শীর্ষ শিরোনাম
Home » স্মরণীয়-বরণীয় » মৌলানা আবুল কালাম আজাদ এক মনোমুগ্ধকর ব্যক্তিত্ব

মৌলানা আবুল কালাম আজাদ এক মনোমুগ্ধকর ব্যক্তিত্ব

Azad-1আখতার হামিদ খান: মৌলানা আজাদ এমন এক মানুষ, যার জীবন ও কর্ম আমাদের দেশের ক্ষেত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যেসব মহাপুরুষ ও নারী কালোত্তীর্ণ কিছু বার্তা বহন করেন, আজাদ তাদের মধ্যে অন্যতম। মৌলানা আজাদ নামে সমধিক পরিচিত মৌলানা আবদুল কালাম মুহিউদ্দীন আহমেদ ১৮৮৮ সালের ১১ নভেম্বর মক্কায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি আজাদ (মুক্ত) কে তার ছদ্মনাম হিসেবে গ্রহণ করেন। তার জন্মবার্ষিকী ভারতে জাতীয় শিক্ষা দিবস হিসেবে পালিত হয়। আজাদ একাধারে ছিলেন পণ্ডিত, কবি, সাংবাদিক, মুক্তিযোদ্ধা এবং ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের সভাপতি। এছাড়া তিনি আরবি, ফার্সি, উর্দু, হিন্দি, ইংরেজি ও বাংলা ভাষায় দক্ষ ছিলেন।
আজাদকে মুসলমানদের সেবক হওয়ার জন্য গড়ে তোলা হয়েছিল। যাই হোক, তিনি তার জীবনকে নানা আদর্শে গড়ে তুলেছিলেন এবং নিজেকে একজন সাহসী মুক্তিযোদ্ধা, হিন্দু-মুসলিম ঐক্যের প্রতীক এবং আধুনিক ভারতের নির্মাতা হিসেবে মেলে ধরেছিলেন। খুব ছোটবেলা থেকে তিনি তার জীবনে নানা মহৎ ভাবনা লালন করতেন। ইস্তাম্বুলের সহযোগী সেনাবাহিনীর প্রথম বিশ্বযুদ্ধে অংশগ্রহণ এবং খলিফাদের পতন বিশ্বের মুসলমানদের জন্য ধর্মীয়ভাবে গুরুত্ববহ ছিল। ভারতীয় মুসলমানদের বিশেষত সুন্নী মুসলমানদের তুর্কি এবং ওসমান খেলাফতের প্রতি সহানুভূতি ছিল আন্তরিক, গাঢ় এবং ব্যাপক। ১৯১২ সালে আজাদ আল-হিলাল নামে একটি উর্দু সাময়িকী প্রকাশ করেন। তার সম্পাদনায় প্রকাশিত এ পত্রিকায় তিনি সকলের জন্য লিখতেন।
স্বাধীন থাকার সহজাত চেতনা এবং ভারতের সাধারণ মানুষের অধিকারের প্রতি ব্রিটিশ শাসকশ্রেণীর উদাসীনতাই তাকে বিদ্রোহী করে তোলে। এ লড়াইয়ে তিনি ২৯ বছরের বড় মহাত্মা গান্ধীকে বন্ধু ও সহযোত্রী হিসেবে পান।
খেলাফত আন্দোলনে গান্ধীর সহযোগিতার কারণে তাদের পরস্পরের নিকটবর্তী হয়ে পড়েন। আজাদ গান্ধীর অহিংস ও গণবিদ্রোহ মতাদর্শের একনিষ্ঠ সমর্থক হয়ে ওঠেন। কংগ্রেসকর্মী হিসেবে তিনি নানা জায়গায় অসহযোগ আন্দোলন গড়ে তোলেন।
তার অদম্য বিদ্রোহের ফলে ব্রিটিম সরকার অতিদ্রুত তাকে শত্রু হিসেবে চিহ্নিত করে। ১৯১৪ সালে আল হিলাল নিষিদ্ধ হয়। অকুতোভয় আজাদ আল বালাহ নামে আরেকটি সাপ্তাহিক প্রকাশ করে তার লেখনী অব্যাহত রাখেন। এ পত্রিকাটিও দুই বছর পর নিষিদ্ধ হয়। কলকাতা থেকে তাকে ১৯১৬ সালে রাঁচিতে নির্বাসিত করা হয়। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর তার ওপর থেকে এই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হয়।
