শীর্ষ শিরোনাম
Home » মাওলানা মুহিউদ্দীন খান প্রসঙ্গ » পিতৃদ্বয়ঃ স্মৃতি বিস্মৃতির জাগ্রত অতীত (১)

পিতৃদ্বয়ঃ স্মৃতি বিস্মৃতির জাগ্রত অতীত (১)

13925084_127101857731135_4845825660552401458_nসৈয়দ আনোয়ার আব্দুল্লাহ:  আমার দুই পিতা। একজন রক্তজা অপরজন রুহানী পিতা।দুজনই আমাকে পুত্র বলতেন। একজন মাথার উপর ছায়া হয়ে আছেন। আর অপরজন দুর আকাশের নক্ষত্র হয়ে চোঁখের তারায় দীপ্তিমান। বাংলা সাহিত্যের খ্যাতিমান ইতিহাস গবেষক, সত্তরের দশকের জনপ্রিয় ইসলামি লেখক, বহুগ্রন্থপ্রণেতা তরফরত্ন
সৈয়দ আব্দুল্লাহ আমার জন্মদাতা পিতা। আর মাসিক মদীনার সম্পাদক ফখরে মিল্লাত বাহরিল উলুম, মাওলানা মুহিদ্দীন খান ছিলেন আমার রুহানী পিতা। পুত্র বলেই ডাকতেন, লিখতেন, সম্বোধন করতেন।

মুহিউদ্দীন খান চাচার মৃত্যুর আজ ৬৪তম দিন। কিন্তু সত্যকথা বলতে কি আমাদের পরিবারের সদস্যরা আজো তাঁর সূখ কাটিয়ে উঠতে পারেন নি। খান সাহেবের সন্তানদের মতোই আমার পরিবারের সদস্যদের চোঁখের পানি আজ থামেনি। কারন তিনি কেবল আমার অভিবাবক ছিলেন না,ছিলেন আমাদের ঐতিহ্যবাহী পুরো পরিবারের অভিবাবক। সুদীর্ঘ সময় ধরে ছিল
সম্পর্কের গভীরতা। আমার পিতা সৈয়দ আব্দুল্লাহহ আজো স্বভাবিক হতে পারেন। খান সাহেবের কথা বললেই চোখ দিয়ে গড়িয়ে পড়ে বেদনার অশ্রু। মাওলানা মুহিদ্দীন খানের মৃত্যুর পর নানান পত্র পত্রিকা অনলাইন অফলাইনে ছোট বড়ড় কমপক্ষে ৫০টি প্রবন্ধ লিখেছি খান চাচার জীবনেন নানান বিষয় আশয় নিয়ে। কিন্তু মাসিক মদীনা ও সৈয়দ আব্দুল্লাহ এবং মুহিদ্দীন খান নিয়ে যৌত্র একটি স্মৃতিচারণ লিখি লিখি
করেও আর হয়ে ওঠে নি। লিখতে গেলেই
আবেগ তাড়িত হই। কি ছেড়ে কি লিখি। নষ্টালজিয়া আমাকে আক্রান্ত করে। তবে দুই মনীষার কিছু স্মৃতিচারণ লিখে রাখা সময়ের দাবী।

মুহিদ্দীন খানের নাম শুনেছি শৈশব থেকে। বাবার
নামে মদীনা আসত, আসত নিয়মিত খান চাচার পত্রাবলি ও নতুন বই। বাবা আমাদের পড়ে শুনাতেন। তার বন্ধু মুহিদ্দীন খানের নাম উচ্চারিত হয়নি এমন দিন হয়তো আমাদের পরিবারে আসে নি। বাবা ঢাকাতে যেতেন।
খান সাহেবের বাসাতে থাকতেন। দুই পরিবারের
মধ্যে হাদীয়া তোহফা আদান প্রদান হত। ছোট
বেলা খান সাহেবের পাঠানো ঈদের জামা পড়েছি।
মুহিদ্দীন খান সাহেবকে প্রথম দেখি বাহুবলের
পীর সাহেবের ঘরে। দাদার কাছে তিনি নিয়মিত
আসতেন। আমি তখন খু্ ছোট। তার খুলে
ছড়েছিলাম সেদিন। তারপর রায়ধরের সভায়
চেয়ারম্যান সাহেবর ঘরে বহুবার দেখিছি শৈশবে।
মাওলানা মুখলেছুর রহমান রায়ধরের চেয়ারম্যান
সাহেবর সাথে তাঁর সুগভীর হৃদ্যতা ছিল।

বিশ্ব নন্দিত ইসলামী চিন্তাবিদ ও মাসিক মদীনার সম্পাদক আল্লামা মুহিউদ্দিন খান সাহেব (রাহ.) এর সঙ্গে তাঁরই অনুজপ্রতীম বন্ধু আমার আব্বা মাসিক মদীনা সহ দেশ-বিদেশের পত্র পত্রিকার লেখক গবেষক বহুগন্থ প্রনেতা সুসাহিত্যিক জনাব সৈয়দ আব্দুল্লাহর দীর্ঘ চার দশকের অধিক সময়ের সুসম্পর্ক ও গভীর হৃদ্যতার কথা যা কিঞ্চিত না বললেই নয়। খান সাহেব হুজুর এর সঙ্গে কিভাবে পরিচয় প্রসঙ্গ গড়ে উঠে তা জানার প্রেরনায় আব্বার সঙ্গে কথা বললে তিনি বলেন:-
১৯৭৫ সালে প্রথম ভাগে সম্ভবত: জানুয়ারী মাস, তিনি আসলেন হবিগঞ্জ শহরে অবস্থিত শায়খুল হাদিস আল্লামা তাফাজ্জুল হক (দা:বা:) এর পরিচালিত জামেয়া ইসলামিয়া আরাবিয়া উমেদনগর টাইটেল মাদ্রাসার বার্ষিক সভায়। সন্ধার পর খান সাহেবের বয়ান শুরু হল। বিশ্বের মুসলমানদের উত্থান পতনের বিষদ বিবরণ সম্বলিত খান সাহেবের ভাষণ শ্রবন করে আমি আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়ি। আমাদের বাহুবলে খান সাহেবকে দাওয়াত করে এনে একটি ইসলামী সম্মেলন আয়োজন করার কথা কয়েক জনের সংগে আলাপ করি। হযরত মাওলানা তাজুল ইসলাম গৌহরী সাহেবের পরামর্শানুযায়ী আমি একখানা পত্র লিখি। যথা সময়ে পত্রের উত্তর পেয়ে যাই। আমাদের উৎসাহ উদ্দিপনার জন্য প্রশংসা করেন। তবে তাৎক্ষনিক আমাদের দাওয়াত রক্ষা করা সম্ভব হয়নি। পরের বছর ১৯৭৬ সলে বাহুবলের সর্বজন শ্রদ্বেয় বুজুর্গ হযরত মাও: আব্দুল হামিদ (র:) পীর সাহেব বাহুবল এর উদ্যোগে হাইস্কুল সম্মুখস্থ মাঠে দু’দিন ব্যাপী ইসলামী সম্মেলনের সিদ্বান্ত হয়। আমি ঢাকায় গিয়ে বাংলাবাজার এক নং প্যারিদাস রোডে মদীনা পাবলিকেশন্স অফিসে খান সহেবের সঙ্গে দেখা করে দাওয়াত করি। আমি মদীনা পত্রিকার এজেন্ট হলাম। সেদিনই তাঁর সঙ্গে অনেক আলাপ আলোচনা হয় এবং গড়ে উঠে আন্তরিক হৃদ্যতা।

