শীর্ষ শিরোনাম
Home » শীর্ষ সংবাদ » ঐতিহ্যের স্মারক জামেয়া ক্বাসিমুল উলুম দরগাহে হযরত শাহজালাল (র)

ঐতিহ্যের স্মারক জামেয়া ক্বাসিমুল উলুম দরগাহে হযরত শাহজালাল (র)

  মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী :  ’জামেয়া ক্বাসিমুল উলূম দরগাহে হযরত শাহ জালাল রহ. সিলেট’ উপমহাদেশের অন্যতম একটি ঐতিহ্যের স্মারক। ২৫,২৬ ও ২৭ ডিসেম্বর ২০১৪ ঈসায়ী জামেয়ার ‌৪০ সালা দস্তারবন্দি মহাসম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। বিগত চারদশকে যেসব শিক্ষার্থী মাওলানা ডিগ্রী অর্জন করেছেন তাদের সম্মাননা পাগড়ী প্রদান করা হবে। দেশ-বিদেশের গুণীজন আসবেন। অনেক গুণীজনরা আসছেন দীর্ প্রতিক্ষিত এই সম্মেলনে। এই দস্তারবন্দী ইতিহাসের এক মহাসম্মিলনে পরিনত হবে বলে আমাদের বিশ্বাস। অতীতের স্মৃতি রোমন্তন করবেন অনেকেই । হারিয়ে যাওয়া অতীতের ক্যাম্পাসে জড়ো হবেন হাজারো শিক্ষার্থী, জামেয়া কাকন গুঞ্জরণ ধ্বণিতে শিহরিত হবে আধ্যাত্মিক নগরী। কিন্তু আলোচিত-আলোকিত সেই দস্তারে ফযিলতের অনুষ্ঠানে অনুপস্থিত এই কাননের মালি সকলের প্রিয় ইমামসাহেব হুজুর,  তিনি আজ  ইহজগতে নেই।  মরহুম ইমাম সাহেব হুজুর ১৯১৬ সাল মতান্তরে ১৯২০ সালে সিলেট জেলার বিয়ানী বাজার উপজেলাধীন মাটিজুরা এলাকার মাইজ পাড়া নামক গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। তার পিতা মরহুম আব্বাস আলী (রহ.) এবং মাতার নাম জহুরা বিবি। তিনি ১৯৩৮ সালে উচ্চ শিক্ষার উদ্দেশ্যে দেওবন্দ গমন করেন। মহান এই দীক্ষাগুরু ২০০৫ সালের ৮ নভেম্বর  মংগলবার রাত ১১.৫৫ মিনিটে ইন্তেকাল করেন।
১৯৬১ সালের ৭ নভেম্বর মাদ্রাসায়ে ‘তালিমুল কোরআন দরগাহে হযরত শাহজালাল (র.) সিলেট’ প্রতিষ্ঠা করেন। আজকের ‘জামেয়া কাসিমুল উলুম দরগাহে হযরত শাহজালাল (র.) মাদ্রাসায় ১৯৭৫ সালে তাঁর মুর্শিদ ক্বারী তৈয়্যিব (র.) সিলেট আগমন করলে হযরতের মাধ্যমে দাওরায়ে হাদীসের সবক উদ্বোধন করা হয়। যা আযাদ দ্বীনি এদারায়ে তালীম মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ডের অর্ন্তভুক্ত। এই স্মারকের ভিত্তিস্থাপন করেছিলেন আরিফ বিল্লাহ হযরত মাওলানা ক্বারী আকবর আলী (র) । ছোট্র সেই ’তালিমুল কোরআন’ বটবৃক্ষে পরিনত হলো আজকের ’জামেয়া ক্বাসিমুল উলূম দরগাহে হযরত শাহ জালাল রহ. সিলেট’।
