শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » মুক্তির গান শুনিয়েছিলেন যিনি

মুক্তির গান শুনিয়েছিলেন যিনি

3_52321ডেস্ক রিপোর্ট:
শত সমস্যা সত্ত্বেও ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয় ব্যক্ত করছে বাংলাদেশ এবং অনেকভাবে দেশটি আজ ঘুরে দাঁড়াচ্ছে। সদ্য স্বাধীন যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশকে ‘আন্তর্জাতিক ঝুড়ি’ হিসেবে অভিহিত করেছিল মার্কিন এক নীতিনির্ধারক, এই ফাঁকা কিংবা তলাবিহীন ঝুড়ি ভরাট করা না হলে তো এ দেশের মানুষ খেয়েপরে বাঁচবে না, আর তাই আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের দান-খয়রাত বা রিলিফের ওপর দেশটির নির্ভরশীলতা ছিল ললাটলিখন। সে কারণেই বলা হয়েছিল ‘ইন্টারন্যাশনাল বাস্কেট কেস’, আর সে সভায় উপস্থিত মার্কিন নিরাপত্তা উপদেষ্টা হেনরি কিসিঞ্জার বলেছিলেন, স ষ্টাকে ধন্যবাদ যে, এটা আমাদের বাস্কেট কেস নয়। সেই থেকে বাংলাদেশ সম্পর্কে হেনরি কিসিঞ্জারের বরাতে চালু হয়েছিল বটমলেস বাস্কেট বা তলাবিহীন ঝুড়ি কথাটি। বাংলাদেশ তখন হা-পিত্যেশ করে বসে থাকত কখন মার্কিন খয়রাতি গমের চালানবাহী জাহাজ এসে ভিড়বে চট্টগ্রাম বন্দরে। পি.এল. ৪৮০ শীর্ষক কর্মসূচির আওতায় আমেরিকার গম দেশের খাদ্য-ঘাটতি মেটানোর জন্য ছিল অপরিহার্য। ১৯৭৪ সালে এমনি গমের জাহাজ ফিরিয়ে নেয়া হয় মধ্য সমুদ্র থেকে। বাংলাদেশে সৃষ্টি হয় দুর্ভিক্ষ, ক্ষুধার তাড়নায় মৃত্যুবরণ করে হাজারও মানুষ।

সাড়ে সাত কোটি মানুষের সেই বাংলাদেশে জনসংখ্যা আজ দ্বিগুণ ছাপিয়ে হয়েছে প্রায় ১৬ কোটি। দেশে শিল্পায়ন, গৃহায়ন ও অপব্যবহারের কারণে কৃষিজমির পরিমাণও কমেছে। তারপরও বাংলাদেশ যে আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছে সেটা এক কৃষি-বিপ্লবই বটে। সদ্য স্বাধীন দেশে বঙ্গবন্ধু দেখেছিলেন কৃষি-বিপ্লবের স্বপ্ন, ‘কৃষি-বিপ্লব’ কথাটি তিনি প্রায়শ ব্যবহার করতেন আলোচনায়, বক্তৃতায় এবং নীতিও গ্রহণ করেছিলেন সেই লক্ষ্য বাস্তবায়নে। আজ বাংলাদেশ আবার স্বাধীনতার লড়াই, মূল্যবোধ ও লক্ষ্যে ফিরে আসতে উদ্যমী হয়েছে নানাভাবে। অনেক সমস্যার মধ্যেও এই বাস্তবতার প্রতিফলন আমরা দেখি বিভিন্নভাবে, যেমন যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে কিংবা বিশ্বব্যাংকের তোয়াক্কা না করে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণে এগিয়ে যাওয়ায়। এহেন সময়ে ফিরে ফিরে মনে জাগে বঙ্গবন্ধুর কথা।

এমনি পটভূমিকায় একটি গানের কথাও মনে পড়ে। ’৭৫-পরবর্তী বাংলাদেশে এক উদ্ভ্রান্ত সময়ে, বোধকরি ১৯৭৬ সালের গোড়ায়, ঢাকায় এসেছিলেন রবীন্দ্রসঙ্গীতের গুণীশিল্পী কণিকা বন্দ্যোপাধ্যায়। ঘরোয়া আসরে তিনি গাইছিলেন গান, হঠাৎ দাঁড়িয়ে কবি নির্মলেন্দু গুণ অনুরোধ জানালেন একটি গানের, ‘বনে যদি ফুটল কুসুম’। শুরুতে বোঝা যায়নি কেন এমন অনুরোধ। কিন্তু যখন গান ধরলেন কণিকা, সেই গানের কথা সুরের পরশ পেয়ে হাহাকারের মতো গুমরে ফিরছিল ঘরময়, মনে হচ্ছিল রবীন্দ্রনাথ বুঝি বঙ্গবন্ধুকে মনে রেখে সুরে ও বাণীতে ব্যক্ত করেছেন বেদনা, ‘হাওয়ায় হাওয়ায় মাতন জাগে/পাতায় পাতায় নাচন লাগে’- এমন মধুর গানের বেলায় নেই কেন সেই পাখি, যিনি শুনিয়েছিলেন মুক্তির গান। ফিরে ফিরে গুঞ্জরিত হচ্ছিল কলি, ‘নেই, নেই কেন সেই পাখি।’

অনুলিখন : শুচি সৈয়দ

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now