শীর্ষ শিরোনাম
Home » ধর্ম » প্যারিসে সন্ত্রাসী হামলার পর থেকে ইউরোপে ২০টি মসজিদ বন্ধ

প্যারিসে সন্ত্রাসী হামলার পর থেকে ইউরোপে ২০টি মসজিদ বন্ধ

মগ-550x309
ডেস্ক রিপোর্ট:
ইউরোপের মধ্যে ফ্রান্সেই সবচেয়ে মুসলিমের বসবাস বেশি। যার ফলে দেশটিতে আড়াই হাজারের বেশি মসজিদ রয়েছে। কিন্তু গত বছরের নভেম্বরে প্যারিসে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার পর থেকেই মসজিদগুলোর ওপরে নজরদারি শুরু করেছেন দেশটির কর্তৃপক্ষ। বিদেশি অর্থায়নে পরিচালিত হয় এরকম ২০ টির বেশি মসজিদ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।
দেশটির কর্তৃপক্ষ ঘোষণা দিয়েছে, ফ্রান্সের মসজিদগুলোর লেনদেন তদারকির জন্যে একটি বিশেষ কাউন্সিল গঠন করা হবে। কিন্তু এই বিষটি নিয়ে দেশটির মধ্যে তৈরি হয়েছে বিতর্ক।
ফরাসি মুসলিম ধর্ম বিষয়ক কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট আনোয়া কিবিবেশ বলছেন, এখন ফ্রান্সের মুসলিমরা গভীর পর্যবেক্ষণের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। এসব মসজিদের তহবিল ব্যবস্থাপনা আর ইমাম নিয়োগের বিষটি তদারকির জন্য আলাদা একটি ফাউন্ডেশন স্থাপনেরও ঘোষণা করেছেন তিনি। তিনি বলেন, এসব নুতন ফাউন্ডেশনে ইমামের অভিজ্ঞতা এবং অতীত বিশ্লেষণ করে দেখা হবে। বিশেষ করে তারা কোন মতাদর্শের অনুসারী। এই জন্য তাদের একটি চার্টার নির্ধারণ করে দেয়া হবে। যাতে ফরাসি মূল্যবোধকে সম্মান করতে পারে।
গত বছরের শেষের দিকে প্যারিসের ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা পর ফ্রান্সে রাষ্ট্রীয় জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছে। এরপর দেশটির ২০টি মসজিদ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। কারণ প্যারিসে ঐ হামলার পর, ফ্রান্স শহরে কয়েকটি মসজিদে অভিযান চালিয়ে ছুরি, জিহাদী বই এবং জঙ্গিদের সাথে সম্পৃক্ততার প্রমাণ পেয়ে ২০টির মত মসজিদ বন্ধ করে দেয় দেশটির কর্তৃপক্ষ। যদিও কোন গুরুপের সাথে তাদের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে তা এখনো জাননো হয়নি।
বর্তমানে বন্ধ ঐ সকল মসজিদে নামাজ পড়তেন স্থানীয় বাসিন্দারা। বাসিন্দারা বলেন, এই মসজিদগুলো কেন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে সেটা সবাই জানতে চায়। আমরা যারা আশে পাশে কাজ করি আমরা ঐ মসজিদেই নামাজ পড়তে যেতাম। যা এখন আর পারছি না।
তারা বলেন, মুসলিম ধর্মবিশ্বাসের স্থান বন্ধ করে দেওয়া কোনো সমাধান হতে পারে না। বরং উল্টোভাবে ইসলামের সঠিক বানী পৌঁছে দিতেই মসজিদগুলোকে উৎসাহিত করা যেতে পারে।
জানা যায়, ফ্রান্সে আড়াই হাজারেও বেশি মসজিদ রয়েছে। কর্তৃপক্ষ জানতে পেরেছে, এর মধ্যে ২০টির বেশি মসজিদ মরক্ক, তুরষ্ক, এবং সৌদির অর্থায়নে পরিচালিত হয়। বলা হয়েছে বছরে এসব মসজিদে ৬০ লাখ ইউরো অনুদান আসে। যার বেশির ভাগই ইমামদের বেতন দেয়া হয়।
কিন্তু এই কড়াকড়ি কি সন্ত্রাস দমনের সমাধান নাকি নিছক রাজনৈতিক কর্মপন্থা? বিবিসি বাংলার এমন প্রশ্নের জবাবে ইসলাম ভীতির বিরুদ্ধে সচেতনতা তৈরির একটি প্রতিষ্ঠানের পরিচালক মারোয়ান মোহাম্মদ বলেন, জঙ্গিদের হুমকি মোকাবেলায় এই পদক্ষেপ কোনো কাজে আসবে না।
তিনি বলেন, বর্তমানে যেসব আইন রয়েছে সেইগুলোর মাধ্যমেই কর্তৃপক্ষ যেকোনো সন্ধেহজনক লেনদেনের বিষয় ব্যবস্থা নিতে পারে। কারণ ধর্মের বিষয়ে মসজিদ বন্ধের কোনো আইন নেই। বরং শুধুমাত্র মুসলিম হিসেবে সনাক্ত করে দাড়ি দেখে ব্যবস্থা নিলে সেটা ঠিক হবে না।
তিনি আরও বলেন, উগ্রপন্থার কারণ মসজিদে নয় সমাজের ভেতরে রয়েছে। কারণ মুসলিমদের নানা ভাবে চোপে রাখা হয়েছে। তাই আমি মনে করি আগে এইসব বন্ধ করে তার পর ব্যবস্থা নেয়া।
সামনের বছর ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে। ফ্রান্সের ওপরে একাধিক সন্ত্রাসী হামলার পর সেদেশের মুসলিমরা মনে করেন নির্বাচনের কারণে সামনে হয়তো আরও কঠিন ব্যবস্থা নেওয়া হবে আমাদের ওপর। কারণ ডানপন্থীদের চাপে সরকার কঠোর ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হবে এবং জাতীয় নিরাপত্তার নাম করে হয়তো মুসলিমদের ওপর আরো কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে।
বিবিসি বাংলা

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now