যাদের পদধূলিতে ধন্য জামেয়াঃ
ঐতিহ্যবাহী দ্বীনী দরসগাহ জামেয়া ক্বাসিমুল উলূম দরগাহ হযরত শাহ জালাল রহ. সিলেট-এ বিশ্বের অনেক বরণ্য মনীষী আগমন করেছেন। যেসব গুণী ও ভুবনখ্যাত বরেণ্য জনের আগমন ঘটেছে এ জামেয়ার  আঙ্গিনায় তাদেরই অন্যতম হলেন:
১. শায়খ আব্দুল্লাহ্ বিন সুবাইল রহ. (ইমামুল হারামাইন) ২. শায়খ ইউসুফ হাশেমী রেফায়ী (কুয়েত)৩. মুফতীয়ে আজম শফী রহ.(পাকিস্তান)৪. আল্লাম া ইউসূফ বিন্নূরী রহ. (পাকিস্তান) ৫. হাকীমুল ইসলাম ক্বারী তায়্যিব রহ. (ভারত) ৬. সায়্যিদ আবুল হাসান আলী নদবী রহ. (ভারত) ৭. শামছুল হক আফগানী রহ. (পাকিস্তান)৮. আল্লাম আব্দুল্লাহ দরখাস্তী রহ. (পাকিস্তান)৯. মুহিউস্সুন্নাহ্ আব্রারুল হকহরদুয়ী রহ. (ভারত)১০. ফিদায়ে মিল্লাত সায়্যিদ আসআদ মাদানী রহ. (ভারত)১১. মাওলানা আব্দুল জলীল বদরপুরী রহ. (ভারত)
১২. মাওলানা হাকীম আখতার রহ. (পাকিস্তান)১৩. মাওলানা আনযার শাহ মাসঊদী কাশ্মীরী রহ. (ভারত)১৪. মাওলানা ওহীদুজ্জামান কীরানভী রহ. (ভারত)১৫. মুফতি শামিযি রহ. (ভারত)১৬. মাওলানা মুহাম্মাদ তাহির রহ. (ভারত)১৭. মাওলানা সালীম ক্বাসেমী হাফিযাহুল্লাহ্ (ভারত)১৮. মুফতি সাঈদ আহমাদ পালনপুরী হাফিযাহুল্লাহ্ (ভারত)১৯. মাওলানা সালীমুল্লাহ্ খান হাফিযাহুল্লাহ্ (পাকিস্তান) ২০. মুফতি মুহাম্মদ রফী উসমানী হাফিযাহুল্লাহ্ (পাকিস্তান)২১. মাওলানা সায়্যিদ আরশাদ মাদানী হাফিযাহুল্লাহ্ (ভারত)২২. শাইখুল ইসলাম আল্লামা তাকী উসমানী হাফিযাহুল্লাহ্ (পাকিস্তান)    ২৩. মাওলানা মুফতি হাবীবুর রহমান আজমী হাফিযাহুল্লাহ্ (ভারত)    ২৪. মাওলানা আব্দুল মাজীদ নাদীম হাফিযাহুল্লাহ্ (পাকিস্তান)    ২৫. মাওলানা আব্দুল্লাহ মারূফী হাফিযাহুল্লাহ্ (ভারত)২৬. মাওলানা তানবীরুল হক থানবী (পাকিস্তান)২৭. মাওলানা ফজলুর রহীম (পাকিস্তান)২৮. মাওলানা তারিক জামীল হাফিযাহুল্লাহ্ (পাকিস্তান)২৯. মাওলানা বেলাল বাওয়া [হাফিযাহুল্লাহ] (ইংল্যান্ড)৩০. দাঈয়ে ইসলাম মাওলানা কালীম সিদ্দিকী [হাফিযাহুল্লাহ] (ভারত)

দেশের শীর্ষস্থানীয় উলামায়ে কেরামঃ
১. মুজাহিদে মিল্লাত মাওলানা আতহার আলী রহ.    ২. মাওলানা মুহাম্মাদ উল্লাহ হাফেজ্জী হুজুর রহ.    ৩. খতীবে আজম মাওলানা সিদ্দীক্বআহমাদ রহ.    ৪. পীর মুহসিন উদ্দীন দুদুমিয়া রহ.৫. মাওলানা হাবীবুল্লাহ মিসবাহ রহ.৬. মাওলানা নিছার আলী রহ.
