শীর্ষ শিরোনাম
Home » ইতিহাস-ঐতিহ্য » মুহম্মদ নূরুল হকের ২৯তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে কেমুসাসে আলোচনা সভা

মুহম্মদ নূরুল হকের ২৯তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে কেমুসাসে আলোচনা সভা

17299সিলেট রিপোর্ট: ঐতিহ্যবাহী সাহিত্য প্রতিষ্ঠান কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ আয়োজিত ভাষাসৈনিক, গ্রন্থাগারিক আন্দোলনের পথিকৃত মুহম্মদ নূরুল হকের ২৯তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন- “নূরুল হক শুধুমাত্র সিলেটবাসীর নন সমগ্র জাতির গৌরব। সংসদ পাঠাগারে রয়েছে অনেক দুষ্প্রাপ্য পাণ্ডুলিপি ও পুরাতন পত্রপত্রিকা। নূরুল হক এগুলোকে যক্ষের ধনের মতো পাহারা দিয়ে রেখেছিলেন বলেই আজ গবেষকরা বাংলা ভাষা ও বাংলা সাহিত্য নিয়ে গবেষণা করতে সংসদের শরণাপন্ন হচ্ছেন। তাই আমরা তার অবদান কখনো ভুলবো না। আমরা তাঁর উত্তরাধিকারী হিসেবে নিজেকে গৌরবান্বিত মনে করছি।”

বৃহস্পতিবার (০১ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় কেমুসাস সাহিত্য আসর কক্ষে অনুষ্ঠিত  আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সাহিত্য ও সংস্কৃতি  সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সাদেক লিপন। আলোচনায় অংশ নেন- কেমুসাসের সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক মানিক, দায়িত্বপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান আবুল হোসেন মাহমুদ রাজা চৌধুরী, কোষাধ্যক্ষ মো. ছয়ফুল করিম চৌধুরী হায়াত, গল্পকার সেলিম আউয়াল, কবি মামুন সুলতান, সাংবাদিক শফিকুর রহমান, ডা. মো. শাহজাহান আলী।
৯২০তম সাহিত্য আসরে লেখা পাঠে অংশ নেন- আলাল আহম্মদ, সিরাজুল হক, দেলোয়ার হোসেন দিলু, জীম হামযাহ, আমীর হোসাইন, আমিনা শহীদ চৌধুরী মান্না, শাহেদ আহমদ, সৈয়দ মুক্তদা হামিদ, মাহমুদ শিকদার, চৌধুরী রাহাত, সিদ্দিক আহমদ, আবদুস শহীদ মাটি, লুৎফুর রহমান তোফায়েল, নিলুপা ইসলাম নীলু, নুর আলম বেগম, মাসুদা সিদ্দিকা রুহী, রেজাউল হক, জিয়াউল হক। সাহিত্য আসরে প্রথমে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন দেলোয়ার হোসেন দিলশাদ। সাহিত্য আসর উপস্থাপনা করেন মামুন হোসেন বিলাল। সাহিত্য আসরের দ্বিতীয় পর্বে মুহম্মদ নুরুল হক ও বাংলাদেশের প্রখ্যাত কবি শহীদ কাদরীর আত্মার মাগফেরাত কামনা করে এবং অসুস্থ কবি আলোচক সৈয়দ আলী আহমদ সুস্থতা কামনা করে দোয়া পরিচালনা করেন মো. বশির উদ্দিন।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now