১৯২৩ সালে দিল্লীতে অনুষ্ঠিত এক বিশেষ বৈঠকে তার সহকর্মীবৃন্দ ৩৫ বছর বয়সী আজাদকে ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের সভাপতি মনোনীত করেন। ১৯৪০ সালে রামগড়ে পুনরায় কংগ্রেস সভাপতি নির্বাচিত হয়ে তিনি ১৯৪৬ সাল পর্যন্ত অত্যন্ত সাফল্যের সঙ্গে দলটি পরিচালনা করেন। কংগ্রেসের এই সর্বোচ্চ পদের অনেক দাবিদার ছিলেন, সে কারণে তার নেতৃত্বদান সত্যিকার অর্থেই এক অসামান্য দৃষ্টান্ত।
ভারতের ভবিষ্যৎ নিয়ে দুটি ভিন্ন মতাদর্শ ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামকে আগে থেকেই চালিত করছিল, যার একটি হিন্দু-মুসলিম ঐক্যের ভিত্তিতে ভারতের কথা বলে আর অন্যটি দ্বিজাতি তত্ত্বের ভিত্তিতে পাকিস্তান সৃষ্টির কথা বলে। কংগ্রেস সভাপতি হিসেবে আজাদের বক্তব্য এব মুসলিম লীগ সভাপতি মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর বক্তব্যের মাধ্যমে এই মনোভাব তীব্র আকার ধারণ করে।
আজাদ বলেন, ‘এটা ভারতের ঐতিহাসিক ভাগ্য যে অনেক মানবজাতি এবং সংস্কৃতি এখানে আছে, তার নিজের মাটিতে এমন একটি দেশ যেখানে অনেক কারাভান আশ্রয় পাবে… মুসলমান ও হিন্দুর এগারশো বছরের মিলিত ইতিহাস নানা অর্জনের মাধ্যম ভারতকে সমৃদ্ধ করেছে। আমাদের ভাষাসমূহ, কবিতা, সাহিত্য, সংস্কৃতি, শিল্প, পোশাক, আমাদের আচরণ এবং রীতি… সবকিছুই আমাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টার সাক্ষ্য বহন করে… আমাদের এই হাজার বছরের যৌথ জীবন আমাদের একটি সাধারণ জাতীয়তায় একীভূত করেছে… পক্ষান্তরে, আমরা এটা পছন্দ করি বা না করি, আমরা এখন অখণ্ড এবং অবিভাজ্য ভারতীয় জাতিতে পরিণত হয়েছি- কোন সুদূর কল্পনা কিংবা নীলনকশা ও ঐক্য ভেঙে পৃথক ও খণ্ডিত করতে পারবে না।’
অপরদিকে মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর মত পুরোপুরি ভিন্ন : ‘এটা একটা স্বপ্ন যে হিন্দু মুসলমানরা একটি সাধারণ জাতীয়তাকে বিকশিত করবে এবং এই ভ্রান্ত একক ভারতীয় জাতীয়তার ধারণা সীমা অতিক্রম করে ফেলেছে, যা আামাদের অধিকাংশ সমস্যার কারণ এবং আমরা যদি সময়মত এসব সমস্যার সমাধানে ব্যর্থ হই, তবে এটা ভারতকে ধ্বংসের দিকে চালিত করবে। হিন্দু এবং মুসলিম দুটি ভিন্ন ধর্মদশর্ন, সামাজিক রীতি এবং সাহিত্যের সঙ্গে সম্পৃক্ত। তাদের মধ্যে না হয় বৈবাহিক সম্পর্ক, না তারা একসঙ্গে খায়। কার্যত তারা দুটি সাংঘর্ষিক ধারণা ও বিশ্বাসের উপর প্রতিষ্ঠিত ভিন্ন ভিন্ন সভ্যতার সঙ্গে সম্পৃক্ত। জীবন সম্পর্কে এবং জীবনের ব্যাপারে তাদের দৃষ্টিভঙ্গি সম্পূর্ণ আলাদা।’