৭. মুফাসসিরে কোরআন মাওলানা আমীনুল ইসলাম রহ.৮. শাইখুল হাদীস মাওলানা আজিজুল হক রহ.৯. মাওলানা শাহ আহমাদ শফী [হাফিযাহুল্লাহ] ১০. মাওলানা মাহমুদুল হাসান [হাফিযাহুল্লাহ]১১. মাওলানা আব্দুল হাই পাহাড়পুরী [হাফিযাহুল্লাহ১২. মুফতি আব্দুর রহমান [হাফিযাহুল্লাহ]১৩. প্রফেসর হামিদুর রহমান [হাফিযাহুল্লাহ]১৪. অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান [হাফিযাহুল্লাহ] ১৫. মাওলানা আবদুল মতীন বিন হুসাইন পীর সাহেব ঢালকানগর [হাফিযাহুল্লাহ]১৬. মাওলানা মুহিউদ্দীন খান [হাফিযাহুল্লাহ] ১৭.মাওলানাআনোয়ার শাহ কিশোরগঞ্জী [হাফিযাহুল্লাহ]১৮. মাওলানা নুরুল ইসলাম ওলীপুরী [হাফিযাহুল্লাহ]১৯. মাওলানা আবু তাহেরমিসবাহ [হাফিযাহুল্লাহ]২০. মাওলানা আব্দুল মালিক [হাফিযাহুল্লাহ] ২১. মুফতি ওয়াক্কাস (সাবেক ধর্মপ্রতিমন্ত্রী)।

এই প্রতিষ্ঠানের প্রতিটি ধূলিকনার সাথে একাকাা হয়ে আছেন দরগাহ জামে মসজিদের মরহুম ইমাম আকবর আলী (র) এর নাম। এটি বিশ্ববিখ্যাত ইসলামী বিদ্যাপীঠ দারুল উলুম দেওবন্দের আর্দশ অনুকরণে পরিচালিত। মৌলিক ধারাঅক্ষুন্ন রেখে যুগচাহিদার আলোকে জামেয়া সুচারুরুপে একটি নেযামের উপর , সুশংখল ভাবে যাতে পরিচালিত হয় এজন্য একটি রুপরেখা তৈরীকরা অত্যন্ত জরুরী।
জামেয়া কর্তৃপক্ষের বিশেষ অনুরোধে সেই গুরুদায়িত্বটি পালনে এগিয়ে এলেন দারুল উলুম দেওবন্দেরই আরেক কৃতিসন্তান এবং সিলেট সরকারী আলিয়ার তৎকালীন শিক্ষক, জাতীয়  মসজিদ বায়তুল মোকাররমের মরহুম খতীব মাওলানা উবায়দুল হক জালালাবাদী (র)। তিনি  ১৯৬৮ সালের ২১ ও ২২ সেপ্টেম্বর দুই দিন ব্যাপী গবেষণার মাধ্যমে একটি বিশেষ সুপারিশ মালা (পরামর্শ স্মারক) প্রণয়ন করেছিলেন, এখনো পযর্ন্ত সেই সুপারিশ মালার আলোকেই জামেয়া ক্বাসিমুল উলুম পরিচালিত হচ্ছে। সূচনা লগ্ন থেকেই মরহুম খতীব (র) অত্র জামেয়ার একজন দরদী পৃষ্টপোষক। তিনি শুরার সদস্য থেকে জামেয়ার শায়খুল হাদীসের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮৭ সালে জামেয়া ক্বাসিমুল উলূম দরগাহে হযরত শাহ জালাল রহ. সিলেটে শাইখুল হাদীসের দায়িত্বে অধিষ্ঠিত হন। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত ( ৬ই অক্টোবর ২০০৭) তিনি জামেয়া দরগার সাথে দরসী সম্পর্ক বহাল রাখেন। উপরোল্লিখিত দুই জন ব্যক্তি নিজ নিজ অবস্থান থেকে শতাদ্ধির মহিরুহ ছিলেন। উভয়ই ছিলেন দারুল উলুম দেওবন্দ পড়–য়া এবং বাংলার আধ্যাত্মিক রাজধানী সিলেটের কৃতিসন্তান। দেশ-জাতির কল্যাণ কামী মহান ব্যক্তিত্ব।  হাফিজ মাওলানা ক্বারী আকবর আলী (র) অত্যন্ত সহজ সরল প্রকৃতির বুযুর্গ ছিলেন। তিনি দেওবন্দের মুহতামিম মাওলানা ক্বারী তায়্যিব (র)এর খলিফা ছিলেন। অপর দিকে আধ্যাশিমতমক ময়দানে মরহুম খতীব মাওলানা উবায়দুল হক (র) ও ছিলেন একই সিলসিলার অনুসারী। এই সুবাদে তাদেঁর মধ্যে আরেকটু গভীর সুসর্ম্পক ছিলো।
