শীর্ষ শিরোনাম
Home » ধর্ম » কুরবানীকৃত প্রাণীর ‘চামড়া’ সম্পর্কে ফেকহি আইনকানুন

কুরবানীকৃত প্রাণীর ‘চামড়া’ সম্পর্কে ফেকহি আইনকানুন

imagesমুফতী খন্দকার হারুনুর রশীদ: কুরবানীর চামড়া বিক্রি করা না হলে ইসলামী শরিয়ত এতে কুরবানীকারীর জন্য কয়েক প্রকার অধিকার দান করেছে। আর বিক্রি করে ফেললে এর মূল্য সদকা করা ওয়াজিব হয়ে যাবে। তবে কতেক পদ্ধতিতে ওয়াজিব হবেনা। এ পর্যায়ে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে কিছু মাসআলা সন্নিবেশিত করা প্রয়োজন মনে করছি।

কুরবানীর চামড়া নিজের এবং পরিবার পরিজনদের ব্যবহারের জন্য রেখে দেয়া জায়েয আছে। যেমন: জায়নামায, বই-পুস্তকের মলাট, মুশক, বালতি, দস্তরখানা, মোজা, জুতা ইত্যাদি তৈরি করে ব্যবহার করা যেতে পারে। এটা নির্দ্ধিধায় জাযেয। (হেদায়া, দুররুল মুখতার)
তবে এসব সামগ্রী নির্মাণ করে ভাড়া দেয়া জায়েয নেই। যদি কেউ দিয়ে দেয় তাহলে বিনিময় যা আসবে তা ফকির মিসকিনদের মাঝে বিলিয়ে দেয়া ওয়াজিব হয়ে যাবে। (শামী, আলমগীরি)

কুরবানীর চামড়া দ্বারা নির্মিত বস্তু সামগ্রী কাউকে হাদিয়াস্বরূপ দান করাও জায়েয আছে। চাই সে সাইয়েদ বংশের হোক বা সম্পদশালী। নিজ মাতা-পিতা হোক বা পরিবার পরিজন। অপরিচিত-পরিচিত, কাফের-অমুসলিম এবং মুসলমান সবাইকে কোনো প্রকার বিনিময় ছাড়া দান করা জায়েয আছে। (হেদায়া, আলমগীরি, ইমদাদুল ফতোয়া)
ফকির-মিসকিনদের সদকাও করা যেতে পারে। তবে এটা মুস্তাহাব, ওয়াজিব নয়। (বাহরুর রায়েক, আলমগীরি)

চামড়া দ্বারা যবাই ও মাংস বন্টনের মজুরি
কুরবানীর মাংস বিক্রি করা হারাম। অনুরূপ কসাইকে যবাই করার মজুরি হিসেবে মাংস দেয়া জায়েয নেই। পৃথকভাবে অন্য কোনো বস্তু বা টাকা-পয়সা দ্বারা মজুরি আদায় করতে হবে।
যদি কেউ ভুলবশত অথবা জেনে বুঝে কুরবানীর মাংস বিক্রি করে দেয় তাহলে এ পরিমাণ মাংসের মূল্য সদকা করে দিতে হবে। অত:পর খাটি অন্তরে তাওবা করে নিতে হবে। (আলমগীরি)

কুরবানীর চামড়া, মাংস, চর্বি, পশম, নাড়িভূড়ি ইত্যাদি অর্থাৎ কুরবানীর প্রাণীর কোনো অংশ কোনো খেদমতের বিনিময়ে দেয়া জায়েয নেই। যদি দেয়া হয়ে যায় তাহলে এর মূল্য সদকা করা ওয়াজিব হয়ে যাবে। (হেদায়া, আলমগীরি, ইমদাদুল ফতোয়া)

কুরবানীর প্রাণীর রশি, গলার মালা ইত্যাদিও কোনো কিছুর বিনিময়স্বরূপ দেয়া জায়েয নেই। এসব জিনিষ খয়রাত করে দেয়া মুস্তাহাব। (শামী, আলমগীরি, হেদায়া, আযীযুল ফতোয়া)

কুরবানীর জন্তুর কোনো অংশ বা বস্তু কসাই বা এমন কাউকে তার মজুরিস্বরূপ দেয়া জায়েয নেই। এর মজুরি ভিন্ন কিছু দিয়ে দিতে হবে। (হেদায়া, দুররুল মুখতার)

