শীর্ষ শিরোনাম
Home » দুর্ঘটনা » টঙ্গীতে নিহত ৫ জনই গোলাপগঞ্জের, গ্রামেরবাড়ীতে চলছে মাতম

টঙ্গীতে নিহত ৫ জনই গোলাপগঞ্জের, গ্রামেরবাড়ীতে চলছে মাতম

imagesসিলেট রিপোর্ট: ঢাকার গাজীপুরের গাজীপুরের টঙ্গী বিসিক শিল্প নগরীতে প্যাকেজিং কারখানায় বয়লার বিস্ফোরণে নিহত হয়েছেন অন্তত ২৪ জন। তন্মধ্যে সিলেটের গোলাপগঞ্জের পাঁচ ব্যক্তিও রয়েছেন। নিহত এই পাঁচ ব্যক্তির বাড়িতে এখন চলছে মাতম আর আহাজারি। প্রিয়জনদের অকস্মাৎ মৃত্যু সংবাদে স্বজনরা এখন শোকে স্তব্দ।

জানা যায়, টঙ্গীতে অবস্থিত ট্যাম্পাকো ফয়েলস লিমিটেড নামক ওই প্যাকেজিং কারখানার মালিক সিলেটের গোলাপগঞ্জের আমুড়া ইউনিয়নের সুন্দিশাইল গ্রামের ড. সৈয়দ মকবুল হোসেন (লেচু মিয়া)। তিনি সিলেটের বিয়ানীবাজার-গোলাপগঞ্জ আসনের সাবেক স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য।
আজ শনিবার ভোরে ট্যাম্পাকো ফয়েলস লিমিটেডে বয়লারে বিস্ফোরণ ঘটে। বিস্ফোরণে এখনো পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৪ জনে। তন্মধ্যে সিলেটের গোলাপগঞ্জের পাঁচ ব্যক্তি রয়েছেন।
ওই পাঁচ ব্যক্তি হচ্ছেন- গোলাপগঞ্জের আমুড়া ইউনিয়নের সুন্দিশাইল গ্রামের মৃত তমদির আলীর ছেলে ওয়ালি আহমদ কুটি (৩২), মৃত মজর আলীর ছেলে হাসান সিদ্দিকী রহিম (৪৮), সোনা মিয়ার ছেলে এনামুল হক (৩৮), মৃত তমজিদ আলীর ছেলে সাইদুর রহমান (৪৮) এবং গোলাপগঞ্জের কানিশাইল গ্রামের মৃত আবদুল করিমের ছেলে রেজওয়ান আহমদ (৩০)।
গোলাপগঞ্জের আমুড়া ইউনিয়নের সুন্দিশাইল গ্রামের বাসিন্দা এবং বয়লার বিস্ফোরণে নিহত সাইদুর রহমানের চাচাতো ভাই এমরুল হাসান  জানান, দীর্ঘ দিন ধরে এরা সবাই ওই কারখানায় কাজ করছিলেন। কারখানার মালিক নিজ গ্রামের হওয়ায় সেখানে তারা কাজ করছিলেন।

তিনি জানান, গোলাপগঞ্জের নিহত এই পাঁচ ব্যক্তির পরিবারে এখন আহাজারি চলছে। আকস্মিকভাবে দুর্ঘটনায় স্বজন হারানোর বেদনায় সবাই কাতর। পরিবারের কেউই প্রিয়জনদের এমন মৃত্যু মানতে পারছেন না।
এদিকে ওই কারখানার মালিক গোলাপগঞ্জের আমুড়া ইউনিয়নের সুন্দিশাইল গ্রামের ড. সৈয়দ মকবুল হোসেন (লেচু মিয়া) বাড়িতে থাকেন না বলে জানিয়েছেন এমরুল হাসান। স্বপরিবারে তিনি ঢাকায় স্থায়ীভাবে বসবাস করেন। মাঝেমধ্যে গ্রামের বাড়িতে আসেন তিনি। বর্তমানে তার গ্রামের বাড়ি দেখাশোনার জন্য পার্শ¦বর্তী বাড়ির একটি পরিবার সেখানে থাকে।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now