শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » প্রসঙ্গ সড়কে মৃত্যুর মিছিল : দায় কার?

প্রসঙ্গ সড়কে মৃত্যুর মিছিল : দায় কার?

imagesরাজু আহমেদ : আমাদের দেশের সড়ক গুলোতে যেন মৃত্যুর মিছিল চলছে। শুধু মাত্র যানবাহন চালকদের বেপরোয়াপনার কারণে প্রতিদিন এই মিছিল দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হচ্ছে। গেল আনন্দ উৎসব ঈদুল আজহার এক সপ্তাহে সারা দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় ১৪১ জন নারী পুরুষ আর শিশু নিহত হয়েছেন (একটি জাতীয় দৈনিকের তথ্য অনুযায়ী)। আর রোজার ইদের সময় মাত্র এক সপ্তাহে সারা দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়ে ছিলেন ১৮৬ জন লোক। এভাবে কত লোকের ঈদের আনন্দ বিষাদের ছায়ায় রুপ নিয়েছে তার হিসাব কে রাখে। এই শুধু দুই ঈদের হিসাব। এছাড়াও প্রতিদিন টিভিতে আর সংবাদ পত্রের পাতায় আমরা কত শত সড়ক দুর্ঘটনার খবর পড়ি। আর মর্মাহত হই। নিরবে নিবৃত্তে সমবেদনা আর সহমর্মিতা প্রকাশ করা ছাড়া আর কিছুই করার থাকেনা আমাদের।  কেউ মাদকাসক্ত হয়ে গাড়ি চালাচ্ছে। কেউ গাড়ি ড্রাইভ করতে গিয়ে ঘুমিয়ে পড়ছে। কেউ আবার বিরামহীন ভাবে টানা ৩৬ থেকে ৪৮ ঘন্টা পর্যন্ত গাড়ি ড্রাইভ করছেন। মানে সড়ক ব্যবস্থাপনায় যেন এক ধরণের নৈরাজ্য চলছে।
মানুষের জীবন নিয়ে যেন এক ধরনের ছিনিমিনি খেলা শুরু করেছেন আমাদের চালক সমাজ। তারা যে যেভাবে পারছেন  প্রশিক্ষণ নিয়ে হউক কিম্বা না নিয়ে হউক উঠে যাচ্ছেন যানবাহনের ড্রাইভিং সিটে। আঞ্চলিক সড়ক থেকে শুরু করে মহাসড়ক পর্যন্ত গাড়ি নিয়ে ছুটছেন। বিশ্ব সংস্থার তথ্য অনুযায়ী ২০১৫ সালে আমাদের বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনায় ৮ হাজার ৬শ ৪২ জনের প্রাণহানি হয়েছে। আর আহত হয়েছেন প্রায় ২২ হাজার লোক। নিহতেদের পরিবারে তো শোকের মাতম চলছেই। এদের মধ্যে অনেকেইতো অসময়ে পরপারে চলে গেছেন। সারা জীবনের কান্না নেমেছে এই ৮ হাজার ৬শ ৪২ পরিবারে। আর আহতদের পরিবারে নেমেছে অমানিশা। কিন্তু কেন, এই আমাদের অদক্ষ অনভিজ্ঞ আর আনাড়ি চালকদের সামান্য দায়িত্বহীনতা দেশের এতগুলো পরিবারকে দুঃখের সাগরে ভাসিয়ে দিচ্ছে। তাদের দেখার কিংবা তদারকি করার কেউ নেই। দেশে আলাদা সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় রয়েছে। রয়েছে বিআরটিএ নামক সরকারী দায়িত্বশীল সংস্থা। তাদের কাজ কি। আমাদের সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রীকে দেখা যায় তিনি দিনে রাতে দায়িত্ব পালন করে চলেছেন। অনেক জায়গায় সাধারণ মানুষের হাসির খোরাক যোগাচ্ছেন। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হচ্ছেনা। সড়ক দুর্ঘটনা কমানো দুরের কথা। দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রনে আনার জন্যে যা যা করণীয় তাও দৃশ্যমান নেই।