এই দুই বক্তব্যই কংগ্রেস এবং মুসলিম লীগের ইশতেহার। এই বক্তব্যের দ্বন্দ্ব স্বাধীনতা সংগ্রামের ফলাফলের ওপর প্রভাব ফেলে। নানাভাবে আমরা এখনও উত্তরাধিকারসূত্রে এই ভাবধারাসমূহ আঁকড়ে ধরে আছি। ১৯৪৭ সালের ৩ জুন ব্রিটিশরা ধর্মের ভিত্তিতে ভারত-পাকিস্তানকে বিভাজনের একটি প্রস্তাব ঘোষণা করে, যাতে অঙ্গরাজ্যগুলোর কেন্দ্র বেছে নেয়ার স্বাধীনতা ছিল। জিন্নাহ সেই সুদিন লাভ করেন। তার প্রস্তাব বাস্তবে রূপ নেয় আর বাকিটাতো ইতিহাস হয়ে আছে। যাই হোক, জিন্নাহর দ্বিজাতিতত্ত্বের ফর্মুলা সাফল্যের মুখ দেখলেও মুসলমান সম্প্রদায়ের একটি বড় অংশ আজাদের মতবাদ পছন্দ করেন। দেশ বিভাজন শুধু রাজনৈতিক ক্ষতই ছিল না বরং এটা একটা সভ্যতার অবসানও ছিল। আজাদ বলেছিলেন ধর্ম নিশ্চয়ই রাজনৈতিক ক্ষমতা দখলের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত হবে না। তারপর তিনি ঘোষণা করেন, ‘ঈশ্বরই একমাত্র ভবিষ্যতের গর্ভে কী লুকিয়ে আছে।’ ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাস মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ এবং আজাদের দ্বন্দ্বময় ভূমিকা ছাড়া অসম্পূর্ণই রয়ে যেত। আজাদের সংগ্রামময় উপস্থিতি ছাড়া স্বাধীনতা সংগ্রামগাথা চরিত্রগত ও বিষয়গত দিক দিয়ে ভিন্নভাবে রচিত হতে পারত। তিনি ভারতের সংবিধানের খসড়া তৈরির কাজে নিযুক্ত পরিষদের নির্বাচকম-লীর সদস্য হন। আজাদ ধর্মনিরপেক্ষতা, ধর্মীয় স্বাধীনতা এবং সব ভারতীয়ের জন্য সমতার নীতি সংবিধানে প্রণয়নের প্রধান নায়ক।
প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরুর নেতৃত্বে গঠিত মন্ত্রী পরিষদের প্রথম শিক্ষামন্ত্রী হিসেবে তিনি যোগ দেন। ১৯৫৩ সালে তিনি নেহরুর সঙ্গে নয়াদিল্লীতে বিশ্ববিদ্যালয়ে মঞ্জুরি কমিশন এবং ১৯৫১ সালে খড়গপুরের প্রথম ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (আইআইটি) প্রতিষ্ঠা করেন। আইআইটির মাধ্যম তিনি ভারতের উন্নয়নের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ দেখতে পেতেন। সাংস্কৃতিক মন্ত্রী হিসেবে তিনি ১৯৫৩ সালে সাহিত্য, নাটক ও সঙ্গীতের উন্নয়নের জন্য সাহিত্য একাডেমি; ১৯৫৪ সালে চিত্রকলা ও ভাস্কর্যের উন্নয়ন এবং ভারতের মনীষী ও শিল্পীদের সাহসিকতা ও স্বাধীনতার ভিত মজবুত করার জন্য ললিতকলা একাডেমি স্থাপনে সহযোগিতা করেন। এই প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের নিজস্ব কাজকর্ম সম্পর্কে জাতীয় আলোচনায় জনগণের কথা বলতে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। নেহরু এবং আজাদ যথোপযুক্ত ক্ষেত্রের মাধ্যমে ভারতের রাজনীতিকে সাংস্কৃতিক ভাবাপন্ন করে তোলেন, যা প্রজাতন্ত্র দিবসের প্যারেডের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যে