শীর্ষ শিরোনাম
Home » মৌলভীবাজার » রুপষপুর : নির্মম মৃত্যু-উপত্যকায় বিষাদের উপাখ্যান

রুপষপুর : নির্মম মৃত্যু-উপত্যকায় বিষাদের উপাখ্যান

imagesজিয়া রাহমান: কথা ছিলো সকাল নয়টায় আমরা সিলেট থেকে রওয়ানা দিবো কমলগঞ্জের মুন্সীবাজার ইউনিয়নের রুপষপুর গ্রামের উদ্দেশে৷ সময়ানুবর্তিতায় আন্তরিক ছিলাম বলে সোয়া নয়টার দিকে আমরা চারজন মাওলানা আবুল কালাম, মাওলানা রফিকুল ইসলাম জাকারিয়া, মাওলানা ইনাম বিন সিদ্দীক ও আমি আমি নাচিয সিলেট কদমতলী থেকে তাওয়াক্কালতু আলাল্লাহ বলে রওয়ানা দেই৷ আলহামদুলিল্লাহ! টার্গেট সময়ের ভিতরে আমরা মুন্সীবাজার পৌঁছে যাই৷ সেখানে আমাদের রিসিভ করেন মাওলানা লুৎফুর রহমান জাকারিয়া, মাওলানা মশহুদ আহমদ ও মাওলানা শওকত আলী, পরে এসে যোগ দেন মাওলানা খালেদ বিন শাওকী, মাওলানা আমীরুল ইসলাম, মাওলানা জয়নাল আবেদীন৷

রুপষপুর বাজার পৌঁছেই রুপষপুর এলাকার মুরব্বিয়ান, উলামায়ে কেরাম, বিশেষ করে আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর মাদরাসার মুহাদ্দিস মাওলানা আবদুল হাফিজ সাহেব দা,বা, ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে এক বড় বৈঠকে সবাইকে একত্র পেয়ে যাই৷ এটা ছিলো আমাদের জন্যে না চাইতেই বাড়তি পাওয়া৷ তারাও সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত আটজন ব্যক্তির পরিবার নিয়েই জরুরি মিটিং করছিলেন৷ যাক আমরা একত্র পেয়ে সবাইক কৃতজ্ঞতা জানালাম৷ নিহত ব্যক্তিদের অসহায় পরিবারের জন্যে আমরা কিছু করতে চাই বলে সকলের সহযোগিতা চাইলাম৷ মূলত আমাদের দিকে তাকিয়েই দুআর মাধ্যমে আজকের বৈঠক তারা মুলতবি করে নিলেন৷ শুধু তাই নয় এলাকার উলামায়ে কেরাম ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ নিহতদের পরিবারে যাওয়াতে আমাদের সঙ্গ দিলেন৷ রাহবারের ভূমিকা পালন করলেন৷ কী যে নিঃস্বার্থ আন্তরিকতা! অকৃত্রিম ভালোবাসা! গ্রামের ফরমালিনমুক্ত শাকসবজির মতোই পিওর৷ যে আন্তরিকতা আর ভালোবাসা কেবল গ্রামেই পাওয়া যায়৷ শহরে যা কল্পনা করাও দোষের৷

প্রথমেই মুক্তার মিয়া চৌধুরীর বাড়িতে গেলাম৷ তিনিও নিহত হয়েছেন এই দুর্ঘটনায়৷ চার সন্তানই প্রবাসী৷ কেউই বাবাকে শেষ দেখা দেখতে পারলেন না৷ দুর্ঘটনায় নিহত ছয় পরিবারের জন্যে সুন্নাত হিসেবে কিছু ফল হাদিয়া নিয়েছিলাম, তা দিয়ে আমরা ১০/১২ জনের এই পয়দল কাফেলা গেলাম নিহত মাওলানা আবু সুফিয়ানের মামা ভাগিনার বিয়ের যাত্রী হয়ে জীবনের চূড়ান্ত যাত্রার যাত্রী দুরুদ মিয়ার বাড়িতে৷ দুরুদ মিয়া রাজমিস্ত্রির কাজ করতেন৷ ১৪/১৫ বছরের ছেলে থাকত বাবার যোগালির (সহযোগি) কাজে৷ একমাত্র উপার্জনক্ষম বাবা কিশোর ছেলেকে নিয়ে সংসার চালাতেন৷ এক ছেলে, চার মেয়ে ও স্ত্রীর সংসারে #দুই_মেয়েই_বিয়ের_উপযুক্ত৷ ভাঙাচোরা ঘর, তাও এক পার্শ্বের বেড়া নেই, সম্পূর্ণ খোলা৷ এই ভাঙা ঘরে তারা রাত কাটায় কেমনে? ভাবতেই গা শিউরে ওঠে৷ দুটি উপযুক্ত মেয়ের ভবিষ্যতের কথা ভাবলে নিজেরই চিন্তাশক্তি শ্লথ হয়ে আসে৷ আমরা সরেজমিন না গেলে এই অসহায়, অনাথ পরিবারটির করুণ দুর্দশাগ্রস্ত অবস্থা সবার অজানাই থেকে যেতো৷ এখন একমাত্র ১৪/১৫ বছরের যোগালির কাজ করা ছেলেটিই পরিবারের একমাত্র পুরুষ৷

