শীর্ষ শিরোনাম
Home » সংগঠন » নামাজের সময় উচ্চআওয়াজে বাদ্যবাজানো উস্কানী মুলক : ছাত্র জমিয়ত ও মাদানী কাফেলা

নামাজের সময় উচ্চআওয়াজে বাদ্যবাজানো উস্কানী মুলক : ছাত্র জমিয়ত ও মাদানী কাফেলা

indexসিলেট রিপোর্ট: শুক্রবার সিলেটের কাজলশাহ মসজিদের পাশে বাদ্য বাজানো ও কীর্তন গাওয়া নিয়ে ইসকনভক্ত ও মসজিদের মুসল্লিদের মধ্যে ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনায় সাধারণ পথচারী আহত ও নিরীহ মুসল্লীদেরকে আটক করায় ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশ সিলেট জেলা শাখা’র সভাপতি মাওঃ সাইফুর রাহমান ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হামীদ খান এক বিবৃতিতে তীব্র নিন্দা প্রকাশ করেন। এতে তাঁরা গভীর ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন- আধ্যাত্মিক রাজধানী খ্যাত সিলেটের শান্ত পরিবেশকে অশান্ত করে তোলতে একটি মহল বিভিন্নভাবে উস্কানীমুলক কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। সংখ্যাগরিষ্ট মুসলমানের এই দেশে নামাজের সময় মসজিদের পাশে উচ্চ আওয়াজে বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানা হয়েছে বলে তাঁরা দাবী করেন। তাঁরা আরো বলেন- পুলিশের রহস্য জনক ও প্রশ্নবিদ্ধ ভূমিকা নিয়ে আমরা হতাশ হয়েছি। যেখানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পরিস্তিতি শান্ত করার কথা সেখানে তারা ইসলাম বিদ্বেষী উগ্রপন্থী ইসকনদের সহযোগীতা করে সাধারণ মুসল্লীদের উপর অতর্কিত হামলা ও তাদের আটক করা কোন অবস্থায় মেনে নেয়া যায় না। তাই পরিস্তিতি ঘোলাটে হওয়ার পূর্বে অবিলম্বে ঘটনার আগাগোড়া তদন্ত করে দোষীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি ও আটককৃত নিরীহহ পথচারী ও মুসল্লীদের নি:শর্ত মুক্তির দাবী জানান। অন্যথায় ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশ সিলেটের ধর্মপ্রাণ মুসলিম তাওহীদি জনতাদের নিয়ে রাজপথে কঠোর আন্দোলনে যেতে বাধ্য হবেন বলে বিবৃতিতে হুশিয়ারী জানানো হয়।
এদিকে,

মাদানী কাফেলা বাংলাদেশ এর নেতৃবৃন্দ এক বিবৃতিতে বলেছেন, সংখ্যাগরিষ্ট মুসলমানের এই দেশে নামাজের সময়্উচ্চআওয়াজে তথাকথিত ইসকন ভক্তরা মুসলমানদের ইবাদাতে বিঘ্নসৃষ্টি করে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হেনেছেন। শুক্রবার সিলেট নগরীর মধূশহিদ এলাকায় সংঘটিত ঘটনাকে উস্কানী মুলক ও দু:খ জনক উল্লেখ করে নেতৃবৃন্দ বলেন, বাংলরে আধ্যাত্মিক রাজধানীতে এমন ঘটনা এই প্রথম। মুসলমানদের সামান্য সময়ের ইবাদাত (নামাজ) এই সময়ে হিন্দুরা চাইলে বাদ্যযন্ত্র বাজানো থেকে বিরত থাকতে পারতো। কিন্তু তা নাকরে তারা এই অপ্রীতিকর ঘটনার জন্মদিলেন। বিষয়টি সুষ্ট তদন্ত করা উচিত। আমরা অত্যন্ত গভীর উদ্বেগের সাথে লক্ষ করছি যে, দেশে ধমীর্য় ধাঙ্গা-হানাহানি সৃস্টির জন্য এটা বিশেষ মহলের পরিকল্পিত কোন ষড়যন্ত্র কিনা তা তদন্ত করতে হবে। এবং ষড়যন্ত্রকারীদের চিহ্তিক করে দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। একই সাখে সকল দেশের প্রতিতিটি মসজিদের পার্শবর্তী এলাকায় অন্তত নামাজের সময় যাতে গানবাজনা বন্ধ রাখাহয় সে ব্যাপারে নির্দেশ জারি করাউচিত। অন্যতায় গোলযোগ সৃষ্টির আশংকা থাকতে পারে।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now