শীর্ষ শিরোনাম
Home » প্রবাস » ইউকে জমিয়তের সেমিনারে বক্তারা: মাওলানা মুহিউদ্দীন খান মুসলিম উম্মাহর কর্ণধার ছিলেন

ইউকে জমিয়তের সেমিনারে বক্তারা: মাওলানা মুহিউদ্দীন খান মুসলিম উম্মাহর কর্ণধার ছিলেন

ukjo29সৈয়দ রিয়াজ আহমদ,সিলেট রিপোর্ট: জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ইউকের উদ্যোগে লন্ডনের বার্নার হলে সদ্যপ্রয়াত বাংলাদেশের র্শীষ আলেম জমিয়তের সাবেক নির্বাহী সভাপতি ও মাসিক মদীনার সম্পাদক ফখরে মিল্লাত মাওলানা মুহিউদ্দীন খান রহ.এর স্মরণে সেমিনার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাওলানা শোয়াইব আহমদের সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারী মাওলানা সৈয়দ তামিম আহমদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, জমিয়তে উলামাযে ইসলাম বাংলাদেশ এর সহসভাপতি আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী।

সম্মেলনে- বক্তারা বলেন,  মাওলানা মুহিউদ্দীন খান মুসলিম বিশ্বের গর্বের ধন ছিলেন,তার ইন্তেকালে যে শুন্যতা সৃস্টি হয়েছে তা সহজে পুরন হওয়ার নয়।তিনি ছিলেন বিশ্ব বরেণ্য আলেম, বিদগ্ধ ইসলামী চিন্তা নায়ক ও বহু সমৃদ্ধ গ্রন্থের রচয়িতা, ইসলাম ও জাতি স্বত্তা বিকাশে তাঁর অবদান স্মরণীয় হয়ে থাকবে। বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ ইসলামী ব্যক্তিত্ব, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সিনিয়র সহ সভাপতি, মাসিক মদীনা সম্পাদক, বহু সমৃদ্ধ গ্রন্থের রচয়িতা, বাংলা ইসলামী সাহিত্যের জনক পুরুষ মাওলানা মুহি উদ্দিন খান (রাহ:) এর জীবন ও চিন্তাধারা শীর্ষক ইসলামী সম্মেলন গত ২৮ আগস্ট রবিবার পূর্ব লন্ডনের বার্নার হলে অনুষ্ঠিত হয়। এতে শীর্ষ স্থানীয় উলামায়ে কেরাম, কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ ও সুধী মহল স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ গ্রহণ করেন জমিয়তে ঊলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ও ইউকে জমিয়তের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাওলানা শুয়াইব আহমদ এর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মাওলানা সৈয়দ তামীম আহমদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত এ গুরুত্ববহ স্মরণ সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে তাৎপর্য পূর্ণ বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ থেকে আগত প্রখ্যাত আলেম, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি শায়খুল হাদীস আল্লামা তাফাজ্জল হক হবিগঞ্জী। সভায় মাওলানা মুহি উদ্দিন খান (রাহ:)’র জীবনের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা পেশ করেন আমেরিকা থেকে আগত শায়খুল হাদীনা মাওলানা আবদুস সালাম জুড়ী, স্বাগত বক্তব্য রাখেন জমিয়তের উলামায়ে ইসলাম ইউকের সহ সভাপতি মুফতি আবদুল মুনতাকিম। বক্তব্য রাখেন ভারতের লেখক ও গবেষক ওয়ার্ন্ড ইসলামিক ফোরামের চেয়ারম্যান মাওলানা ঈসা মনসূরী, বিশিষ্ট আলেম মাওলানা শায়খ শায়খ তরিকুল্লাহ, ব্রিকলেন মসজিদ এর সাবেক ইমাম মাওলানা জিল্লুর রহমান চৌধুরী, বিশিষ্ট আলেম মাওলানা কে এম মওদুদ হাসান, কমিউনিটি নেতা কে এম আবু তাহের চৌধুরী, শিক্ষাবিদ সৈয়দ মামনুন মুর্শেদ, খেলাফত মজলিস যুক্তরাজ্যের সেক্রেটারী আলহাজ্ব সদরুজ্জামান খান, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস যুক্তরাজ্যের সেক্রেটারী মাওলানা ফয়েজ আহমদ, বিশিষ্ট আলেম মাওলানা শেখ নূরে আলম হামিদী, বিশিষ্ট মিডিয়া ব্যক্তিত্ব মাওলানা সালেহ হামিদী, শ্যাডওয়েল মসজিদ এর সাবেক ইমাম মাওলানা সিদ্দিকুর রহমান চৌধুরী, ড. মাওলানা আবুল কালাম আজাদ, কমিউনিটি নেতা কবি আবু সুফিয়ান চৌধুরী, রেডকোর্ট