তখন বাহুবল বাজারে আমার ইসলামিয়া লাইব্রেরী নামে একটি লাইব্রেরী ছিল। আমিই মাসিক মদীনার হবিগঞ্জ অঞ্চলের প্রথম এজেন্ট। এছাড়া মদীনা পাবলিকেশান্স এর প্রকাশিত বই পুস্তক আমি সরবরাহ করতাম। তখন মদীনা বাংলা ডাইজেষ্ট বই আকারে প্রকাশিত হত। ১৯৭৬,৭৭,৭৮ ইং সনের ডাইজেষ্ট আকারের কয়েকটি মদীনা আমাদের পাঠাগারে রয়েছে। পরবর্তিতে বর্তমান সাইজে মদীনা প্রকাশিত হতে থাকে। সেই থেকে আজ পযর্ন্ত প্রায় সহস্রাধিক মদীনা আমাদের সংগ্রহশালায় সংরক্ষিত আছে।
ছাত্র জীবন থেকেই আব্বার লেখালেখীর অভ্যাস গড়ে উঠে ছিল। আব্বার শিক্ষক জনাব মধুমিয়া, জনাব আব্দুস সাত্তার সাহেব ও জনাব ইদ্রিছ মিয়া সাহেব প্রমুখ আব্বাকে উৎসাহ ও অনুপ্রেরণা যোগাতেন। বলতেন উপমহাদেশের বহু ভাষাবিদ পন্ডিত রস সাহিত্যিক ড. সৈয়দ মুজতবা আলী তোমাদের বংশেরই লোক । কর্ম জীবনে প্রবেশের পর মাসিক আল- ইসলাহ ও মাসিক মদীনা নিয়মিত পাঠকরে লেখালেখীর প্রতি অনুরাগী হয়ে উঠেন। এক পর্যায়ে তিনি ইতিহাসবিদ সৈয়দ মুর্তুজা আলী জাতীয় অধ্যাপক দেওয়ান মোহাম্মদ আজরফ ও আল্লামা মুহিদ্দিন খান সাহেব (র:) এর মত বরৈন্য মনীষীদের সান্নিধ্য লাভ করে তার মনন ,মেধা লেখালেখীর জগতে নিবিষ্ট ভাবে ধাবিত হয়। দেশের বেশ কটি মাসিক ,সাপ্তাহিক ,ও দৈনিক পত্রিকার তার প্রবন্ধ নিবন্ব প্রকাশ হতে থাকে ।

প্রকৃত পক্ষে মরহুম খান সাহেবের ¯হাত ধরেই তার কলম শানিত হয়। তাই আব্বা তাকে কখনও ভূলতে পারেন না। অসুস্থ অবস্থায় খান সাহেব যখন তার গোপ্তারিয়ার নিজস্ব বাড়ীতে ছিলেন তখন আব্বা কয়েক দিন পরপর রাএে এশার নামাজের পর নীরব সময়ে খান সাহেব (র:) এর সঙ্গে ফোনে আলাপ করতেন। আলাপচারিতায় দীর্ঘদিনের স্মৃতি চোখের সামনে ভেসে উঠে আব্বাকে অশ্রুসিক্ত হতে দেখেছি, এমন কি হাসপাতালে শুয়ে শুয়ে আহমদ বদরুদ্দীন খানকে বলেছেন- সিলেটে আমার অনেক হিতাকাক্সক্ষী রয়েছেন। অত:পর আব্বার নাম উল্লেখ করে বলেছেন – তোমরা তার খোজ খবর নিও, তাঁর পরামর্শ গ্রহন করিও। বদরুদ্দীন খানের নিকট থেকে কথা গুলি শুনে আব্বা বার বার অশ্রুসিক্ত হন। বন্ধু-বান্ধবের সংঙ্গে এ মহানুভব মানুষটির স্মৃতিচারন করেন আর কাঁদেন।
পত্র সাহিত্য নামে আব্বার একটি বই প্রকাশ হয় ২০০০ সালে। দেশের ১৫ জন নামী দামী ব্যক্তি বর্গের চিঠি পত্র নিয়ে। জাতীয় ইতিহাসবিদ সৈয়দ মুর্তুজা আলী, জাতীয় অধ্যাপক দেওয়ান মোহাম্মদ আজরফ বিশ্ব বরেন্য মুসলিম স্কলার আল্লামা মুহিউদ্দিন খান, প্রিন্সিপাল মিল্লাত উদ্দিন, দেওয়ান নূরুল আনোয়ার চৌধুরী, সৈয়দ মোস্তফা কামাল প্রমুখের জ্ঞান গর্ব পত্রাবলী। উক্তপত্র সাহিত্য পুস্তকে খান সাহেব (র:) এর ১০টি পত্র উপস্থাপন করেছেন। আজ এসব পত্রাবলী আমাদের জাতীয় ইতিহাসের অংশ বলে মনে করি।

সম্মানিত পাঠক বৃন্দের অবগতির জন্য নিম্বে দু‘টি পত্র উদ্ধৃত করছি।
তারিখ-০৮/১০/১৯৯৮ ইং
প্রিয় আব্দুল্লাহ সাহেব,
পত্র পেয়েছি। গত কিছুকাল যাবৎ শরীরটা ভাল যাচ্ছে না। কাজ ও এত বেশী যে বর্তমানে দম পাচ্ছি না। সে দিন একটা জরুরী কাজে আটকা পড়ার কারনেই হবিগঞ্জে আসতে পারি নাই। ইত্তেহাদুল উম্মাহ নামক সংগঠনের সঙ্গে এক সময় আমি যুক্ত ছিলাম আমার আকাংখা ছিল ইসলাম বিরোধী ক্ষিপ্ত শক্তির বিরুদ্ধে ইসলামপন্থী সকল শ্রেনীর লোকের মধ্যে যেন একটা ঐক্যবন্ধন গড়ে উঠে । কিন্তু অনেক আকাংখার মতোই আমার এ আকাংখাটিও কিছুতেই পূর্ণ হল না। একদল সংগঠনটিকে ঠেলে নিজেদের দলীয় প্রপাগান্ডÍায় ব্যবহার করতে উদগ্রীব এবং অন্যান্যরা চুলের মধ্য থেকে চামড়া ছিলার সাধনায় আতœনিয়োজিত। মধ্যখানে আমার মত কিছু মধ্যপন্থীলোক শুধু মর্মযাতনায় দগ্ধ হচ্ছি। আল্লাহ পাক জানেন এ জাতীর ভবিষ্যৎ কি। এ জাতির ভাগ্যে কি আছে!! উপরোক্ত কারনেই বছর খানেক ধরে উক্ত সংগঠনের সাথে কোন প্রকার সহযোগীতা করা আর আমার পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না।……শুনতে পাই বর্তমানে বিশেষ একটা দলের লোকেরা দুরবর্তি এলাকায় ইত্তেহাদূল উম্মাহ সভা সমাবেশে আমাকে কিছু না জানিয়েই আমার নাম প্রচার করে। আমার অনুপস্থিতি সর্ম্পকে কেউ প্রশ্ন করলে তারা বলে কি করব বলুন তিনি ওয়াদা করে ও আসলেন না। এর দ¦ারা স্থানে স্থানে তারা আমার ভাব মুর্তি বিনষ্ট করছে। আল্লাহ পাক এদের হেদায়ত করুন।….দোয়া করি ও দোয়া চাই।
বিনীত
মুহিউদ্দিন খান
৩০/০৮/৯৮ইং
জনাব সৈয়দ সাহেব
পত্র পেয়েছি। দেশের সর্বত্র অসংখ্য মুরুব্বী সব সময় আমার জন্য দোয়া করেন বলেই তো আমি এখন পর্যন্ত সহিসালামতে আছি এবং সামনে অগ্রসর হতে পারছি। আল্লাহ পাক আপনার বুজুর্গ আব্বাকে হায়াত দান করুন।
সৈয়দের সন্তান তার দোয়া নিশ্চয় আল্লাহ পাক কবুল করবেন। স্যার সৈয়দ আহমদ খানের আসবায়ে বাগাওয়াতে হিন্দ নামক বইটি ইতিহাস নয় আমাদের দৃষ্টিভঙ্গীর ব্যাখ্যাও নয়। সে সময়কার বিভিষিকা পূর্ন অবস্থা। পরাজিত মুসলমানদের উপর ইংরেজদের আক্রোশ সুযোগ বুঝে অন্যান্যদের উসকানী ইত্যাদির মোকাবিলায় সৈয়দ আহমদ খান মুসলমানদের দোষ (?)কিছুটা লাঘব করার লক্ষে এ পুস্তক রচনা করেছিলেন। সুতরাং এ বইটিকে আমাদিগকে সে দৃষ্টি ভঙ্গিতেই দেখতে হবে। ইতিহাস বা সঠিক তথ্যের দলিল রুপে গ্রহন করা উচিত হবে না । বর্তমানে অনেক কাজ বেড়ে গেছে এবং শরীর ও ভেঙ্গে পড়ছে। তবে বিশ্বাস করি পরাজিত নিহত হলেও জয়ী হব। সুতরাং ঘবড়াবার কি আছে?
বিনীত
মুহিউদ্দিন খান