ইমাম বা মুয়াযযিনকেও কোনো খেদমতের জন্য কুরবানীর অংশ থেকে দান করা যাবেনা। তবে এমনিতে সাধারণ হাদিয়াস্বরূপ সবাইকে দেয়া যাবে। ইমাম মুয়াযযিনকেও দেয়া যাবে এবং কসাইসহ অন্যদেরকেও দেয়া যাবে।

কুরবানীর মাংস পারিশ্রমিক বা মজুরি হিসেবে দেয়া জায়েয নেই। বিধায়, মাংস কর্তনকারী বা জবাইকারীকে মাংস বা জবাইকৃত পশুর মাথা ইত্যাদি দেয়া জায়েয নেই। আমাদের দেশের কোনো কোনো অঞ্চলে যবাইকারীকে মাথা ইত্যাদি দেয়ার প্রথা প্রচলিত আছে, তা কিন্তু যবাই করার কারণে দেয়া জায়েয নেই। তবে যবাই বা মাংস কর্তনের উপযুক্ত মজুরি দানের পর হাদিয়া হিসেবে মাংস,মাথা,পা ইত্যাদি দেয়াতে কোনো অসুবিধা নেই। (আলমগীরি,খ.৫/পৃ.৩৯,বাদয়েউস্সানায়ে,খ.৬/পৃ.৬১)

# কুরবানীর চামড়ার মূল্যের বিধান:

কুরবানীর চামড়া অথবা এর দ্বারা নির্মিত বস্তু সমাগ্রী বিক্রয়ের ব্যাপারে কথা হলো, যদি এটা মুদ্রার বিনিময়ে বিক্রি হয় যা সরাসরি ব্যবহার করা যায়না অর্থাৎ এটা ব্যয় করা ব্যতীত উপকৃত হওয়া সম্ভব নয়, যেমন পানাহার সামগ্রী, তেল, পেট্রোল, রঙ ইত্যাদি তাহলে এসব দ্রব্যাদিও সদকা করা ওয়াজিব। এটা ফকির-মিসকিনদের প্রাপ্য। অন্যখাতে ব্যয় করা জায়েয নয়। (হেদায়া, বাদায়ে, ইমদাদুল ফতোয়া)

এসব দ্রব্যাদির বিনিময়ে কুরবানীর চামড়া এ নিয়তে বিক্রি করা যে, নিজের ব্যয়ভুক্ত করবে; এটা মাকরূহ। তবে সদকা করার নিয়তে বিক্রি করার মাঝে কোনো বাধা নেই। যে নিয়তেই বিক্রি করা হোক বিক্রয় বৈধ হয়ে যাবে। তবে এসব দ্রব্যাদি সদকা করা সর্বাবস্থায় ওয়াজিব। (বাহরুর রায়েক, দুররুল মুখতার, আলমগীরি)

আর যদি কুরবানীর চামড়া অথবা এর দ্বারা নির্মিত দ্রব্যাদি এমন বস্তুর বিনিময়ে বিক্রি করে যা স্বীয় অবস্থার ওপর বাকি রেখে ব্যবহার করা যায় অর্থাৎ একে ব্যয় করা ব্যতীতই এর দ্বারা উপকৃত হওয়া যায়; যেমন, জামা-কাপড়, কিতাব-কলম, জুতা-মোজা ইত্যাদি তাহলে এসব দ্রব্যাদি সদকা করা ওয়াজিব নয়। এর হুকুম তা-ই যা পূর্বে বর্ণনা করেছি। অর্থাৎ নিজের কাজে ব্যবহার করা, অন্যকে দান করা, সদকা করা সবই জায়েয। (হেদায়া, দুররুল মুখতার, বাদায়ে, ইমদাদুল ফতোয়া)

অত:পর যদি পুন:রায় এসব দ্রব্যাদি টাকা-পয়সা, খাদ্যদ্রব্য বা এরকম কোনো পণ্যের বিনিময়ে বিক্রি করে তাহলে অর্জিত মূল্য সদকা করা ওয়াজিব হয়ে পড়বে। (ইমদাদুল ফতোয়া, খ.৩/পৃ.৫৭৩)

# কুরবানীর চামড়ার মূল্য ব্যয়ের খাত:

০ ইতোপূর্বে এবং সামনে যেসকল মাসআলায় সদকা ওয়াজিব হওয়ার কথা বর্ণিত হয়েছে এসব সদকা কেবল সেসব লোকদেরকেই দেয়া জায়েয, যাদেরকে যাকাত দেয়া জায়েয আছে। যাদেরকে যাকাত দেয়া জায়েয নেই তাদেরকে সদকাও দেয়া যাবেনা। (ইমদাদুল ফতোয়া)

