শীর্ষ শিরোনাম
Home » প্রবাস » নিউইর্য়কের বিএম এম সি সি ইসলামিক স্কুলের গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন

নিউইর্য়কের বিএম এম সি সি ইসলামিক স্কুলের গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন

14237489_548797108657558_6232635107466660476_nনিজস্বপ্রতিনিধি,নিউইর্ক থেকে: নিউইর্য়কের ব্রুকলীনের বায়তুল মা’মুর মসজিদ এন্ড কমাউনিটি সেন্টারের অন্যতম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান “ইসলামিক স্কুলের সামার প্রোগ্রাম”এর সমাপনী অনুষ্ঠান ও পুরস্কার বিতরণী গত বৃহস্পতিবার সম্পন্ন হয়েছে।সকাল সাড়ে এগারোটায় সেন্টারের মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত উক্ত সভায় সভাপতিত্ব করেন বি এম এম সি সি ইসলামিক স্কুলের প্রিন্সিপাল রশীদ আহমদ।ইসলামিক স্কুলের ছাত্র রাহাত বিন আমীনের কুরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়। সিনিয়র শিক্ষক মাওলানা বেলাল হোসাইন এর উপস্থাপনায় প্রধান অতিথি হিসেবে গুরুত্ব পূর্ণ বক্তব্য রাখেন বি এম এম সি সির প্রেসিডেন্ট শিক্ষাবিদ জনাব আহমদ আবু উবায়দা। বিশেষ মেহমান হিসেবে বক্তব্য রাখেন বি এম এম সি সির সেক্রেটারী জেনারেল জনাব মোশাররাফুল মাওলা সুজন। অভিভাবকদের মধ্য থেকে বক্তব্য রাখেন জনাব মুহাম্মদ রুহুল আমীন ও জোবায়ের আহমদ । অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ইসলামিক স্কুলের শিক্ষক প্রফেসর আবুল বাশার মুহাম্মাদ সামছুদ্দীন,হাফেজ মাওলানা তানভীর আহমদ, কমিউনিটি অ্যাক্টিভিস্ট জনাব আবদুস সাত্তার প্রমূখ।উপস্থিত ছিলেন স্কুলের শিক্ষক মাওলানা আবদুল মন্নান, হাফেজ রাসেল আহমদ,মহিলা শিক্ষকা হাফেজা কারীমা,আলেয়া বেগম সুমি,শারিকা আনতুরা ও সুফিয়া খানম সুমি।এছাড়াও হিফজ বিভাগের প্রধান হাফেজ মাওলানা বুরহান উদ্দীন,হাফেজ মিজানুর রহমান প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।অনুষ্ঠানে ক্লাস ভিত্তিক বিভিন্ন বিষয়ের উপর প্রতিযোগীতাও অনুষ্ঠিত হয়।
অনুষ্ঠানে সফলতার সাথে সামার প্রোগ্রাম শেষ করায় ক্লাস ভিত্তিক প্রথম,দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অধিকারী ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে সনদও পুরস্কার বিতরণ করা হয়। আলোচনা শেষে অতিথিরা শিক্ষার্থীদের হাতে পুরস্কার ও সনদ তুলে দেন। এবারের ১১৯ জন ছাত্র ছাত্রী সামার স্কুলে অংশ গ্রহণ করেছেন। পাঠ দান করেছেন ১১ জন শিক্ষক। প্রধান অতিথি আহমদ আবু ওবায়দা বলেন, প্রবাসে ইসলামকে বুঝা বা শেখার জন্য আমাদের সন্তানদের জন্য ইসলামিক স্কুলের বিকল্প নেই। একইসঙ্গে পারিবারিকভাবেও কোরান ও হাদিসের বিষয়গুলো গুরুত্ব দিতে হবে। সামার স্কুল থেকে শিক্ষা নেয়ার পর ইসলামের মৌলিক বিষয় চর্চা করতে হবে। শিক্ষার্থীদের খাওয়ারের ব্যপারে হালাল হারাম শিখানো হয়েছে। মা-বাবাদেরও হারাম হালালের বুঝাতে হবে, সে অনুযায়ী খাবার দিতে হবে।তিনি আরো বলেন,নতুন প্রজন্মকে আরো বেশী বেশী কুরআন-সুন্নাহর জ্ঞান অর্জনে মনোনিবেশ করতে হবে।কেননা ঐ কুরআনিক জ্ঞানই পারে মানুষকে সঠিক ও সত্য পথের পথ দেখাতে।
প্রিন্সিপাল রশীদ আহমদ বলেন, প্রতি বছর সামারে ভুর্তুকী দিয়ে সামার ইসলামিক স্কুল পরিচালনা করতে হয়। আমাদের একটাই উদ্দেশ্য, যেন আগামী প্রজন্ম আমেরিকায় বসেও ইসলামের আলোকে জীবন গঠন করতে পারে। তিনি অভিবাকদের উদ্দেশ্য বলেন, নির্দিষ্ট সময়ে স্কুলে নিয়ে আসা এবং ক্লাস শেষে সঠিক সময়ে বাসায় নিয়ে যাওয়া প্রয়োজন, তাতে স্কুলের শৃংখলা রক্ষা হয়।
তিনি জানান, আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর শনিবার থেকে অপর প্রোগ্রাম উইকেন্ড স্কুল শুরু হবে। ইসলাম শিক্ষার জন্য উইকেন্ড স্কুলে শিক্ষার্থীদের ভর্তি করার আহবান জানান তিনি।
অভিভাবকরা তাদের বক্তৃতায় বলেন, আমাদের সন্তানদের শিশু বয়স থেকে ইসলাম শিক্ষা জরুরী। বাসার পাশে ইসলামিক স্কুল হওয়ায় আমাদের জন্য অনেক সহজ। সামার স্কুল নিয়ে তারা আরো বেশী প্রচারের গুরুত্তারোপ করেন, যাতে সামারে মুসলিম কমিউনিটির সকল শিক্ষার্থী স্কুলে আসতে পারে। উল্লেখ্য যে উক্ত অনুষ্ঠানে শতাধিক অভিভাবকরা উপস্থিত ছিলেন।14199218_548797335324202_4313426104245278369_n

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now