২০০৭ সালে আব্বার জীবন ও কর্মের উপর হবিগঞ্জের প্রতিদিনের বাণী ‘নামক পত্রিকায় একটি বিশেষ সংখ্যা বের হয়। আমি তখন ঢাকাতে দৈনিক ইত্তেফাকে কাজ করি। খান সাহেব হুজুর এর পল্টনের অফিসে হাজির হয়ে তাঁর সামনে গিয়ে আচ্ছালামু আলাইকুম বললাম, তিনি সালামের জবাব দিয়ে হাত বাড়িয়ে আমাকে বসতে বললেন । আব্বার কথা জিজ্ঞাসা করলেন। বললাম হবিগঞ্জ থেকে প্রতিদিনের বানী পত্রিকায় আব্বার উপর একটি বিশেষ সংখ্যা বের করবে। আপনার একটা লেখা চাই। বললেন চেষ্টা করবো, পরদিন গিয়ে দেখলাম, তার টেবিলে কম্পোজ করা একটি লেখা, আব্বার সম্পর্কে ও আমাদের পরিবারের মরুব্বিগনের সম্পর্কে বিস্তর আলোচনা সম্বলিত লেখাটি আমার হাতে তুলে দিলেন।
এই লেখাটির কিছু অংশ এখানে উদ্ধৃত করলাম।
‘দেশের একজন বিরল সাহিত্য প্রতিভাও অতলস্পর্শী গবেষনা কর্মীর নাম সৈয়দ আব্দুল্লাহ। হবিগঞ্জের বাহুবলের উত্তরসুর গ্রামে জন্ম গ্রহন কারী এই কর্ম সাধক মানুষটি এমন এক রতœপ্রসূ পরিবারের সন্তান যে পরিবারে নিকট অতীতেও এমন তিন জন মনীষীর জন্ম হয়েছিল, যাদের গুণগরিমার কথা সমগ্র উপমহাদেশে আলোচিত হত। তাঁরা যথাক্রমে মহান সাধক হযরত মাওলানা শাহ আব্দুল হামিদ (র:) বহু ভাষাবিদ ড.সৈয়দ মুজতবা আলী, ইতিহাস গবেষক সৈয়দ মুর্তুজা আলী। সৈয়দ আব্দুল্লাহ স¦-বংশের এই তিন মনীষীর নিকট সান্নিধ্য লাভ করেছেন। তার উন্নত মানস গঠনেও এই তিন গুনী ব্যক্তির প্রত্যক্ষ প্রভাব লক্ষ্য করা যায়। …সৌভাগ্যক্রমে তিনি বেড়ে উঠে ছিলেন যে জনপদটিতে সেটি মুসলিম বাংলার প্রাচীন ইতিহাস ঐতিহ্যর এক গৌরবময় অধ্যায়ের লীলাভূমি। সেটি হচ্ছে হযরত সৈয়দ নাসির উদ্দিন সিপাহসালার (র:) এর স্মৃতিধন্য প্রাচীন তরফরাজ্য।…শহর থেকে দুরে অবস্থানের কারণে তার গবেষনা কর্মের মূল্যায়ণ বড় একটা হয় নি। তবে শহর, বন্দর বা রাজধানী কেন্দ্রিক গবেষকগনের অনেকেই এই সরলপ্রাণ দারিদ্র্য মানুষটির কঠোর শ্রমের ফসল আত্মসাৎ করে খ্যাতিমান হয়েছেন। কিন্তু মূল লেখকের প্রতি স্বীকৃতি প্রদান করার মতো সৌজন্যটকু প্রকাশ করার প্রয়োজননীয়তাও কেউ অনুভব করেন নি। তার প্রতি এখন পযর্ন্ত একাডেমী গুলোর কোন সুদৃষ্টি আকৃষ্ট হয় নি”।

আমার দাাদা ভাই মৌলভী সৈয়দ ফিরোজ আলী (র:) ২০০৮সালে ২১ মার্চ প্রায় ১১০ বছরে ইন্তেকাল করেন । তিনি খান সাহেবকে ভাল ভাবে চিনতেন। বাহুবল কাসিমূল উলুম মাদরাসায় বার্ষিক সভায় ও বাহুবল হাই স্কুল ময়দানে ইসলামী সম্মেলনে কয়েকবার এসেছেন। দাদা ভাইকে মুরুববী হিসাবে পেয়ে তিনি খুশী হতেন। বসে বসে অনেক্ষন আলাপ করতেন। দাদা ভাইএর ইন্তেকালের পর আব্বার স্মৃতিচারণমূলক লেখাসহ দেশের ক’জন বরেন্য লেখক যারা বিভিন্ন সময় আমাদের বাড়িতে এসেছেন। মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভী, সৈয়দ মোস্তফা কামাল, মাওলানা শাহ নজরুল ইসলাম, এডভোকেট সৈয়দ জয়নাল আবেদীন, সৈয়দ হাসান ইমাম হুসাইনী চিশতি প্রমুখ যারা দাদা ভাইকে দেখেছেন এরকম ক’জনের লেখা সংগ্রহ করে//আব্বাকে যেমন দেখেছি, নামে একটি বই প্রকাশ করেন’। আমি তখন তাবলীগ জমাতের সফরে ছিলাম। ৪ মাস পর বাড়িতে এসে দেখলাম, আব্বার টেবিলের উপর সদ্য প্রকাশিত এক খানা বই, আব্বাকে যেমন দেখেছি,বই খানার প্রথমেই হযরত আল্লামা মুহিউদ্দিন খান সাহেবের একটি শুভ কামনা। শুভ কামনায় তিনি আমার দাদা (পিতামহ) মৌলভী সৈয়দ ফিরোজ আলী (র:) সম্পর্কে যা লিখেছেন,
শুভ কামনা
বৃহত্তর সিলেটের সর্বত্র ছড়িয়ে আছে অসংখ্য আল্লাহওয়ালা মানুষের নানা স¥ৃতিচিহ্ণ।হবিগঞ্জ জেলা এক্ষেত্রে অনেকটাই অগ্রগামী বলে আমার মনে হয়। এই জেলাতেই শুয়ে আছেন হযরত সৈয়দ নাসিরউদ্দিন সিপাহসালার ,সৈয়দ ইসরাইল মালেকুল উলামা, মহাকবি সৈয়দ সুলতান (র.)সহ শত শত ওলি আউলিয়াগণ । তাদেরই আওলাদ ফরজনদের একটি শাখা বাহুবল উপজেলার উত্তরসুরের বিখ্যাত সৈয়দ পরিবার। নিকট অতীতেও এই পরিবারে যে কয়জন মহৎ ব্যক্তির আবির্ভাব হয়েছিল। তাদের মধ্যে মাওলানা সৈয়দ আব্দুল হামিদ ,মাওলানা সৈয়দ তবারক আলী (র:), প্রখ্যাত লেখক সৈয়দ মুজতবা আলী, সৈয়দ মোসÍফা আলী ও সৈয়দ মুর্তুজা আলীর নাম উল্লেখযোগ্য। উত্তরসুরের এই ঐতিহ্যবাহী পরিবারটি নানা প্রতিকূলতার মধ্যেও তাদের শিক্ষা ও সংস্কৃতির ঐতিহ্য অব্যাহত রেখেছে। এই পরিবারের একজন কৃতী লেখক সৈয়দ আব্দুল্লাহ এখনও পর্যন্ত বাংলা সাহিত্য ও ইতিহাস ঐতিহ্য গবেষণায় আতœনিয়োজিত রয়েছেন। তার পিতা মরহুম মৌলভী সৈয়দ ফিরোজ আলী নিভৃত গ্রাম্য পরিবেশে জীবনযাপন করেও দেশের আলেম উলামাদের সাথে গভীর ভাবে সম্পর্কিত ছিলেন। একজন খাঁটি দীনদার মানুষের যে সমস্ত সৎগুন থাকার কথা সে সব গুণই মরহুমের মধ্যে বিদ্যমান ছিল।
তিনি কর্মবীর হযরত মাওলানা সৈয়দ আব্দুল হামিদ (র.) এর একজন বিশিষ্ট সহকর্মী ও সমসাময়িক ছিলেন । মাসিক মদীনার সাথে বিশেষ ভাবে সম্পৃক্ত লেখক গবেষক সৈয়দ আব্দুল্লাহর সাথে সংশ্লিষ্টতার সুবাদে আমি হবিগঞ্জ অঞ্চলে সফরে গেলে এ পরিবারের মুরুব্বিদের ¯েœহ সান্নিধ্য ও আদর আপ্যায়নে মুগ্ধ হয়েছি। সৈয়দ ফিরোজ আলী (র.) এর সাথে পরিচিতি ও ব্যক্তিগত আলাপচারিতার মাধ্যমে তাঁর মধ্যে গভীর প্রজ্ঞা ও দীনের প্রতি শর্তহীন আনুগত্যের দ্যুতি লক্ষ করেছি। সত্যিকার অর্থেই তিনি ছিলেন একজন সচেতন দীনদার মানুষ। তার মত একজন মহৎপ্রাণ দীর্ঘজীবী মানুষের স্মৃতি ধরে রাখতে পারলে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম নিঃসন্দেহে উপকৃত হবে। তাঁর কর্মময় জীবনালেখ্য নিয়ে একটি সংকলন প্রকাশের প্রয়াসের প্রতি আমি আন্তরিকভাবে সাধুবাদ জানাই আল্লাহপাক আমাদের সকল সৎকর্ম কবুল করুন।
মাওলানা মুহিউদ্দিন খান
সম্পাদক , মাসিক মদীনা ,ঢাকা
তারিখ: ২০.০৭.০৯ইং
দাদা ভাই এর শেষ জীবনে আব্বা যখন তাঁর কাছে গিয়ে বসতেন। তখন খান সাহেবের কথা আলোচনা হত। দাদা ভাই তার জন্য দোয়া করতেন। আব্বাকে বলতেন “ মুহিউদ্দিন খান তোমার একজন উপকারী বন্ধু। আমি তার জন্য দোয়া করি”। যে কথাটি খান সহেব তার চিঠিতেও উল্লেখ করেছেন।