ব্যাপক প্রভাব ফেলে। তিনি সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় জাতীয় ও ধর্মীয় জাদুঘরের জন্য নানা চিত্রকর্ম ক্রয়ের ব্যবস্থা করেন। আমাদের প্রজাতন্ত্র দিবসের মতো অনুষ্ঠানে নানা দেশ চিত্তাকর্ষক সেনা-কুচকাওয়াজের আয়োজন করে এবং তাদের সৈন্যশক্তিকে বিশ্বে তুলে ধরে। আজাদ এবং নেহরু চিন্তা করলেন সৈন্যশক্তির মতো ভারতের সাংস্কৃতিক দিক তুলে ধরা উচিত। সেই থেকে এ ধারণা অন্যান্য দেশেও অনুসৃত হয়ে আসছে। ১৯৪৮ সালের জুনে নেহরু নৈনিতালে হাঙ্গেরিয়ান শিল্পী সাস এবং এলিজাবেথ বার্নার মা-মেয়ে জুটির অনেকগুলো চিত্রকর্ম দেখেন। তিনি বেশকিছু চিত্রকর্ম কেনেনও। তিনি আজাদকে ১৫,০০০ ভারতীয় টাকায় (শিল্পীর নির্দেশনা অনুসারে) সরকারকে আটটি চিত্রকর্ম কেনার পরামর্শ দিয়ে চিঠি লেখেন। এ ব্যাপারে বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে কথা বললে তারা এটাকে অতি উচ্চ দর বলে মনে করেন। ধারাবাহিক কিছু চিঠি এবং নোট বিনিময় হলেও বিশেষজ্ঞরা শিল্পীর চাওয়া দরের সমর্থন দেননি। তখন নেহরু বলেন, সরকার যদি চিত্রকর্মগুলোর বিনিময়ী দিতে অপারগ হয়, তবে তিনি নিজেই তা পরিশোধ করবেন। ২৩ সেপ্টেম্বর ১৯৪৮-এ আজাদ এক মুহূর্তেই বিষয়টা মিটিয়ে ফেললেন এই বলে যে, চিত্রকর্মের বিল অনুমোদন হওয়া উচিত এবং শিল্পীরা যা সম্মানী চান তা প্রদান করা উচিত।’ সরকারি কর্মকর্তা এবং বিশেষজ্ঞদের মতামতের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েও এরকম মনোভাব এবং চিত্রকর্ম খরিদের প্রতি ওপরতলার এই মনোযোগ, সরকারি, জাদুঘরের জন্য ভারতের উপ-রাষ্ট্রপতির সভাপতিত্বে শিল্প ক্রয় মিটির নীতিমালা প্রণয়নে সহায়তা করে।
নামের মতোই মৌলানা আজাদ ছিলেন তুখোড় বক্তা। প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী তার স্মৃতিকথায় লিখেছেন, যখনই আজাদ আনন্দ ভবনে থাকতেন, নাস্তার টেবিল মানুষে ভরপুর থাকত; এমনকি অনেকে তার কথা শুনতে দাঁড়িয়ে থাকতেন। দীর্ঘ বাক্যকে এক বা দুই বাক্যে ভেঙে বলার এক জাদুকরী ক্ষমতা ছিল আজাদের, যা শ্রোতাদের ওপর অসামান্য প্রভাব বিস্তার করত।
আধুনিক বিজ্ঞানমনস্ক ভারত নির্মাণে আজাদের অবদান প্রশংসনীয়। তার মধ্যে একইসঙ্গে মুক্তিযোদ্ধা, উচ্চপর্যায়ের চিন্তাবিদ এবং রাষ্ট্রনির্মাতার সমন্বয় ঘটেছিল। তাকে নিয়ে নেহরুর অকপট মন্তব্য, ‘মীর-ই-কারওয়ান (কাফেলা নেতা), একজন বীর ও সাহসী ভদ্রলোক এবং সংস্কৃতিসম্পন্ন যা বর্তমানে খুব কম মানুষের মাঝেই দেখা যায়।’
