শীর্ষ শিরোনাম
Home » পত্রিকার পাতা থেকে » ‘জিহাদি বই’ শব্দটি ইসলামের ‘শত্রুদের আবিষ্কার : শাহ্ আব্দুল হান্নান

‘জিহাদি বই’ শব্দটি ইসলামের ‘শত্রুদের আবিষ্কার : শাহ্ আব্দুল হান্নান

236850_1
ডেস্ক রিপোর্ট:
মানারাত ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির (এমআইইউ) ফার্মেসি বিভাগের তিন ছাত্রীকে সম্প্রতি সন্ত্রাসের সাথে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে আটক করেছে র‌্যাব। পরে তাদেরকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এর মধ্যে গত বুধবার বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) তিন সদস্যের একটি টিম আকস্মিক মানারাত ইউনিভার্সিটি পরিদর্শন করে। বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। এ প্রসঙ্গে মানারাত ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান ও সরকারের সাবেক সচিব শাহ্ আব্দুল হান্নান গতকাল নয়া দিগন্তকে একটি সাক্ষাৎকার প্রদান করেছেন। এতে তিনি সমসাময়িক বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন। সাক্ষাৎকারটি গ্রহণ করেছেন আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক খালিদ সাইফুল্লাহ। নিচে সাক্ষাৎকারটি তুলে ধরা হলো :

নয়া দিগন্ত: ইউজিসি টিমের কেউ কেউ বলেছেন, আপনাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরিতে জঙ্গিবাদ ও জিহাদি চেতনা সৃষ্টি করতে পারে এমন বই রয়েছে। এটা কি ঠিক?

শাহ্ আব্দুল হান্নান: এটা সঠিক নয়। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরিতে সরকার নিষিদ্ধ কোনো বই নেই। অন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মতো সব ধরনের বই মানারাতের লাইব্রেরিতে রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ে কী ধরনের বই থাকে তা ইউজিসি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে দেখতে পারে। সেখানে সব ধরনের বই রয়েছে। এতে মনের বিকাশ হয়। আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলাম। সেখানে ৫০ হাজার বই রয়েছে। এর মধ্যে রেফারেন্স বই আছে সর্বাধিক ৫০০।

‘জিহাদি বই’ শব্দটি ইসলামের ‘শত্রু’দের আবিষ্কার। ‘জিহাদি বই’ শব্দটির এ রকম ব্যবহার ৩০ বছর আগেও ছিল না। আগে তফসির, ফিকাহ, হাদিস গ্রন্থ, ইসলামের ইতিহাস বই, ইসলামি রাষ্ট্রবিজ্ঞান বই, ইসলামি অর্থনীতির বই এভাবে বলা হতো। জিহাদ নানা ধরনের হতে পারে। যুদ্ধ তার একটি দিক মাত্র। নফসের বিরুদ্ধে, রিপুর বিরুদ্ধে, দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিহাদ হতে পারে। তবে জিহাদের চূড়ান্ত রূপ যুদ্ধ। এটা শুধু রাষ্ট্র করতে পারে, তা-ও এ যুগে আন্তর্জাতিক আইন মেনে করতে হয়। মুসলিম রাষ্ট্রগুলো আন্তর্জাতিক আইন মেনে নিয়েছে। ইসলাম বলেছে ওয়াদা-চুক্তি রক্ষা করতে হবে। এ কারণে কোনো মুসলিম রাষ্ট্র এখন যুদ্ধ করতে পারে না। যে কেউ এটা করে সে অন্যায় করে। সে আমেরিকাই করুক বা কোনো ইসলামি রাষ্ট্রই করুক। সন্ত্রাস জিহাদ নয়, জিহাদ নয়, জিহাদ নয়।

নয়া দিগন্ত: আপনার বোর্ড অব ট্রাস্টিতে জামায়াতপন্থীরা রয়েছেন বলে অভিযোগ করা হয়েছে। এ সম্পর্কে আপনি কি বলবেন?