২০০৯ সালে টিপাই মুখ লংমার্চ ঢাকার মুক্তাঙ্গন থেকে সিলেটের সীমান্তবর্তি উপজেলা জকিগঞ্জ পযর্ন্ত হাজার হাজার মানুষের গণ কাফেলার আহবায়ক গণ মানুষের নেতা আল্লামা মুহিউদ্দিন খান। দুপুর ১২টায় লংমার্চ কাফেলা এসে পৌছে শায়েস্তাগঞ্জ গোল চত্বরে বর্তমানে যার নাম এম.এ রব চত্বর। এখানে পথ সভার জন্য একটি ছোট ষ্টেইজ বাঁধা হয়েছিল। এ ষ্টেইজে দাঁড়িয়ে জাতীয় পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য পেশ করছেন ।আব্বা ষ্টেইজের নিচে ছিলেন। মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ষ্টেজ থেকে নেমে আব্বাকে দু’ হাতদিয়ে ধরে টেনে ষ্টেইজে উটিয়ে তাঁর পাশে দাড় করালেন। এমন মহানুভব ব্যক্তিত্বের অধিকারী কজন আছেন? যিনি এক বিশাল নেতৃত্বের অধিকারী হয়ে হাজরও মানুষের মধ্যে হতে একজন প্রিয় বন্ধুকে দেখে টেনে নিয়ে নিজের পাশে দাড় করাতে পারেন। আজকাল দেখা যায় অনেক নেতাই নেতৃত্বের আসনে আসীন হয়ে পরিচিত বন্ধু বান্ধবকে ভূলে যান, চিনেন না, কথাও বলেন না।
আব্বার এসব স্মৃতিকথাই আমাকে উদ্ভুদ্ধ করছে মুহিউদ্দিন খান একাডেমির আহবায়ক হওয়ার ও তার জীবন ও কর্মের মূল্যায়ন করে কাজ করে লেখা লেখিতে মনোনিবেশ করার। লেখা পড়ার পাঠ সমাপ্ত করে বাড়ি আসার পর কিছুদিন ঢাকাতে জাতীয় পর্যায়ে লেখক গবেষকদের সান্নিধ্যে থাকার জন্য আব্বার অনুমতি পেলাম। সে সময়ের কয়েক বছর রাজধানী কেন্দ্রিক সাহিত্য সংস্কৃতি চর্চার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট হবার সুযোগ হয়। আল্লামা মুহিউদ্দিন খান, ভাষা সৈনিক অধ্যাপক আব্দুল গফুর কবি আল মাহমুদ, সাংবাদিক হাসান শাহরিয়া প্রমুখ বরেন্য মনীষীদের স্নেহনুকল্য লাভ করে নিজকে ধন্য মনে করছি।

ঢাকার জীবনের প্রথমদিকে খান সাহেবের সথে কয়েকদিন দেখা না করলেই তিনি আব্বার নিকট ফোন করতেন। বলতেন আপনার ছেলে কই। আববা বলতেন সেতো ঢাকাতেই আছে ।
তিনি বলতেন আমার সঙ্গে দেখা করে না কেন? আব্বা বলতেন সে ভয় পায়। তিনি বলতেন ভয় পাবে কেন? আমি আব্দুল্লাহ সাহেবের ছেলে বললেই তো হয়। এরপর থেকে আমার ঢাকার জীবনের বড় একটা অংশ কেটেছে খান চাচার সান্নিধ্যে। প্রতিদিন বিকালে একবার তার পল্টন অফিসে আমাকে যেতে হতো। দৈনিক ইত্তেফাকের সিনিয়র সহকারী সম্পাদক সৈয়দ এহিয়া বখত চাচার নির্দেশে আমি চাকুরীর জন্য আবেদন করলাম। বিষয়টি খান চাচাকে বলতেই তিনি ইত্তেফাকের ব্যবস্থাপনা সম্পাদক তাঁর ঘনিষ্ঠ বন্ধু আখতার উল আলমকে চিঠি লিখে বললেন “আমার একটি ছেলেকে আপনার কাছে পাঠালাম। তার লেখার হাত বেশ ভাল। ইত্তেফাকে কাজ করতে চায়। আশাকরি তাকে সুযোগ ককরে দিবেন”। এতেই ইত্তেফাকের মতো দৈনিকের সহকারী বিভাগীয় সম্পাদক হিসাবে নতুন চালু হওয়া একটি পাতায় চাকুরী হয়ে যায়। একবার তিনি আমাকে একটি অনুবাদের কাজ দিয়েছিলেন । আমি কাজটি সম্পন্ন করে ফেরত দিই। কিন্তু অনুবাদের কাজে আমার মন বসে নাই। আমার মন থাকতো ইতিহাস রচনায়। যদি তাঁর আদেশ পালন করে অনুবাদের কাজে লেগে থাকতাম তাহলে আজ ভাল একজন অনুবাদক হতে পারতাম। মাওলানা মহিউদ্দীন খান নামটি আমাদের পরিবারের সবার নিকট অতি পরিচিত ছিল। আমার জন্মেরে পূর্বেও তিনি বাহুবল কয়েকবার এসেছেন। আব্বা জানতেন তিঁনি বোয়াল মাছ পছন্দ করেন। আম্মা বোয়াল মাছ ভাজি করে আর ভোনা তরকারী পাক করে টিফিন ক্যারিয়ারে ভর্তি করে খাবার পাঠাতেন বাহুবল মাদরাসায় দারই সমসাময়িক শায়খুল হাদীস হযরত মাওলানা মকবুল হোসেন সাহেব, তাঁরই বিশেষ বন্ধু অধ্যাপক কবি আফজাল চৌধুরীর জ্যেষ্ঠভ্রাতা তৎকালিন বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান কমাণ্টে- মানিক চৌধুরী প্রমূখ একত্রে বসে আহার করতেন।