একজন দরদী খতীব: জাতীয়  মসজিদ বায়তুল মোকাররমের মরহুম খতীব মাওলানা উবায়দুল হক জালালাবাদী (র)  সিলেট জেলার জকিগঞ্জ উপজেলার বারঠাকুরী গ্রামে ৯ জিলকদ ১৩৪৬ হিজরী , ২রা মে ১৯২৮ ঈসায়ী, ১৪ই বৈশাখ ১৩৩৫ বাংলা জুমআবারের কোনো এক শুভ মুহূর্তে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা মাওলানা জহুরুল হক (উরফিজ আলী), দাদা মুনশী উমীদ রেযা, পরদাদা আদেল রেযা। পিতা হযরত মাওলানা জহুরুল হক রহ. হিজরী ১৩৩৫ সনে দারুল উলূম দেওবন্দ থেকে দাওরায়ে হাদীস পাশ করেন।
মরহুম খতীব  (র) একজন স্পষ্টবাদী, সাচ্ছা দিল মুমিন বান্দা ছিলেন। জাতির ক্রান্তিকালে দেখিয়েছেন পথের দিশা। নানা সামাজিক, ধর্মীয় ইস্যুতেও তিনি ছিলেন সোচ্চার। স্বাধীনচেতা মিল্লাতের এই দরদী অভিভাবক শাসক গোষ্ঠীর হয়রানিরও শিকার হয়েছিলেন। শুধু জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের মিম্বর থেকেই নয়, ঐতিহাসিক পল্টন ময়দান-মানিক মিয়া এভিনিউ থেকেও তিনি জাতীয় ঐক্যের ডাক দিয়েছেন। মরহুম খতীব (র) ছিলেন বিনয়ী ও উদার চিত্তের অধিকারী, যাকে বলে সাদামনের মানুষ। সত্যিই তাঁর তুলনা তিনি নিজেই।  সত্য কথা স্পষ্ট ভাবে উচ্চারণ করতে কখনো ভীতু ছিলেন না। ইসলাম বিরোধী চক্রান্তের মুখোশ উন্মোচন করে মুসলিম জনসাধারণের মধ্যে ইসলামী দর্শন বাস্তবায়নে সর্বদা সচেষ্ট ছিলেন মরহুম খতীব মাওলানা উবায়দুল হক। বক্তব্য-বিবৃতি, লিখনীর মাধ্যমে তিনি সমকালীন সকল প্রকার অপশক্তির দাঁতভাঙ্গা জবাব দিয়েছেন। পাপাত্মা জালিমের সম্মুখে হক কথা বলিষ্ঠ কন্ঠে উচ্চারণ করাই যেন ছিল তার স্বভাব। তাঁর মধ্যে কোন কুটিলতা ছিল না। সৎ সাহসী জিন্দাদীল মর্দে মুজাহিদের ভূমিকা পালন করে গেছেন। ১৯৮৪ সাল থেকে মৃত্যু (৭ অক্টোবর ২০০৭) পর্যন্ত বাংলাদেশের জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুকাররমের সম্মানিত খতীব হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। এ দায়িত্বের ফলেই তিনি সর্বমহলে ‘খতীবে মিল্লাত’, ‘জাতীয় খতীব’ বা ‘খতীব সাহেব’ নামে ব্যাপকভাবে পরিচিতি লাভ করেন। স্বীয় উস্তাদ শায়খুল ইসলাম হযরত মাদানীর অনুমতি নিয়ে ঢাকা মাদ্রা ই আলিয়ায় সহকারী শিক্ষক (১৯৫৪- ১৯৬৪), লেকচারার হাদীস (১৯৬৪-১৯৭৪), এসিস্ট্যান্ট প্রফেসর তাফসীর (১৯৭১-১৯৭৩ ), এডিশনাল হেড মাওলানা ( ১৯৭৩-১৯৭৯ ) এবং হেড মাওলানা (১৯৮০-১৯৮৫) পদে অধিষ্ঠিত থেকে ২রা মে ১৯৮৫ সনে সরকারী চাকুরী থেকে অবসর গ্রহণ করেন। তিনি কয়েক বছর ফরিদাবাদ এমদাদুল উলূম মাদরাসা এবং ১৯৮৬-১৯৮৭ সনে পটিয়া মাদরাসায় শাইখুল হাদীসের দায়িত্বে ছিলেন। ১৯৯৭/৯৮ সালে খতিব পদ থেকে তাকে সরানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল। কিন্তু সাড়া দেশের আলেম-উলামাদের তীব্র প্রতিবাদের মুখে সরকার ঐ সিদ্ধান্ত পরিবর্তনে বাধ্য হয়। বয়সের অজুহাত দেখিয়ে তাঁকে অব্যাহতি দেয়ার জন্য ২০০১ সালে ২২ এপ্রিল তাকে ৭৩ বছর বয়স হওয়ার কারণে খতীব পদ থেকে অব্যাহতি দেয়ার চিঠি দেয়া হয়। পরে হাইকোর্ট এ সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করেন। বিচারপতি এম,এ, আজিজ ও বিচারপতি শামসুল হুদার সমন্বয়ে গঠিত ডিভিশন ব্যাঞ্চ এ রায় দেন। ২০০৫ সালের ২রা এপ্রিল রাজধানীর ঐতিহাসিক পল্টন ময়দানে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ভারত, ইংল্যান্ড এর শীর্ষস্থানীয় ইসলামী নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এই সম্মেলনে মরহুম খতীব (রহ:) বাংলাদেশের সকল আলেম উলামা ও ইসলামী দলগুলোর নেতৃবৃন্দকে জমিয়তের পতাকাতলে সমবেত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে ছিলেন। এর আগে ১৫ই ডিসেম্বর ১৯৯৮ মঙ্গলবার বৃহত্তর ইসলামী ঐক্যের বাণী নিয়ে দেশের শীর্ষস্থানীয় ৬৩জন ওলামা মাশায়েখের আহ্বানে রাজধানীর মিরপুরস্থ দারুস সালাম ইসলামী কমপ্লেক্সে এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিটি মৌলিক ইসলামী ইস্যুতে বৃহত্তর ঐক্য স্থাপনের মহান লক্ষ্যে তাকে প্রধান করে ১৩ সদস্যের একটি আহ্বায়ক কমিটি এবং মুফতি সাইদ আহমদের নেতৃত্বে ৯ সদস্যের একটি লিয়াজো কমিটি গঠিত হয়। ইরাকে মার্কিন হামলার প্রতিবাদে ঐতিহাসিক পল্টন ময়দানে অনুষ্ঠিত হয় অভূতপূর্ব এক যুদ্ধ বিরোধী সমাবেশ। ‘আগ্রাসন প্রতিরোধ জাতীয় কমিটি’ কর্তৃক ২০০৩ সালের ৬ মার্চ, ২২ ফাল্গুন ১৪০৯ বাংলা, বাংলাদেশের ইতিহাসে স্মরণকালের সর্ববৃহৎ ঐতিহাসিক যুদ্ধ বিরোধী শান্তিসমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। লাখো মানুষের অভূতপূর্ব এই জনসমূদ্রে আগ্রাসন বিরোধী জাতীয় কমিটি’র প্রধান পৃষ্ঠপোষক জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুকাররমের খতীব মাওলানা উবায়দুল হক্বের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- আগ্রাসন বিরোধী জাতীয় কমিটি’র কো-কনভেনর সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার বিচারপতি আব্দুর রউফ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর ড. এমাজ উদ্দীন আহমদ, শায়খুল হাদীস আজিজুল হক, জমিয়তের তৎকালীন সভাপতি মাওলানা আশরাফ আলী বিশ্বনাথী, মাওলানা আব্দুল লতিফ চৌধুরী ফুলতলী , শিক্ষাবিদ আফতাব আহমদ, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সভাপতি মাসিক মদীনা সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন খান, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি গিয়াস কামাল চৌধুরী, সাংবাদিক সাদেক খান, মুফতী ফজলুল হক আমিনী এম,পিসহ দেশবরেণ্য ব্যক্তিবর্গ একই মঞ্চে সমবেত হয়েছিলেন।  ঢাকা উসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে মজলিসুল উলামার ব্যানারে গত ২১ মার্চ-২০০৭ইং জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। তারই সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত “ইসলামে চরম পন্থা ও সন্ত্রাসের কোন স্থান নেই” শীর্ষক সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়ার চেয়ারম্যান ও হাটহাজারী মাদ্রাসার মহা-পরিচালক মাওলানা আহমদ শফি, মাসিক মদীনা সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ইসলামী এডুকেশন ইউরোপের চেয়ারম্যান মুফতি শাহ সদর উদ্দিন, পটিয়া মাদ্রাসার সহকারী পরিচালক মাওলানা আব্দুল হালিম বুখারী, বারিধারা মাদ্রাসার মুহতামীম ও বেফাকের সহ-সভাপতি শায়খুল হাদীস নূর হোসাইন কাসেমী, সাবেক ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মুফতি মোঃ ওয়াককাস, শায়খুল হাদীস তফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী, বাবনগর মাদ্রাসার মুহতামীম মাওলানা মুহিবুল্লাহ, কিশোরগঞ্জ জামেয়া ইমদাদিয়ার প্রিন্সিপাল মাওলানা আযাহার আলী আনোয়ার শাহ প্রসমুখ উপস্থিত ছিলেন।
