শীর্ষ শিরোনাম
Home » শীর্ষ সংবাদ » আতংকে আরিফ : মেয়রের আসনে বসছেন কয়েস লোদী !

আতংকে আরিফ : মেয়রের আসনে বসছেন কয়েস লোদী !

শাহিদ হাতিমী, সিলেট রিপোর্ট: গ্রেফতার আতংকে আছেন সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। একটি মামলার  সম্পূরক চার্জশিট আদালতে জমা দেয়ার পর শুনানি শেষে মেয়র আরিফসহ আসামীদের পলাতক দেখিয়ে তাদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরওয়ানা জারি করেন আদালত। এরপরই আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিনত হয়েছেন সিলেট সিটি মেয়র ওপ্যোনেল মেয়র ইস্যাটি।
আমাদের হবিগঞাজ প্রতিনিধি জানিয়েছেন, সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যা মামলার চতুর্থ দফার সম্পূরক চার্জশিট গ্রহণ করেছেন আদালত। রবিবার বেলা ১টার দিকে অভিযোগপত্র গ্রহণ করে হবিগঞ্জ আদালতের জেষ্ঠ বিচারিক হাকিম রশিদ আহমেদ মিলন সম্পূরক চার্জশিটে আসামী হওয়া সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, খালেদা জিয়ার সাবেক রাজনৈতিক উপদেষ্টা আবুল হারিছ চৌধুরী ও হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র জি কে গৌছসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরওয়ানা জারি করেছেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডি পুলিশের সিলেট অঞ্চলের সহকারী পুলিশ সুপার মেহেরুন নেছা পারুল এই ১১ জনের নাম যোগ করে রবিবার হবিগঞ্জের আদালতে সংশোধিত সম্পূরক অভিযোগপত্র জমা দেন।

পরবর্তীকালে ৩ ডিসেম্বর মামলার তদন্ত কর্মকর্তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে মামলার দুই আসামি আরিফুল হক চৌধুরী ও জিকে গউসের নাম ঠিকানা সংশোধনপূর্বক ২১ ডিসেম্বর চতুর্থ দফা সম্পূরক চার্জশিটের নির্দেশ দেন আদালত।

প্রসঙ্গত ২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বৈদ্যের বাজার এলাকায় একটি জনসেভা শেষে ফেরার পথে গ্রেনেড হামলায় নিহত হন সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়া শাহএএমএস কিবরিয়াসহ পাঁচজন।

সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যা মামলায় নাম সম্পৃক্ত হওয়ায় তিনি অনেকটাই বেকায়দায় এখন। বলতে গেলে আত্মগোপনে থেকেই দাপ্তরিক কাজকর্ম সামাল দিচ্ছেন। মেয়রের দুঃসময়ে এবার একে একে পাশ থেকে সরে যেতে শুরু করেছেন তার ‘পারিষদ’রাও।
‘মেয়র কারাগারে যাচ্ছেন’ -এমন ধারণা থেকেই সম্ভবত ভোল পাল্টাচ্ছেন কাউন্সিলররা। সম্ভাব্য ভারপ্রাপ্ত মেয়র হিসেবে আলোচনায় এসেছেন মেয়র প্যানেলের প্রথম সদস্য রেজাউল হাসান কয়েস লোদী। এ যাত্রায় হয়তো তাকে দীর্ঘদিন মেয়রের ভার সামলাতে হতে পারে- তাই এখন থেকেই তার আস্থাশীল হতে চাইছেন কাউন্সিলররা। সব ভুলে সিটি করপোরেশনের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক কাউন্সিলর কয়েস লোদীর সাথে বৈঠক ও করেছেন। এমন কি সরকারী দলের কয়েকজন কাউন্সিল ও ব্যক্তি কযেস লোদির পক্ষে তাদের সমর্থন জানিয়েছেন। সবমিলিয়ে এখন আলোচনায় কযেস লোদি! নগর বাসীর অভিভাবক হিসেবে প্যানের মেয়রই মেয়রের চেয়ারে বসছেন বলে ধারণা।

জানাগেছে,  কাউন্সিলর সিকন্দর আলীর শেখঘাটস্থ কার্যালয়ে একটি বৈঠক হয়। সেখানে কয়েস লোদী উপস্থিত হন ।  রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন  ৬ কাউন্সিলর। বৈঠকের মূল সুরই ছিল কয়েস লোদীর কাছে ভুল স্বীকার-অনাস্থা এনে যে ‘ভুল’ করেছিলেন তারা। সিদ্ধান্ত হয় আরও বড় পরিসরে এ ইস্যুতে বৈঠক হবে। এরই আলোকে গত বুধবার নগরীর রয়েল শেফ চায়নিজ রেস্টুরেন্টে বসেন কয়েস লোদীর ‘শুভাকাঙক্ষী’রা। এদিন কয়েস লোদীর প্রতি পুনরায় আস্থা স্থাপন করেন এস এম আবজাদ হোসেন, মো. ইলিয়াছুর রহমান, মখলিসুর রহমান কামরান, রকিবুল ইসলাম ঝলক, সিকন্দর আলী, শান্তনু দত্ত সন্তু, সাইফুর আমিন বাকের, দিনার খান হাসু, আজাদুর রহমান আজাদ, মুশতাক আহমদ, তৌফিক বক্স লিপন, জাহানারা খানম মিলন, শামীমা স্বাধীন। কাউন্সিলর কয়েস লোদীর পরিচয় তিনি বিএনপি নেতা। তবে তার শুভাকাঙক্ষীরাও যে একই আদর্শের সৈনিক তা নয়। এর মধ্যে আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলরও রয়েছেন বেশ ক’জন। এমনকি বৈঠকের মূল উদ্যোক্তা লিপন বক্স আওয়ামী লীগের সর্মথনপুষ্ট বলে জানাগেছে।

কয়েস লোদীর প্রতি অনাস্থার সুর উঠেছিল গত ১০ই জুন সিলেট সিটি করপোরেশনের মাসিক সভায়। ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগে এ দিন প্রথমে তাকে মেয়র প্যানেলের সদস্য পদ ত্যাগের প্রস্তাব দেন ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রেজওয়ান আহমদ। এ প্রসঙ্গে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে উঠলে মেয়র প্যানেলে কয়েস লোদীর থাকা নিয়ে অনাস্থা প্রস্তাবই আনা হয়। সভায় উপস্থিত ২৯ জনের মধ্যে ২৬ জনই গোপন ভোটে কয়েস লোদীর বিপক্ষে অবস্থান নেন। এরপর থেকে বিষয়টির আর মীমাংসা হয়নি। নানা অজুহাতে এ ৬ মাসে আর কোন মাসিক সভাও হয়নি।
অবশেষে সকল জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে কয়েস লোদির পক্ষেই যাচ্ছে কাউন্সিলরগনের মতামত। এসব আলামতে স্পষ্ট হযে উঠেছে যে, মেয়রের আসনে বসছেন কয়েস লোদীই!

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now