শীর্ষ শিরোনাম
Home » মাওলানা মুহিউদ্দীন খান প্রসঙ্গ » নিভে গেলো সেই প্রদীপ

নিভে গেলো সেই প্রদীপ

k2 তাজ উদ্দীন হানাফী : সব জিনিষির কষ্টের কিছু সময় থাকে,কান্নারও কিছু কাল থাকে, রোনাজারির ও কিছু কারণ থাকে। আজ যেনো আমার কলমের তাই হচ্ছে,শিরোনাম কি হবে? রীতিমত ঘামতে হচ্ছে কলমের সাথে আমাকেও, কলেমের কয়েক দশকের পরীক্ষিত বন্ধুর কথা বলতে যেন তার উপর পাহাড় সম সাইক্লোনে আঘাত করছে, ঘূর্নিঝড়ের মত প্রবলবেগ তার গতিকে মন্থর করে দিচ্ছে,তার বিরহের কথা বলতে কষ্টহবে। এটি হওয়ার কথাও বটে। কিন্তু কলমের এহেন পরিস্তির আক্রান্তে আমি নিজেও,কাকে নিয়ে কলমের এতই কঠিন পরিস্থিতি,নিজের বাকা হাতে কলম তুলে নেয়ার আবেগশক্তি,কে তিনি? কার কথা এতক্ষণ বলছিলাম,আশা করি সচেতন মনে উকি দিচ্ছে একজনেরই কথা। হ্যাঁ আমি সদ্যপ্রয়াত মাওলানা মুহি উদ্দীন খানের কথাই বলছিলাম। যার জন্ম ১৯৩৫ ইংরেজি ১৯ শে এপ্রিল।

জন্মের প্রক্কালে এদেশের আকাশ ছিল ব্রিটিশ খেকুদের দখলে,পিষ্ট ছিলো প্রায় প্রতিটি জন জীবন,মানবতার করুণ আর্তনাদ ছিলো তুঙ্গে,এমন ক্ষনে, সময় সেও অপেক্ষা করে কারো জন্মের,ইতিহাস প্রত্যেক ক্রান্তিলগ্নে একেক মনীষীর জন্ম দিয়েছে,দিয়েছে প্রতিভা,সেই প্রতিভা প্রতিভাত হয়ে আঘাত করে জাতির ভাগ্যকাশে। মুহি উদ্দীন খান জন্মেছিলেন এমন প্রতিভাত পরিবারে, বাবাও সংগ্রামী ছিলেন ব্রিটিশ খেদাও আন্দোলনে। অত্যন্ত পরহেজগার একটি পরিবারে বেড়ে উঠেছিলেন তিনি,মা রায়েয়া খাতুন ছিলেন এক মহিয়সী, যার অনুপ্রেরণায় কালের কিংবদন্তি হয়েছিলেন ছোট্র বালক মুহিউদ্দীন খান। বাবা মৌলভী আনসার উদ্দীন খান ব্রিটিশ শাসিত কারাগারে ছিলেন দুইবার,তাই তিনিও হয়ে উঠেছিলেন সংগ্রামী আপোষহীন হিসাবে।
শিক্ষাজীবনঃ প্রাথমিক ধর্মীয় শিক্ষা অর্জন করেন মমতাময়ী মায়ের কাছ থেকেই,পাচ ভাগ থেকে ১৯৫১ সালে আলিম, ১৯৫৩সালে ফাজিল পাশ করেন,উচ্চশিক্ষার মানসে ১৯৫৩সালে ঢাকা আলিয়া মাদরাসায় ভর্তি হন,ঢাকা আলিয়া থেকে ১৯৫৫সালে হাদিস বিষয়ে কামিল করেন,১৯৬৫সালে তিনি ফেক্বাহ বিষয়ে কামিল করেন।
যা ছিলেনঃ  তিনি মাসিক মদীনার প্রতিষ্টাতা সম্পাদক,সাপ্তাহিক মুসলিম জাহানের প্রতিষ্টাতা,রাবেতা আল ইসলামির কেন্দ্রীয় সদস্য, মুতামার আল আলম আল ইসলামী বাংলাদেশ শাখার প্রেসিডেন্ট, ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের গভর্নিং বোর্ডের সাবেক সদস্য, জাতীয় সিরাত কমিঠি বাংলাদেশের প্রতিষ্টাতা সভাপতি,
সহসভাপতি ছিলেন আন্তর্জাতিক মজলিসে তাহাফফুজে খতমে নবুওয়াত,সভাপতি ছিলেন ইসলামি মোর্চা, ইসলামি ঐক্যজোটের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান,জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সিনিয়র সহ সভাপতি,সম্মিলিত উলামা মাশায়েখ পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন, বেফাকুল মাদারিসের অন্যতম উদ্দোগতা,আনসার নগর গণকল্যাণ ট্রাস্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক,
যে সকল গ্রন্থ রচনা করেছেন তন্মধ্যে কয়েকটি হলো:
১।সম্পাদনা করেছেন মাসিক মদীনা ২।রওযা শরীফের ইতিকথা ৩। দরবারে আউলিয়া ৪।হায়াতে মাওলানা হুসাইন আহমাদ মাদানী ও দেওবন্দ আন্দোলন, ৫।কুড়ানো মানিক [১-৪ খন্ড], ৬।কোরআন পরিচিতি,

৭। আধুনিক বাংলা-আরবি এবং আধুনিক আরবি-বাংলা অভিধান ৮।আযাদী আন্দোলন,

৯। ‘ইয়াহইয়াউ ঊলুমিদ্দীন

[১-৫ খ-]১০। খাসায়েসুল কুবরা,

১১। দালায়েলুস সুলূক

১২।স্বপ্নযোগে রাসুল (সাঃ)

১৩।জীবনের খেলা ঘরে

১৪। মদীনা মুনাওয়্যারাহ

১৫। চেরাগে মুহাম্মাদ,

১৬। ইমান যখন জাগলো,

১৭। জীবন সায়হৃে মানবতার রূপ

১৮। ভারত যখন স্বাধিন হলো,

১৯। চার মাজহাবের আলো।

২০। ইসলামী তাসাউফের স্বরূপ

২১। হাদিসে রাসূল সা.

