শীর্ষ শিরোনাম
Home » সিলেট » জামেয়া ক্বাসিমুল উলুম দরগাহ হযরত শাহজালাল (রহ:) সিলেট’র ৪০ সালা দস্তারবন্দী মহাসম্মেলনের প্রথম দিন অতিবাহিত

জামেয়া ক্বাসিমুল উলুম দরগাহ হযরত শাহজালাল (রহ:) সিলেট’র ৪০ সালা দস্তারবন্দী মহাসম্মেলনের প্রথম দিন অতিবাহিত

সিলেট রিপোর্ট: উৎসবমুখর পরিবেশের মধ্য দিয়ে ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জামেয়া ক্বাসিমুল উলুম দরগাহ হযরত শাহজালাল (রহ:) সিলেট’র ৩ দিন ব্যাপী ৪০ সালা দস্তারবন্দী মহাসম্মেলন গতকাল বৃহস্পতিবার প্রথম দিন অতিবাহিত হয়েছে। সিলেট সরকারী আলীয়া মাদ্রাসা মাঠে বৃহস্পতিবার বিকেল আড়াইটায় আনুষ্ঠানিকভাবে সম্মেলনের উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এমপি বলেন, ইসলাম শিক্ষাকে, জ্ঞান অর্জনকে সম্পূর্ণ উন্মুক্ত রেখেছে। সেখানে আমার যেমন অধিকার তেমনি সকলের অধিকার রয়েছে। আমরা ধর্ম থেকে যে শিক্ষা পেয়েছি সেটাকেই অনন্তকাল মেনে চলতে হবে। এটাই ইসলামের মাহাত্ম। জামেয়া সদরুল মুদাররিসিন মাওলানা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ীর সভাপতিত্বে ও জামেয়ার শিক্ষক মাওলানা জুনাইদ ক্বিয়ামপুরীর পরিচালনায় এতে স্বাগত বক্তব্য দেন, জামেয়ার প্রিন্সিপাল ও বাস্তবায়ন কমিটির আহ্বায়ক মুফতি মাওলানা আবুল কালাম যাকারিয়া। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিলেট-১ আসনের সংসদ সদস্য ও অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত আরো বলেন, ইসলামের অনুশাসন মেনে আমাদেরকে সুন্দর ও সুশৃংখল জীবন গড়ে তুলতে হবে। কারণ যে কোন দিন আমাদের সামনে মরনের সময় উপস্থিত হবে। তখনো কিন্তু শিক্ষার বিষয়টি প্রকাশ করতে হবে। সেইখানে আমাকে আবারো আবৃত্তি করতে হবে ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ।’ ক্বওমী মাদ্রাসার শিক্ষার অবদানের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, সিলেটে ৪-৫টি বোর্ডের অধীন ক্বওমী মাদ্রাসাগুলো চলছে। শিক্ষার ব্যাপকতা আছে। সেখানে বিভিন্ন মতের সমাগম হবে। নানা ধরণের বাহাস হবে সুতরাং সেখানে নানা মনের নানা মতের প্রতিষ্ঠান থাকাটা সজীবতার লক্ষণ। বাহাসের মাধ্যমে, বিতর্কের মাঝে আমরা চেষ্টা করি যাতে সত্য আহরণ করতে পারি। অবশ্য এখানে একটা সমস্যা ও আছে। এক সময় মুতাজিলারা ছিলেন। তারা ছিলেন সম্মানিত। ইসলামে শিক্ষাকে, জ্ঞান আহরণকে সম্পূর্ণ উন্মুক্ত রেখেছে। সেখানে আমার যেমন অধিকার রয়েছে তেমনি আপনারও অধিকার রয়েছে। আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, আমরা ধর্ম থেকে যে শিক্ষা পেয়েছি সেটাকেই অনন্তকাল মেনে চলতে হবে। এটাই ইসলামের মাহাত্ম। সিলেটে এমন একটি চমৎকার আয়োজনে প্রতিদিন থাকতে পারলে সন্তুষ্ট হতাম। দস্তারবন্দী সম্মেলনে বেশি সময় না দেয়ায় দু:খ প্রকাশ করেন তিনি। তিনি তার সুস্থতা