শীর্ষ শিরোনাম
Home » জাতীয় » মসজিদ, মন্দির সংস্কারে ৫০০ কোটি টাকার প্রকল্প

মসজিদ, মন্দির সংস্কারে ৫০০ কোটি টাকার প্রকল্প

pic-23_185266-2ডেস্ক রিপোর্ট: দেশের মসজিদ, মন্দির ও গির্জা উন্নয়নে ৫০০ কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নিতে যাচ্ছে সরকার। এরই মধ্যে উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবনা (ডিপিপি) তৈরির কাজ শেষ হয়েছে। আগামী জানুয়ারি নাগাদ প্রকল্পটি একনেকে উঠবে। আর প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি)। এদিকে এ প্রকল্পের আওতায় মসজিদ, মন্দির ও গির্জা ছাড়াও সংস্কার করা হবে দেশের উপজেলা পর্যায়ের শ্মশান ঘাট, গোরস্তান, খেলার মাঠ ও পার্কের মতো সর্বজনীন প্রতিষ্ঠানগুলো।

এ বিষয়ে এলজিইডির পরিকল্পনা বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মনজুর সাদিক বলেন, শিগগিরই এ-সংক্রান্ত ডিপিপি এলজিআরডিতে পাঠানো হবে। এর পর প্ল্যানিং কমিশন থেকে একনেকে উঠতে কমপক্ষে চার মাস সময় লাগবে। সাধারণত এ ধরনের প্রকল্পে স্থানীয় পর্যায়ে নানা অনিয়ম হয়। তাই প্রকল্পটি সঠিকভাবে বাস্তবায়নে আমরা সতর্ক থাকব।

এলজিইডি সূত্র জানায়, প্রথম দিকে এ প্রকল্পের আওতায় মাদ্রাসা অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। তবে পরবর্তীতে এমপিদের কাছ থেকে এ বিষয়ে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ আবেদন আসে। যার পরিপ্রেক্ষিতে উপজেলা পর্যায়ে পিছিয়ে পড়া মাদ্রাসাগুলোও আধুনিকায়নের সিদ্ধান্ত নেয় এলজিইডি। এছাড়া ব্যক্তিগত জমির ওপর নির্মিত স্থাপনাগুলোর সংস্কার না করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। শুধু দানকৃত, দেবোত্তর ও সরকারি জমির ওপর নির্মিত সর্বজনীন স্থাপনা সংস্কারই এ প্রকল্পের মূল্য উদ্দেশ্য।

সূত্র আরো জানায়, এ প্রকল্পের আওতায় নতুন করে কোনো স্থাপনা নির্মাণ করা হবে না। বিদ্যমান যেসব সর্বজনীন স্থাপনা রয়েছে, সেগুলোই সংস্কার করা হবে। বিশেষ নজর দেয়া হবে হাওড় অঞ্চলে।

মনজুর সাদিক বলেন, বর্ষাকালে জলাবদ্ধতার কারণে মরদেহ দাফনের কোনো উপায় থাকে না হাওড় অঞ্চলে। তাই এ অঞ্চলের শ্মশান ও গোরস্তানগুলো সংস্কারে বেশি নজর দেয়া হবে।

জানা যায়, প্রকল্পটি বাস্তবায়নে দেশের ৪৬৯টি উপজেলায় জরিপ চালিয়েছে এলজিইডি। প্রকল্পের টাকা যেন কোনোভাবেই সর্বজনীন প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা কর্তৃক আত্মসাত্ না হয়, সেজন্য কাজ করবে এলজিইডির বিশেষ পরিদর্শক দল।