শৈশবে মায়ের কাছে এসব গল্প শুনেছি। আর শুনেছি খান সাহেবের মহিয়ষী মায়ের কথা। তাঁকে মাদরাসায় ভর্তি করার পর তাঁর এক ফুফু এসে প্রতিবাদ স্বরূপ যে কথা বলেছিলেন তার উত্তরে তাঁর জননী যে ভাষায় জবাব দিয়েছিলেন সে কথাটি আমি মায়ের কাছে আজও শুনি। “বুবু চাকুরী করার জন্য আমি ছেলে পেটে ধারন করি নি। আমার মহিউদ্দীন আল্লাহর কাজ করবে আর তার কাজ করবে অসংখ্য মানুষ” এই অমর বানী সারা পৃথিবীর মুসলিম আদম সন্তানের জন্যই প্রয়োজ্য বলে আমি মনেকরি। আমারন মা একজন সমুজদার পাঠিকা। তাজকিরাতুল আওলিয়া থেকে শুরু করে জীবনের খেলাঘরে, রওজা শরীফের ইতিকথা, স্বপ্নযোগে রাসুল (সঃ) সহ আমাদের পারিবারিক সংগ্রহশালার অনেক বইই তার রপ্ত করা। মাসিক মদীনা সহ বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা আজও গভির রাত পর্যন্ত তাকে পড়তে দেখা যায়। শৈশবে খান সাহেবকে ¯তার মহীয়সী জননী যে সব কাহিনী বলে তাঁকে ঘুম পাড়াতেন- রাজা গৌর গোবিন্দ কর্তৃক শেখ বুরহান উদ্দিনের উপর জুলুম-নির্যাতনের কাহিনী, গরু জবেহ করার কারনে শিশু পুত্রকে হত্যা, বুরহান উদ্দিনের হস্ত কর্তন, হযরত শাহ জালাল (রহ.) এর সিলেটে আগমন, তরফের বারজন আওলিয়ার কাহিনী সহ অসংখ্য কাহিনী মায়ের মুখে শুনতে শুনতে তিনি ঘুমিয়ে পড়তেন। এসব কথাও আমি আমার মায়ের কাছে শুনেছি।
আব্বা তাঁর জীবনের সুখ, দুঃখ, অসুখ-বিসুখের কথা, বই পুস্তক প্রকাশের পরামর্শ ইত্যাদি সঠিক সিদ্ধান্ত লাভ করতেন হুজুরের নিকঠ থেকেই। এক কথায় তিনি ছিলেন আমাদের পরিবারের অভিভাবক স্বরূপ। সৈসব কাল থেকেই আব্বার মুকে ইসলামী আন্দোলনের দুজন জাতীয় নেতার নাম শুনতাম। এক কথায় বলতেন, খান সাব-ক্বাসিমী সাব। পরে তাদের পূর্ণ নাম জানতে পারলাম- মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ও মাওলানা সামসুদ্দীন ক্বাসেমী (রাহ.) এই দু মর্দে মুজাহিদ বেশি বেশি আমাদের বাহুবলে আসতেন। এর কারন ছিল এই যে, তাঁদের একজন মুরুব্বী ছিলেন আমাদের বাহুবলে। যিনি এক সময় নিখিল ভারত জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের কর্ণধার শাইখুল আরব ওয়াল আযম কুতুবে যামান শায়খুল ইসলাম আল্লামা সাইয়্যেদ হুসাইন আহমদ মাদানী (রহ.) এর একজন বিশেষ অনুরাগী অনুসারী ছিলেন শাহ সুফি মুজাররদ মাওলানা আব্দুল হামিদ (রহ.)। যিনি বাহুবলের পীর সাহেব নামে পরিচিত ছিলেন। তিনি সম্পর্কে আমার দাদা ছিলেন। আমার পিতামহ মৌলবী সৈয়দ ফিরোজ আলী সাহেব (রহ.) এর ফুফাতো ভাই। আজ থেকে প্রায় ষাট বছর পূর্বে তিনি উত্তরসুর থেকে ১ কিলোমিটার দুরে বাহুবল উপজেলা সদর সংলগ্ন করাঙ্গী নদীর তীরবর্তি এলাকায় এসে এক বাড়ি নির্মান করেন। সে বাড়িটিতেই বর্তমানে জামিয়া মাহমুদীয়া হামিদনগর নামে একটি ইসলামী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসাবে দাড়িয়ে আছে। যেটি আজ শিক্ষার গুণগতমান নির্ণয়করে সিলেট বিভাগের ১নং শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসাবে পরিচয় লাভ করেছে। আল্লামা মুহিউদ্দীন খান ও সামসুদ্দিন ক্বাসেমী (রহ.) সহ দেশের জ্ঞানী-গুনীজন এ বাড়িতে এসেই পীর সাহেবের সঙ্গে দেখা সাক্ষাৎ করতেন ও দোয়া চাইতেন। শুধু বাংলাদেশের আলেম উলামাই নয় বিশ্ব বরণ্য দ্বীনি রাহবার ফেদায়ে মিল্লাত আওলাদে রাসুল সাইয়্যিদ আসআদ আল মাদানী (রহ.) এ বাড়িতে একাধিকবার এসেছেন। বলতে ছিলাম শৈশবে আব্বার মুখে শুনা খান সাহেব, ক্বাসেমী সাহেব এ দুজনের সঙ্গে আব্বার আতœার সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল। ক্বাসেমী সাহেব আজ থেকে বিশ বছর পূর্বে ১৯৯৬ সালে ইন্তিকাল করেছেন। আব্বার লিখিত মুসলিম মনীষা ৩য় খন্ডে ক্বাসেমী সাহেবের জীবনী আছে। তার ছেলে মাওলানা বাহাউদ্দিন জাকারিয়া জামেয়া হুসাইনিয়া আরজাবাদ মিরপুর ঢাকা এর নায়েবে মুহতামিম। তিনি আব্বার খবরা খবর রাখেন। ফোনে আলাপ করেন ও বই পুস্তক পাঠান। সেদিন কাসাসুল কুবরা নামক একটি বই পাঠিয়েছেন। খান সাহেব হুজুর যখন সর্বশেষ হাসপাতালে তখন মাওলানা বাহাউদ্দিন জাকারিয়ার সঙ্গে আব্বার অনেক্ষণ আলাপ হয়। এক পর্যায়ে তিনি খান সাব ক্বাসেমী সাব বলে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।