শাহ্ আব্দুল হান্নান: এগুলো সব প্রপাগান্ডা। মানারাত বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডে সাবেক সচিব, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ও বর্তমান অধ্যাপক এবং ব্যারিস্টাররা রয়েছেন। মানারাত রাজনৈতিক ভিত্তিতে কোনো ট্রাস্টিকে চিহ্নিত করে না। তা ছাড়া দেশের আইনেও বলা নেই, কোন দলের হলে নেয়া যাবে না, আর কোন দলের হলে নেয়া যাবে। আইন অনুযায়ী যেকোনো দলের হলে নেয়া যায়, এতে কোনো অসুবিধা নেই। দেখতে হবে তিনি যোগ্য কি না। যেহেতু ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য হতে রাজনৈতিক পরিচয় কোনো শর্ত নয়। এ জন্য আমরা ট্রাস্টি করার সময় কখনো কারো রাজনৈতিক পরিচয় নিয়ে আলোচনা করি না, তাদের যোগ্যতার ভিত্তিতে নেয়া হয়।

নয়া দিগন্ত: ইউজিসির তদন্ত টিমের একজন বলেছেন, লাইব্রেরিতে প্রচুর ধর্মীয় বই রয়েছে। এটা কেন?

শাহ্ আব্দুল হান্নান: আমাদের লাইব্রেরিতে ধর্মীয় বই আছে এটা ঠিক। যেখানে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম, সেখানে ধর্মীয় বইয়ের বিরুদ্ধে এলার্জি ঠিক নয়। যে ব্যক্তি বলেছেন, তিনি কি ধর্মমুক্ত বাংলাদেশ চান? এসব বলা কি তার বা তার প্রতিষ্ঠানের এখতিয়ারের মধ্যে পড়ে?

নয়া দিগন্ত: ইউজিসি ছাত্রীদের আলাদা কাসের ব্যাপারে আপত্তি জানিয়েছে। ছাত্রীদের আলাদা কেন কাস নেয়া হয়?

শাহ্ আব্দুল হান্নান: আমাদের দেশে অধিকাংশ অভিভাবক সহশিক্ষা পছন্দ করেন না। এ কারণে বেশির ভাগ স্কুল ও কলেজে সহশিক্ষা নেই। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মহিলা বিশ্ববিদ্যালয়ও প্রতিষ্ঠা হয়েছে। আমাদের দেশেও রয়েছে। এ ছাড়া অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ে ছেলে ও মেয়েদের আলাদা ব্যাচে কাস নেয়া হয়। যেখানে সহশিক্ষা আছে সেখানেও ছেলে ও মেয়েরা আলাদা বসে। ইউরোপের মতো পাশাপাশি বসে না। জনগণ ও শিক্ষাবিদদের অধিকাংশের ইসলামি চেতনার কারণেই এটি হয়েছে। ইসলামের দৃষ্টিতে এটাই উত্তম ও বাঞ্ছনীয়। এটা আমাদের দেশের আইন বিরুদ্ধও নয়।

নয়া দিগন্ত: আপনাদের তিন ছাত্রীকে কিছু অভিযোগে আটক করা হয়েছে। এ ব্যাপারে কি বলবেন?

শাহ্ আব্দুল হান্নান: এরা ফার্মেসির মতো গুরুত্বপূর্ণ একটি বিভাগের ছাত্রী। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের রেকর্ডে তাদের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই। পর্দা করা, আরবি শিক্ষা দেয়া, ধর্মীয় বই বিলি করা কোনো অপরাধ নয়। ফেসবুক পেজ এখন প্রায় সবারই রয়েছে। তারা অপরাধী না নির্দোষ সে ব্যাপারে আমি কোনো সার্টিফিকেট দেবো না। তবে পুলিশের দায়িত্বশীলদের প্রতি অনুরোধ মেয়েগুলোর বয়স কম। তাদের বিয়ে ও ভবিষ্যতের বিষয় রয়েছে। এ কারণে তাদের বিষয়টি যেন ফেয়ারলি দেখা হয়। দোষ না থাকলে যেন শাস্তি না পায়। আবার লুঘ অপরাধে যেন বেশি দণ্ড দেয়া না হয়।

নয়া দিগন্ত: আপনাকে ধন্যবাদ।

শাহ্ আব্দুল হান্নান: আপনাকেও ধন্যবাদ।

উৎসঃ   নয়া দিগন্ত
Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now