শীর্ষ শিরোনাম
Home » মসজিদ-মাদরাসার খবর » নামাজে ব্যাঘাত,সিলেটের শতবর্ষের ধর্মীয় সম্প্রীতি বিনষ্টের ষড়যন্ত্র: ইমাম-খতীবগন

নামাজে ব্যাঘাত,সিলেটের শতবর্ষের ধর্মীয় সম্প্রীতি বিনষ্টের ষড়যন্ত্র: ইমাম-খতীবগন

indexসিলেট রিপোর্ট: নামাজের সময় বাদ্য বাজানো ও কীর্তন গাওয়া নিয়ে সিলেটে ইসকনভক্ত ও মসজিদের মুসল্লিদের মধ্যে ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনায় নগরীতে উত্তেজনা বিরাজ করছে। এঘটনায় সাধারনপিথচারি আহত ও নিরিহ জনগনকে আটক করায় ইসলামপ্রিয় তৌহিদী জনতা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। পুলিশের রহস্য জনক ভূমিকা নিয়ে ও প্রশ্নদেখা দিয়েছে।
জানাগেছে, কাজলশাহ মসজিদে শুক্রবারের জুম্মার নামাজ শুরুর আগে পার্শ্ববর্তী ইস্কন মন্দিরে ঢোল বাজিয়ে পূজা-অর্চনা করছিলেন হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন। এই ঢোলের শব্দে নামাজে ব্যাঘাত ঘটবে বলে মুসল্লিরা মন্দিরে এসে অভিযোগ জানান। কিন্তু মন্দিরের লোকজন বিষয়টি আমলে না নিয়ে তাদের কার্যক্রম অব্যাহত রাখেন।