১৯৯৪ সালের ২৯ জুলাই মানিকমিয়া এভিনিউ-এ অনুষ্ঠিত সম্মিলিত সংগ্রাম পরিষদের মহাসমাবেশে  তার বক্তব্যকে কেন্দ্রকরে আগষ্ট মাসে জনৈক আব্দুল্লাহ হিল কাইয়ূম বাদী হয়ে ঢাকার সিএমএম আদালতে একটি নালিশী মামলা দায়ের করে। ৬ মার্চ ১৯৯৭ইং উভয়পক্ষের অভিযোগ শুনানি শেষে ঢাকার প্রথম শ্রেণীর অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মোঃ আব্দুল মজিদ এ অব্যাহতির আদেশ প্রদান করেন। এদিকে, ২০০১ সালের প্রথম দিন (১লা জানুয়ারী) সোমবার বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগ এক রায়ে সব ধরণের ফতোয়াকে অবৈধ ঘোষণা করে। বিচারপতি মোহাম্মদ গোলাম রব্বানী ও বিচারপতি নাজমুল আরা সুলতানার সমন্বয়ে গঠিত সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের ডিভিশন শীতকালীন ছুটির মধ্যেও বিশেষ ব্যবস্থায় এই রায় প্রদান করেন। এই বিষয়ে ১২ জানুয়ারী  জুমার খুৎবায় বায়তুল মোকাররমের খতিব অকুতোভয় মর্দে মুমিন মাওলানা উবায়দুল হক প্রায় ১ ঘন্টা সমবেত মুসল্লিদের উপস্থিতিতে হাইকোর্টের সাম্প্রতিক ফতোয়া বিরোধী রায় প্রসঙ্গে ইসলাম ধর্মে ফতোয়ার গুরুত্ব মুসলিম পারিবারিক আইন ইত্যাদি বিষয়ে বক্তব্য দেন। খতীব উবায়দুল হক দু’বিচারপতিকে নিজেদের ঘোষণাকৃত রায় পুনর্বিবেচনা করে তা প্রত্যাহার করে তওবা করার জন্য অনুরোধ করেন। ১৯৭৮ সালে জমিয়তের সম্মেলনে মাওলানা রিজাউল করিম ইসলামাবাদী (রঃ) কে আহবায়ক করে বেফাক প্রতিষ্ঠা লাভ করে। ২৩, ২৪ ও ২৫ শে এপ্রিল ঢাকা লাল বাগের শায়েস্তাখান হলে ‘মাদ্রাসা শিক্ষার অতীত বর্তমান ও ভবিষ্যত’ শীর্ষক এক ঐতিহাসিক জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। তিনদিন ব্যাপী উক্ত সম্মেলনে উদ্বোধনী বক্তব্য পেশ করেন মাসিক মদীনা সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন খান। মাওলানা উবায়দুল হক (র.) সেদিন বেফাকের প্রতিষ্ঠার এবং প্রেক্ষাপট নিয়ে ঐতিহাসিক বক্তব্য রেখেছিলেন। তিনি ৭৯ বছরের জীবনে রেখে গেছেন এক বিশাল কর্মময় জীবনের সোনালী ইতিহাস। সত্যের সংগ্রামে তিনি বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেছেন। ’তিনি ছিলেন এ দেশের কওমী ও আলিয়া ধারা, ওলামা ও সাধারণ শিক্ষিত এবং শর্শিনা, ফুরফুরা ও দেওবন্দ সিলসিলার মিলনকেন্দ্র। এজন্য তাঁকে অনেকে বলতেন, মাজমাউল বাহরাইন বা দুই সমুদ্রের সংযোগস্থল। তিনি ছিলেন হকের নিশান বরদার বা সত্যের পতাকাবাহী।’
আজ যদি মহান এই দুই মণীষা জীবিত থাকতেন তাহলে আরো প্রাণবন্ত হয়ে উঠতো ৪০ সালা দস্তারবন্দি মহাসম্মিলন!
পরিশেষে মহান মাওলার দরবারে মরহুম মাওলানা দ্বয়ের আত্মার মাগফেরাত এবং সম্মেলনের সফলতা কামনা করছি।

লেখক:  সহসভাপতি-অনলাইন জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশন সিলেট (ওজাস)  । ০১৭১৬৪৬৮৮০০।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now

Leave a Reply

Your email address will not be published.