২২। নূরুল ঈমান (১-২ খণ্ড,)

২৩। তালিমুল হজ্জ

২৪। মাকতুবাত ইমাম গাযালী

২৫। হযরত মাওলানা

মুহাম্মদ ইলয়াস রহ.

২৬। ইমাম জয়নুল আবেদীন

২৭। ইসলাম ও সমকালীন

বিস্ময়কর কয়েকটি ঘটনা

২৮। সমকালীন জিজ্ঞাসার জবাব ২৯। প্রিয় নবীজীর প্রিয় প্রসঙ্গ

৩০। শহীদ হাসানুল বান্নার রচনাবলী

৩১। ওসওয়ায়ে রাসূলে

আকরাম সা.

৩২। প্রিয়

নবীজীর (সা.) অন্তরঙ্গ জীবন

৩৩। শাওয়াহেদুন নবুওয়াত

৩৪। হৃদয়তীর্থ মদীনার পথে

৩৫। সীরাতুন্নবী সা.

৩৬। সীরাতে রাসূলে আকরাম স.

৩৭। ইমাম গাযালী, তাসাউফ এবং ইসলামের মৌলিক শিক্ষা

৩৮। মুমিনের জীবনযাপন পদ্ধতি ইত্যাদি।

মরহুম মুহিউদ্দীন খানের সারা জীবন জুড়ে রয়েছে লিল্লাহিয়্যাত আর খুলুসিয়্যাত নিয়েই পথ চলা,১৯৯২ সালে স্নেহের পুত্র আহমদ বদর উদ্দীন খানকে নিয়ে কাবা ঘরে প্রবেশ করলেও আমৃত্য গোপন রাখেন এমন কৃতিত্ব,কবি জগতের দিকপাল কবি ফররুখ জীবনের প্রথম দিকে নাস্তিকতা ও ধর্মহীনতায় আকৃষ্ট হলে,বন্ধুত্ব ঘটে মুহি উদ্দীন খানের সাথে, তার সাহচর্যে কবি ফররুখ হয়ে উঠেন এক আল্লাহ ওয়ালা রূপে,যে কবির মুখে দাড়ি ছিলনা তার মুখে গজিয়েছে লম্বা দাড়ি,রমজান আসলে কবি সারা মাস এতেকাফ করে অতিবাহিত করতেন,পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মহামানব নবীয়ে আকরাম (সাঃ)কে স্বপ্নযোগে দেখার সৌভাগ্য হলে ও মানব সমাজে গোপন রেখেছেন,এমন করেছেন শুধু আল্লাহকে রাজি খুশি করার জন্যই।  রাবেয়া বসরী তিনি নাকি জান্নাতের আশায় কখনো ইবাদত করেননি,করেছেন শুধু আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য,মুহিউদ্দীন খান তিনিও যেন জীবনের সকল বিরল কৃতিত্ব শুধু আল্লাহর জন্যই গোপন রেখেছেন। আদিবাসী প্রায় তিনশত পরিবারের জন্য তিনি যে বিরল স্থাপনা তৈরি করেছেন,বাংলাদেশে ইতিহাস তা স্বর্নাক্ষরে স্মরণ রাখবে,তিন শত পরিবারের ইসলাম গ্রহণ এটি কি কোন ছোট কৃতিত্ব? তাদের জন্য করেছেন আততাওহিদ ফাউন্ডেশন। মাসিক মদীনার আদলে তিনি তৈরি করেছেন হাজারো লেখক গবেষক, পাঠক সমাজে তিনি তৈরী করেছেন নতুন বিপ্লব।
এই মাসিক মদীনা সমাদৃত হয়েছে সেই সময়কার প্রধান ভাষাবিদদের কাছে,প্রথম কপি ক্রয় করেছেন ৫ টাকায়, বহু ভাষার ভাষাবিদ, ডঃ শহিদুল্লাহ, সমাদৃত হয়েছে কবি ফররুখ সহ বহুদের কাছে। তাফসীরে মারেফুল কুরঅান অনুবাদ করে  যে খেদমত করেছেন, তা বলার অপেক্ষা রাখেনা।
আজীবন জমিয়তের রাজনীতি করে গেছেন ,জমিয়তের কারণেই তিনি ঘনিষ্ঠ হয়ে উঠেন,মুফতি মাহমুদ,হাফিজুল হাদিস আব্দুল্লাহ দরখাস্তি,শামসুদ্দীন ক্বাসেমি,বাবায়ে জমিয়ত আশরাফ আলী বিশ্বনাথীর সাথে। খেজুর গাছ নিয়ে ১৯৭০ সালে নির্বাচন ও করেছেন। ভাষা আন্দোলন করে শেখ মুজিবের সাথে তিনি কারাগারে জেলও কেটেছেন। অবশেষ ২৫জুন ১৯ রমজান ২০১৬ সালে পরপারে চলে গেলেন, কাদিয়ে গেলেন সবাইকে। আমরা খাদিমুল ইসলাম মহান এই মনীষীর আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি।

লেখক,শিক্ষার্থী। মোবাইল ০১৭৪৮১২৫৯০৯megh

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now