শীর্ষ শিরোনাম
Home » জাতীয় » নগরে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর সংখ্যা বেড়েছে ২০ লাখ, গ্রামে কমেছে ৯০ লাখ

নগরে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর সংখ্যা বেড়েছে ২০ লাখ, গ্রামে কমেছে ৯০ লাখ

poor_148ডেস্ক রিপোর্ট: ২০ বছরে বাংলাদেশের নগরে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর সংখ্যা বেড়েছে ২০ লাখ, আর গ্রামীণ দরিদ্র জনগোষ্ঠীর সংখ্যা কমেছে ৯০ লাখ। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) এবং পাওয়ার অ্যান্ড পার্টিসিপেশন রিসার্চ সেন্টার (পিপিআরসি) আয়োজিত দুইদিন ব্যাপী ‘নগর দারিদ্র্য’ বিষয়ক আন্তর্জাতিক সেমিনারে ১৯৯১ সাল থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত সময়ের এক পরিসংখ্যানে এ তথ্য তুলে ধারা হয়।
শনিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ের এলজিইডি মিলনায়তনে সেমিনারে আরও বলা হয়, দক্ষিণ এশিয়ায় গত পাঁচ দশকে বাংলাদেশে নগরায়ণের হার সবচেয়ে বেশি। স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশে প্রতিবছর নগরে বসবাসকারীর সংখ্যা বেড়েছে ৬ শতাংশ হারে। এর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে নগরে বেড়েছে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর সংখ্যা।

সেমিনারের উদ্বোধনী পর্বে পিপিআরসির নির্বাহী পরিচালক হোসেন জিল্লুর রহমানের সভাপতিত্বে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলের সেক্টর ম্যানেজার মিং ঝ্যাং। প্রবন্ধে বলা হয়, বাংলাদেশের মোট জিডিপির ৬০ শতাংশ আসে নগর থেকে। জিডিপিতে শুধু ঢাকার অবদান ৩৬ শতাংশ। ১৯৯১ থেকে ২০১০ সালের মধ্যে বাংলাদেশের নগরে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর সংখ্যা বেড়েছে ২০ লাখ। একই সময়ে গ্রামীণ দরিদ্র জনগোষ্ঠীর সংখ্যা কমেছে ৯০ লাখ।

প্রধান অতিথি পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ভিডিও বার্তায় বলেন, ‘জনগণ শহরে যে সুবিধা পাবে সরকার সেই সুবিধা গ্রামাঞ্চলে দেওয়ার চেষ্টা করছে। কর্মসংস্থান, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্যসেবার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এসব ব্যবস্থা করা হলে শহরে আসার প্রতিযোগিতা কমবে।’ এ পর্বে আরও বক্তব্য রাখেন, সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা অধ্যাপক ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ, পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আবদুল মান্নান।

সেমিনারের দ্বিতীয় পর্বে সভাপতিত্ব করেন ইনস্টিটিউট ফর ইনক্লুসিভ ফাইন্যান্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের নির্বাহী পরিচালক এম কে মুজেরি। ‘নগর দারিদ্র্য: সেবা পাওয়ার সুযোগ’ শীর্ষক পর্বে পঠিত প্রবন্ধে বলা হয় ঢাকা শহরের ৭০ শতাংশ বাসিন্দা ভাড়া বাড়িতে থাকেন। ফোরাম ফর প্ল্যানড চট্টগ্রামের সভাপতি অধ্যাপক সেকান্দার খানের সভাপিত্বে আলোচনায় অংশ নিয়ে ইনস্টিটিউট অব আর্কিটেক্টসের সাবেক সভাপতি মোবাশ্বের হোসেন বলেন, রাজধানীতে বস্তির বাসিন্দারা অন্য বাসিন্দাদের চেয়ে বেশি বাসা ভাড়া দেন। বর্তমানে শহরের যেসব সমস্যা আছে, সেগুলো সমাধানে সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা দরকার।

আলোচনায় অংশ নেন বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্সের সভাপতি অধ্যাপক আবুল কালাম, সাধারণ সম্পাদক আকতার মাহমুদ ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী মো. নুরুল্লাহ।

‘বস্তির বাস্তবতা’ শীর্ষক দিনের শেষ পর্বে সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক নজরুল ইসলাম। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক রাশেদা রওনক খান তাঁর প্রবন্ধে বলেন, দেশের মোট বস্তির ৫৫ শতাংশই ঢাকায়। বস্তির বাসিন্দারা শহরের পরিকল্পনায় গুরুত্ব পায় না, বাসস্থান ও স্বাস্থ্যসেবার সংকটে থাকে এবং তাদের কর্মসংস্থানের অভাব থাকে। সেমিনারে সমাপনী বক্তব্য রাখেন নজরুল ইসলাম। তিনি বলেন, ৪০ বছর ধরে নগর দারিদ্র্য নিয়ে গবেষণা হচ্ছে। কিন্তু তাদের অবস্থার পরিবর্তন হয়নি। নগরের দরিদ্র ব্যক্তিদের স্বল্পমূল্যে গৃহায়ণের ব্যবস্থা করতে হবে। দারিদ্র্যবান্ধব নগরায়ণ নীতি নিতে হবে।–Avgv‡`i mgq

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now