শীর্ষ শিরোনাম
Home » রাজনীতি » বাংলাদেশ মানবাধিকার রাষ্ট্রের বাহিরে : মির্জা আলমগীর

বাংলাদেশ মানবাধিকার রাষ্ট্রের বাহিরে : মির্জা আলমগীর

14012254_566595053533328_1569160070_nঅলিদ তালুকদার নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশ মানবাধিকার রাষ্ট্রের বাহিরে বলে মন্তব্য করেছেন  বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ একটি ফ্যাসীবাদী রাষ্ট্রে পরিনত হয়েছে। দেশে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস চলছে। রাষ্ট্র একটি দলের তল্পিবাহক হয়ে কাজ করছে। সর্বত্রই গুম-খান হচ্ছে। এটা মানবাধিকার অপরাধ। পৃথিবীর চোখের সামনে একের পর এক এসব ঘটনা ঘটছে। কিন্তু বিশ্ব বিবেক নীরব।

বুধবার দুপুরে রাজধানীর সেগুন বাগিচায় ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটির সাগর-রুনী মিলনায়তনে “বিগত আন্দোলনে আওয়ামী সন্ত্রাসী ও বাকশালী পুলিশ কর্তৃক খুন, গুম ও নিগ্রহের শিকার পরিবারকে আর্থিক সহয়তা প্রদান” অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে জাতীয়তাবাদী হেল্পসেল।
এ সময়ে গুম, খুন হওয়া ৫টি পরিবারকে দুই লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকা প্রদান করা হয়। এ পরিবার গুলো হল সুত্রাপুর থানা ছাত্রদলের সভাপতি সেলিম রেজা পিন্টু, ঢাকা মহানগর ৭১নম্বর ওয়ার্ডের সহ সভাপতি মো. চঞ্চল, বরিশাল মহানগরের ২০ নং ওয়ার্ডের সভাপতি ফিরোজ খান কালু, নিলফামারীর সদরের লক্ষিচাপ ইউনিয়নের   ছাত্রদলের  সাধারণ সম্পাদক নেতা গোলাম রাব্বানী, মিরপুর বাংলা কলেজ ছাত্রদল নেতা মো. আকরাম।

মির্জা ফখরুল বলেন, গণতন্ত্রের মোড়ক দিয়ে সরকার এক দলীয় শাসন ব্যবস্থা কায়েম করছে। দেশের প্রত্যান্ত অঞ্চল থেকে শুরু করে সারা দেশে বিরোধী দলের লক্ষ লক্ষ নেতাকর্মীদের নামে হাজার হাজার মামলা দিয়ে নির্যাতন করছে। তারা মনে কওে বিএনপিকে ধ্বংস করতে পারলেই প্রতিবাদ করার মতো আর কেউ থাকবে না। সহজেই এক দলীয় শাসন ব্যবস্থা কায়েম করা যাবে।

বিএনপির এই নেতা বলেন, ফ্যাসীবাদী সরকার ২০১০ সাল থেকে হত্যাকান্ড শুরু করে। সরকারের হত্যা কান্ডের শিকার হয়েছেন এক হাজারের অধিক, গুম হয়েছে পাচ শতাধিক নেতাকর্মী। এদের পরিবারের পাশে আমাদের দাড়াতে হবে। গুম-খুন মানুষের পাশে দাড়ানো খুব কষ্ট হবে না। আমরা তাদের পাশে দাড়ানোর চেষ্টা করছি। তাদেও পাশে দাড়ানোর জন্য কয়েকটি সেল গঠন করা হয়েছে। সবাই চাইলে সেখানে সহায়তা করতে পারবেন।

গুম খুন, পত্রিকা বন্ধ করে সদম্যার সমাধান করা যাবে না বলে মন্তব্য করে তিনি বলেন, উগ্রবাদ- জঙ্গিবাদ সমস্যা সমাধানে বিএনপি চেয়ারপারসন নিজস্বার্থ ভাবে জাতীয় ঐক্যর ডাক দিয়েছেন। সরকার তাতে কর্নপাত না করে এরিয়ে চলছে বলবো না একেবাওে প্রত্যাক্ষান করেছে। তারা জানে কোন জাতীয়  ঐক্য হলে তারা সেখান থেকে সুবিধা নিতে পারবে না। তারা সব কিছুকে রাজনৈতিক ভাবে দেখে। রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস দিয়ে জঙ্গিবাদ বন্ধ হবে না। সবাইকে মিলে জাতীয় ঐক্য গঠন করে উগ্রবাদ- জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ করতে হবে।

মির্জা ফখরুল নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য করে বলেন, আমাদের আন্দোলন চলছে। সত্র ও সুন্দরের আন্দোলন কোন দিন ব্যর্থ হয়নি। আমাদের এ আন্দোলন ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য নয়। এ আন্দোলন গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনা ও মানুষের অধিকার রক্ষার আন্দোলন। আমাদের আন্দোলন সফল হবেই।

সংগঠনের সিনিয়র সদস্য ইঞ্জিনিয়ার বেলাল হোসেনের সভাপতিত্বে আর্থিক সহয়তা অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, আইন বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার কায়সার কামাল, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক শামসুজ্জামান, সহ দফতর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু, সহ তথ্য ও গবেষণা  বিষয়ক সম্পাদক কাদের গনি চৌধুরী, ছাত্রদলের সভাপতি রাজীব আহসান, সহ সভাপতি মাসুদ খান পারভেজ প্রমুখ।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now