মসজিদদের খতীব মাওলানা ফখরুল ইসলাম, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ইউকের ট্রেজারার হাফিজ হোসাইন আহমদ বিশ্বনাথী, বিশিষ্ট আলেম মাওলানা নূফায়েস আহমদ, জমিয়তে উলামা ইউকের মিডিয়া বিষয়ক সম্পাদক মুফতি সৈয়দ রিয়াজ আহমদ, অফিস সম্পাদক মাওলানা ফখরুদ্দীন বিশ্বনাথী প্রমুখ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী বলেন, মুহিউদ্দিন খান একাই এক উম্মাহ তথা জাতি ছিলেন। তাঁর তুলনা তিনি নিজেই। সর্ব দিক বিচারে মাওলানা মুহিউদ্দিন খান অসাধারণ অবদানের অধিকারী মহান ব্যক্তিত্ব ছিলেন। তিনি বিশ্বের দরবারে আমাদের গৌরবোজ্জল জাতীয় পরিচয়ন বহন করে চলতেন। বড়দের শিষ্যদেরও সমসাময়িকদের দৃষ্টিতে মাওলানা মুহি উদ্দিন খান ছিলেন অতুলনীয় আদর্শ পুরুষ। দোয়া করি কেয়ামত পর্যন্ত যাতে তাঁর আলোচনা অব্যাহত থাকে এবং তাঁর অনুস্মরণীয় আদর্শ অনুসৃত হতে থাকে। সভাপতি’র ভাষণে মাওলানা শুয়াইব আহমদ বলেন, মাওলানা মুহি উদ্দিন খান আমাদের সকলের ¯েœহ পরবশ অভিভাবক ছিলেন। দল মত নির্বিশেষে সকলের মনে সম্মান ও ভালবাসার স্থান দখল করে নিয়ে ছিলেন মাওলানা মুহি উদ্দিন খান। আমরা অদূর ভবিষ্যতে সবাইকে নিয়ে ইনশা আল্লাহ বড় পরিসরে সমাবেশ ও স্মারক প্রকাশ করতে চাই। এর জন্য সকলের সর্বাত্ম সহযোগিতা প্রয়োজন। স্বাগত বক্তব্যে মাওলানা মুফতি আবদুল মুনতাকিম বলেন, মাওলানা মুহি উদ্দিন খান প্রিয় নবী (সা:) সত্যিকার ওয়ারিস হিসেবে বিশেষ এলাকা, দেশ ও জনপদের নয় সমগ্র মুসলিম উম্মাহর কর্ণধার কান্ডারির অবতীর্ণ অসাধারণ ব্যক্তিত্ব ছিলেন। তিনি তাঁর প্রতিটি শৈল্পিক কর্মে, প্রতিটি ছত্রে ও বাক্যে বেঁচে থাকবেন মানব জাতির হৃদয়ে চিরকাল। শায়খুল হাদীস মাওলানা আবদুস সালাম জুড়ী তাঁর বক্তব্যে বলেন সকল অঙ্গনে, সবক’টি ময়দানেই মাওলানা মুহি উদ্দিন খানের স্মরব পদচারনা ছিল। সর্বক্ষেত্রেই তিনি আমাদের জন্য অনুকরণীয় আদর্শ স্থাপন করে দিয়েছেন। সভায় ভারতের লেখক গব্ষেক আলেম মাওলানা ঈসা মনসূরী বলেন, আমার দৃষ্টিতে মাওলানা মহি উদ্দিন খান পুরো বাংলার মাটিতে এমনই এক মহান ব্যক্তিত্ব ছিলেন যেমন মাওলানা সৈয়দ আবুল হাসান আলী নদভী (রাহ:) ও মাওলানা সৈয়দ আসআদ মাদানী (রাহ:) ভারতে ছিলেন, উমাম্মাহর জন্য মাওলানা খান সাহেব অত্যন্ত বিগলিত ও বিচলিত একটি হৃদয় তাঁর ভেতরে রাখতেন। আজ এর অভাব অত্যন্ত প্রকট। মাওলানা শায়খ তরীকুল্লাহ তাঁর বক্তব্যে বলেন, মাওলানা মুহি উদ্দিন খান জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে অসাধারণ খেদমত আঞ্জাম দিয়েছেন, তবে আহলে সুন্নত ওয়ালজামাতের আদর্শ মজবুতভাবে ধারণ করে এবং উলামায়ে দেওবন্দের পদাংক অনুস্মরণ করেই তাঁর সকল কার্যক্রম সম্পাদিত হয়েছে। আজ উলামায়ে দেওবন্দ এর উপর তাঁর স্মৃতিগুলো লালন করে চলার দায়িত্ব বেশি বর্তায়। বিশিষ্ট কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব কে এম আবু তাহের চৌধুরী তাঁর বক্তব্যে বলেন, মাওলানা মুহি উদ্দিন খান দেশ, জাতি ও আমাদের সার্বভৌমত্ব রক্ষার আন্দোলনে সারা জীবন কোরবানী দিয়েছেন। তাঁর বলিষ্ঠ নেতৃত্বে টিপাইমুখ বাঁধের প্রতিবাদে ঐতিহাসিক লংমার্চে অংশ গ্রহণ করে আমরা গৌরবান্বিত বোধ করেছি। এত বিশাল কালজয়ী ব্যক্তিত্ব ইতিহাসে খুব কমই জন্ম নিয়ে থাকেন। মাওলানা কে এম মওদুদ হাসান বলেন মুহি উদ্দীন খান প্রথম ওহীর শিক্ষা “আল্লামা বিলকালাম” এ মুর্ত প্রতীক ছিলেন। লেখালেখির মাধ্যমে তাঁর দ্বীনের খেদমত স্মরণীয় হয়ে থাক।ে তাঁকে নিয়ে অনেক বড় পরিসরে সেমিনার আয়োজনের প্রয়োজন। মাওলানা নূরে আলম হামিদী তাঁর বক্তব্যে বলেন বর্তমান প্রজন্ম বিশেষত: শিক্ষিত সমাজে ব্যাপকভাবে দ্বীনের বাণী পৌঁছে দিতে হলে প্রয়োজন মাওলানা মুহিউদ্দিন খানের অনুসৃত পথ ধরে এগিয়ে যাওয়া।

