শীর্ষ শিরোনাম
Home » ইতিহাস-ঐতিহ্য » সিলেটের মাটি ও মানুষের প্রশংসা রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর যবানীতে !

সিলেটের মাটি ও মানুষের প্রশংসা রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর যবানীতে !

sylhet-sylhetreportশায়খ আবু রাইয়ান/আহমাদুল হক,সিলেট রিপোর্ট: সিলেটের মাটি ও মানুষের প্রশংসা রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর পবিত্র যবানীতে,তাও আবার সহীহ বুখারী ও মুসলিম শরীফের হাদীস দ্বারা প্রমাণীত! বলেন কী ? হ্যাঁ! শুধু তাই নয়,বিষয়টি প্রমাণীত হলে সমগ্র বাংলাদেশের জন্যই তা গৌরবের
সন্দেহ নাই! কারণ,সিলেট যে বাংলাদেশেরই অন্যতম একটি বিভাগ, তবে এজন্যই কি সিলেটকে আধ্যাত্মিক রাজধানী বলা হয়?
তবে দেখা যাক বুখারী-মুসলিমে বর্ণিত হাদীসখানা!

روى البخارى (4388) و مسلم (52) عن ابى هريرة رضى الله عنه عن رسول الله صلى الله عليه وسلم قال اتاكم أهل اليمن هم أرق أفئدة والين قلوبا والإيمان يمان والحكمة يمانية،