কামনায় সকলের নিকট দোয়া কামনা করেন। ৩ দিনের এই অনুষ্ঠান সফল হোক। এর মাধ্যমে যে সকলের জ্ঞানের ভান্ডার আরো সমৃদ্ধ হয়। এতে সফলতা আসবে। দরগাহ মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা আল্লামা আরিফ বিল্লাহ আকবর আলী (রহ:) সাথে তাঁর ও তাঁর পরিবারের দীর্ঘদিনের সুসম্পর্ক ছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, আকবর আলী সাহেবের সাথে আমার বেশ ঘনিষ্ট সম্পর্ক ছিল। সৌভাগ্যবশত আমি তাঁর জানাজায় শরিক হতে পেরেছিলাম। তিনি আমাকে বলেছিলেন- তার সম্পর্ক আমার সাথে নয়, আমার পিতার সাথে। দরগাহের ইমাম হিসেবে যারা তাকে মনোনয়ন করেছিলেন তার প্রধান ছিলেন আমার পিতা আবু আহমদ আবদুল হাফিজ। তার সাথে আমাদের বংশ পরম্পরায় সম্পর্ক ছিল। তিনি একটি চমৎকার আদর্শ রেখে গেছেন। রাজনীতিকে নানান সিলসিলা থাকে। সবাই হয়তো ঠিকমতো চিন্তা করছেন, তবে রাস্তা কিন্তু আলাদা। তিনি এই যে মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করে গেছেন যে এখানে কোন সিলসিলা প্রাধান্য পাবে না। এখানে যার যা চিন্তা ভাবনা তাই প্রাধান্য পাবে। আমাদের মাঝে অনেক সময় গোড়ামি এসে যায়, কুসংস্কার এসে যায়। এর থেকে রক্ষা পেতে আকবর আলী সাহেবদের মতো নেতার প্রয়োজন। আজকের এই দিনে তাঁকে বিশেষভাবে স্মরণ করছি। আল্লামা আকবর আলীকে নিয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বেশ স্মৃতি চারণ করেন। অর্থমন্ত্রী দেশ ও জাতির জন্যে দোয়া কামনা করে বলেন, আমার জন্যে, আমার রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর জন্যে দোয়া করবেন। দোয়া করবেন এজন্যে যেন, আপনাদেরকে সৎপথে পরিচালনা করতে পারি। আপনাদের মঙ্গলের জন্যে যেন আমরা কাজ করতে পারি। মানুষের সেবা করার জন্যে আমরা দায়িত্ব পেয়েছি। এ সময় সিলেট সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী কয়েস এমপি, সাবেক এম পি শফিকুর রহমান চৌধুরী, সিলেট সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ অর্থমন্ত্রীর সাথে উপস্থিত ছিলেন। ৪ অধিবেশনে গতরাত ১১টা পর্যন্ত সম্মেলনের কার্যক্রম চলে। সম্মেলনে ১৪৩৩ থেকে ১৪৩৫ হিজরী পর্যন্ত ২৯৮ জন শিক্ষার্থীদের পাগড়ী দেয়া হয়। রাতে দস্তারবন্দী মহাসম্মেলন স্মারকের উদ্বোধন করেন অতিথিবৃন্দ। ঢাকার যাত্রাবাড়ীর আল্লামা মাহমুদুল হাসান, বেফাকুল মাদারিসের মহাসচিব মাওলানা আব্দুল জব্বার, কাপাসিয়ার অধ্যক্ষ মাওলানা মিজানুর রহমান চৌধুরী, সোবহানীঘাট মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা শফিকুল হক আমকুনি, শায়খুল হাদীস মাওলানা ইসহাক, মাওলানা হুসাইন আহমদ বারকোটি, মাওলানা সাজিদুর রহমান, মাওলানা আব্দুর রব, মাওলানা আব্দুল মুন্তাকিম, মাওলানা শাহ আহমাদ মাদানীসহ বরেণ্য উলামায়ে কেরামগণ বক্তব্য দেন।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now