মাওলানা ফয়েজ আহমদ বলেন, এত বিশাল ব্যক্তিত্বের অধিকারী হয়েও এত বড় ও উদার মনের অধিকারী যে কেউ হতে পারে তা মাওলানা মুহি উদ্দিন খানের সাথে সাক্ষাতের আগে কল্পনা করতে পারিনি। তিনি আমার আব্বা শায়খে হবিবপুরী (রাহ:) “নিসবত” কে যে সম্মান দেখিয়েছেন, তা আমার জন্য অভুলনীয় এক স্মৃতি। তাঁর ইন্তেকাল ১৯ রমজান হয়েছে, একই থারিখে শায়খুল হাদীস আল্লামা আজিজুল হকের ও ইহকাল ত্যাগ হয়েছে। এসব ঘটনা শুভলক্ষণ। মাওলানা সালেহ হামিদী তাঁর বক্তব্য বলেন, দ্বীনি পরিমন্ডলে খান সাহেব হুজুর বলতে একক ব্যক্তিত্ব বুঝা যেত মাওলানা মুহি উদ্দিন খান সাহেব কে। তাঁর নামে বড় কিছু করতে পারলে সেই স্মৃতির প্রতি কিছুটা সম্মান প্রদর্শন সম্ভব হবে যা তিনি মুসলিম জাতির জন্য রেখে গিয়েছেন। আলহাজ্ব সদরুজ্জামান খান তাঁর বক্তব্যে বলেন দেশ ও জাতির ভবিষ্যত সম্পর্কে অসনি সংকেত দিয়ে যেতেন মাওলানা মুহি উদ্দিন খান। তাঁর ভবিষ্যত বাণী ও সুদূর প্রসারী পরিকল্পনা কে অনুস্মরণ করে আমরা মুক্তির পথ অনুসন্ধান করতে পারি। মাওলানা সৈয়দ তামীম আহমদ তাঁর পরিচিতি বক্তব্যে বলেন মাওলানা মুহিউদ্দিন খান একাধারে একজন বিচক্ষণ রাজনীতিবিদ, আধ্যাত্মিক রাহবার, তাহাজ্জোদ গোজার, আল্লাহ ওয়ালা এবং শুরু থেকেই জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় নেতা হিসেবে যে অবদান রেখেছেন তা ইতিহাসে সর্বদা অভুলনীয় হয়ে থাকবে। বক্তরা আরো বলেন, তিনি ছিলেন বিশ্ব বরণ্য আলেম এবং বিশ্ববিখ্যাত মনীষীদের একজন। খাঁটি দেশেপ্রেমিক, অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী, মজলুম ও নির্যাতিত অত্যাচারিতদের পক্ষে জালেমের বিরুদ্ধে আপসহীন। নাস্তিক মুরতাদ এবং ইসলাম ও মুসলিমবিদ্বেষী আগ্রাসী শক্তির বিরুদ্ধে সাহসী সিপাহসালার। তার বলিষ্ট লেখা ও কণ্ঠের সাহসী হুঙ্কারে জনসাধারণের মাঝে দীনি জযবা ও প্রেরণার সৃষ্টি হতো। তিনি মুসলিম উম্মাহ্র যে কোন সংকটকালীন সময়ে কান্ডারীর ভূমিকা পালন করেছেন। বাংলাদেশের মুসলমানদের স্বার্থ রক্ষা ও ভারতের সাম্প্রদায়িক উস্কানির বিরুদ্ধে সোচ্চার ছিলেন। টিপাই মুখে ভারত কর্তৃক বাঁধ নির্মাণের বিরুদ্ধে লংমার্চে নেতৃত্ব দিয়েছেন। তিনি সর্বদা ওলামায়ে কেরামের বাস্তবসম্মত ঐক্য স্থাপনের চেষ্টা চালিয়েছেন। তিনি মনে করতেন আলেম সমাজের অনৈক্যই মুসলিম উম্মাহর পতনের প্রধান কারণ। ইসলাম প্রিয় সকল মানুষকে ঐক্যবদ্ধ রাখার ক্ষেত্রে তার ভূমিকা ছিল কালোত্তীর্ণ। জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুগুলোতে তার সুদৃঢ় নেতৃত্ব ইতিহাসে স্মরণীয় হয়ে থাকবে।14194469_1679175465738177_738793006_n

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now