وفى رواية مسلم (52) جاء أهل اليمن هم أرق أفئدة،
الإيمان يمان والفقه يمان والحكمة يمانية،
সরল অনুবাদঃ
ইমাম বুখারী রাহঃ স্ব-সনদে হযরত আবু হুরায়রাহ রাযিঃ থেকে বর্ণনা করেন,তিনি রাসূলুল্লাহ (সাঃ) থেকে। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) ইরশাদ করেন-
তোমাদের মধ্যে আগমন করেছে ইয়ামনবাসী।
তাদের হৃদয় অত্যন্ত নরম এবং মন-মনন খুবই মোলায়েম। ঈমান তো ইয়ামনে এবং হিকমতও ইয়ামনে রয়েছে!
(সহীহ বুখারী,হাদীস নং-৪৩৮৮)
মুসলিম শরীফের বর্ণনায় রয়েছে-ইয়ামনবাসীর আগমন ঘটেছে,তাদের হৃদয় অত্যন্ত নরম। ঈমান তো ইয়ামনে,ফেক্বাহ ইয়ামনে এবং
হিকমতও ইয়ামনে রয়েছে! (সহীহ মুসলিম,হাদীস নং-৫২)
বলবেন হাদীসদ্বয়ে তো ইয়ামনের কথা,সিলেট কই? হ্যাঁ! দেখে নিন! মামা ও মুরশিদ সায়্যিদ আহমদ কবীর রাহঃ তাঁর ভাগনা হযরত শাহ জালাল মুজাররাদে ইয়ামানী রাহঃ কে ইয়ামনের এক মুষ্টি মাটি দিয়ে বলেছিলেন,যে মাটির সাথে অত্র মাটি মিলবে সেখানেই তুমি অবস্থান নেবে এবং সেখান থেকেই দ্বীন প্রচার করবে। এই কথাটি সু-প্রসিদ্ধ এবং সকল ঐতিহাসিকগণই একমত। সেমতে ইতিহাসে দেখা যায়, হযরত শাহ জালাল মুজাররাদে ইয়ামানী রাহঃ
৭০৩ হিজরী,মোতাবেক ১৩০৩ ইং সনে সিলেট আগমন করতঃ দুষ্টমতি-মহা পাতক গৌড়গোবিন্দকে নেস্তে-নাবুদ করে ইসলামী রাজ্য কায়েম করেছিলেন। এখানে মামার দেয়া মাটির সাথে মিলে যাওয়া বলতে যে,এই মাটির অধিবাসী,বিষয়টি এমনিতেই অনুমেয়। ফল কথা কী দাঁড়ালো? ইয়ামন ও সিলেটের মাটি
যেমন এক,ঠিক ইয়ামনের মানুষ এবং সিলেটের মানুষও অনুরূপ বৈশিষ্টের অধিকারী বটে! উপরিউক্ত হাদীসদ্বয়ে হুযুর (সাঃ) ইয়ামনবাসীর
যেমন প্রত্যক্ষ প্রশংসা করেছেন,ঠিক পরোক্ষভাবে সিলেটবাসীরও প্রশংসা করা হয়েছে বটে!! হুযুর (সাঃ) যেসব বৈশিষ্টের কথা উল্লেখ করেছেন,
তা হলো- (১) তাদের হৃদয় অত্যন্ত নরম এবং মন-মনন খুবই মোলায়েম। ২) তথায় ঈমান আছে। (৩) তথায় ফেক্বাহ আছে। (৪) তথায় হিকমতও আছে।
সমগ্র দেশের তুলনায় সিলেটবাসীর মধ্যে এসব বৈশিষ্টের সমাহার রয়েছে বটে! এজন্যই কি সিলেটকে বাংলাদেশের আধ্যাত্নিক রাজধানী বলা হয়।
ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, শাহ জালালে ছানী বলে খ্যাত (সাইয়্যিদ হুসাইন আহমদ মাদানি) মনীষারও একই কারণে সিলেটে ১৯২৬ সনের ডিসেম্বরে আগমন ঘটেছে! প্রতিষ্টা করেছিলেন খেলাফত বিল্ডিং মারকাযিয়া জামিয়া। এর পূর্বে তিনি মসজীদে নববীতে রওযা মোবারকের পার্শ্বে বসে সু-দীর্ঘ ১৬ বছর প্রায় বুখারী-মুসলিম সহ সিহাহ-সিত্তার পাঠদান করেছিলেন। সিলেট পাঁচ বছর হাদীসের পাঠদান এবং দ্বীনের
বহুমুখী খেদমতের পর বিশ্বশ্রেষ্ট প্রতিষ্টাণ দারুল উলূম দেওবন্দে সদরুল মুদাররিসীন হিসেবে
যোগদান করেন এবং তথায় আমরণ মোট ৪৫ বছর খেদমত আঞ্জাম দেন! তিনি দেওবন্দে চলে
গেলেও সিলেটবাসীর আবদার রক্ষার্থে ১৯৪৭ এর ১৪ ই আগস্টের পূর্বে ভারত থেকে পাকিস্তান বিভক্তির আগ পর্যন্ত প্রতি রামাযানে সিলেটে
অবস্থান করতঃ দ্বীনের বহুমুখী খেদমত আঞ্জাম দেন! শাহ জালালে ছানীর নামখানি জানতে ইচ্ছা করছে,তাই না?
তিনিই তো শাইখুল আরবে ওয়াল আযম সায়্যিদ হোসাইন আহমদ মাদানী রাহঃ! আজকের সিলেটের ৯৯ পার্সেন্ট মাদ্রাসা যাঁর শাগরেদ কিংবা শাগরেদের শাগরেদ,বা তাঁর আরো অধস্থন শাগরেদ দ্বারা প্রতিষ্টিত! অনুরূপভাবে সমগ্র দেশের প্রায় ৯০ পার্সেন্ট কওমী মাদ্রাসা প্রতিষ্টিত! সমগ্র দেশ সেরা যদি একশত আলেম বাঁচাই করা হয়,তবে তাঁর শাগরেদ,কিংবা শাগরেদের শাগরেদই হবে ৯০ জন! এক কথায় বলতে গেলে বাংলাদেশের শীর্ষ জামিয়া হাটহাজারীর মহা-পরিচালক আল্লামা আহমদ শফী (দাঃবাঃ) থেকে নিয়ে দেশের সিংহভাগ আলেমই তাঁর সোনালী ধারা থেকে! সারা দেশে তাঁর নামানুকরণে “মাদানিয়া” এবং “হোসাইনিয়া” নামে মাদ্রাসার নামকরণ করা হয়েছে প্রচুর! কথা হলো,দুই শাহ জালালের পদষ্পর্ষে ধন্য সিলেটবাসীর কি অতীত স্মরণ আছে?
সিলেট রিপোর্ট/সু-ফেব ২৪-৯-২০১৬images

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now