শীর্ষ শিরোনাম
Home » খেলাধুলা » ব্যাডমিন্টনে সুনাম আছে সুনামগঞ্জের, নেই মাঠ

ব্যাডমিন্টনে সুনাম আছে সুনামগঞ্জের, নেই মাঠ

images
আরিফ রব্বানী,সিলেট রিপোর্ট:  সুনামগঞ্জের ক্রীড়াঙ্গণের অবহেলার আরেকটি নাম ব্যাডমিন্টন। প্রতিভাবান খেলোয়াড় আছে, তাদের কদর নেই। নানা অবহেলার পরও সুনামগঞ্জের খেলোয়াড় জাতীয় পুরস্কার ঘরে নিয়ে আসলেও তাদের খবর নিচ্ছেননা কেউ, নেই অনুশীলনের মাঠ।
জানাগেছে, সুনামগঞ্জে ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড়দের জন্য আলাদা কোন মাঠ নেই জেলা ক্রীড়া সংস্থার। শুধু জেলা ক্রীড়া সংস্থার নয়, পুরো জেলা শহরেও ব্যাডমিন্টনের কোন মাঠ নেই। শীর্ষ খেলোয়াড়রা অফিসার্স ক্লাবের মাঠে গিয়ে মাঝে মধ্যে সামান্য সুযোগ পায়, সেখানেই খেলতে হয়।
জাতীয় ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়নশীপে সুনামগঞ্জের ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড়রদেরকে যেতে হয় ম্যানেজার ছাড়া। শুনতে তিরস্কার। এমনি জাতীয় টুর্ণামেন্টে অংশ নিতে খেলোয়াড়দেরকে যেতে হয় নিজ পকেটের টাকা খরচ করে। থাকেনা কোন জার্সি।
জাতীয় চ্যাম্পিয়নশীপে চট্টগ্রামের মাঠে দ্বৈত ব্যাডমিন্টন লড়াইয়ে সুনামগঞ্জের খেলোয়াড়দেরকে নামতে হয় দুই রকম জার্সি পরে। নেই কোন ধরণের অনুশীলনের ব্যবস্থা। এতো প্রতিবন্ধকতার পরও থেমে নেই সুনামগঞ্জের ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড়রা। জাতীয় চ্যাম্পিয়নশীপে গিয়ে রানার্সআপ হয় সুনামগঞ্জের ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড়রা। ব্যাডমিন্টনের রেংকিংয়ে হয় তৃতীয়।
সুনামগঞ্জে ব্যাডমিন্টনের মাঠ না থাকার বিষয়টি স্বীকার করেন সুনামগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি, জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম সিলেট রিপোর্টকে  বলেন, আমরা ব্যাডমিন্টনের জন্য পৃথক মাঠের একটি ব্যবস্থা দ্রুতই করছি।

চলতি বছরের ১২ জানুয়ারি চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিত শামসুল আলম জুনিয়র সাব জুনিয়র জাতীয় ব্যাডমিন্টন প্রতিযোগিতা বাংলাদেশ প্রত্যেক জেলা থেকে ক্রীড়া সংস্থা সাথে শিক্ষা বোর্ড মিলিয়ে সবাই অংশগ্রহন করে প্রায় তিন’শ টিম।
জাতীয় এই টুর্ণামেন্টটিতে সুনামগঞ্জ জেলা থেকে অনুর্ধ্ব ১৮ কৌটায় দু’টি টিম অংশ গ্রহণ করে। সুনামগঞ্জের আম্মার আহমেদ ও আবিদ জুটি সারা দেশের মধ্যে তৃতীয় হয়। রবিন শাহ শিশির ও রাঈদ জুটির টিমটি সারা দেশের মধ্যে রানার্সআপ হওয়ার গৌরব অর্জন করে।

টুর্ণামেন্টিতে অনুর্ধ্ব ১৫ কৌটায় সুনামগঞ্জ থেকে অংশ গ্রহণ করে আরিফ ও আদিল। অথচ এমন বড় টুর্ণামেন্টে খেলতে যাওয়ার আগে ক্রীড়া সংস্থা থেকে কোন সহযোগিতাই পায়নি খেলোয়াড়রা।
ব্যাডমিন্টনের খেলোয়াড়রা চট্টগ্রামের মাঠে গিয়ে সুনামগঞ্জের জন্য সুনাম বয়ে আনলেও জেলা ক্রীড়া সংস্থা তাদের সঙ্গে একজন ম্যানেজারকেও পাঠাতে পারেনি। ম্যানেজার বিহীন দল গিয়ে সেখানে তিরস্কৃত হয়েছে। খেলোয়াড়রদেরকে ম্যানেজার সাজতে হয়েছে।
১ ম রাউন্ড এ ঢাকা ডিভিশন কে দ্বিতীয় রাউন্ড বাংলাদেশ র্যাংকিং এ থাকা ৩ য় টিম কে হারিয়ে সবশেষে কেয়ার্টার ফাইনালে খুলনা বিভাগের সবচেয়ে ভালো টিম টি কে পরাজিত করে সেমিফাইনালে যায় সুনামগঞ্জের দল।
বিস্ময়কর হলেও সেমিফাইনালের চারটি দলের মধ্যে দু’টি দলই ছিলো সুনামগঞ্জের। রবিন-সাঈদ, আম্মার-আবিদ জুটি সেমিফাইনাল খেলে। এর মধ্যে সেমিফাইনালে হেরে তৃতীয় হয় আম্মার-আবিদ জুটি। আর ফাইনাল খেলে রানার্সআপ হয় রবিন-রাঈদ জুটি।

টুর্নামেন্ট এ বাংলাদেশ জাতীয় জুনিয়র চ্যাম্পিয়নশিপ এ তৃতীয় স্থান অধিকারী আম্মার আহমেদ বলেন, জীবনের প্রথম এই টুর্ণামেন্টে কোন ধরণের অনুশীলন ছাড়াই অংশ গ্রহণ করতে হয়েছে অনেকটা যুদ্ধ করে। যেতে হয়েছে ম্যানেজার ছাড়া।

আম্মাররা নিজেরাও ভাবেননি এত অবহোর স্বীকার হয়ে চট্টগ্রামে গিয়ে এত ভালো খেলবেন। আম্মার বলেন, ভেবেছিলাম হয়তো ১ ম রাউন্ডে হেরে ই বিদায় নিয়ে নিবো। কিন্তু আল্লাহর রহমতে নিজের জেলাকে একটা সম্মানজনক স্থানে তূলে ধরতে পেরেছিলাম এইজন্য অনেক গর্ববোধ হচ্ছিলো
আক্ষেপ করে আম্মার বলেন, আমাদের পার্শ্ববর্তী জেলা সিলেটের খেলোয়াড়রা সিলেটে এসে সংবর্ধনা পায় আর আমাদের আমাদের দুইটি দল রানার্সআপ ও ৩য় হয় বাংলাদেশের মধ্যে। অথচ ক্রীড়া সংস্থার কেউ খোঁজখবর পর্যন্ত নেয় না আমাদের। আম্মার সুনামগঞ্জে একটি ব্যাডমিন্টন কোর্ট নির্মাণের দাবি জানান।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now