এইতো সেদিন দেখলাম ঈদের পরদিন তিন মাদকাসক্ত যুবক খোদ রাজধানীতে দিনে দুপুরে বেপরোয়া কার চালিয়ে এক নিরীহ দম্পতির প্রাণ কেড়ে নিল। ঈদের তৃতীয় দিন ঢাকা সিলেট মহা সড়কে এনা পরিবহনের একটি বেপরোয়া বাস বরযাত্রীবাহী একটি মাইক্রোবাসকে ধাক্কা দিয়ে দুমড়ে মুচড়ে দিল। সাথে সাথে প্রাণ হারালেন মাইক্রোবাসে থাকা বর আর বরের পিতাসহ ৮ জন। একটি দুর্ঘটনা সারা জীবনের কান্না। এই বাক্যটি আমরা প্রায় সময় যানবাহনের গায়ে লেখা দেখি। আমাদের যানবাহন চালকরা যাতে সচেতনতার সাথে তাদের বাহনটি ড্রাইভ করেন এজন্যে এই ধ্র“ব সত্য বাক্যটি যানবাহন তৈরির সময় মালিকের অনুমতি নিয়ে লিখে দেন প্রস্তুতকারকরা। অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় যে, যানবাহন চালকদের সেদিকে কোন ভ্রক্ষেপ নেই। তারা জীবনের চেয়ে সময়ের মূল্য বেশি দিতে প্রস্তুত। এর কারণ একটাই তাদের পরিপুর্ণ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে পারেনি রাষ্ট্র। অথবা তারা শুধুমাত্র উৎকোচের বিনিময়ে ড্রাইভিং লাইসেন্স হাতে পেয়ে গেছেন। যেটা আমাদের দেশে খুবই স্বাভাবিক ব্যাপার। এই ধরুন আপনি বাসা বাড়ি থেকে বের হয়েছেন অনেক অনেক জরুরি কাজ নিয়ে। বের হওয়ার সময় মমতাময়ী মা আর প্রাণপ্রিয় স্ত্রী অথবা পরিবারের অন্য কোন সদস্যদের সাথে কোন কথাও বলে যেতে পারেননি। উঠলেন যানবাহনে। আর সেই যানবাহনের চালক সময়ের মূল্য দিতে গিয়ে তার অসতর্কতার কারণে আপনাকে ফেলে দিলেন দুর্ঘটনায়। এতে আপনি হয়তো মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লেন, অথবা সারা জীবনের জন্যে আপনাকে পঙ্গুত্ব বরন করতে হলো। একবার দুচোখ বন্ধ করে তা যদি অনুভব করি আমাদের গা শিউরে উঠে। এভাবে প্রতিদিন আমাদের বাংলাদেশে কতশত পরিবারে নেমে আসছে দুর্ভোগ আর দুর্দশা। একজন চালকের সামান্য অসর্তকতার কারণে সারা জীবনের কান্না নেমে আসছে এক একটি পরিবারে।
এক একটি সড়ক দুর্ঘটনা আমাদেরকে তছনছ করে দিচ্ছে। দুর্ঘটনার কারণে কোন কোন পরিবার চিরতরে নিঃস্ব হয়ে যাচ্ছে। কোন পরিবারে নেমে আসছে চরম অন্ধকার আর মানবিক বিপর্যয়। কেউ হারাচ্ছে তার বেচেঁ থাকার সব অবলম্বন। এই একুশ শতকে দাড়িয়েও কি এতসব বিপর্যয় দেখবো আমরা?  ঈদ আসে মানুষের জীবনে আনন্দের বার্তা নিয়ে। কিন্তু এক একটি সড়ক দুর্ঘটনা মানুষের সেই আনন্দকে বিষাদে রূপ দেয়। অথচ আমাদের চালকদের সামান্যতম সতর্কতাবোধ সেই বিষাদ থেকে রক্ষা করতে পারতো।  সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধে আসলে দায়িত্ব নিতে হবে আমাদের রাষ্ট্রযন্ত্রকে। আমরা যতই যে যত বুলি আওড়াই আর কলম চালাইনা কেন কাজের কাজ এতে কিছুই হবেনা। জাতীয় ভাবে গুরুত্ব দিয়ে এই সমস্যা মোকাবেলায় এগিয়ে আসতে হবে সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয় আর সংস্থাকে। আর তবেই হয়তো কিছুটা হলেও সড়ক মহাসড়কে শান্তিতে নিঃশ্বাস নিয়ে যাতায়তের সুযোগ পাবেন যাত্রীরা।
লেখক : সিলেট প্রতিনিধি বার্তাসংস্থা রয়টার্স।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now