শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » গ্রুপিং-এর কবলে কবলে ধর্মীয় রাজনীতি: উত্তরণ কোন্ পথে

গ্রুপিং-এর কবলে কবলে ধর্মীয় রাজনীতি: উত্তরণ কোন্ পথে

untitled-7_102126মাওলানা সাজিদুর রহমান: রাজনৈতিক দলে গ্রুপিং লবিং থাকে। এটা স্বাভাবিক। স্বাভাবিক বললাম- সাধারণ রাজনীতিতে এটা প্রায়শই পরিলক্ষিত হয়। কারণ, দেশ ও জনগণের সেবায় রাজনীতির কথা বলা হলেও আসলে তারা রাজনীতি করে নিজের পেটের জন্য। অর্থ-বিত্ত প্রভাব-প্রতিপত্তি ও ক্ষমতার জন্য। দেখা যায় নির্বাচনী বৈতরণী পার হয়ে গেলেই নেতারা আর জনগণের কাছে নেই। পাশে নেই। জনতার দাবি-দাওয়া অভাব-অভিযোগ তারা কানে নেয় না। জনতার ভাষা বোঝে না। জনতার কাছে ঘেঁষে না। নেতাদের কাছে ভিড়া কঠিন হয়ে পড়ে। কেউ যেতে চাইলে বহু কষ্টে অতিক্রম করতে হয় একাধিক গেইট। দিতে হয় সেলামি নজরানা। তারপরও কাজ হবে কি না নেই নিশ্চয়তা। নির্বাচনে পাস ফেল তাদের কাছে আকর্ষণীয় ব্যবসা। এতে দু’হাতে পয়সা খরচ করাকে তারা ইনভেস্ট করা মনে করে। পাস করতে পারলেই মুনাফা তুলবার চিন্তায় বিভোর হয়। সব ধ্যান-জ্ঞান একে কেন্দ্র করেই আবর্তিত হয়। জনগণের চিন্তার সময়ই থাকে না। তাদের স্বার্থ দেখবে– এ ফুরসত নেই। যেহেতু রাজনীতি তাদের কাছে ব্যবসা; তাই তারা ব্যবসায় সুবিধা করতে কোন্দল করবে। দলাদলি করবে। গ্রুপিং লবিং করবে। এটাই স্বাভাবিক। কারণ, তারা দুনিয়ার জন্য রাজনীতি করে। আখেরাত ও সওয়াব-পুণ্য তাদের কাছে মুখ্য নয়।
তবে ইসলামি রাজনৈতিক দলে এটা অস্বাভাবিক অনাকাঙ্ক্ষিত অপ্রত্যাশিত। যে দলের ভেতরে সংঘাত থাকে- এটা আসলেই ইসলামি রাজনৈতিক দল কি না সন্দেহ হয়। স্বার্থকে কেন্দ্র করে সংঘাত, বিত্তকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, ক্ষমতা ও নেতৃত্বকে কেন্দ্র করে কোন্দল– ইসলাম এটা অনুমোদন করে না। ইসলামে এর কোনো অবকাশ নেই। স্বার্থবাদি পদাকাঙ্ক্ষি ও নেতৃত্বলোভীকে ইসলাম সামনের সারিতে যাওয়ার যোগ্য মনে কনে না। নেতৃত্বদানের উপযুক্ত মনে করে না। এদের হাতে নেতৃত্বকে নিরাপদ ও জনহিতকর মনে করে না। কারণ, ইসলামি রাজনীতির একমাত্র উদ্দেশ্য হলো খেলাফতে রাব্বানি প্রতিষ্ঠা পূর্বক দেশসেবার মাধ্যমে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন। ইসলামি রাজনীতির লক্ষ্য আখেরাত, ক্ষণস্থায়ী স্বার্থ বিত্ত বা দুনিয়া নয়। তাই ইসলামি কোনো দলে স্বার্থ বা ক্ষমতার জন্য গ্রুপিং কোন্দল দলাদলি হানাহানি ও রেষারেষি হতে পারে না। এটা অসমর্থনীয় অবৈধ ও হারাম। এসব করবে আর নিজেকে ইসলামি রাজনৈতিক কর্মী দাবি করবে– এটা হাস্যকর ও বেমানান।
কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য, কিছু অসাধু কর্মী ও গুটিকয়েক ক্ষমতালোভী তথাকথিত দাম্ভিক অর্বাচীন নেতার কল্যাণে কোনো কোনো ইসলামি রাজনৈতিক দলেও এ ক্যান্সার সংক্রমিত হয়েছে। এর প্রাদুর্ভাব এখন ছড়ানো ছিটানো ও চোখে পড়ার মত। অতিউৎসাহে জোরোশোরে এর চর্চা চলছে। বিজ্ঞ প্রাজ্ঞ ও বোদ্ধারা এদের উপদ্রবে ক্লিষ্ট হয়রান পেরেশান। এদের লাগাম যদি টেনে না ধরা হয়– এদের দৌরাত্ম্য যদি চলতেই থাকে, একপর্যায়ে জনগণ ইসলামি রাজনীতির প্রতি বিতৃষ্ণ ও বীতশ্রদ্ধ হয়ে পড়বে। সমাজে এর কোনো আকর্ষণ বা আবেদন অবশিষ্ট থাকবে না। সাধারণ ও ইসলামি রাজনীতির মধ্যে কোনো তফাত ব্যবধান বা ফারাক থাকবে না। আদর্শহীনতার পঙ্কিল ভাগাড়ে সব একাকার হয়ে যাবে। তাই এর একটা বিহিত করতে হবে।
বিহিত করতে হলে নির্ণয় করতে হবে এর কারণ কী? এ মহামারী কেন দেখা দিলো? ব্যাধিটা আসলে কোন্ জায়গায়?
আমরা মনে করি- ইখলাস ও লিল্লাহিয়াত, একে অন্যকে অগ্রাধিকার দান এবং পরস্পরে ছাড় দেওয়ার মানসিকতার ঘাটতিই এর অন্যতম কারণ। এটা সৃষ্টি হয়েছে তারবিয়াত তথা প্রশিক্ষণস্বল্পতা এবং প্রশিক্ষণহীনতার কারণে। ধর্মীয় রাজনৈতিক অঙ্গনে সম্প্রতি তারবিয়াতি মাহফিল ও প্রশিক্ষণের আয়োজন নেই বললেও অত্যুক্তি হবে না। আজকাল তরুণ কিশোর ও যুবকর্মীরা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজনে যতটুকু আগ্রহী, প্রশিক্ষণসভা আয়োজনে এর সিকিভাগও আগ্রহী নয়। তারা এর প্রয়োজনই মনে করে না। ফলে অধুনা তারুণ্য বেড়ে ওঠছে তারবিয়াতহীন বল্গাহীন চেতনায়। গ্রুপিং কোন্দল এরই বিষফল। প্রথমত, লৌকিক বায়বীয় কর্মকাণ্ড হ্রাস করে প্রশিক্ষণমূলক তৎপরতা দেশজুড়ে বৃদ্ধি করতে হবে। প্রত্যেহ দেশের কোথাও না কোথাও অন্তত দশটি স্থানে তারবিয়াতিসভা যেন অনুষ্ঠিত হয়– এটা নিশ্চিত করতে হবে। দ্বিতীয়ত, একটা যথেষ্ট পরিমাণ সময় গোটা দেশে প্রশিক্ষণের জোয়ার বইয়ে দেওয়ার পরও কোথাও যদি গ্রুপিং ও কোন্দল সমস্যা দেখা দেয়, কোনো ছাড় না দিয়ে তা কঠোর হস্তে দমন করতে হবে। সিদ্ধান্তহীনতায় ভোগা যাবে না। কারণ, এরপরও যে কর্মীর মধ্যে ইসলামি মূল্যবোধ ও রাজনীতির আদাব শিষ্টাচার আসবে না, তার কাছে গ্রহণযোগ্য নেতৃত্ব আশা করা ও শৃঙ্খলা নিয়মানুবর্তিতা আকাঙ্ক্ষা করা বাতুলতা। এমন কর্মী থেকে দলকে নিরাপদ দূরত্বে রাখার ব্যবস্থা করাই সঙ্গত হবে।
রাজনৈতিক দিকপালদের হৃদয়কন্দরে কথাগুলো যেন আবেদন সৃষ্টি করে, সমস্যাটি নিয়ে তারা যেন ভাবেন– অধমের এই প্রত্যাশা।
লেখক: শিক্ষক-জামিয়া মাদানীয়া আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর,বিয়ানীবাজার,সিলেট।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now