শীর্ষ শিরোনাম
Home » সুনামগঞ্জ » জামালগঞ্জে নৌ-পথে প্রকাশ্যে চলছে চাঁদাবাজি

জামালগঞ্জে নৌ-পথে প্রকাশ্যে চলছে চাঁদাবাজি

imagesতৌহিদ চৌধুরী প্রদীপ, জামালগঞ্জ থেকে : সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ থানার দুই কিলোমিটার অদুরে দুর্লভপুর সুরমা নদী ও রক্তি নদীতে প্রকাশ্যে চলছে বেপরোয়া চাঁদাবাজি। অথচ পুলিশ বলছে এলাকায় কোন চাঁদাবাজি হয়না। দুর্লভপুর খেয়া ঘাটে মালামাল উঠা নামার সময় নোঙ্গর করা জাহাজ ও নৌকা থেকে ৫০ টাকা করে টোল আদায় করার কথা থাকলেও ইজারার নামে চলন্ত নৌকা থেকে চাঁদাবাজ চক্রটি চাঁদা হাতিয়ে নিচ্ছে। এলাকার চাঁদাবাজ চক্রটি বছরে প্রায় কোটি টাকার চাঁদা হাতিয়ে নিচ্ছে বলে জানা যায়। এ নৌ-পথে যারা চাঁদাবাজি করে তারা খুবই ভয়ঙ্কর। চাঁদাবাজদের সাথে সরকার দলের কতিপয় পাতিনেতার সম্পৃক্ততা রয়েছে বলেও স্থানীয়রা জানান।
সরকারের শুক্ল ষ্টেশন থেকে রয়েলিটি কৃত এলসির কয়লা বহনকারি ভলগেট, বালু বহনকারী ষ্টিল বডি নৌকা, কার্গোতে প্রকাশ্যে পেশাদার চাঁদাবাজদের চাঁদাবাজি এ যেন নিত্য-নৈমত্যিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাদের নিষ্ঠুরতা আর মারমুখী হুমকীতে বলগেট নৌকার মাঝি-চালকরা আতংকিত অবস্থায় জীবনের ঝুঁকিনিয়ে দুর্লভ পুর চলন্ত নদীপথে চলাচল করছেন। এমনই তথ্যই জানালেন ভুক্তভোগী মাঝি, চালক ও নৌযানের মালিকরা।

তাহিরপুর উপজেলার বড়ছড়া, টেকেরঘাট, ছাড়াগাঁও শুক্ল ষ্টেশ থেকে কয়লা, ফাজিলপুর, ছাতক, সুনামগঞ্জ, ভোলাগঞ্জ ও কোম্পানি গঞ্জের বিবিন্ন কোয়ারী থেকে বালু ও নুরী পাথর, কয়লা, চুনা পাথর ক্রয় করে সারা দেশে যোগান দেয় ব্যবসায়ীরা। এসব আমদানিকৃত পণ্য বহনের মাধ্যম জামালগঞ্জের রক্তি নদী ও সুরমা নদী। ওই নদীপথে ভলগেট, নৌকা গুলো চলাচলের সময় দুর্লভপুর নদীতে ইঞ্জিন চালিত ছোট নৌকা দিয়ে চাঁদা আদায় করে। সংঘবদ্ব ওই চাঁদাবাজ চক্রটি প্রতিদিন প্রায় দুই থেকে পাঁচ শতাধিক ভলগেট নেওকা থেকে ৫’শ থেকে ১’হাজার টাকা হারে চাঁদা অদায় করা হয় বলে জানান ভুক্তভোগীরা।
ভুক্তভোগীরা আরো জানান, চাঁদাবাজদের কথামতো চাঁদা না দিলে মারপিটসহ প্রান নাশের হুমকি দেয় তাদের কে। নদী পথে অসংখ্য স্পটে চাঁদাবাজির দৃশ্য বড়ই নির্মমতা বর্ণনা করেন তারা। বলগেট চালক কার্গোর মাস্টার ও সুকানীরা চাঁদা দিতে বিলম্ব কিংবা অপরাগতা প্রকাশ করলেই শুরু হয় তাদের উপর শারীরিক নির্যাতন।

