শীর্ষ শিরোনাম
Home » রাজনীতি » ইসিতে নিয়োগ: সার্চ কমিটির আগে আলোচনা চায় বিএনপি

ইসিতে নিয়োগ: সার্চ কমিটির আগে আলোচনা চায় বিএনপি

bnp_128656ডেস্ক রিপোর্ট:
নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠনের জন্য সবার মতামতের ভিত্তিতে সার্চ কমিটি গঠনের তাগিদ দিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সরকারকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন গঠনের নামে  সার্চ কমিটি করুন আর যাই করুন, জনমতের বাইরে গিয়ে কোনো কমিটি জনগণ মেনে নেবে না।’

মঙ্গলবার বিকালে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নবম কারামুক্তি দিবসে ঢাকা মহানগর বিএনপির আলোচনায় ফখরুল এসব কথা বলেন।

সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের গ্রেপ্তার হওয়ার পর ২০০৮ সালের ১১ সেপ্টেম্বর মুক্তি পেয়েছিলেন খালেদা জিয়া। ঈদুল আজহার কারণে ওই দিনের কর্মসূচি বাতিল করে আজ পালন করা হয়। মহানগর বিএনপি আয়োজিত আলোচনায় বিভিন্ন ইউনিট থেকে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা মিছিলসহ অনুষ্ঠানস্থলে আসেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার ও নির্বাচন কমিশন ছাড়া বিএনপি নির্বাচন চায় না। গৃহপালিত নির্বাচন কমিশনের অধীনে আবারো নির্বাচন হলে জনগণ মেনে নেবে না।’

নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলনে থাকা বিএনপি-জামায়াত জোট ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন বর্জন করে। আগামী জাতীয় নির্বাচনও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে দিতে হবে বলে জানাচ্ছে দলটি। তবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেতারা বলছেন, আগামী নির্বাচনও সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচিত সরকারের অধীনে হবে এবং সে নির্বাচনে বিএনপি অবশ্যই অংশ নেবে।

নির্দলীয় সরকারের পাশাপাশি শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন করার দাবি আছে বিএনপির। বর্তমান কমিশন নিয়ে দলটির জোরালো আপত্তি আছে। এই কমিশন সরকারের প্রভাবদুষ্ট বলে অভিযোগ করছে দলটি।

রকিবউদ্দীন আহমেদের নেতৃত্বে নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ শেষ হচ্ছে সহসা। এরই মধ্যে নতুন কমিশন গঠনে সার্চ কমিটি করার জন্য ফাইল চলাচল শুরু হয়েছে বলে খবর বের হয়েছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘গৃহপালিত নির্বাচন কমিশনের অধীনে নির্বাচনও মেনে নেয়া হবে না।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘মানুষকে ধোঁকা দেয়ার জন্য নির্বাচন কমিশনের নতুন লোকদের নিযুক্ত করতে সার্চ কমিটির নামে নাটক করা শুরু হয়েছে। আগেও তারা এমনটা করে কমিশনে লোক নিয়োগ দিয়েছিল। কিন্তু তারা যে নির্বাচন করেছিল তা দেশের মানুষ দেখেছে।’

আমীর খসরু বলেন, ‘সবার সঙ্গে আলাপ আলোচনা করে, গণভোটের মাধ্যমে সার্চ কমিটি করে নির্বাচন কমিশন গঠন করতে হবে। পাশাপাশি নির্বাচনের সঙ্গে সম্পৃক্ত সব প্রতিষ্ঠানকে নতুন করে নিরপেক্ষভাবে সাজাতে হবে। অন্যথায় সেই কমিশনের অধীনে কোনো নির্বাচন দেশের মানুষ মানবে না। আমাদেরকে সেই নির্বাচন প্রত্যাখ্যানই নয়, বাধাগ্রস্ত করতে হবে।’

আন্দোলনে বিএনপির ব্যর্থতার বিষয়টি ইঙ্গিত করে আলোচনা সভায় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘নির্বাচন নির্বাচন বাতাস শুনতেছি। কিন্তু শেখ হাসিনার সমস্যা কি সে নির্বাচন দেবে? আমরা এমন কি করতে পেরেছি?’ তিনি বলেন, ‘যখন বাধ্য করতে পারবো তখন শেখ হাসিনা নির্বাচন দেবে।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারসহ সব আন্দোলন সংগ্রামে বেগম খালেদা জিয়ার অবদান রয়েছে। এ কারণে আমরা তার কাছে ঋণী। তাই আমাদের এই ঋণ শোধ করতে হবে।’

মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মির্জা আব্বাসের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য দেন আব্দুল আউয়াল মিন্টু, শামসুজ্জামান দুদু,  মো. শাহজাহান,  নিতাই রায় চৌধুরী প্রমুখ।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now