আমার নানা ভাই ছিলেন, মৌলবী শেখ হাবিবুর রহমান। নবীগঞ্জ উপজেলার ভরগাও নিবাসী। তিনি বিশ্ব মুসলিম এর ইতিহাস ঐতিহ্য ও উত্থান পতনের ঘটনাবলী আলোচনা করতেন। পত্র-পত্রিকার একজন সমুজদার পাঠক ছিলেন। দিনি মাসিক মদীনা ও খান সাহেব হুজুরের প্রকাশিত গ্রন্থাবলী পাঠ করতেন ও প্রশংসা করতেন। খান সাহেব বাহুবলে আসবেন জানলেই তিনি চলে আসতেন। মাদরাসার অফিস কক্ষে বসে আলোচনা হতো। একেবারে পরিবার থেকে শুরু করে সমাজ, রাষ্ট্র হয়ে বিশ্ব পরিস্থিতি নিয়েও আলোচনা হতো। আব্বা পরিচয় করে দিতেন। আমার এক খালু ছিলেন বি.এস.সি ইঞ্জিনিয়ার। তিনি চট্টগ্রাম শহরে বাস করতেন। আল-ইমারত কনসালটেন্স এর মালিক। খান সাহেব নানা ভাইকে যখন তার পরিবারের কথা জিজ্ঞেস করতেন তখন তার দু জামাতার কথাও উল্যেখ করতেন। খান সাহেব বলতেন আপনি তো ভাগ্যবান। এরকম মেয়ের জামাই পাওয়া তো মুশকিল। যার কুলে পিঠে বসে আমি অনেক গল্প-কাহিনী শুনেছি। সেই নানা ভাই আজ আর ইহজগতে নেই। আজ থেকে চার বছর পূর্বে তিনি এ পৃথিবীর বুক থেকে চির বিদায় গ্রহণ করেছেন।
২০১০ সালে খান সাহেবকে বাহুবলের মরহুম মাওলানা আব্দুল হামিদ রহ. এর স্মৃতি বিজড়িত জামিয়া মাহমুদিয়া হামিদনগরে উস্তাদুল উলামা মাওলানা তবারক আলী (রহ.) এর সুযোগ্য সন্তান ও আমার আব্বার খালাতো ভাই হাফেজ মাওলানা সৈয়দ ফজলুল করীম ফেরদৌস জামিয়ার প্রধান পরিচালক দাওয়াত করছিলেন। খাস সহেব হুজুর সিলেট যাওয়ার পথে যাত্রা বিরতি করছিলেন। কবি ইব্রাহিম তসনার জীবন ও কর্মের উপর এক সেমিনারে তিনি প্রধান অতিথি ছিলেন। গাড়ি থামলো জামিয়া মাহমুদিয়া হামিদনগর মাদরাসার সামনে। আমি সেখানেই দাড়ানো ছিলাম। খান সাহেব হুজুর দরজা খোলেই আমার কাধে হাত রাখলেন। আমি সালাম করলাম। প্রথমেই জিজ্ঞাসা করলেন, তোমার আব্বা কোথায়। বললাম, আব্বা আসতেছেন। মসজিদে ছাত্র শিক্ষক সবাই সমবেত হলেন। তিনি নসীহত মূলক বয়ান পেশ করলেন। মাওলানা তবারক আলী (রহ.), মাওলানা আব্দুল হামিদ (রহ.) ও আমার পিতামহ মৌলবী সৈয়দ ফিরোজ আলী (রহ.) প্রমুখের স্মৃতিচারণ করলেন। বললেন, বহুবার এ বাড়িতে এসেছি, অনেক খেয়েছি। অতঃপর মুহতামিম সাহেবের বাসবভনে গিয়ে বসলেন। আব্বা এসে মুলাকাত করলেন, আব্বার সাথে ছিলেন বাহুবল প্রেস ক্লাবের সভাপতি প্রাবীন সাংবাদিক এ.কে.এম মুছাব্বির চৌধুরী। পরিচয় পর্বের পর মুছাব্বির সাহেবকে ব্যাগ থেকে এক খানা বই বের করে দিলেন। সে দিনটিই ছিল আমাদের বাহুবলে খান সাহেব হুজুরের শেষ আগমন এবং আব্বার সাথে সামনা সামনী বসে শেষ আলোচনা। এরপর তিনি আর সফর করতে পারেন নি। আব্বারও ঢাকা গিয়ে হুজুরের সাথে দেখা করা আর সম্ভব হয়নি। আব্বার নিকট পূর্বেই লোক পাঠিয়ে তাঁর সঙ্গে সিলেট যাওয়ার জন্য বলেছিলেন। কিন্তু আব্বা হার্ডের দুর্বলতার দরুন সফরকরা সম্ভব নয় বিধায় হুজুরের সফরসঙ্গী হওয়া সম্ভবপর হয়নি।
১৯৬১ সালে মার্চ মাসে মদীনা প্রথম প্রকাশের পর এদেশের নামী দামী গুনীজন মদীনার সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়েছিলেন। যাঁদের লেখায় মদীনার পাতা ভরপুর হয়ে উঠেছিল। আমার আব্বা তাদের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট হবার সুযোগ পান নি। তবে আব্বার মুখে তাদের নাম শুনেছি। মুসলিম রেনেসাঁর কবি ফররুখ আহমদ, কবি বেনজির আহমদ, প্রিন্সিপাল ইব্রাহিম খা, সৈয়দ আব্দুস সুলতান, জাতীয় অধ্যাপক দেওয়ান মোহাম্মদ আজরফ , কবি রওশন ইজদানী, দেওয়ান আব্দুল হামিদ , ফজলুল হক শেলবর্ষী, আব্দুস সামাদ চৌধুরী আব্দুল জববার সিদ্দিকী, আনসার উদ্দিন খান (খান সাহেবের পিতা), আবুল কাসেম ভূইয়া, নূরুল ইসলাম কাব্যবিনোদন প্রমুখ। দেওয়ান মোঃ আজরফ সাহেব বিভিন্ন সময় বিভিন্ন তথ্যের জন্য আববার সঙ্গে প্রত্রালাপ করতেন। তাঁর হাতের লেখা দু‘টি পত্র আব্বার চিঠি পত্রের ফাইলে সংরক্ষিত আছে ।

২য়প্রর্যায়ে যারা মদীনায় লিখতেন আববা ছিলেন , তাদের সাথে গভীর ভাবে সম্পৃক্ত। মরহুম আঃ খালেক জোয়ারদার ,অধ্যাপক আবুল হোসেন মল্লিক সৈয়দ আশরাফুল হক আকীক , কবি জয়নাল আবেদীন মাহবুব, আল্লামা জুনায়েদ বাবু নগরী, আসম খালেদ হুসেন ,মাওলানা কাজী তাজুল ইসলাম গৌহরী অধ্যাপক কবি আফজাল চৌধুরী ,সৈয়দ মোস্তাফা কামাল সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনী চিশতী ,অধ্যাপক আবুল কাসেম ভূঁইয়া মাও.নূরুলইসলাম ওলীপুরী, প্রমুখের সঙ্গে ছিল আববার অন্তরিক হৃদ্যতা ও চিঠি পত্র আদান প্রদান । এদের মধ্যে অনেকই আজ আর ইহজগতে নেই। সৈয়দ আশরাফুল হক আকীক , কবি মুজাম্মের হক, সৈয়দ মোস্তাফা কামাল প্রমুখ নিয়মিত চিঠি পত্র লেখতেন । তাঁর পত্র সাহিত্য প্রস্তকে তাদের চিঠি পত্র স্থান পাচ্ছে । অধ্যাপক আবুল হোসেন মল্লিক মদীনার একজন প্রবীন লেখক, আববার সঙ্গে চিটি পত্রের মাধ্যমে ভাবেব আদান প্রদান হতো।

১৯৯৪ ইং সনের মাসিক মদীনা জুন সংখ্যায় তিন দশক পূর্তিতে মাসিক মদীনাঃ স্মৃতি বিস্মৃতির তিন দশক শিরোনামে আববার একটি নিবন্ধ প্রকাশ হয়েছিল। এতে মদীনার দু, জন প্রবীন লেখক সৈয়দ আশরাফুল হক আকীক ও অধ্যাপক আবুল হোসেন মল্লিকের নাম উল্লেখ করে ছিলেন।
উক্ত নিবন্ধটি পাঠ করে অধ্যাপক সাহেব মদীনার চিঠিপএের কলাম আপনাদের কখায় একটি তথ্য বহুল চিঠি লিখেন যা মদীনা ৩০ বর্ষ ৬ষ্ট সংখ্যায় প্রকাশ হয়েয়েছিল। ২০০২ সালে জানুয়ারী মাসে, স্মৃতির পাতা থেকে, শিরোনামে আববার একটি পুস্তক প্রকাশিত হয়। উক্ত পুস্তকের ৬৮,৬৯,৭০পৃঃ পরিশিষ্ট ১,এ,পত্রটি উপস্থাপন করেছেন । সম্মানিত পাঠক পাঠিকা বৃন্দের মদীনার সম্পাদক আল্লামা মুহিউদ্দিন খান (রাহ:) অধ্যাপক আবুল হোসেন মল্লিক ও জনাব সৈয়দ আব্দুল্লাহ সম্পর্কে আরো যৎকিঞৎ জানার সুবিধার্যে ২২বছর পর পূনরায় পেশ করা হলো। ব্যক্ত করা আবশ্যক যে গত বছর খানেক যাবৎ আববা অধ্যাপক সাহেবের খবরাখবর জানার জন্য বিশেষ আগ্রহ প্রকাশ করছেন । কিন্তু অনেক চেষ্ট তদবির চালিয়ে ও তার কোন খবরা খবর সংগ্রহ করতে পারছি না। মদীনার কোন; পাঠক বা লেখকের আমার পিতৃতুল্য বাবার শ্রদ্ধাভাজন ব্যক্তিত্ব অধ্যাপক আবুল হোসেন মল্লিক সম্পর্কে জানা থাকলে নি
অধ্যাপক আবুল হোসেন মল্লিকের মদীনায় প্রকাশিত পত্রটি নিম্নে তুলে ধরা হল।

