শীর্ষ শিরোনাম
Home » মিডিয়া » খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে ১০২১ সাংবাদিকের বিবৃতি

খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে ১০২১ সাংবাদিকের বিবৃতি

14081047_569606013232232_1536153757_n
অলিদ তালুকদার নিজস্ব প্রতিবেদক: বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া ও তার ছেলে দলের সিনিয়র ভাইস-চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়ের করা সব হয়রানিমূলক মামলা অবিলম্বে  প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন সহস্রাধিক সাংবাদিক। গতকাল মঙ্গলবার এক যুক্ত বিবৃতিতে তারা এ দাবি জানান। ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম প্রধান স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে  তারা বলেন, নিম্ন আদালত থেকে বেকসুর খালাসপ্রাপ্ত বিএনপির সিনিয়র ভাইস- চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে মুদ্রা পাচার মামলায় সাজা দেয়ার ঘটনায় আমরা গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছি। আমরা অবিলম্বে এ সাজা প্রত্যাহারসহ তারেক রহমান এবং খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দায়ের করা হয়রানিমূলক সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছি। আমরা মনে করি, ভোটারবিহীন অবৈধ সরকার তারেক রহমানকে নির্বাচনে অযোগ্য করে রাজনীতি থেকে দূরে সরাতে উদ্দেশ্যমূলক ও প্রতিহিংসামূলকভাবে মুদ্রা পাচার মামলাটি করে। এ মামলায় তারেক রহমান বিচারিক আদালতে বেকসুর খালাস পান। কিন্তু সরকার দুদককে দিয়ে আপীল করায়।

বিবৃতিতে বলা হয়, আমরা দ্ব্যর্থহীন ভাষায় বলতে চাই, সরকার যেভাবে তারেক রহমান ও বেগম খালেদা জিয়াসহ জিয়া পরিবার তথা জাতীয়তাবাদী শক্তির বিরুদ্ধে মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দিয়ে জাতীয়তাবাদী শক্তিকে নিঃশেষ করে দিতে চাচ্ছে তা কখনো সফল হবে না। কারণ দেশের মানুষ উপলব্ধি করতে পারছে অবৈধ সরকার তার ক্ষমতা পাকাপোক্ত করার লক্ষ্যে জনগণের দৃষ্টি ভিন্নদিকে ফেরাতে এ ধরনের মিথ্যা ও হয়রানিমূলক মামলাকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করছে। বর্তমানে দেশে চরম রাজনৈতিক ক্রান্তিকাল চলছে। এ পরিস্থিতিতে যখন বিএনপি চেয়ারপারসন সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া দেশের সামগ্রিক স্বার্থে দলমত নির্বিশেষে জাতীয় ঐক্যের ডাক দিয়েছেন, ঠিক এ সময় তারেক রহমানের এই সাজা জাতীয় ঐক্যের বাধা হিসেবে কাজ করবে বলে আমরা মনে করি। সরকারের বোধোদয় হবে এবং দেশের গণতন্ত্র ও উন্নয়নের স্বার্থে তারা সহনশীল আচরণ প্রদর্শন করবে বলে বিবৃতিতে আশা প্রকাশ করা হয়।

বিবৃতিদাতা সাংবাদিকদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছেন, আবুল আসাদ, আলমগীর মহিউদ্দিন, ড. রেজোয়ান হোসেন সিদ্দিকী, রুহুল আমিন গাজী, শওকত মাহমুদ, এম আবদুল্লাহ, এম এ আজিজ, কবি আবদুল হাই শিকদার, মোবায়েদুর রহমান, আবদুস শহিদ, জাহাঙ্গীর আলম প্রধান, সৈয়দ আবদাল আহমদ, মুহাম্মদ বাকের হোসাইন, মুন্সি আবদুল মান্নান, কাদের গণি চৌধুরী, কাজী রওনাক হোসেন, আবদুল আউয়াল ঠাকুর, নুরুল আমিন রোকন, মোঃ মোদাব্বের হোসেন, মোঃ শহিদুল ইসলাম, খন্দকার হাসনাত করিম, খুরশীদ আলম, মোঃ জাকির হোসেন, আবু ইউসুফ, কবি কামার ফরিদ, আসাদুজ্জামান আসাদ, সৈয়দ আলী আসফার, শাখাওয়াত হোসেন বাদশা, ইলিয়াস হোসেন, আমিনুর রহমান সরকার, মোহন হাসান, সৈয়দ আকরাম, মিজানুর রহমান ভূঁইয়া, মাহমুদা চৌধুরী, শাহীন হাসনাত, রফিক মুহাম্মদ, আকন আবদুল মান্নান, এস এম আলমগীর, মোস্তাফিজুর রহমান বিপ্লব, এরফানুল হক নাহিদ, রাশেদুল হক, বাছির জামাল, উমর ফারুক আল হাদী, একরামুল হক ভুঁইয়া (লোটন একরাম), মমতাজ বিলকিস বানু, নূরুল হাসান খান, সা’দাত হোসাইন, জাহেদ চৌধুরী, এম এ নোমান, মোঃ বেলায়েত হোসেন, আবদুল্লাহ ফেরদৌস, মাহফুজ সিদ্দিকী, সৈয়দ মিজানুর রহমান, নাসির উদ্দিন শোয়েব, আলী মাহমুদ, আবদুস সেলিম, আতিকুর রহমান রুমন, মেহেদী হাসান পলাশ, সাহাদাত হোসেন, ইকবাল হাসান নান্টু, নাসিম শিকদার, জাহিদুল ইসলাম রনি, মুহাম্মদ আনোয়ারুল হক, জসিম মেহেদী, শাখাওয়াত ইবনে মঈন চৌধুরী, ওবায়দুর রহমান শাহীন, শফিউল আলম দোলন, এম খাওয়াত হোসেন মুকুল, মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার, ড. মেহেদী মাসুদ, মিয়া আবদুল হান্নান, আবদুল বাতেন, কবি শাহীন রেজা, মোঃ মোবারক হোসেন, শামছুল হক বসুনিয়া, সোহাগ কুমার বিশ্বাস, মতিউর রহমান টুকু, জাকিয়া সুলতানা, সিরাজ-উদ-দৌলা, মোঃ আশরাফুল ইসলাম, আবু ঈসা খান, রেজাউল করিম, শরিফুল ইসলাম, নুরুল হোসেন কাইয়ুম, সুমন চৌধুরী, মাসুম বিল্লাহ, সালেহ আকন, মোঃ শাহজাহান (সাজু), বাদল দাস, এম সাঈদ খান, সি এম আমিনুল মজলিস, এন এইচ ইমরান, রাবেয়া সিরাজী, মোঃ মাসুদুর রহমান মাসুদ, কাজী রফিক, তালুকদার রুমি, একাব্বর আলী, খোরশেদ আলম শিকদার, নূরুন্নবী রবি, মামুন স্ট্যালিন, এম এ বাকী, মশিউর রহমান, রুবেল, এস এম নজরুল, এম সাঈদ খান, খন্দকার গোলাম আজাদ,মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার, লিটন এরশাদ, আলম কিরণ, আহমেদ মীর্জা খবির, গাজী মোহাম্মদ শওকত আলী, মর্তূজা সাঈদ টিসু, এসএম আল আমিন, মফিজুর রহমান নিলু প্রমুখ।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now