০ যার মালিকানায় এ পরিমাণ সম্পদ থাকে যে পরিমাণ সম্পদে যাকাত আসে অথবা কুরবানী ওয়াজিব হয়ে যায়; শরিয়তের পরিভাষায় এমন লোককে ধনবান বলে। এমন কাউকে সদকা দেয়া জায়েয নেই। আর যার নিকট এ পরিমাণ সম্পত্তি নেই, শরিয়তের পরিভাষায় তাকে গরীব-যাকাতের হকদার বলে। তাকে সদকাও দেয়া যায়। (দুররুল মুখতার, খ.২/পৃ.৯৯, বাহরুর রায়েক, খ.২/পৃ.২৬৩)

০ নাবালেগ বাচ্চাদের পিতা যদি ধনবান হয় তাহলে এদের দেয়া যাবেনা। তবে যদি সন্তান সাবালক হয় এবং সম্পদশালী না হয় তাহলে তাদেরকে দেয়া যাবে। তেমনি ধনবান ব্যক্তির স্ত্রী যদি সম্পদশালী না হয় তাহলে তাকেও দেয়া যাবে। যদি নাবালেগ সন্তানের মা ধনবান হয় আর পিতা ধনবান না হয় তাহলে এ ধরনের সন্তানদেরকেও দেয়া যাবে। (দুররুল মুখতার)

০ সাইয়েদ এবং বনী হাশেমদেরকে অর্থাৎ যারা হযরত আলী (রা), হযরত আব্বাস (রা), হযরত জাফর (রা), হযরত আকীল (রা) এবং হযরত হারেস ইবনে আব্দুল মুত্তালিবের বংশধর তাদেরকে সদকা দেয়া জায়েয নেই। (শামী, বাহরুররায়েক, হেদায়া)

০ আপন মাতা-পিতা, দাদা-দাদি, নানা-নানি ইত্যাদি যাদের বংশে সে জন্ম লাভ করেছে তাদেরকে এ সদকা দেয়া জায়েয নেই। (হেদায়া)
তেমনি সন্তান-সন্ততি, নাতি-পুতি ইত্যাদি যারা নিজের আওলাদের অন্তর্ভুক্ত তাদেরকে দিলেও সদকা আদায় হবেনা। (হেদায়া)
অন্যান্য আত্মীয়স্বজনদের দেয়া জায়েয আছে। শর্ত হলো তারা যাকাতের উপযুক্ত হতে হবে। আত্মীয়দের দান করলে দ্বিগুণ পূণ্য লাভ হয়। প্রথমত খয়রাতের পুণ্য। দ্বিতীয়ত স্বীয় আত্মীয়দের সাথে সদব্যবহারের পুণ্য। (শামী)

০ এসব সদকা কাফের, অমুসলিম পৌত্তলিকদের দেয়া জায়েয নেই। এর ওপরই ফতোয়া। (শামী, খ.২/পৃ.৯২, দুররুল মুখতার, খ.২/পৃ.১০৮, ইমদাদুল মুফতিয়্যীন, পৃ.৪৬৪)

# কোনো সংগঠনকে চামড়ার মূল্য দেয়া:

কুরবানীর চামড়া হয়তো বা এমনিতে খয়রাত করে দেবে অন্যথায় বিক্রি করে মূল্য খয়রাত করে দেবে। কুরবানীর চামড়ার মূল্য এমন ব্যক্তিকে দিতে হবে যাকে যাকাতের টাকা দেয়া জায়েয আছে। চামড়ার মূল্যস্বরূপ যে টাকাগুলো পাবে সরাসরি এ টাকাগুলোই খয়রাত করা উচিত। যদি এ টাকা কোনো কাজে ব্যয় করে ফেলে এবং এ পরিমাণ অন্য টাকা নিজের ক্যাশ থেকে খয়রাত করে দেয় তাহলেও আদায় হয়ে যাবে। তবে এমন করাটা অনুত্তম।

