শীর্ষ শিরোনাম
Home » মসজিদ-মাদরাসার খবর » মসজিদের মুআজ্জীন যখন রিকশা চালক !

মসজিদের মুআজ্জীন যখন রিকশা চালক !

muajjin-sylhetreport318-16মুহাম্মদ মাহবুবুল হক,সিলেট রিপোর্ট: টুপি-পাঞ্জাবি পড়া রিকশা চলক।লম্বা টুপি আর কওমি ঘরনার আলেমদের সিস্টেমে তৈরি পাঞ্জাবি।মুখে দাড়ি।বয়সে যুবক।এ টাইপের পোশাক পড়া রিকশা চালকের দেখা সচরাচর মেলে না।সিলেট নগরীর দরগাহ গেইট থেকে বন্দরবাজার যাবো;রিকশা খুজছি,পেলাম টুপি-পাঞ্জাবি পরিহিত এই রিকশা ড্রাইবারকে। এই লেবাসে রিকশা চালাচ্ছে দেখে মনে মনে খারাপ লাগলো।টুপি-পাঞ্জাবি সম্মানী পোশাক।শুধু এ কারণেই এই ইউনিফর্মে উক্ত পেশার লোককে দেখতে অপ্রস্তুত ছিলাম।সমাজের মর্যাদাবান শ্রেণীর পোশাক টুপি-পাঞ্জাবি।তাই রিকশা চালকের গায়ে এ পোশাক বিরক্তিকর মনে হয়েছে।এর একটা কারণ ও আছে।সমাজের লোকেরা রিকশা চালককে ভালো চোখে দেখা না।নিম্নশ্রণীর পেশা বিবেচনা করে। রিকশা চালকের সাথে ভাল ব্যবহার করে না।রিকশা চালকের গায়ে হাত তুলতে ও দেখা যায় অনেককে।সামাজিক এ দৃষ্টিভঙ্গির কারণেই আমার বিরক্তের উদ্রেক।রিকশা চলিয়ে উপার্জন হালাল একটি পেশা।রিকশা চালকের ঘাম ঝরানো টাকা নির্ভেজাল হালাল।হালাল এ পেশাকে খাটো করে দেখা উচিত নয়। আমাদের সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি পাল্টাতে হবে।রিকশা চালককে মানুষ ভাবতে হবে।তাঁর সাথে সুন্দর ও ভালো আচরণ করা উচিত।টুপি-পাঞ্জাবিওয়ালা চালক রিকশায় প্যাডেল ঘুরাচ্ছে।শরীর থেকে ঘাম ঝরছে।জিজ্ঞেস করলাম ভাই!কি নাম তোমার?বললো ইমদাদ।কি করেন?কোথায় থাকেন?এসব আলাপচারিতায় জানতে পারলাম,ইমদাদ এক সময় কওমী মাদ্রাসার ছাত্র ছিলো।সুনামগঞ্জের দরগাহ পুর মাদ্রাসায় পড়তো।প্রাথমিক স্তর পেরিয়ে মাধ্যমিকে উঠার পর দরিদ্রতার কাছে লেখাপড়া হেরে গেলো।স্বপ্ন পূরণ হলো না আলেম হওয়ার।তাঁর গ্রামের বাড়ি দক্ষিন সুনামগঞ্জের মুরাদপুর।মুরাদপুর মসজিদে সে মুআজ্জিন পদে চাকরি করতো।গেল দুবছর আগে সে বিয়ে করে।মুআজ্জিনী করে যে সম্মানী পায়, তা দ্বারা সংসার চলে না।তাছাড়া ঘাড়ের উপর ঋণের বোঝা।বাধ্য হয়ে সে রিকশা নিয়ে রাস্তায় নামে।কথার ফাঁকে ইমদাদকে বললাম,মুআজ্জিনীর মতো মহৎ পেশা ছেড়ে রিকশা চালাতে তোমার সংকোচবোধ হয় না?বলল,মসজিদের খেদমত করছি,করার ইচ্ছে ও ছিলো,কিন্তু মুআজ্জিনী করে যে টাকা পাই তা দিয়ে কোনভাবেই দুবেলা খাওয়ার মতো ব্যবস্থা হয় না।দেয়ালে পিঠ লাগার কারণেই আমি এখন রিকশা চালাই।না হয় সারা জীবন মসজিদের খেদমত করতাম।আজকাল মুআজ্জিনী পেশাকে ও অবহেলার চোখে দেখা হয়।মুআজ্জিনের বেতন ৩ হাজার প্লাস।কম ও অাছে।এতটুকু সামান্য টাকায় সংসার চালানো বিরাট কষ্টের ব্যাপার।যারা প্রতিদিন পাচঁ ওয়াক্ত আল্লাহর মহত্ব প্রচার করে,সমাজ তাঁদের মূল্যায়ন করছেনা।উপরন্তু অবহেলা আর অবমাননার শিকার হচ্ছেন দেশের মুআজ্জিন সমাজ।মুআজ্জিনী পেশার ফজিলত আছে অনেক।কিন্তু ধার্মিক ও নীতিবান মানুষের কাছে নেই কেন?পরকালে মুআজ্জীনদের বিশেষ সম্মাননা দেয়া হবে।আমাদেরকে মুআজ্জিন পেশার সম্মান ও বেতন -ভাতার প্রতি যত্নবান হতে হবে।আজ একজন এমদাদ মুআজ্জিনী ছেড়ে রিকশা চালক হয়েছে।কাল হয়তো শতশত ইমদাদরা বাধ্য হয়ে মুআজ্জিনী পেশা ছেড়ে দিবে।পাচঁবেলা আল্লাহকে মাইকে ডাকার লোক কমে যাবে।মাস তিনেক হয়েছে ইমদাদ রিকশা চালায়। সে দৈনিক ৩০০টাকা প্লাস উপার্জন করে।এভাবেই সে হাড়ভাঙা কষ্টে হালাল উপার্জন করে জীবন যুদ্ধে টিকে আছে।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now