এমন কি ভলগেট থেকে তাদের খাবার ও পরনের কাপড় সহ বিভিন্ন সরঞ্জামাদি জোড় পূর্বক নিয়ে যায় বলে জানিয়েছেন চালকরা। দুর্লভপুর বাজারে আসা এলাকার অর্ধবয়সের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ ক’জন বলেন, এইডা কি নয়া দেখতাচইন ? সারা বছরই তারা এই চাঁদা তোলে, পুলিশ সব জানে, দেখে তারা কিছুই কয়না সব টেকার কাছে ধরা। এ ছাড়া আরো জানা যায়, চাঁদাবাজ চক্রটি সরকার দলীয় রাজ নৈতিক পরিচয় বহন করছেন এমন অভিযোগ রয়েছে অনেকের বিরুদ্ধে।
নদীতে ভলগেট চালকদের সাথে কথা হলে এ প্রতিবেদকে কাছে পেয়ে কান্না বিজড়িতকন্ঠে তারা আরো বলেন, সাংবাদিক ভাই “পেট বাঁচাতে আমরা অনেকেই পিঠ পেতে দেই”। অনেক সময় টাকা দিয়েও আমারদের জীবন বাঁচানো কঠিন হয়ে পড়ে। তবুও পেটের টানে আর বাচ্চা-কাচ্চা খাওন যোগাতে এই পথে আসতে হয় আমাদের। জানা যায়, প্রতি নৌযান থেকে অযৌক্তিক অন্যায় ও বে-আইনীভাবে ৫শত, ১হাজার- রক্তিতে প্রবেশ করলে ২হাজার টাকা পর্যন্ত প্রতি নৌকা থেকে চাদাঁ আদায় করা হয়। পরিবহনের মাস্টার লিটন মিয়া বলেন, চাদাঁবাজদের হাতে অনেকেই শারীরিক নির্যাতনের শিকার হই। পরিবহন মাস্টার সজল মিয়া, আঃ সালাম, ইদ্রিস মিয়া বলেন, আপনারা খোঁজ নিয়ে দেখেন কারা এই চাঁদা আদায় করে।

সরকার সুষ্ঠু নজরদাররি মাধ্যমে চাঁদা বাজি বন্ধে সরকার যদি সুনামগঞ্জ মালবাহি নৌযান শ্রমিক সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী তালুকদার বলেন, রক্তিতে খালি বডি নৌকা ডুকলেও ১ থেকে দেড় হাজার টাকা আদায় করে চাঁদাবাজরা, থানা থেকে বেশী দুরে না আথচ এ ব্যাপারে পুলিশ কোন ব্যবস্থা নেয়না। কেন্দ্রীয় ভলগের্ড কার্গো নৌকা সমিতির সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম জানান, নৌ-পথে চাঁদাবাজদের অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে গত বছর সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারসহ উর্ধবতন কর্তৃপক্ষের বরাবর তাদের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছিল। অভিযোগের পর প্রশাসনের হস্থক্ষেপে কয়েক মাস নদীতে কোন চাঁদাবাজ ছিলনা। পরবর্তীতে চাঁদাবাজি ব্যাপক হারে বৃদ্বি পাওয়ায় নদীপথে যে কোন সময় ভলগেড কার্গো নৌকা চলাচল বন্ধ হয়ে যেতে পারে। এতে সরকারের কোটি কোটি টাকা রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হবে।

জামালগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও জেলা মুক্তিযোদ্ধ ইউনিটের ডেপুটি কমান্ডার ইউসুফ আল-আজাদ বলেন, নদীতে আরকাটির অজুহাতে দুর্লভপুর হয়ে গজারিয়া ও শ্রীমন্তপুর এলাকায় বেপরোয়া চাঁদাবাজি হয়। বার-বার প্রশাসন ও পুলিশ কে জানানো হয়েছে কোন উপায় হয়নি। রক্ষকরা যদি ভক্ষক হয় তা হলে যা হওয়ার তাই হচ্ছে আমাদের এলাকায়।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান  রেজাউল করিম শামীম বলেন, উপজেলা পরিষদ থেকে খেয়া ঘাট ইজারা নিয়ে, যে ভাবে টাকা তোলার কথা সে ভাবে তোলছেনা অবৈধ ভাবে চাঁদাবাজি করছে। আমি বিষয়টি উপজেলা নির্বাহি অফিসার কে অবগত করেছি, তিনি পদক্ষেপ নেবেন বলে জানিয়েছেন। জামালগঞ্জ থানার দায়িত্ব প্রাপ্ত অফিসার এস.আই আনোয়ার হুসেন বলেন, আমি দুর্লভপুরের এখনই পুলিশ পাঠাচ্ছি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা টিটন খীসা বলেন, উপজেলার দুর্লভপুরের চাঁদাবাজির বিষয়টি আমার কানে এসছে আামিও জানি। থানার অফিসার ইন-চার্জ কে বিষয়টি গুরুত্বে সাথে দেখতে বলেছি। আমি কয়েকবার চাঁদাবাজদের ধরতে গিয়ে ছিলাম। আমার উপস্থিতি টের পেয়ে চাঁদাবাজরা পালিয়ে যায়। এদের কে ধরে আইন আওতায় আনা হবে।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now