সিলেট নগরীর কাজলশাহ যুগলটিলায় মুসল্লিদের সাথে ইসকন ভক্তদের সংঘর্ষে অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের সাবেক কাউন্সিলর জেবুন্নাহার শিরিন ও ইসকনের কর্মী রাজেন্দ্র কেশব দাসও রয়েছেন। শুক্রবার জুমার নামাজের পর এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়দের ভাষ্য, জুমার নামাজের সময় ইসকন মন্দিরে পূজা-অর্চ্চনার অনুষ্ঠান চলছিল। এ সময় তারা মাইকে গান-বাজনা বাজাতে থাকলে তা বন্ধ করতে বেশ কয়েকবার তাদের অনুরোধ জানান স্থানীয় মসজিদের মুসল্লিরা। এরপরেও তারা মাইকে গান বাজানো বন্ধ না করলে নামাজের পর ক্ষুব্ধ মুসল্লিরা ইসকনে গিয়ে তাদের বক্তব্য জানতে চান। এসময় ইসকনের লোকজনের সাথে বাকবিতন্ডা শুরু হলে মুসল্লিদের সাথে সংঘর্ষ শুরু হয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। এদিকে, সংঘর্ষের সময় ইট-পাটকেলের আঘাতে মুসল্লী ও পথচারীসহ ২০ জন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে বেশ কয়েকজনকে আটক করেছে।
সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার এস এম রোকন উদ্দিন জানান, শুক্রবার জুমার দিনে কাজলশাহ মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করতে সমবেত হন মুসল্লিরা। এ সময় পার্শ্ববর্তী ইসকন মন্দিরে কীর্তন উপলক্ষে গান-বাজনা চলছিল। মসজিদ থেকে মুসল্লীরা নামাজের সময় গান-বাজনা বন্ধ রাখার অনুরোধ করেছিলেন। কিন্তু, গান বাজনা বন্ধ না করায় জামাতের পর বিক্ষুব্ধ মুসল্লিরা ইসকন মন্দিরে যান এবং সংশ্লিষ্টদের সাথে তর্কাতর্কিতে লিপ্ত হন। এক পর্যায়ে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। উভয় পক্ষ পরস্পরের প্রতি ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে।
খবর পেয়ে এসএমপি’র ডিসি (উত্তর) ফয়সল মাহমুদের নেতৃত্বে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় পুলিশ বেশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে। দু’পক্ষের সংঘর্ষের কারণে রিকাবীবাজার-মেডিকেল রোড পর্যন্ত রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ে।
সিলেট মহানগর পুলিশের ডিসি (দক্ষিণ) ফয়সল মাহমুদ সাংবাদিকদের জানান, সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে কি কারণে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে তা তদন্ত সাপেক্ষে বলা যাবে বলে জানান তিনি। বর্তমানে এলাকায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। মোতায়েন রয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ।
খবর পেয়ে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার কামরুল আহসান ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে সিলেটের কয়েকজন সনাতনধর্মী হিন্দু নেতৃবৃন্দ জানান, সিলেট নগরীর কাজলশাহ এলাকায় ইসকন প্রতিষ্টিত কোন মন্দির নেই। এলাকার যুগলটিলা জিউ আখড়াটি কৌশলে দখলে নিয়ে ইসকন তাদের মতবিরোধী সনাতনীদের তাড়িয়ে দেয়। সেখানে ইসকন তাদের সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করতে থাকে। তবে সনাতনীরা এটাকে ইসকনমন্দির নামকরন করতে আজো দেয়নি। কাজলশাহ এলাকায় ইসকনমন্দির বলতে কোন নাম নেই বলে জানান তারা।
ইমাম-খতীব পরিষদের নিন্দা:
এদিকে নামাজের সময় মসজিদের সন্নিকটে উচ্চআওয়াজে বাদ্যযন্ত্রবাজিয়ে মসজিদের মুসল্লীদের ধর্মীর্য় বিধান পালনে বাধাপ্রদান করায় তথাকথিত ইসকন ভক্তদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহনের আহবান জানিয়েছেন সিলেটের ইমাম ও খতীবগন। শুক্রবার এক বিবৃতিতে ”শাহজালাল ইমাম-খতীব পরিষদ সিলেট”এর নেতৃবৃন্দ বলেন, নামাজে ব্যাঘাত-সিলেটের শতবর্ষের ধর্মীয় সম্প্রীতি বিনষ্টের ষড়যন্ত্র । দেশের শান্তপরিবেশকে অশান্ত করে তোলতে একটি মহল বিভিন্ন ভাবে উস্কানী মুলক কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। সংখ্যাগরিষ্ট মুসলমানের এই দেশে নামাজের সময় কেনো এই উচ্চা আওয়াজে বাদ্যযন্ত্রবাজিয়ে মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানাহলো। সিলেটের শতবর্ষের ধর্মীয় সম্প্রতিকে বিনষ্টের জন্যই এই কান্ডঘটানো হয়েছে বলে দাবী করা হয়। ইমামগন সঠিক তদন্তকরে দোষিদের দৃষ্টান্ত মুলক শান্তির দাবী জানান। একই সাথে আটককৃত নিরিহ পথচারি ও মুসল্লীদেরিনি:শর্তে মুক্তির দাবী জানান। বিবৃতি দাতারা হলেন,

সিলেট ফরেষ্ট্রি সাইন্স এন্ড টেকনোলোজি ক্যাম্পাস জামে মসজিদের খতিব প্রিন্সিপ্যাল মাওলানা মাহমুদুল হাসান,খাসদবীর মদনী জামে মসজিদের ইমাম ও খতীব মাওলানা মুফতি নাসির উদ্দীন,মংলিপার জামে মসজিদের ইমাম ও খতীব মাওলানা শিব্বির আলম খান,ছালেপুর জামে মমসজিদের ইমাম ও খতীব মাওলানা শিহাব উদ্দীন,শাহজালাল জামে মসজিদ এয়ারপোর্ট গেইট এর ইমাম ও খতীব হাফিজ মাওলানা সৈয়দ আব্দুল আউয়াল,দারুসসালাম জামে মসজিদের ইমাম ও খতীব মাওলানা হাফিজ মন্জুর আহমদ,আম্বর খানা বড় বাজার জামে মসজিদের ইমাম ও খতীব মাওলানা নূরুল হক,মাওলানা আবুবকর,মাওলানা মাহমুদুল হাসান,হাফিজ মাওলানা আব্দুল্লাহ,মুফতি আবুল হাসান প্রমুখ।14184558_302401056807204_6229245090029874440_n

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now