জুন ১৯৯৪, সৈয়দ আব্দুল্লাহ ‘‘মাসিক মদীনাঃ স্মৃতি ও বিস্মৃতির তিন দশক ,,শীর্ষক একটি তথ্যবহুল বিশ্লেষণাতœক ও মনোজ্ঞ প্রবন্ধ লিখেছেন। প্রবন্ধটি অত্যন্ত মনোযোগ সহকারে পুংখানুপুংখরুপে পড়েছি। সৈয়দ আব্দুল্লাহ একজন গভীর উপলব্ধি সম্পন্ন ও তীক্ষ অনুভূতিপরায়ণ লেখক। তার স্মৃতি শক্তি শানিত। এতে এখনও মরিচা ধরে নাই বিধায় তিনি মাসিক মদীনা সম্পর্কে বিস্তারিত স¥ুতিচারণ করতে পেরেছেন। এরুপ প্রখর উপলব্ধিসম্পন্ন মানুষ আমাদের সমাজে বিরল । তাই মাসিক মদীনার প্রকাশনার জন্মলগ্ন থেকে পএ পত্রিকার মাননীয় সস্পাদক মুহিউদ্দিন খান ও লেখকবৃন্দ সম্পর্কে তিনি যে ধারাবাহিক পরিসংখ্যান তুলে ধরেছেন, এজন্য তাকে অশেষ ধন্যবাদ।
দেশ, জাতি ও সমাজ গঠনে পত্র-পত্রিকার ভূমিকা অনন্য ও অপরিসীম । পাশ্চাত্য জগত এ সত্য বহুকাল আগেই বুঝেছে। সংখ্যালঘু ইহুদী সম্প্রদায় পএ-পএিকা প্রকাশ করে গোটা বিশ্ব মাত করে দিয়েছে। তাদের কৃষ্টি-সংস্কৃতি প্রচার করে বিশ্বে তারা নেতৃত্ব ও কতৃত্ব চালাচ্ছে। আর আমরা কি করছি।
আমাদের অধিকাংশ পএ-পত্রিকা বিজতীয় কৃষ্টি-সংস্কৃতি পচার করে আমাদের নিজ¯œ কৃষ্টি-সংস্কৃতি, ইতিহাস–-ঐতিহ্যের উপর কালিমা লেপন করে দিচ্ছে। শুধু মাসিক মদীনা এর ব্যতিক্রম। মুসলিম কৃষ্টি –সংস্কৃতি , ইতিহাস-ঐতিহ্য ও ইসলামী আখলাক ভিত্তিক চরিত্র গঠনে মাসিক মদীনা সংগ্রাম চালিয়ে যা”্ছে দীর্ঘ দিন ধরে। এর জন্য যে শ্রম ও ত্যাগ- তিতিক্ষার প্রয়োজন তা অকুন্ঠ চিত্তে দিয়ে যাচ্ছেন মাননীয় সম্পাদক মুহিউদ্দিন খান।
শ্রদ্ধেয় মুহিউদ্দিন খান একজন উদার হৃদয়, নির্ভীকচিত্ত, ন্যায়নিষ্ট, অতিথিপরায়ণ ,পরোপকারী ও আদর্শ চরিত্রের উৎকর্ষমন্ডিত সমাজ সেবক, লেখক –সম্পাদক ও জনহিতৈষী ব্যক্তি। তার মাসিক মদীনাকে কেন্দ্র করে অসংখ্য কবি-সাহিত্যিক ও গবেষকের আবির্ভাব ঘটেছে। তিনি মাসিক মদীনার মত আদর্শ পত্রিকা প্রকাশ না করলে এত কবি-সাহিত্যিক ও গবেষকদের উদয় ঘটতো না। অনেক আদর্শ ও সৎ চিন্তার লেখক মেঘের আড়ালে থেকে যেতেন। প্রতিভার বিকাশ হতো না। এজন্য আমরা তার কাছে ঋণী, চিরকৃতজ্ঞ। সৈয়দ আব্দুল্লাহ একজন বিচক্ষণ ও দূরদর্শী ব্যক্তি। তাঁর আছে মেধা, প্রতিভা ও দরদী মন । তাঁর স্মৃতিপটে অংকিত তথ্যের বহিঃপ্রকাশের মধ্যে তা ধরা পড়ে। অদ্ভুত প্রকাশভঙ্গির মাধ্যমে তিনি তাঁর প্রবন্ধ চিত্রায়িত করেছেন। মদীনার লেখকদের প্রতি তাঁর সমবেদনা,দরদ ও ভালবাসা অকৃত্রিম। এতে মনে হয় তিনি একজন বিশুদ্ধ আতœার মানুষ।
আমাদের সমাজে মানুষকে ভালবাসা এবং মানুষের কর্মের যখাযথ মূল্যায়ন করার মত মানুষ খুবই কম। হিংসা , বিদ্বেষ আর খন্ডিত চিন্তাধারার মানুষই সর্বত্র। সৈয়দ আব্দুল্লাহ সাহেব তার ব্যতিক্রম। স্মৃতিচারণ প্রবন্ধে তিনি এক জায়গায় লিখেছেন ‘‘পরিশেষে মদীনার দু‘জন প্রবীণ তথ্যজ্ঞাণী ঐতিহাসিক গবেষকদের কথা স্মরণ করেই শেষ করবো। আশির দশকে যাঁদের ঐতিহাসিক তথ্য ও তত্ত¦সমৃদ্ধ নিবন্ধ প্রায়ই মদীনায় ছাপা হতো। তাঁদের একজন হলেন বৃহত্তর সিলেটের সুনামগঞ্জ জেলার সৈয়দপুর নিবাসী সৈয়দ আশরাফুল হক আকীক ও অপর জন সম্ভবত উত্তর বঙ্গের অধ্যাপক আবুল হোসেন মল্লিক । বেশ কিছুদিন যাবত তাঁদের কোন লেখা না দেখে মর্মাহদ হয়েছি।‘‘উপরোক্ত দু‘জন লেখকের প্রতি সৈয়দ সাহেবের নির্ভেজাল মনের গভীর আকৃতিময় সহানুভুতি উদয়গীরিত হয়েছে। ঐ দু‘জন লেখকের মধ্যে আমি হতভাগা আবুল হোসেন মল্লিক একজন । আমার জন্ম উত্তরবঙ্গে নয়। পশ্চিম-দক্ষিণ বঙ্গের মানুষ আমি। ফরিদপুর জেলার পশ্চিম প্রান্তে মধুখালী থানার অধীন কামারখালী ঘাট সংগ্ন আড়পাড়া গ্রাম আমার জন্মস্থান । জন্মের তারিখ ১লা মার্চ ১৯৪২ সাল।
অনেক ঘাত – প্রতিঘাতসংকুল জীবন আমার। লেখাপড়া শেষ করে অধ্যাপনাকে পেশা হিসাবে গ্রহন করেছি। অধ্যাপনার ফাঁকে কিছু গবেষণা করার আশা ছিল। কিন্তু আতœবিকাশের উৎস খুঁজে পাচ্ছিলাম না। ইত্যবসরে ১৯৭৩ সালে মানুষের নবী ‘‘ গ্রন্থের লেখক ও আমার শ্বশুর মাওলানা আব্দুল জববার সিদ্দিকী সাহেবের পাবনা শহরস্থ বাসভবনে তার বিছানার উপর বই আকারে একখানা মাসিক মদীনা দেখতে পাই।
পত্রিকাখানা তুলে নিয়ে দেখি বেশ সুন্দর সুন্দর ইসলামী প্রবন্ধ ও গবেষণামূলক রচনায় ভরপুর পত্রিকাখানী । এতে আমি আকৃষ্ট হই । আমার শ্বশুর সাহেব বললেন, ‘‘তুমি তো লেখালেখির ইচ্ছা করলে মদীনায় লিখতে পারো। সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দিন খান খুব ভাল মানুষ ।‘‘ আমি তার পরামর্শ অনুসারে ১৯৭৩সালে ঢাকায় গিয়ে মদীনা অফিসে তাঁর সংগে সাক্ষাৎ করি এবং আমার লেখা একটি বড় প্রবন্ধ তাকে দেখাই । তিনি আমার সেই প্রবন্ধটির শিরোনাম দিয়েছিলেন ‘‘মহৎ জীবনের সাধক হও। ‘‘আমি এই প্রবন্ধের শিরোনাম কি দিয়েছিলাম তা এখন আমার মনে নাই। ‘‘মহৎ জীবনের সাধক হও,, শিরোনামে মাসিক মদীনায় ২ সংখ্যায় তা ছাপা হয়েছিল। এরপর থেকে আমি মাসিক মদীনায় নিয়মিত প্রবন্ধ দিতাম। আমার লেখা পঞ্চাশটি প্রবন্ধ মদীনায় ছাপা হয়েছে। আমি মৌলিক চিন্তা ও গবেষণামূলক প্রবন্ধ লিখতাম। হঠাৎ ভাগ্যের বিড়ম্বনা ঘটে। জীবনের মোড় ঘুরে যায়। বিধি হয় বাম একমাত্র পুত্রের মস্তিষ্ক হয় বিকৃত। অধ্যক্ষ ভ্রাতার মৃত্যুবরণ, সরকারী স্কুল শিক্ষিকা ভাবীর ইন্তেকাল প্রভৃতি দুঘটনা বিপর্যয়ে আমি ভেঙ্গে পড়ি। লেখা-গবেষণা সবই ছেড়ে দেই। সাত-আট বৎসর এইভাবে ভারক্রান্তভাবে জীবন কাটাচ্ছি । দুঃখ -বেদনা কেটে উঠতে পেরেছি এখন। রাজবাড়ী জেলার পাংশা বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের সহকারী অধ্যাপক হিসাবে কর্মরত আছি। এখানে আমার একটি ছোট বাসভবন আছে। এখানেই পরিবার নিয়েই থাকি। জনাব সৈয়দ সাহেব এখন বুছতে পারছেন আমি কেমন আছি , কোথায় আছি । আপনি বড় দরদী মানুষ, আমার আতœার আতœীয়। লেখকদের পরিচয় লেখালেখির মাধ্যমে । তাই এই পত্র।
পরিশেষে আমি কেমন আছি তা নবী করীম (সাঃ)- এর একটি হাদীসের উদ্ধৃতি দিয়ে আপনাকে জ্ঞাত করছিঃ “একবার সাহাবীগণ রাসুলল্লাহ (সাঃ)- কে জিজ্ঞাসা করলেন , ইয়া রাসুলুল্লাহ (সাঃ), এ দুনিয়ায় সৌভাগ্যবান কোন ব্যত্তি?.. উত্তরে তিনি বলেন, “সৌভাগ্যবান ঐ ব্যত্তি যে দুর্ভাগ্যকে সৌভাগ্য বলে মনে করে, সেই ব্যক্তিই সৌভাগ্যবান । উপরোক্ত হাদীস অনুসারে আমিও সৌভাগ্যবান ব্যক্তি। মাসিক মদীনার সম্পদক, লেখক ও পাঠকবৃন্দের প্রতি রইল আমার অজুত সালাম ।
মোঃ আবুল হোসেন মল্লিক
সহকারী অধ্যাপক ,রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ.
পাংশা বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ,
পোঃ পাংশা , রাজবাড়ী।
[মাসিক মদীনা ৩০ বর্ষ ৬ষ্ট সংখ্যায় প্রকাশিত]