১৫ আগস্ট ১৯৪৭-এ ভারতের শীর্ষ পাঁচ নেতা মহাত্মা গান্ধী, জওহরলাল নেহরু, সরদার বল্লভভাই পাটেল, মৌলানা আজাদ ও রাজেন্দ্রপ্রসাদ নতুন ভারত নির্মাণে উদ্যোগী হলেন। এদের মধ্যে গান্ধীজি ৩০ জানুয়ারি ১৯৪৮ এ আততায়ীর গুলীতে নিহত হন। অখণ্ড ভারতের পক্ষে উজ্জ্বল ভূমিকা পালনকারী অদম্য নেতা সরদার প্রয়াত হন ৫ ডিসেম্বর, ১৯৫০। ফলে নেহরু-আজাদ-প্রসাদ-এই ত্রয়ী দেশকে নির্দেশনা ও পরামর্শ দেয়ার জন্য অবশিষ্ট থাকেন। ভারতকে একত্রিত রাখতে তারা একযোগে কাজ করেন।
এই নেতারা গভীরভাবে সচেতন ছিলেন যে শুধু ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র হিসেবেই ভারত এক থাকতে পারে, বিশেষত নেহরু ভারতের ধর্মনিরপেক্ষ মূল্যবোধের ওপর গুরুত্বারোপ করতেন এবং বেশ কিছু মুখ্যমন্ত্রী তাকে অনুসরণ করতেন। এই তেজোদৃপ্ত নেতাদের মৃত্যুর পর ভারতের ম্যাজিস্ট্রেট এবং পুলিশ সদস্যদের ওপর যার যার অঞ্চলের হিন্দু-মুসলমানদের মধ্যে শান্তি ও ঐক্য বজায় রাখার গুরুদায়িত্ব অর্পিত হয়। আমার মনে আছে, ১৯৭০ সালের গোড়র দিকে সাম্প্রদায়িক বালাই মাথাচাড়া দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে একজন জেলা ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে কতটা তাৎক্ষণিকভাবে আমাদের তা দমন করতে হয়েছে। পেছনে ফিরে তাকালে আমার মনে হয়, হয়তো আমরা এই উদার গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র পেতাম না বা রাষ্ট্রে হয়তো এত শক্ত সংহতি থাকত না, যদি না নতুন ভারতীয় জাতি-রাষ্ট্রের শুরুতে আচরণবিধি মধ্যে ধর্মনিরপেক্ষতাকে গুরুত্ব দেয়া হত।
মৌলানা আজাদ ছিলেন আমাদের সময়ের এক প্রাজ্ঞ রাষ্ট্রপরিচালক, ‘যার কাছে ভারত হলো ঐক্য এবং এর ভারতীয় জনগণের মাজে যত বৈচিত্র্যই থাকুক সেখানে হয়তো…’ আজাদের জীবন, বিশ্বাস, আচরণ আমাদের স্মরণ করিয়ে দেয়, কীভাবে সংকীর্ণ বিষয়াদির ঊর্ধ্বে সমাজে আলোকিত নাগরিক হওয়া যায়। কীভাবে আঞ্চলিক ও উত্তরাধিকারসূত্রে প্রাপ্ত সংস্কারের অস্বাস্থ্যকর দেয়াল পেরিয়ে জাতীয়তাবাদের উচ্চচেতনা লালন করা যায়। অর্থনৈতিক অগ্রগতি, রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা এবং সামাজিক অর্জনের মধ্য দিয়েই ভারত তার বিশালতাকে সম্পূর্ণ করতে পারে। ভারত তখনই পূর্ণতা বোধ করতে পারবে, যখন গোষ্ঠীচেতনার ঊর্ধ্বে উঠে ভারতমাতার জন্য সম্প্রদায়গুলো প্রগতির লক্ষ্যে একীভূত হবে।
স্বাধীনতা সংগ্রামের সময় আজাদ মহাত্মা গান্ধীর চিন্তা ও আদর্শ থেকে যে সততার দৃষ্টিলাভ করেন, কয়েক দশকেরও বেশি সময় ধরে সেই চিন্তা ও আদর্শ দেশকে সুষ্ঠুভাবে পরিচালিত করেছে। তার দৃষ্টিভঙ্গির প্রচার ও প্রসারের বিভিন্ন পন্থার কথা ভেবে এবং ভারতকে শক্তিশালী করেই এই মানুষটির প্রতি সর্বোত্তম শ্রদ্ধ নিবেদন সম্ভব।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now