি। একদিকে যেমন চাকরি নেই। ব্যবসা বাণিজ্যে নেমে এসেছে ভয়ানক মন্দা। কারও মুখে যেনো হাসি নেই। বাড়ছে সামাজিক বিশৃঙ্খলা। এর সঙ্গে দ্রব্যমূল্যের উর্ধগতি ব্রিটেনবাসীকে দিশেহারা করে তুলছে। ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের সর্বশেষ হিসেবে ব্রিটেনের মূল্যস্ফীতি মার্চ মাসের তুলনায় এপ্রিল মাসে আরও অর্ধ শতাংশ হারে বেড়ে গেছে। মার্চ মাসে সার্বিক মূল্যস্ফীতির হার ছিল চার শতাংশ। এপ্রিল মাসে এসে সার্বিক মূল্যস্ফীতির হার আরও অর্ধ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পেয়ে সাড়ে চার শতাংশ হয়েছে। ২০০৮ সালের অক্টোবর মাসের পর ব্রিটেনে মূল্যস্ফীতির হার এটাই সবচেয়ে বেশি। অর্থাৎ গত এক বছরে বৃটেনে সার্বিক দ্রব্যমূল্য এই হারে বেড়ে গেছে। আগে ব্রিটেন যে জিনিসটি ক্রয় করতে এক’শ পাউন্ড লাগতো-এখন কমপক্ষে আরও দশ পাউন্ড বেশি লাগছে। কোন কোন ক্ষেত্রে এই মূল্য আরও অনেক বেশি হতে পারে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পরিবহণ, বিমান ও জাহাজ ভাড়া, তেলের মূল্য এবং ব্রিটেনে এ্যালকোহল, সিগারেট বিক্রির মাত্রা বিশেষভাবে বেড়ে যাওয়ার কারণেই মূলত মূল্যস্ফীতি বাড়ছে। তবে এপ্রিল মাসে মর্টগেজ পরিশোধে সুদের হার সামান্য কমেছে। মার্চ মাসে ফেব্র“য়ারী মাসের তুলনায় মূল্যস্ফীতি কিছু কমেছিল।

ইংল্যান্ডের জাতীয় পরিসংখ্যান অনুযায়ী মার্চ থেকে এপ্রিল মাসের মধ্যে বিমান ভাড়া ২৯ শতাংশ হারে বেড়ে গেছে। একই সঙ্গে জাহাজ ভাড়া বেড়েছে ২২ শতাংশের বেশি। অন্যদিকে মদ ও সিগারেটের দাম বেড়েছে ৫ ভাগের কিছু বেশি। সার্বিক পরিস্থিতিতে আগামী মাসগুলোয় ব্রিটেনের জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়ে যেতে পারে বলে অর্থনীতিবিদরা হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। একই সঙ্গে সমাজবিদরা আয় বুঝে ব্যয় এবং অযথা বিলাসিতা ও অপব্যয় পরিহার করে মানুষকে অর্থনৈতিক ভাবে সংযমি হওয়ারও পরামর্শ দিচ্ছেন ।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now