কুরবানীর চামড়ার মূল্য মসজিদ অথবা মাদরাসার নির্মাণকাজে বা মসজিদের মুয়ায্যিন, মাদরাসার শিক্ষক, ইমাম, খাদেম কারো বেতন-ভাতা হিসেবে দেয়া জায়েয নেই। যদি কেউ এরকম কোনো খাতে ব্যয় করে ফেলে তাহলে এ পরিমাণ অর্থ গরীবদেরকে দিয়ে দিতে হবে এবং এর জন্য তাওবা করতে হবে।

বর্তমান সময়ে সস্তা চাঁদা সংগ্রহের ভিত্তিতে নানা ধরনের সেবামূলক সংগঠন অস্তিত্ব লাভ করেছে। তারা চামড়া কালেকশন করে। এসকল সংস্থার সাথে এমন লোকও রয়েছে যারা ভিন্ন ধর্মাবলম্বী। আবার বুদ্ধিজীবিটাইপের এমন লোকও আছে যারা ইসলামী অনুশাসন সম্পর্কে কুরুচিপূর্ণ সমালোচনা, উপহাস ইত্যাদি করে থাকে। এতোসবের পরও চামড়া টানতে মাতোয়ারা। তেমনিভাবে এমন অনেক লোকও থাকে যারা শরীয়ত সম্পর্কে একেবারে অজ্ঞ। তারা শরীয়তের বিধিবিধানের তোয়াক্কা না করেই স্বাধীনভাবে চামড়ার টাকাগুলো নানা খাতে ব্যয় করে থাকে। এদেরকে দান করে কুরবানীর চামড়ার হক নষ্ট করা গোনাহের কাজ। এদেরকে দান করলে আপনি শরয়ী যিম্মাদারি থেকে মুক্তি পাবেন না।

০ যাকাত এবং অন্যান্য ওয়াজিব সদকার মতো এ সদকা আদায়ের ব্যাপারেও শর্ত হলো কোনো ফকির-মিসকিনকে মালিক বানিয়ে দিয়ে দিতে হবে। যাতে এর ওপর সে সকল ধরনের কর্তৃত্ব খাটাতে পারে। ফকির-মিসকিনরা মালিকানারূপে গ্রহণ না করলে সদকা আদায় হবেনা। (দুররুল মুখতার)

অনুরূপ এ অর্থ মসজিদ, মাদ্রাসা, চিকিৎসা ফান্ড বা খাল, কালভার্ট খনন, ব্রীজ নির্মাণসহ কোনো প্রকার সেবামূলক প্রতিষ্ঠান তৈরিতে ব্যয় করা যাবেনা। কেননা এতে কোনো ফকিরকে মালিক বানানো এবং তার কর্তৃত্বাধীনে ন্যস্ত করাটা পাওয়া যায়নি। (কানযুদ্দাকায়েক, হেদায়া, বাহরুরু রায়েক)

অনুরূপ এমন কোনো মাদ্রাসা অথবা সংস্থা ইত্যাদিতে দান করাও সম্পূর্ণ নাজায়েয, যেখানে গরীবদেরকে মালিকানা হিসেবে সদকার টাকা দেয়া হয়না; বরং কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন, নির্মাণফান্ড বা ফার্নিচার ইত্যাদি অফিসিয়াল ব্যবহার্য আসবাবপত্রে ব্যয় করা হয়। তবে যদি কোনো প্রতিষ্ঠানে গরীব ছাত্র অথবা ফকির-মিসকিনদের বিনামূল্যে পানাহারসামগ্রী বিতরণের ব্যবস্থা থাকে, তাহলে সেখানে এসব সদকার টাকা-পয়সা বা মাল-সামানা দান করা যাবে। তবে এটা আদায় হবে তখন, যখন এ টাকা বা এর দ্বারা ক্রয় করা দ্রব্য যেমন খাদ্যসামগ্রী, বইপত্র, জামা-কাপড়, ওষুধপথ্য ইত্যাদি গরীবদের মালিকানা হিসেবে ফ্রী দিয়ে দেয়া হবে। (ইমদাদুল ফতোয়া)

