শীর্ষ শিরোনাম
Home » শীর্ষ সংবাদ » পর্যটকদের ভিড়ে মুখরিত জাফলং

পর্যটকদের ভিড়ে মুখরিত জাফলং

imagesনিজস্ব সংবাদদাতা : পবিত্র ঈদুল আযহার ছুটি পেয়ে বাঙ্গালী যেন মেতে উঠেছে ভ্রমন উৎসবে । ঈদের আনন্দকে ভাগাভাগি করতে কেউ সপরিবারে কেউবা আবার বন্ধু-বান্ধব সাথে নিয়ে ছুটে এসেছেন সিলেটের গোয়াইনঘাটের পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে। এর মধ্যে রয়েছে প্রকৃতি কন্যা জাফলং, প্রকৃতির অপ্সড়াগেত বিছনাকান্দি, সোয়াম ফরেষ্ট রাতারগুল, জাফলংয়ের মায়াবী ঝর্ণা, পান্তুমাইয়ের ফাটাছড়া ঝর্ণাধারা। আর এসকল পর্যটন কেন্দ্রগুলোর সৌন্দর্য্যে খুব সহজেই আকৃষ্ট করে ভ্রমন পিপাসুদের। এর মধ্যে অন্যতম ও দেশ বিদেশের বিভিন্ন জায়গায় পরিচিতি রয়েছে প্রকৃতিকন্যা জাফলংয়ের। প্রকৃতি এখানে প্রতিনিয়ত হাতছানি দিয়ে ডাকে পর্যটকদের। আছে সুনীল জলের সমাহার। জাফলংয়ের পিয়াইনের স্বচ্ছ জলে গাঁ ভিজিয়ে বিমোহিত হচ্ছেন আগত পর্যটকরা।
সীমান্তের ওপাড়ে পাহাড়ের গাঁয়ে সবুজের সমারোহ, এক পাশে বহমান বিশাল সমতল জুড়ে ছড়িয়েÑছিটিয়ে থাকা পাথর আর পাথর, যেন কেউ বিছিয়ে রেখেছে পাথরের বিছানা। সব কিছু দেখেই যেন পর্যটকদের কমতি নেই বাধঁ ভাঙ্গা উল্লাসের। তারা যেন খোজেঁ পেয়েছেন কুড়িয়ে পাওয়া এক নতুন সুখ। স্বচ্ছ জলে গাঁ ভিজিয়ে রোমাঞ্চকর অনুভূতি পর্যটকদের দেয় সীমাহীন আনন্দ। ভেসে ওঠে লাবণ্যময়ী প্রাকৃতিক এক অনন্য জলছবি।
কেউবা আবার হাতে থাকা স্মার্ট ফোন কিংবা ক্যামেরায় বন্দি করে নিচ্ছেন সুখের এই প্রতিচ্ছবিকে। আবার তরুণ-তরুণীদের সেলফিবাজিতে পরিবেশ হয়ে পড়েছে আরো মনোমুগ্ধকর। আর সেই পাহাড়ের পাশ ঘেষে বয়ে গেছে নদী এবং পাহাড়ের গাঁ থেকে অবিরাম ঝর্ণাধারা প্রকৃতির সবটুকুই যেন লুটুপটি খাচ্ছে এখানে। বিশেষ করে বল্লাঘাটের জিরো পয়েন্টে ডাউকী নদীর উপড় ঝুলন্ত ব্রীজ আরো বেশী আকৃষ্ট করে পর্যটকদের।
আর প্রকৃতির ঢেলে সাজানো এসব দৃশ্যাবলী দেখতে ঈদ পরবর্তী ছুটির দিন গুলোতে পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে রয়েছে পর্যটকদের উপচেপড়া ভীড়। এসব পর্যটকদের আপ্যায়ন করতে প্রস্তুত রয়েছে বিভিন্ন প্রকার আবাসিক-অনাবাসিক হোটেল রেস্তোরা। পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে গড়ে উঠেছে ভিন্ন রকমারী ব্যবসা বানিজ্য। এতে রয়েছে দেশী-বিদেশী কাপড়-চোপড়ের ব্যাপক পসরা এবং কসমেটিকসহ নানা রকম উপহার সামগ্রী।
সরজমিনে পরিদর্শনে দেখা যায়, ঈদের দিন থেকে গতকাল শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত প্রতিদিন লক্ষাধিক পর্যটকদের পদচারনায় মুখরিত পর্যটন কেন্দ্রগুলো। পর্যটন এলাকার কোথাও যেন তিল ধারণের ঠাই নেই। পর্যটন এলাকার প্রবেশ মূখ গুলোতে কয়েক শতাধিক পর্যটক-বাহী গাড়ী যানজট লক্ষ্য করা গেছে।
ঢাকা থেকে গাজিপুর থেকে স্বপরিবারে বেড়াতে আসা পর্যটক আয়নাল হোসেনও ব্রাক্ষনবাড়িয়া থেকে গুরতে আসা হোসেন মিয়া জানান, প্রকৃতি কন্যা এমন রূপ বৈচিত্র থেকে সত্যিই আমরা বিমোহিত। স্বপরিবারে এমন সুন্দর একটা যায়গায় আসতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে হচ্ছে। তবে আনন্দটার পুর্ণমাত্রা পেত যদি রাস্তার এমন বেহাল দশা না থাকতো।
তিনি বলেন ঘুরে ফিরে একটি প্রশ্ন মনের মাঝে বার বার ঊকি দিচ্ছে সম্ভাবনাময় এসমস্ত পর্যটন কেন্দেগুলোর যাতায়তের এমন বেহাল দশা কেন.? শুক্রবার ঈদের ৩য়দিনে পর্যটন স্পটগুলোতে পর্যটকদের পদচারনায় মুখরিত ছিল চারপাশের পরিবেশ। কোথাও যেন ফাঁকা নেই। তবে এখানকার যোগাযোগ ব্যাবস্থার অভিযোগ থাকলেও প্রাকৃতিক সৌন্দর্য সুধা তা ভূলিয়ে রাখে পর্যটকদের। পর্যটকরা বলছেন, একটা পর্যটন কেন্দ্রের রাস্তাঘাট দেখে সত্যিই আমরা অবিভূত। এই বেহাল যোগাযোগ ব্যাবস্থার কারনে জাফলং মেলে ধরতে পারছে না তার নতুন সৌন্দয্যের্র হাতছানি। অথচ কোটি টাকার রাজস্ব দিলেও এই রাস্তাঘাটের কোন উন্নতি করছে না সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ এমনটাই অভিযোগ স্থানীয় জন-সাধারনদের। তারপরও স¤প্রতি প্রকৃতিকন্যা নজর কারতে সক্ষম করছে পর্যটকদের।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now