এরপর আমরা দুর্ঘটনায় নিহত আবদুল হান্নান সাহেবের বাড়িতে গেলাম৷ নিহত বাবার চার ছেলে৷ মোটামুটি চলনসই পরিবার৷ হাদিয়া দিয়ে সহমর্মিতা ও সান্তনা দিয়ে চলে এলাম বর সেজে জীবনের শ্রেষ্ঠতর আনন্দ ও সুখানুভূতির লক্ষ্যপানে ছুটে চলে জীবনসঙ্গিনীকে বরণ করে নেয়ার স্বপ্নের দিনে নির্মম মৃত্যুকে বরণ করে নেয়া মাওলানা আবু সুফিয়ানের বাড়িতে৷ জনমদুঃখিনী মা’কে সালাম দিলাম৷ কিন্তু একসঙ্গে স্বামী-সন্তান হারানো এই পরম দুঃখিনীকে সান্তনার ভাষা খোঁজে পেলাম না৷ একপ্রকারের অপ্রকৃতস্থ মা আজও স্বামী ও সন্তানের প্রহর গুনছেন৷

পাশের ছোট্ট জীর্ণশীর্ণ কুঠুরিটি মাওলানা আবু সুফিয়ানের চাচা মুর্শিদ আলির৷ মুর্শিদ আলী ১০ বছরের একমাত্র সন্তানকে কোলে নিয়ে ভাতিজার বিয়ের যাত্রী হয়ে প্রকারান্তরে তিনিও মৃত্যুর মিছিলের অন্যতম যাত্রী৷ বাবার সঙ্গে ১০ বছরের শিশুপুত্রেরও করুণ মৃত্যু হয় বাবার কোলেই৷ মাওলানা আবু সুফিয়ানের চাচার এই পরিবারটির দিকে তাকালে নিজেকে সংবরণ করে রাখা কঠিন৷ #বিয়ের_অন্তিম_উপযুক্ত_একটি_মেয়ে বেচারার৷ অশীতিপর নানী মেয়েটিকে নিয়ে বাড়িতে আছেন৷ মা এই ঘটনায় পক্ষাঘাতগ্রস্ত হয়ে বাবার বাড়ি৷ মা-মেয়ে ছাড়া এই পরিবারে আর কোনো সদস্য নেই৷

যুহরের নামায জামাতের সঙ্গে আদায় করার সবার কবর যিয়ারত করে সর্বশেষ গেলাম মাওলানা সাঈদুর রহমানের এতিম দুটি বাচ্চা ও শতবর্ষী বাবাকে দেখার জন্যে৷ এতিম দুটি সন্তান ও বিধবা মায়ের জন্যে ঘর বানিয়ে দেয়া সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা সেরে বিদায় নিলাম৷ পথিমধ্যে মাওলানা জাকারিয়া ভাইদের বুযুর্গানে দ্বীনের স্মৃতিবিজড়িত বাড়িতে দুপুরের খাবার খেয়ে পরবর্তিতে আবারও আসার আশাবাদ ব্যক্ত চলে এলাম বিদায় নিয়ে৷
প্রতিটি পরিবারের বেঁচে যাওয়া সদস্যদের অশ্রু শুকিয়ে গেছে অনেক আগেই৷ শোকে পাথর হয়ে যাওয়া মানুষগুলোর ভেতর থেকে শুধু অস্পষ্ট বোবাকান্না ছাড়া যেন কোনো সম্বলই আর তাদের অবশিষ্ট নেই৷ আমাদের প্রতি তাদের প্রতিটি নির্বাক চাহনিই বলে দেয় অধিক শোকে পাথর হওয়া কাকে বলে৷
#জিয়া রাহমান এর ফেসবুত থেকে সংগৃহিতnat

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now