শীর্ষ শিরোনাম
Home » জাতীয় » জঙ্গিদের জন্য খালেদার মায়াকান্না আসে কেন: প্রধানমন্ত্রী

জঙ্গিদের জন্য খালেদার মায়াকান্না আসে কেন: প্রধানমন্ত্রী

pm_126093_0ডেস্ক রিপোর্ট: পুলিশের অভিযানে সন্দেহভাজন জঙ্গিদের হত্যার সমালোচনা করে বক্তব্য দেয়ায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নিন্দা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বলেছেন, ‘জঙ্গিরা যখন নিহত হয় তখন তাদের জন্য মায়াকান্না কেন আসে সেটা প্রশ্ন।’ খালেদা জিয়াই এই জঙ্গিদের মদতদাতা কি না সে প্রশ্নও তোলেন প্রধানমন্ত্রী।

রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে শোকাবহ আগস্টের আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

গত ২৭ আগস্ট নারায়ণগঞ্জের পাইকপাড়ায় পুলিশের অভিযানে সাম্প্রতিক জঙ্গি তৎপরতায় নাটের গুরু হিসেবে চিহ্নিত তামিম চৌধুরী ও তার দুই সহযোগী নিহত হয়। পুলিশ জানিয়েছে, তাদেরকে আত্মসমর্পণ করার সুযোগ দেয়া হয়েছিল। কিন্তু তারা সে সুযোগ না নিয়ে পুলিশের ওপর হামলা করে জঙ্গিরা। পাল্টা হামলায় নিহত হয় তিন জঙ্গি।

ওই রাতে রাজধানীতে এক আলোচনায় খালেদা জিয়া পুলিশের এই বর্ণনাকে সাজানো নাটক আখ্যা দেন। তিনি বলেন, ‘জঙ্গি ধরে ধরে হত্যা করে প্রকৃত ঘটনাকে আড়াল করার চেষ্টা চলছে।’ খালেদা জিয়া বলেন, ‘জঙ্গিবাদের শিকড় উপড়ে ফেলতে ও তথ্য উদঘাটনের জন্য তাদের জীবিত ধরা প্রয়োজন ছিল, কেন তাদের হত্যা করা হলো?’

বিএনপি চেয়ারপারসনের এই বক্তব্যের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তাদেরকে বাঁচিয়ে রাখলে কী করবেন, পূজা করবেন? আবার বলেন, শেকড় সন্ধানের কথা। সেটা তো আর খুঁজতে হয় না। যারা জঙ্গিদের জন্য মায়াকান্না করে তারাই তো শেকড় হতে পারে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘শেকড়ের সন্ধান আর করতে হবে না, শেকড় তো নিজেই কথা বলছে।’ তিনি বলেন, ‘যারা জঙ্গিদের হয়ে কথা বলে, একদিন এদেরও বিচার করবে জনগণ’।

যুদ্ধাপরাধীদের প্রশ্রয়দাতাদেরও বিচার হবে

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যার পর জিয়াউর রহমান যুদ্ধাপরাধীদের কারাগার থেকে ছেড়ে দিয়েছিলেন। স্বাধীনতাবিরোধী শাহ আজিজ ও আবদুল আলীমকে মন্ত্রী বানিয়েছিলেন। মাওলানা মান্নানকে বানিয়েছিলেন উপদেষ্টা। আর তার স্ত্রী নিজামী, মুজাহিদকে মন্ত্রী বানিয়েছিলেন।

মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় নিজামী-মুজাহিদের ফাঁসির দণ্ড কার্যকরের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তিনি যাদের মন্ত্রী বানিয়েছিলেন, যুদ্ধাপরাধের দায়ে তাদের ফাঁসি কার্যকর হয়েছে। এখন তাদেরকে যারা মন্ত্রী বানিয়েছে তার কী হবে? মানুষের মধ্যে এই সচেতনতা তৈরি করতে হবে যে, তাদেরকে যারা মন্ত্রী বানিয়েছে তাদেরও প্রকাশ্যে বিচার হওয়া দরকার। এ বিষয়ে জনমত গঠন করতে হবে।’

আরও পড়ুনঃ  জঙ্গি হত্যা সাজানো নাটক: খালেদা

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘গোলাম আযমকে দেশে ফিরিয়ে এনেছেন জিয়াউর রহমান আর তার স্ত্রী তাকে দিয়েছেন বাংলাদেশি পাসপোর্ট। যারা যুদ্ধাপরাধীদের পুনর্বাসন করে তারা কীভাবে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি হয়।’

মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্তদের পক্ষে দাঁড়ানো আইনজীবীদেরও কড়া সমালোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘এসব অপরাধীদের পক্ষে আইনজীবীরা দাড়ায় কীভাবে? টাকাই কি সব? আবার তারা আমাদেরকে হুমকি দেয়। এর বিচারও জনগণ করবে।’

জিয়াউর রহমান কীভাবে যুক্তযোদ্ধা হয়?

আলোচনা সভায় বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানেরও কঠোর সমালোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, স্বাধীনতাবিরোধী খুনি, ধর্ষকদের কারাগার থেকে ছেড়ে গিয়ে রাজনীতি করার অধিকার দিয়েছেন জিয়াউর রহমান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তিনি যুক্তিযোদ্ধা ছিলেন, একটি খেতাবও পেয়েছেন। কিন্তু পরে তিনি কী করেছেন? স্বাধীনতাবিরোধীদের পুনর্বাসন করেছেন। জামায়াতে ইসলামী নিষিদ্ধ ছিল। তাদেরকে রাজনীতি করার সুযোগ করে দিয়েছেন। যুদ্ধাপরাধীদের ভোটাধিকার ছিল না, অর্ডিন্যান্স জারি করে তাদেরকে ভোটের অধিকার ফিরিয়ে দিয়েছেন, রাজনীতি করার সুযোগ করে দিয়েছেন। তাহলে তিনি কীভাবে মুক্তিযোদ্ধা হন?’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘৭৫ এর ১৫ আগস্টের পর তিন বছর প্রতি রাত ১১টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত ছিল কারফিউ। কারফিউ দিয়ে দেশ চলছে সেখানে গণতন্ত্র থাকে কীভাবে?’

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now