মাসিক মদীনার একজন প্রবীন লেখক হবিগঞ্জের সুলতানসী হাবিলী নিবাসী
সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনী চিশতী মাসিক মদীনা জুলাই ১৯৯০ সংখ্যায় মাসিক মদীনা কিছু কথা শিরোনামে এক নিবন্ধে বলেন “মাসিক মদীনার আমার আগের লেখক হলেন জনাব সৈয়দ আব্দুল্লাহ । ঐ সময়ে মদীনা একটি বাংলা ডাইজেষ্ট হিসাবে বের হত। মদীনায় সৈয়দ আব্দুল্লাহ লেখালেখীতে বুঝতে পারলাম যে তরফের ইতিহাসের অনেক বাস্তব সত্য আতœবিস্মৃতির অন্ধকারে ঢাকা পড়ে আছে । উল্লেখ্য যে তরফের ইতিহাসের মুসলিম ঐতিহ্যের বাস্তব সত্য তথ্য ও তত্ত্বের আবিস্কারের প্রতিকৃত হলেন সৈয়দ আব্দুল্লাহ ও সৈয়দ মোস্তফা কামাল । দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে গিয়ে ইতিহাসের অনেক হারামনি কুড়িয়ে মদীনায় প্রকাশ করতে লাগলেন। তাদের লেখায় অনুপ্রানিত হয়ে ইচ্ছা হল নিজেও নীরবতা ভেঙ্গে কলম ধরী। তখন থেকে আজ পযর্ন্ত আল্লাহর মর্জিতে সুপ্রাচীন তরফের সাহিত্য সংস্কৃতি, ইতিহাস ও ঐতিহ্য বিষয়ক অসংখ্য গবেষনা লব্ধ নিবন্ধ মদীনায় ছায়া হয়েছে। এ হিসাবে মদীনার যাবতীয় কার্যক্রমের কাছে আমরা বৃহত্তর তরফবাসী বিশেষ ভাবে ঋনী আছি।
সৈয়দ মোস্তফাকামাল ,সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনী চিশতী ও সৈয়দ আব্দুল্লাহ এই তিন জনই প্রবীনলেখক । তবে মদীনার সংশ্লিষ্টতা সৈয়দ আব্দুল্লাহর প্রথম থেকেই । সৈয়দ মোস্তফা কামাল শেষ জীবনে মদীনায় বেশী বেশী লিখতেন। সিলেট অঞ্চলে মদীনার প্রধান লেখক হিসাবে জীবিত আছেন সৈয়দ হাসান ইমাম হোসাইনী চিশতী ও সৈয়দ আব্দুল্লাহ। এপরিসরে আমি তাঁদের সুস্বাস্থ্য ও দরাজ হায়াত কামনা করছি।
জানা যায় ১২৯২ বাংলায় তরফের লস্করপুর হাবিলীর সৈয়দ আব্দুল আগফার, তরফের ইতিহাস নামে একখানা গ্রন্থ রচনা করে ছিলেন। এরপর প্রায় আশি বছর অতিবাহিত হবার পর উল্লেখিত তিনজন গুণী ব্যক্তিত্ব তরফঅঞ্চলকে নিয়ে লেখালেখি শুরু করেন। প্রত্যেকেরই তরফ অঞ্চলের উপর আলাদা আলাদা গ্রন্থ বের হয়েছে । তরফবিজয়ী সৈয়দ নাসির উদ্দিন সিপাহসালার এর বংশের জ্ঞনী গুনীজন সম্পর্কে প্রথম লেখার সূচনা করেন মাসিক মদীনায় সৈয়দ আব্দুল্লাহ ।

আব্বার মুখে শুনা আর একটি কথা বলেই আমার স্মৃতিচারণ শেষ করব। হুজুরের গেন্ডারিয়ার বাড়িতে বহুবার তার মেহমান হয়েছেন। বহুতল ভবনের নিচ তলায় মেহমানদের থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা ছিল। মেহমানদের খাওয়ানোর ব্যবস্থাও ছিল ভিন্ন প্রকৃতির। একটি রুমে কার্পেট বিছানো আছে। খাবার এর সময় একটি চাদর বিছিয়ে এর উপর দস্তারখানা ফেলা হয়। পরিবারের পুরুষ সদস্যরা এসে মেহমানের পার্শে বসেন। খাবারের আইটেমগুলো এনে মধ্যখানে রাখা হয়। এরপর হাত ধৌতকরে নিজনিজ চাহিদা অনুসারে খাবার শুরু হয়। সুন্নত তরিকায় মেহমানদের সাথে খাবার খাওয়া ছিল ইসলামী জিন্দেগীর একটি উত্তম আদর্শ। আল্লাহ পাক হযরত খান সাহেব (রহ.) কে জান্নাতুল ফেরদাউস নসীব করুন আর আমার আব্বাকে নেক হায়াত দান করুন আমীন।
চলবে….

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now