জানা যায়, দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সংস্কারের অভাবে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে বহু প্রাচীন মন্দির-মসজিদসহ সর্বজনীন স্থাপত্য। এসব গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা পৃষ্ঠপোষকতা ও ঔদাসীন্যের কারণে বিলুপ্ত হওয়ার পথে। ধ্বংসের পথে পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ার মিরুখালী ইউনিয়নের কুলুবাড়ীর প্রাচীন স্থাপনাগুলো। সংস্কারের অভাবে এখানকার মূল ভবন, মঠ, মন্দিরের নান্দনিক নকশা ও অপূর্ব নির্মাণশৈলী ধসে পড়ছে। ধ্বংস হচ্ছে নয়নাভিরাম সুরম্য অট্টালিকা ও কারুকার্যখচিত মন্দির। সংস্কারের অভাবে ধ্বংস হতে চলেছে কিশোরগঞ্জের ‘কুতুব শাহ মসজিদ’; যমুনা তীরবর্তী ‘কাশিমপুর রাজবাড়ী’; শেরপুরের পৌনে তিনআনি জমিদারের ‘রংমহল’; সাতক্ষীরার সোনাবাড়িয়ার ‘মঠবাড়ী’; হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ের বিখঙ্গল গ্রামের ‘প্রাচীন আখড়া’; রাজার হাটের ‘চান্দামারী’ ও ‘স্বরূপচামারু’ মসজিদ; তিতাস নদীর তীরবর্তী রূপসদী গ্রামের ‘খানেপাড়া জমিদারবাড়ি’; মনোহরগঞ্জ উপজেলার ‘লত্সর মিঞা বাড়ি শাহি জামে মসজিদ’; চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ার রাজানগরের ‘রাজবাড়ী’; নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলার ‘বোয়ালবাড়ী পুরাকীর্তি’; নওগাঁর জয়পুরহাটের ‘জগদ্দল বিহার’; বগুড়ার ‘মহাস্থানগড়’; কুমিল্লার ‘সোমপুর বিহার’; দিনাজপুরের ‘রাজবাড়ী’; ঠাকুরগাঁওয়ের ‘রাজা টঙ্কনাথের বাড়ি’সহ বিভিন্ন জেলায় অবস্থিত প্রাচীন প্রত্ন নিদর্শনগুলো।

এদিকে মৌলভীবাজার সদর উপজেলার যেসব পুরাকীর্তি, প্রাচীন ও ঐতিহাসিক স্থান এখন বিলুপ্তির পথে, সেগুলো হলো— জগত্সী শ্রীশ্রী দোলগোবিন্দ জিউর আখড়া, ঘোড়াখালে হজরত হাজি আহমেদ ওরফে হাজি রসূলের (র.) মাজার। কুলাউড়া উপজেলায় ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের তীর্থস্থান রঙ্গিরকুল আশ্রম (বর্তমানে ইসকন মন্দির), ভাটেরা টিলার প্রাচীন তাম্রফলক, আসামের ইস্টার্ন গেট নামে পরিচিত কুলাউড়া রেলওয়ে জংশন, নন্দনগরের সতীদাহ মন্দির।

কমলগঞ্জ উপজেলায় মাধবপুর লেক, শমসেরনগর ব্রিটিশ নির্মিত বিমানবন্দর ও তত্সংলগ্ন ১৯৭১ সালে গণহত্যার বধ্যভূমি, বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমানের স্মৃতিসৌধ, লাউয়াছড়া ন্যাশনাল পার্কের প্রাচীন দুর্লভ ক্লোরোফর্ম বৃক্ষ, পতনঊষার দুর্গের ধ্বংসস্তূপ, ইরানের শাহানশাহ রেজাশাহ পাহলভির আগমন উপলক্ষে শমসেরনগর রেলস্টেশন নির্মিত সুরম্য তোরণ, একই এলাকার ভাদাইর দেউল হজরত শাহ কালা (র.), হজরত মফিজ শাহ (র.) ও হজরত গাজী মালিকের (র.) মাজারসহ মোগল, নবাবি, ব্রিটিশ ও পাকিস্তান আমলে নির্মিত বিভিন্ন পুরাকীর্তি।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now