# মূল্য মসজিদ-মাদ্রাসায় ব্যয় করার পদ্ধতি:

যদি কুরবানীর চামড়া কোনো গরীব বা ধনবান ব্যক্তিকে অথবা চামড়ার মূল্য কোনো গরীব ব্যক্তিকে মালিক বানিয়ে তার কর্তৃত্বাধীন দিয়ে দেয়া হয় এবং এ কথা পরিস্কার বলে দেয়া হয় যে, তুমি এর সম্পূর্ণরূপে মালিক, আমাদের এতে কোনো কর্তৃত্ব নেই, অত:পর সে যদি সন্তুষ্টচিত্তে তার প্রাপ্ত টাকাগুলো মসজিদ, মাদ্রাসা বা কোনো সেবাফান্ডে অথবা কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দের বেতনফান্ডে নিজের পক্ষ থেকে দান করে ফেলে তাহলে এটা জায়েয আছে। কিন্তু স্মরণ রাখতে হবে, বর্তমানে এ পদ্ধতিটি নিয়ে হিলা-তামলীকের নামে সর্বত্র যে খেলা শুরু হয়েছে এতে যাকাতের মতো সদকাও আদায় হয়না। কেননা সাধারণত যাকে দেয়া হয় সে জানে যে, এতে তার কোনো কর্তৃত্ব নেই। সে যদি নিজের কাছে রেখে দেয় তাহলে সবাই মিলে তাকে তিরস্কার করবে। এ ভীতি এবং লজ্জায় সে টাকাগুলো চাঁদারূপে দিয়ে দেয়। এটা কেবল মৌখিক জমাখরচ মাত্র। এরকম বাহানা দ্বারা সে মালিকও হয়না এবং দাতার সদকাও আদায় হয়না। এরকম হিলা করে যাকাত, সদকার টাকা পয়সা মসজিদ মাদ্রাসা বা অন্য কোনো ধরনের সেবা প্রতিষ্ঠানে ব্যয় করা জায়েয নেই। (ইমদাদুল ফতোয়া, খ.৩/পৃ.৫৩৪)

কুরবানীর চামড়া বা এর মূল্য দ্বীনি মাদ্রাসার ছাত্রদেরকে দান করা উত্তম। কেননা, এতে দু’দিকে সওয়াব অর্জিত হয়ে থাকে।

প্রথমতঃ গরীবকে দান করার সওয়াব।
দ্বিতীয়তঃ দ্বীনের প্রচার, প্রসার ও সংরক্ষণে মনোনিবেশ করা অর্থাৎ দ্বীনি খেদমতে শরীক হওয়ার সাওয়াব। (জাওয়াহিরুল ফিক্হ)

# চামড়া খালাতে সর্তকতা প্রয়োজন:

০ কোনো লোক প্রাণীর চামড়ার খালানোর সময় চামড়ায় ছুরি লাগিয়ে দিয়ে ছিদ্র করে ফেলে অথবা চামড়ায় মাংস লাগানো থেকে যায়, যার দ্বারা চামড়ার মান কমে যায়। অনেক লোক চামড়া খালানোর পর এর হেফাযত করেনা। নষ্ট করে ফেলে অথবা চামড়াকে এমন পর্যায়ে পৌঁছায় যাতে চামড়ার মূল্য কমে যায়, এসব ইসরাফ ও অপব্যয়ের অন্তর্ভুক্ত। পবিত্র কুরআনে যা করতে নিষেধ করা হয়েছে।

এজন্য চামড়া সতর্কতার সাথে খালাতে হবে। চামড়াকে সার্বিক ক্ষতি থেকে রক্ষা করা গরীবদের অধিকার সংরক্ষণ করার পর্যায়ের। এটা শরীয়তের দৃষ্টিতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়।

০ যে ব্যক্তি কুরবানীর চামড়া ক্রয় করবে সে এর মালিক হয়ে যাবে। এর মাঝে তার সার্বিক কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠিত হবে। সে চাইলে নিজের কাছে রাখতে পারে অন্যথায় বিক্রি করে মূল্য ব্যবহার করতে পারে। (ইমদাদুল ফতোয়া)

০ কুরবানীর প্রাণীতে যারা অংশীদার হবে তারা চামড়াতেও সমানহারে অংশীদার থাকবে। কোনো অংশীদার অন্যদের অনুমতি ছাড়া চামড়া নিজের কাছে রাখতে বা কাউকে দান করতে পারবেনা। এরকম করা শরীয়তে জায়েয নেই। (কেফায়াতুল মুফতী-খ.৮/পৃ.২৩৯) মহান আল্লাহ পাক যেনো আমাদের সকলকে সংশ্লিষ্ট বিষয়ের মাসআলাগুলো যেনে সে অনুপাতে আমল করার তাওফিক দান করেন।

লেখক: মুহাদ্দিস ও মুফতী, জামেয়া মাদানিয়া বিশ্বনাথ, সিলেট।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now